মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৪:২২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
করোনা সুরক্ষায় ইয়োগার গুরুত্ব অপরিসীম -যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী সরকারের দক্ষ পরিচালনাতেই মধ্যম আয়ে উন্নীত দেশ, মাথাপিছু আয়ে ভারতকে ছাড়িয়ে -তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী শ্রমিক কল্যাণ তহবিল হতে আড়াই হাজার শ্রমিক সাড়ে ৯ কোটি টাকা সহায়তা পাচ্ছেন লকডাউনের যে ৭ জেলায় থামবে না ট্রেন দু‘মাস পর বেনাপোল দিয়ে চিকিৎসা সেবায় ভারত ভ্রমণের সুযোগ ঝিনাইদহ শৈলকুপা পৌরসভায় বাজেট ঘোষণা ছেলেদের সাথে ভোট দিতে এসে বোমা হামলায় লাশ হলেন বাবা “স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব লোকমান হোসেন মিয়ার পিতা ইন্তেকাল” কালীগঞ্জ বারবাজার থেকে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক জেনে নিন আবহাওয়ার পূর্বাভাস

করোনা প্রতিরোধে সাংবাদিক আহছান উল্লাহর উদ্ভাবন প্রাকৃতিক বিকল্প স্যালাইন

বিশ্বজিত সরকার বিপ্লব,গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি ঃঅনেকেই হয়ত মনে করবেন যেখানে সমগ্র বিশ্বের আধুনিক প্রযুক্তি হিমসিম খাচ্ছে করোনার প্রতিষেধক নিয়ে সেখানে সাংবাদিক আহছান উল্লাহর করোনা প্রতিরোধে“বিবিটেন” কতোটা কার্যকরী। তবে অবিশ্বাসী হলেও সত্যি কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই তার এ ভেষজ উপাদানে করোনা আক্রান্তরা সুস্থ্য হচ্ছেন।

