ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ইমেজ ফেরাতে ক্রসফায়ার

admin
August 19, 2015 9:47 pm
Link Copied!

শিশু হত্যা ও নির্যাতন ইস্যুতে সাম্প্রতিক সময়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে ক্ষমতাসীন দল। এ সব ঘটনায় ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা জড়িত থাকায় সরকারের ভেতরেও দেখা দিয়েছে ব্যাপক অসন্তোষ।

সাম্প্রতিক সময়ে মাগুরায় মাতৃগর্ভে শিশু গুলিবিদ্ধ হবার ঘটনা ও রাজধানীতে চুরির অপবাদে এক কিশোরকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় নাম এসেছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের বিরুদ্ধে। এই দু’টি ঘটনার প্রধান দুই আসামী সোমবার রাতে পুলিশ ও র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছেন। তবে চাঞ্চল্যকর এই দু’টি ঘটনার প্রধান আসামীদের ক্রসফায়ারে নিহত হবার ঘটনার সমালোচনা করেছেন শিক্ষক ও মানবাধিকার কর্মীরা।

মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ, নিজেদের দলের নেতা-কর্মীদের ‘ক্রসফায়ারে হত্যা’র মাধ্যমে সরকার হারানো ইমেজ পুনরুদ্ধারে নেমেছে। এ জন্য তারা আইন-কানুন ও সংবিধানের কোনো তোয়াক্কা না করেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দিয়ে বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড করাচ্ছেন।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. গোবিন্দ চক্রবর্তী বলেন, ‘সরকার হয়ত ভাবছে এ সব বিচার বহির্ভূত হত্যার মধ্য দিয়ে জনগণকে বুঝাবে শিশু নির্যাতন ও হত্যার বিষয়ে তারা খুবই সিরিয়াস। কিন্তু এতে করে রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে না। মানুষ জানমালের নিরাপত্তা চায়। সবকিছুই আইনী কাঠামোর মধ্যে হোক এটাই জনগণ প্রত্যাশা করে। তিনি আরও বলেন, ‘ক্রসফায়ার বা বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড সমাজে ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করে। বাংলাদেশের নাগরিকরা নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিয়ে জীবনযাপন করছেন। তাই বলে মানুষকে নিরাপত্তা দিতে গিয়ে আরও নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতি বা ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করা উচিৎ হবে না।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য কাজী রেজাউল হক বলেন, ‘মাগুরাতে মায়ের গর্ভে যেভাবে শিশু ও মা দু’জনই গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন এটা তো মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। তবে আমাদের প্রত্যাশা পুলিশ এ সব অপরাধীদের ধরে এনে আদালতে সোপর্দ করবে। পুলিশের আইনগত বাড়াবাড়িও যেন মানবাধিকারের লঙ্ঘনের পর্যায়ে না যায়। মানবাধিকার কমিশনের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে এ সব হত্যাকান্ডের বিষয়গুলো আসলেই আমার কাছে পরিষ্কার না। আর এ ব্যাপারে আমার মন্তব্যও নেই। ক্রমফায়ারে সরকারের ইমেজ বাড়ে নাকি কমে এটা ভাববার বিষয়।

হংকংভিত্তিক এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশনের প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান বলেন, ‘পিটিয়ে শিশু হত্যা এবং মাতৃগর্ভে থাকাবস্থায় শিশু গুলিবিদ্ধ হওয়ার দু’টি ঘটনাসহ যে সব অপরাধ বাংলাদেশে সংঘটিত হচ্ছে, সে সবই আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর সর্বৈব ব্যর্থতার উদাহরণ। দু’টি অপরাধে অভিযুক্ত হিসেবে জনসমক্ষে প্রকাশিত ব্যক্তিদের দু’জনকে ‘ক্রসফায়ার’-এর অজুহাতে বিনা বিচারে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন হত্যা করে আরও বড় অপরাধ করেছে। ‘কিন্তু সরকার যেহেতু নাগরিকদের ভোটের বদলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর বন্দুক ও বুটের বলে বলীয়ান হয়েই টিকে আছে, তাই এ সব অপরাধের বিচার হওয়ার কোনো সম্ভাবনা আছে বলে মনে করার কারণ নেই।’— যোগ করলেন তিনি। তবে

এ সব অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘যারা ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছেন তারা সরকারদলীয় কোনো অঙ্গ বা সহযোগী সংগঠনের কেউ নন। সন্ত্রাসীদের কোনো দল নেই। যাদের বিরুদ্ধে শিশু ও নারী নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে পুলিশ তাদের খুঁজছে। জনগণের নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্ব সরকারের। কোনো সন্ত্রাসীদের নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্ব সরকারের নয়। তিনি আরও বলেন, ‘যারা বলছেন সরকার মানবাধিকার লঙ্ঘন করছেন তাদের বলব, এখন দেশে ২৬ বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ, বিশ্বব্যাংককে চ্যালেঞ্জ করে নিজস্ব অর্থায়নে দেশে পদ্মা সেতুর কাজ চলছে, সরকারের সাড়ে ছয় বছরে শিশু ও মাতৃমৃত্যুর হার শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে, মাথা পিছু আয় প্রায় ১৪ শ’ ডলার। এগুলো কি মানবাধিকার রক্ষা নয়? সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করবে আর পুলিশ জীবনরক্ষার্থে গুলি করলে মানবাধিকার লঙ্ঘন হবে? উল্লেখ্য, মাগুরায় মাতৃগর্ভে শিশু গুলিবিদ্ধের ঘটনার আসামী মেহেদী হাসান আজিবর (৩৮) পুলিশের সঙ্গে ও হাজারীবাগে কিশোর রাজা মিয়া (১৭) হত্যার আসামী থানা ছাত্রলীগ সভাপতি আরজু মিয়া র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। মেহেদী হাসান আজিবর সোমবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে কুষ্টিয়ার দোয়ারপাড়ায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন। অন্যদিকে রাজধানীতে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হাজারীবাগ থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আরজু মিয়াও (২৮) সোমবার রাতেই নিহত হয়েছেন। তিনি মোবাইল চুরির অভিযোগে কিশোর রাজাকে (১৭) পিটিয়ে হত্যার ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত ছিলেন।

http://www.anandalokfoundation.com/