বেনাপোলে মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

    Palash Dutta
    July 30, 2021 9:07 pm
    Link Copied!

    স্টাফ রিপোর্টার বেনাপোলঃ মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর (আবগারি) কর্মকর্তারা জোর করে পকেটে ২ গ্রাম হেরোইন ঢুকিয়ে ৭০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে। বেনাপোলের সাদিপুর গ্রামে মোস্তাক এর বাড়ি প্রবেশ করে ওই দপ্তরের কয়েকজন লোক। এসময় তারা মোস্তাককে হাতকড়া পরিয়ে বাড়ি তল্লাশি করে কিছু না পেয়ে নিজেদের কাছে থাকা ২ গ্রাম হেরোইন পকেটে ঢুকিয়ে দিয়ে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। দাবিকৃত টাকা না পেয়ে তাদের বাড়িতে থাকা ৭০ হাজার টাকা সহ তার স্বামীকে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেছে মোস্তাকের স্ত্রী চায়না বেগম।
    ভুক্তভোগি চায়না খাতুন বলেন তাদের বাড়িতে আকস্মিক ভাবে বুধবার বেলা ১ টার সময় ৮-১০ জনের একটি দল মাদক দ্রৃব্য অধিদপ্তরের পরিচয়ে দিয়ে প্রবেশ করে। এসময় তার স্বামী বাড়িতে কাজ করছিল। তাকে হাতে হাত কড়া দিয়ে ঘরের মধ্যে নিয়ে যায়। এবং তাকে বেধড়ক মারপিট ও গালাগালি করে। বাড়ি তল্লাশি করে কিছু না পেয়ে হঠাৎ একটি শার্টের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে একজন সদস্য বলেন, স্যার মাল পেয়েছি বলে একটি কাগজের টোপলা বের করে করে দেখায়। তিনি বলেন তার স্বামীর পকেটে কোন মাদকদ্রব্য ছিল না। এরপর আমার বাড়িতে থাকা একটি ড্রয়রে ৬০ হাজার ও একটি বক্সে ১০ হাজার টাকা পায়। ওই টাকা নিয়ে আমার হাতে দিয়ে মোবাইলে ভিডিও করে বলে তোমার টাকা পেয়েছ। তখন ্আমি বলি পেয়েছি। এরপর আমার কাছে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। আমি দিতে পারব না বললে ২ লাখ টাকা এরপর ১ লাখ টাকা দাবি করে। আমি কোন টাকা দিতে পারব না বললে ওই ৭০ হাজার টাকা নিয়ে যায়। এসময় তারা ৫ লাখ টাকা না দেওয়ায় তারা মোস্তাককেও নিয়ে যায়।
    এ বিষয় পাশের রুমে থাকা চাঁদনি বলেন আমাদের মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের লোক ওই রুম তল্লাশির সময় যেতে দেয়না । তবে উচ্চস্বরে কোন মাদক না পেয়ে গালাগালি করে এবং বলে মাল বের করে।ওই গ্রামের শামিম বলেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের লোকজন এখন গ্রামে প্রবেশ করে এই ভাবে টাকা নিয়ে যাচ্ছে।এক প্রকার ছিনতাই করার মত।
    এ বিষয় মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের এস আই মনিরুজ্জামান এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা ওই বাড়ি থেকে কোন টাকা আনি নাই। আমরা যে টাকা পেয়েছি তা দিয়ে এসেছি। আমাদের কাছে ভিডিও রয়েছে। ভিডিও শেষে টাকা নেওয়ার কথা বললে তিনি অস্বীকার করেন। তবে মোস্তাককে চালান দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।
    এরপর মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের পরিচয় দিয়ে নুর মোহাম্মাদ নামে একজন ফোন দিয়ে বলে আমরা ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়েছি। কোন টাকা পয়সা নেয়নি। আগামি সপ্তাহে আবার অভিযান পরিচালনা করব তখন বেনাপোল এসে সব কিছু আপনাকে বলব।