যারা নিয়মিত এই প্রাকৃতিক খাবারটি গ্রহন করছেন তারা ভালো আছেন। সাংবাদিক আহছান উল্লাহর মতে তার উদ্ভাবিত করোনা প্রতিরোধে বিকল্প স্যালাইন সঞ্জিবনী মানব দেহের জন্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ামুক্ত একটি প্রাকৃতিক খাবার। শুধু করোনাই নয় যে কোন জ্বর,ফুসফুসের সংক্রমনে,ডায়াবেটিস শারীরিক দুর্বলতা এবং অল্প সময়েই শরিরকে চাঙ্গা করতে ভালো কাজ করছে। এর রয়েছে বহুবিধ স্বাস্থ্য উপকারিতা। তিনি বাংলাদেশের ১০টি ঔষধি গাছের সমন্বয়ে এই প্রাকৃতিক খাবারটি উদ্ভাবন করেছেন। উদ্ভাবক সাংবাদিক আহছান উল্লাহ চ্যালেঞ্চ ছুরে বলেন তার এটি গ্রহন করে আক্রান্তরা সুস্থ্য হবেন এবং সুস্থ্য ব্যক্তিরাও সেবন করলে আক্রান্ত হবেন না। তার মতে এটি একটি করোনা প্রতিরোধে বিকল্প সেলাইন।
বরিশালের গৌরনদী উপজেলার উত্তর পালরদী গ্রামের মো.আহছান উল্লাহ পেশায় একজন সাংবাদিক হলেও তিনি দীর্ঘ্যদিন ঔষধি গাছ ও পরিবেশ সম্মত কৃষি নিয়ে গবেষনা করে আসছেন। সম্পূর্ন ব্যাক্তিগত উদ্যোগে বিভিন্ন গবেষনার মাধ্যমে পর্দার অন্তরালে থেকেই গরীব দরিদ্র অসহায় মানুষদের প্রাকৃতিক স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। নিবিরভাবে হারিয়ে যাওয়া বাংলার লোকজ চিকিৎসাকে মানুষের কল্যানে কাজে লাগানোর জন্য বিলুপ্ত প্রজাতির ঔষধি গাছ খুজে এনে প্রতিষ্ঠা করছেন আহছান উল্লাহ ন্যাচারাল ফুড ব্যাংক। আর এ ফুড ব্যাংকের মাধ্যমে তিনি যেমন মানুষের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন তেমনী বিভিন্ন এলাকার বেকার যুবকদের ঔষধি গাছের চাষ শিক্ষা দিয়ে কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করছেন।
তার এই প্রাকৃতিক খাবার খেয়ে করোনা পজেটিভ থেকে নেগেটিভ হওয়া নির্ভরযোগ্য কয়েকজন জানান, এর মধ্যে গৌরনদী উপজেলার বার্থী তারা মন্দিরের ট্রাস্টী সদস্য প্রনব রঞ্জন দত্ত (বাবু দত্ত) জানান তার ভাগনে বর্তমানে একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তিনি করোনা পজেটিভ হলে আহছান উল্লাহর ভেষজ দাওয়াই গ্রহন করে সম্পূর্ন সুস্থ্য হয়েছেন। তিনি আরো জানান আমরা পরিবারের সবাই আহছান উল্লাহর ভেষজ গ্রহন করছি। টিকা নেয়ার আগ পর্যন্ত আমরা এটি গ্রহন করব আমরা সবাই সুস্থ্য আছি।
টেলিভিশন চ্যানেল ৭১ এর বরিশাল ব্যুরোচীফ বিধান সরকার জানান, আমি এবং আমার স্ত্রী করোনা পজেটিভ হলে আহছান উল্লাহর সঞ্জীবনী গ্রহন করে আমরা পুরোপুরি সুস্থ্য হয়েছি। এখনও আমরা সুস্থ্য আছি।
আগৈলঝাড়া উপজেলার গৈলা গ্রামের রুবেল মুন্সি জানান,আমার দুইজন নিকট আত্মীয়কে আহছান উল্লাহর এই ভেষজ দিলে তারা খেয়ে এখন পুরো সুস্থ্য আছেন। আরো অনেকেই তার এ ভেষজ গ্রহন করে সুস্থ্য আছেন বলে এ প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন।
শিক্ষা উন্নয়ন কর্মী সাইফুজ্জামান রানা বলেন, করোনা প্রতিরোধে তার এ উদ্ভাবন আমাদেরও আশার আলো দেখাচ্ছে। দেখুন প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ উত্তম কথাটা অনেক গুরত্বপূর্ন। আহছান উল্লাহর এ উদ্ভাবন বর্তমান সময়ে অত্যন্ত জনগুরত্বপূর্ন। আমি সরকারের কাছে আবেদন করব তার এ উদ্ভাবন অবহেলা না করে সরকারি পৃষ্টপোষকতায় এনে পরিক্ষা করে দ্রুত জনগনের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য ।
এ প্রসঙ্গে আহছান উল্লাহ জানান, তাদের পরিবারের প্রায় শত বছরের ঐতিয্য এটি মুলত বিভিন্ন জ্বর,সর্দ্দি,কাশি ও ফ্লুতে সেবন করানো হত। বংশপরম্পরায় তিনি তার বাবার কাজ থেকে এর প্রযুক্তি শিখে রাখেন এবং করোনা মহামারি শুরু হলে তিনি এর সাথে আরো কয়েকটি ঔষধি গাছের সমন্বয় করে করোনা প্রতিরোধে বিকল্প সেলাইন তৈরি করে নিজ পরিবার আত্মীয় স্বজন বন্ধুবান্ধব ও শূভাকাঙ্খীদের মাঝে দেন। এবং শুরু থেকেই এর ভালো খবর আসতে থাকে। করোনার শুরু থেকেই তিনি এ বিষয়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে একাধিক লেখা লিখেছেন। অর্থনৈতিক কারনে তিনি এটির সম্প্রসারন ঘটাতে পারছেন না। তার এ প্রযুক্তি নেয়ার জন্য ঢাকার একাধিক ব্যবসায়ী প্রস্তাব দিলেও তিনি তা গ্রহন করেননি, তিনি বলেন আমি জনগনের কল্যানে এ সব করছি এটি নিয়ে আমার ব্যাবসায়ীক কোন চিন্তা নাই। সরকার চাইলে বিনা সর্থে এর প্রযুক্তি আমি দিয়ে দেব জনগনের কল্যানে। তিনি আরো জানান তার কাছে বর্তমানে একশত জন করোনা আক্রান্তকে সেবন করানোর জন্য ভেষজ দাওয়াই আছে। যেহেতু এই পন্যটি তৈরিতে যে সমস্ত ভেষজ উপাদান দরকার তা অনেকটা সিজনাল চাষ হয়ে থাকে এবং বিভিন্ন ধাপে প্রক্রিয়াকরন করা হয়।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
19202122232425
2627282930  
       
  12345
2728     
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit