মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৮:০৫ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
লাইট এণ্ড সাউন্ড শো এবং বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের থ্রিডি হলোগ্রাম অন্তর্ভুক্তির পরামর্শ সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের কাজ আরেক ধাপ এগিয়ে গেল ডিজিটাল না হলে করোনার সময়ে বাংলাদেশ পৃথিবী থেকে আলাদা হয়ে যেত -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি আলুর দাম ৩৫ টাকা পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে ভবিষ্যতে কৃষিই হবে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের বড় খাত -মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী ধর্ষকদের বিরুদ্ধে তীব্র সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে -প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা নিষ্ঠার সাথে দেশ সেবার আহ্বান জানালেন ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ২০২৫ সালের মধ্যে শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেশন সেন্টার -পলক বস্ত্র ও পাটখাতে বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্যের উন্নয়ন ঘটাতে চায় ভারত -ভারতীয় হাইকমিশনার বিদেশ গমনেচ্ছুদের কোভিড-১৯ মুক্ত সনদ প্রদানে ১০টি প্রতিষ্ঠান মনোনীত

রাজারহাটে দিন দিন বেড়েই চলেছে চালসহ নিত্যপণ্যের দাম

বোরো সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের রাজারহাটে বন্যা আর মহামারীর সঙ্কটের মধ্যে চালহসহ নিত্যপণ্যের দাম বেড়েই চলেছে। বিভিন্ন অজুহাতে মিলার মালিকদের চালের দাম বাড়ানোর বিষয়টি বহুল আলোচিত। চালের দাম বৃদ্ধির পেছনে রয়েছে মিলারদের কারসাজি। মিলার মালিকরা দাম বাড়ানোর ফলে স্বাভাবিকভাবেই এর প্রভাব পড়েছে পাইকারি ও খুচরা বাজারে। বিশেষ করে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে সব ধরনের চালের দাম কেজিতে ৪ থেকে ৬ টাকা বেড়েছে। এর চাপ পড়ছে খেটে খাওয়া নিম্নআয়ের মানুষের ওপর।

সরেজমিনে জানা যায়, রাজারহাট উপজেলার সদর বাজারে সোমবার সকালে চালের বস্তায় (৫০ কেজি) অন্তত চারশত থেকে পাঁচশত টাকা বেড়েছে। প্রায় সব ধরনের চালের দামই বেড়েছে। বর্তমানে মিনিকেট বস্তা (৫০কেজি) ৩০০০ টাকা থেকে ৩১০০, নাজির (৫০কেজি) ২৭৫০ টাকা থেকে ২৮০০, পাইজাম ও কাটারি (৫০কেজি) ২৩০০, বিআর আটাশ (৫০কেজি) ২২৫০ টাকা থেকে ২৩৫০ টাকা এবং মোটা স্বর্ণ (৫০কেজি) ২০০০ টাকা থেকে ২১০০ বিক্রি করছে খুচরা চাল বিক্রেতারা। অথচ এক সপ্তাহ আগে মিল মালিকরা চাল পাইকারী বিক্রি করেছে মিনিকেট ৫০, নাজির ৪৫, পাইজাম ও কাটারি ৪০, বিআর আটাশ ৩৮ এবং মোটা স্বর্ণ ৩৩ টাকা কেজি দরে।
রাজারহাটে চালসহ নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় সব শ্রেণীর মানুষের দুর্ভোগ বেড়েছে। বর্তমানে উপজেলায় করোনা কোভিক-১৯ এর কারণে সীমিত ও নিম্ন আয়ের মানুষ এমনিতেই পরিবারের সব ব্যয় মেটাতে হিমশিম খাচ্ছেন এবং দরিদ্র পরিবারেরা ঋণ করে ব্যয় মেটাতে বাধ্য হচ্ছেন।
রাজারহাট সদর বাজারের চালের খুচরা- পাইকারি বিক্রেতা আব্দুল হাকিম বলেন, আগস্টের শুরু থেকেই চালের দাম বাড়তে শুরু করেছে। দাম বাড়ার কারণ কী জানতে চাইলে তিনি বলেন, কেন যে বাড়ছে তা আমি জানি না। এবার তো ধানের ফলন ভালোই হয়েছিল। সরকার আমদানির সুযোগ দিয়েছে বলে শুনেছি, কিন্তু বাজারে এখন পর্যন্ত কোনো আমদানি করা চাল আসেনি। চালের দাম বাড়ার পাশাপাশি পাইকারি বাজারে বেচা-কেনাও কমে গেছে বলে মনে করেন চাল বিক্রেতারা। তাদের এমন ভাবনার মিল পাওয়া গেল চাল বাজারের টি -ষ্টোলের আমিনুরের কথায়। আমিনুর ইসলাম বলেন চালের দাম সপ্তাহে সপ্তাহে বাড়ছে। চালের দাম বাজারে কোনো স্থিতিশীলতা নেই। তাই আমি চাল কম করে কিনছি।
তবে সঙ্কটকালীন এই সময়ে সুগন্ধি চালের দাম বেশ খানিকটা কমে এসেছে। ধানের দাম বৃদ্ধির কারণে চালের দামও বাড়াতে হচ্ছে বলে মিল- মালিকরা দাবি করছেন। বর্তমানে বাজারে ধান প্রতি মণ ১০৫০ থেকে ১১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে বলে জানান ধান ব্যবসায়ী  ইদ্রিস আলী।
অপরদিকে, চালের পাশাপাশি সবজির দামও গত তিন সপ্তাহ ধরে ঊর্ধ্বমুখী। এর মধ্যে গত দুই দিন ধরে সরবরাহ কমে যাওয়ায় কাঁচা মরিচ ও পিয়াজের দাম বেড়েছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। রাজারহাট সদর বাজারের সবজি বিক্রেতা বাচ্চু মিয়া  বলেন, কাঁচা মরিচের সরবরাহ খুব কম, দামও বেড়ে গেছে। এখন প্রতি কেজি ১৮০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। ভালো মানের মরিচ কেউ কেউ ২০০ টাকায়ও বিক্রি করছেন। এছাড়া বেগুন ৭০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬০ টাকা, করলা ৮০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, ঢেঁড়শ ৫০ টাকা, বরবটি ৭০ টাকা, আলু ৩৫ টাকা, পেঁপে ৩৫ টাকা, মূলা ৪০, মিষ্টি কুমড়া ৩৫, কচুরবই ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া পানিকচু প্রতি পিচ ২৫-৩০, লাউ ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তিনি। বাজারে হাঁসের ডিমের দাম হালা প্রতি পাঁচ টাকা বেড়ে ৪৫ টাকা হয়েছে। এছাড়া ব্রয়লার মুরগির ডিম হালি ৩৫, লেয়ার ও কক মুরগীর ডিম হালি ৬৫ এবং দেশি মুরগির ডিমের হালি ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে মাছ ও মাংসের দাম বেশ খানিকটা কমে এসেছে।
এভাবে যদি দিনে দিনে চালসহ নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়, তাহলে সীমিত ও দরিদ্র পরিবারে কী দুর্ভোগ সৃষ্টি হয় তা সহজেই অনুমান করা যায়। এ দুর্ভোগ দীর্ঘ সময় চললে এর অনিবার্য পরিণতি হিসেবে দরিদ্র পরিবারের সদস্যরা পুষ্টিহীনতায় ভোগে, অনেক পরিবারের শিশুদের শিক্ষাজীবনের অবসান ঘটে।
SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
     12
17181920212223
24252627282930
31      
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit