শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:০৮ অপরাহ্ন

বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম ঔষধপন্যের বাজার ব্রাজিলে বাংলাদেশের ঔষধ রপ্তানির উদ্যোগ

ব্রাজিলে বাংলাদেশের ঔষধ রপ্তানি

ল্যাটিন আমেরিকার বৃহত্তম অৰ্থনীতি ব্রাজিলে বাংলাদেশের ঔষধ রপ্তানির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম ঔষধপন্যের বাজার ব্রাজিলের বর্তমান ঔষধপন্যের বাজারের আয়তন প্রায় ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২৩ সালের মধ্যে ব্রাজিল পৃথিবীর পঞ্চম বৃহত্তম ঔষধপন্যের বাজার হবে বলে ঔষধশিল্পের গবেষকরা ধারণা করছেন। সেসময় ব্রাজিলের ঔষধপন্যের বাজারের আয়তন ৩৯ থেকে ৪৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। বর্তমানে ব্রাজিল প্রতিবছর প্রায় ৭ বিলিয়ন ডলারের ঔষধপন্য আমদানি  করে। মূলতঃ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত কয়েকটি দেশ ও ভারত থেকে বর্তমানে ব্রাজিল ঔষধপণ্য আমদানি করে। ব্রাজিলের সরকার ব্রাজিলে উৎপাদিত ও আমদানীকৃত এইসব ঔষধপন্যের মূল ক্রেতা।

দূতাবাসের উদ্যোগে ২১ সদস্যবিশিষ্ট বাংলাদেশের একটি ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিনিধিদল ১৬ থেকে ২২ নভেম্বর ২০১৯-এ  ব্রাজিল সফর করে। বাংলাদেশ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল ডাঃ মোঃ মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে এ প্রতিনিধিদলে বাংলাদেশ ঔষধশিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও হাডসন ফার্মাসিউটিক্যালস-এর ব্যাবস্থাপনা পরিচালক  জনাব এস এম শফিউজ্জামানও ছিলেন। বাংলাদেশের প্রথম সারির এগারোটি ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক বা প্রতিনিধি সফরে অংশগ্রহন করেন। হাডসন ফার্মাসিউটিক্যালস ছাড়াও ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালস, জেনারেল ফার্মাসিউটিক্যালস, নুভিস্তা ফার্মাসিউটিক্যালস, হেলথকেয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, এমিকো ল্যাবরেটরিজ, ডেল্টা ফার্মা, জেসন ফার্মাসিউটিক্যালস, ফার্মিক ল্যাবরেটরিজ, বেক্সিমকো ফার্মা এবং এসিআই হেল্থকেয়ারের কর্মকর্তাবৃন্দ ব্রাজিলে প্রথমবার সফরে আসা এই প্রতিনিধিদলে অংশগ্রহণ করেন।

তুরস্কে দায়িত্বপালনকালে রাষ্ট্রদূত মোঃ জুলফিকার রহমানের এবিষয়ে সফল অভিজ্ঞতার আলোকে এবারেও তিনি ব্রাজিলে বাংলাদেশের ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিনিধিদলের সফর সফল করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেন। সফরকালে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল ব্রাসিলিয়াতে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে দীর্ঘ আলোচনায় মিলিত হন। ব্রাজিল সরকার বাধ্যতামূলকভাবে সবার জন্য স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করে এবং সেকারনে ব্রাজিলে ঔষধপন্যের সবচেয়ে বড় ক্রেতাও ব্রাজিলের সরকার তথা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। ব্রাজিলের কর্তৃপক্ষ বর্তমানে এ খাতে প্রতিযোগিতা উৎসাহিত করছে এবং সেকারনে তারা বাংলাদেশের এই উদ্যোগকে স্বাগত  জানান। বর্তমান সরবরাহকারীদের উপর নির্ভরতা কমাতে ও সাশ্রয়ী মূল্যে উন্নতমানের ঔষধপন্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে তারা বাংলাদেশের ঔষধ শিল্পের সহযোগিতা কামনা করেন। ব্রাজিলের বাজারে প্রবেশের বিষয়ে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাগণ সবরকমের সহযোগিতারও আশ্বাস দেন।

ব্রাসিলিয়াতে ব্রাজিলের ঔষধপন্যের রেজিষ্ট্রেশন কর্তৃপক্ষের (ANVISA) সাথেও বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের গুরুত্বপূর্ণ ও সফল আলোচনা হয়। ঔষধপন্য রেজিষ্ট্রেশনের বিষয়ে ব্রাজিলের বিধিবিধান সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা হয়। ব্রাজিলের কর্তৃপক্ষ সাম্প্রতিককালে এসংক্রান্ত বিধিবিধান আধুনিকীকরণ ও আন্তর্জাতিক বিধিসমূহের সাথে সামঞ্জস্যকরন করার ফলে বাংলাদেশী ঔষধপন্য কোম্পানিগুলো অপেক্ষাকৃত সহজে বাংলাদেশের ঔষধপন্য ব্রাজিলে রেজিষ্ট্রার করতে পারবে বলে আলোচনায় উঠে আসে। এ ব্যাপারে ANVISA কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশের ঔষধপন্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেয়।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল ব্রাজিলের ফার্মাসিউটিক্যাল পণ্যের বাজার, ব্যবসাপদ্ধতি ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত ধারণালাভের জন্য ব্রাজিলের বাণিজ্যনগরী  সাও-পাওলোতে তিনটি ফার্মাসিউটিক্যাল বাণিজ্যিক সংগঠনের (SINDUSFARMA, ABIQUIFI, ABIMO) সাথেও বিস্তারিত ও পুঙ্খানুপুঙ্খ আলোচনা করেন। বলা যায়, প্রতিনিধিদলের সব সদস্যই ব্রাজিলে ঔষধপন্যের রেজিষ্ট্রেশন, রপ্তানি, বাজারজাতকরণ ইত্যাদি সার্বিক বিষয়ে সম্যক ধারণা লাভ করেছেন। আশা করা যাচ্ছে, আগামী পাঁচ থেকে দশ বছর সময়কালে বাংলাদেশ প্রায় এক বিলিয়ন ডলারের বাংলাদেশী ঔষধপন্য ব্রাজিলে রপ্তানি করতে পারবে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 News Time Media Ltd.
IT & Technical Support: BiswaJit