বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
শিক্ষার্থীদের জন্য বিদ্যালয়ে পৃথক ও স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নিশ্চিত করা হবে -স্থানীয় সরকার মন্ত্রী   Foreign Minister inaugurates Smart NID Card in Abu Dhabi কালীগঞ্জে লবণ নিয়ে তুলকালাম ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ॥ গুজবের বিরুদ্ধে প্রচার মাইক কালীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি সম্পাদকের সাথে নেতাকর্মীদের মতবিনিময় পল্লী চেতনা আপেল প্রকল্পের জেন্ডার সমতা ও সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক প্রশিক্ষণ লম্বা লাইনে উচ্চ মূল্যে লবণ ক্রয় করায় বাজারের লবণ ফুরাতে বসেছে ময়না দেবনাথের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন ও জড়িতদের শাস্তির দাবিতে মানব বন্ধন জবে লবনের দাম বৃদ্ধি উলিপুরে দলবেঁধে লবন কিনতে বাজারে ক্রেতার ভীড় ফুলবাড়ীতে ইউ পি চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রতিবন্ধী নারী নির্যাতিত বাশাইলে হেমন্তকালীন কবিতা সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত

নবীজি হলেন পূর্ণিমার চাঁদ

নবী

আজ থেকে প্রায় দেড় হাজার বছর আগে পৃথিবী ছিল  জাহিলিয়াতে ঢাকা । মানুষ তখন জানতো না নিজেদের পরিচয়। পশুত্বের চেয়েও নিকৃষ্ট হয়ে উঠেছিল তাদের মন। তারা এতটাই অমানবিক ছিল যে নিজের ঔরসজাত সন্তানকেও জীবন্ত মাটিতে পুঁতে ফেলত। হানাহানি, মারামারি, রক্তারক্তি, কাফেলা লুট, নারী নির্যাতনসহ এমন কোনো মন্দ কাজ নেই, যা তারা করত না।

এমনই এক অন্ধকারাচ্ছন্ন সময়ে সমাজব্যবস্থাকে আমূল পরিবর্তনের জন্য ঐশী আলোয় আলোকিত নূরের চেরাগ জ্বেলে মক্কার কুরাইশ বংশে জন্মগ্রহণ করেন মুহাম্মদ (সা.)। তাঁর পিতা ছিলেন আবদুল্লাহ। আর মাতা আমিনা। মুহাম্মদ (সা.) এক আশ্চর্যময় পরিবর্তন আনেন সমাজে।

কীভাবে এ বর্বরোচিত সমাজের পরিবর্তন হবে, মানুষ সত্যিকারের মানুষে পরিণত হবে এ ধ্যানেই মগ্ন থাকতেন দিন-রাত। চল্লিশ বছর বয়সে হলেন নবী ও রাসূল। প্রভুর ঐশী বাণীকে মানুষের কাছে তুলে ধরলেন।

দয়ার সাগর নবীজি অবিশ্বাসীদের বিদ্রুপ, অমানুষিক নির্যাতনে ক্ষুব্ধ না হয়ে তাদের প্রতি দয়া দেখিয়ে করুণাময় রবের কাছে তাদেরই জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। তাদের ভালোবাসা দিয়ে সত্যের পথে ডেকেছেন। কারণ তিনি যে দয়ার নবী আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে এসেছে তোমাদের মধ্যকার এমন একজন রাসূল, তোমাদের দুঃখ যার কাছে দুঃসহ। তিনি তোমাদের হিতাকাক্সক্ষী, বিশ্বাসীদের প্রতি স্নেহশীল, দয়াময়।’ (সূরা তাওবা : ১২৮)।

নবীজির এ দয়া নারী, পুরুষ, শিশু, যুবক, বৃদ্ধ সব মানুষের জন্যই সমানভাবে ছিল। হোক সে ভিন্ন মতের বা পথের। রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর পাশ দিয়ে একবার এক লাশ নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তিনি তখন তা দেখে দাঁড়ালেন, উপস্থিত সাহাবায়ে কেরাম তখন বললেন, এ তো ইহুদির লাশ। রাসূলুল্লাহ (সা.) তাদের জিজ্ঞেস করলেন, আলাইসাত নাফসা? অর্থাৎ সে কি মানুষ নয়? (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৩১২)।

নবীজির দয়ামায়া শুধু মানব জাতিতেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। বাকহীন পশু-পাখির জন্যও ছিল তার দয়ামায়া। তাদের জন্যও নবীজির মমতা ছিল মানুষের মতোই। আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, আমরা এক সফরে রাসূল (সা.)-এর সঙ্গে ছিলাম। এক সময় একটু প্রয়োজনে দূরে গেলাম। দেখলাম একটি লাল পাখি, সঙ্গে দুটি বাচ্চা। আমরা বাচ্চা দুটি ধরে নিয়ে এলাম। কিন্তু মা-পাখিটিও চলে এলো। বাচ্চা দুটির কাছে আসার জন্য পাখিটি মাটির কাছে অবিরাম উড়ছিল। তখন রাসূল (সা.) এসে পড়লেন। তিনি এটি দেখে বললেন, কে এ বাচ্চা ধরে এনে এদের মাকে কষ্ট দিচ্ছে? যাও, বাচ্চা দুটি মায়ের কাছে রেখে এসো। (আবু দাউদ ১৪৬/২)।

নবীজি ছিলেন হজরত ইউসুফ (আ.) চেয়েও বহুগুণ সুন্দর। পূর্ণিমার চাঁদের মতো গোলাকার ছিল নুরানি মুখমণ্ডল। প্রশস্ত কপাল, চিকন ও ঘন ভ্রু, দুই ভ্রুর মাঝখানে একটা উঁচু রগ ছিল। কবির ভাষায়, ‘যখন বুলাই তার মুখমণ্ডলে দু’চোখ/ সে যেনো বর্ষামুখী মেঘে বিদ্যুতের চমক।’ গোলাপের পাপড়ির মতো তাঁর ঠোঁটদ্বয়ে প্রায়শই লেগে থাকত ফুলের হাসি। গমের মতো লালচে সাদা ছিল আমার নবীর গায়ের রং। হে নবী তোমাকে কী ভালো না বেসে থাকা যায়!

এরপর এগারো হিজরির রবিউল আউয়াল মাসের বারো তারিখে আল্লাহতায়ালার ডাকে সাড়া দিয়ে এই পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নিয়ে মদিনা মুনাওয়ারায় শায়িত হয়েছেন।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 News Time Media Ltd.
IT & Technical Support: BiswaJit