13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ইতিবাচক চিন্তা করুন

admin
September 9, 2016 12:53 pm
Link Copied!

স্বাস্থ্য ডেস্ক: মাঝে মাঝে নেতিবাচক চিন্তাগুলো গ্রাস করতে শুরু করে। জোর করে তখন ইতিবাচক চিন্তাগুলোকে নিয়ে আসতে হয়। ইতিবাচক চিন্তা এবং দৃষ্টিভঙ্গির বদলই পারে অনেক কিছুকে সম্ভাবনাময় করতে।

ইতিবাচক চিন্তার বিষয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তানজির আহম্মদ তুষার বলেন, ‘আমাদের সব আবেগ নির্ভর করে চিন্তার ওপর। সে চিন্তা যদি ইতিবাচক করি, সব কিছু ইতিবাচক হবে। আর যদি নেতিবাচক করি সব নেতিবাচক হবে। নিজের অবস্থান, নিজের জায়গা সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে।’

ইতিবাচক চিন্তার ক্ষেত্রে কিছু বিষয় বাধা হিসেবে কাজ করে জানিয়ে  তানজির আহম্মদ তুষার বলেন, ‘যেমন নিজের ভালো দিকগুলোকে ছোট করে দেখা। আর হয়তো কিছুই হবে না সে রকম ভাবা। আবার অনেক সময় পারফেকশনিস্ট হলে নেতিবাচক চিন্তা বাড়ে। অন্যকে নিজের মতো করে ভাবতে চায় অনেকে। সেটা হয় না। এতেও নেতিবাচক চিন্তা বাড়ে।’

তাঁর মতে, ইতিবাচক চিন্তার বাড়ানোর জন্য ইতিবাচক অভ্যাস গড়ে তোলা প্রয়োজন। সে জন্য কিছু বিষয় মানা দরকার।

  • বাস্তবতার নিরীখে প্রত্যাশা করতে হবে।
  • দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করতে হবে।
  • ভাবতে হবে জীবনে একটি জানালা বন্ধ হয়ে গেলে অনেক জানালা খুলে যাবে।
  • খুব কঠিন সময় এলে এটাকে সাময়িক সময়ের জন্য মেনে নিতে হবে। কখনোই হেরে যাওয়া চলবে না।
  • ইতিবাচক চিন্তা বাড়াতে ব্যায়াম করতে পারেন।
  • ভালো গান শুনুন।
  • ধর্মীয় আচার-আচরণে ইতিবাচক চিন্তা বাড়াতে পারেন।
  • ইতিবাচক ভাবনা ভাবে এমন মানুষের আশপাশে থাকলে ইতিবাচক চিন্তা বাড়ে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় মনোবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. শাহীনুর রহমান বলেন, ‘ইতিবাচক চিন্তা বাড়াতে এর অনুশীলন করা প্রয়োজন।’

* কথা বলার সময় ইতিবাচক শব্দের ব্যবহার করুন।

* নেতিবাচক চিন্তাগুলোকে থামিয়ে রাখুন।

* সফলতার চিন্তাগুলো ভাবনায় নিয়ে আসুন।

* ইতিবাচক চিন্তাগুলোকে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করুন।

* সফল আপনি হবেনই এমন বিশ্বাস আনুন।

* নিজেকে ক্ষমাকরুন—নিজেকে কষ্টদিয়ে কিছু পরিবর্তন হবে না বরং নিজেকে ক্ষমা করে দিয়ে সামনে এগিয়ে যান।

* ভাবুন, ব্যাপারটা তো আরো খারাপ হতে পারত! এরচেয়ে যা হয়েছে এটাই বরং মেনে নেওয়া যাক।

অবসরে ইতিবাচক চিন্তা বাড়ানোর উপায়

* অনুপ্রেরণামূলক বই পড়ুন।

* শরীর চর্চা/ব্যায়াম করতে পারেন।

* আনন্দের গান শুনতে পারেন।

* কৌতুক শোনা।

* জীবনের মজার ঘটনার কথা মনে করা।

* কল্পনায় মজার জায়গার কথা ভাবতে পারেন।

http://www.anandalokfoundation.com/