শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৮:১০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
৪০টি ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের স্বীকৃতি পেয়ে সুপার ৪০ ক্লাবে প্রবেশ করছে ভারত আবার ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়লো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি প্রকল্প বাস্তবায়নে কোনো ধরনের অজুহাত না দিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান শিল্পমন্ত্রীর কনসেন্ট্রেটর ও অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান সমাজকল্যাণমন্ত্রীর বেনাপোলে কোটি টাকা  রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে সিঅ্যান্ডএফ লাইসেন্স বাতিল যশোরে ক্ষুদ্র ঋণ আওতায় ২শ’ ৮৬ জনকে তিন কোটি ৬লাখ ৪৩ হাজার টাকা প্রদান ভারতে পাচার ১০ নারী,পুরুষ ফিরলো ট্রাভেল পারমিটে  সুন্দরবনে বাঘের জন্য নিরাপদ আবাসস্থল নিশ্চিত করা হবে -পরিবেশ উপমন্ত্রী বেনাপোলে ইয়াবা সহ দুই মাদক ব্যবসায়ি আটক পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা লাগার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

পঙ্গু লিটনের শেষ আশা সরকারী একটি ঘর পাওয়া

মধুখালী প্রতিনিধিঃ ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার আড়পাড়া ইউনিয়নে পূর্ব আড়পাড়া গ্রামে আবুল কাশেমের সংসারে জন্ম গ্রহন করেন মোঃ লিটন মিয়া। সংসারে অভাবের তাড়নায় তেমন লেখাপড়া করতে পারে নাই। অষ্টম শ্রেনী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে। এরপর সংসারে হাল ধরতে গিয়ে ২০০১ ইং সনে জমি চাষ করতে গিয়ে পাওয়ার ট্রিলারে পা কেড়ে নেয়। এরপর থেকে পঙ্গুত্বভাবে জীবন যাপন করতে হয়। এই ভাবেই ২০০৩ ইং সনে সংসার জীবন শুরু হয়। তার কয়েক বছর পর ২০০৮ইং সন থেকে শুরু করেন মাঝিবাড়ী বাসষ্ঠান্ডে চা-সহ পান বিড়ি সিগারেটের দোকানদারী করেন। এর মধ্যে মনে ইচ্ছা জাগে জনসেবা করার। তখন তিনি আড়পাড়া ইউনিয়নে ১নং ওয়ার্ড থেকে ২০১২ইং সনে নির্বাচন করে জনগনে ভোটের বিজয়ী হয়ে ইউ.পি. সদস্য নির্বাচিত হন। তখন তিনি নিজের জন্য কোন চিন্তা-ভাবনা করেন নাই। জনগনের উন্নয়নের চিন্তা করে অপরের উন্নয়ন করে গেছেন। তার আমলে তিনি নিজের জন্য একটি সরকারী ঘর পেয়েও নিজে না নিয়ে অন্যের নামে ঘর বরাদ্ধ দিয়ে গেছেন নিজের জন্য চিন্তা করেন নাই। বর্তমান তিনি পাটকাটির ঘরে পচা টিনের বারান্দা দিয়ে বসবাস করছেন। এই ঘরেই জন্ম হয়েছে দুটি কন্যা সন্তান। তার এখন চিন্তা মেয়ে দুটি বড় হচ্ছে আর চিন্তা বাড়ছে। নাম (১) লিজা(১০) (২) লিমা(৭)। পঞ্চম ও প্রথম শ্রেণীতে পড়ে। পঙ্গু লিটন বলেন আমার এই সামান্য চায়ের দোকান দিয়ে কোনমত সংসার চলে। মেয়েদের লেখাপড়ার খরচ যোগানো কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। আর ঘর মেরামত করা আমার পক্ষে কোনদিন সম্ভব হবে না। তিনি আরও বলেন আমার বাড়ীতে ৫শতাংশ জমি আছে । তাই আমি শুনেছি সরকার মুজিব বর্ষে ঘোষনা দিয়েছেন যিনি গরীব যার জমি আছে ঘর নাই। তার সরকারী ঘরের ব্যবস্থা হবে। আমি তারই একজন। তাই আমার এই ওয়ার্ডের ইউ.পি. সদস্য মোঃ ওবায়দুর রহমান ও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ জাকির হোসেন মোল্যা এবং মধুখালী উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসারের নিকট আকুল আবেদন আমার সকল পরিস্থিতি বিবেচনা করিয়া আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর উপহার হিসেবে আমাকে একটি সরকারী ঘরের ব্যবস্থা করতে মর্জি হয়। যাতে সে তার পঙ্গু জীবনে একটি ঘর দেখে যেতে পারে এটাই তার জীবনের শেষ আশা এবং পাওয়া।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
  12345
2728     
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit