মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
কড়া নজরদারির মধ্যদিয়ে ইছামতীতে দুই বাংলার দুর্গা প্রতিমা বিসর্জন বেতন পরিশোধে অভিভাবকদের চাপ না দেওয়ার নির্দেশ শিল্প প্রতিমন্ত্রীর কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন শারদীয় দুর্গা পূজা উপলক্ষে ফেসবুক গ্রুপের শাড়ী বিতরণ কামারখালী এবং ডুমাইন ইউনিয়নে গরীব ও অসহায় মানুষের মাঝে প্রতি কেজি ১০ টাকা দরে চাল বিতরন বগুড়ায় দুর্গা মন্দিরে সুব্রতকে কুপিয়ে হত্যা হাজী সেলিমের ছেলে মোহাম্মদ এরফান গ্রেপ্তার পঞ্চগড়ে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে কটুক্তি করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন যশোরে শ্রমিক মান্নাত হত্যার রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ৪ রাজনীতিকে পরিশীলিত, পরিমার্জিত এবং সৃজনশীল করা দরকার -শ ম রেজাউল করিম

দক্ষতায় যে জাতি এগিয়ে থাকবে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের নেতৃত্ব তাদের হাতেই থাকবে -মোস্তাফা জব্বার

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের নেতৃত্ব

ঢাকা ১৮ সেপ্টেম্বর: ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব এবং তার পরবর্তী সময়ের জন্য বড় শক্তির নাম হচ্ছে মেধাসম্পদ তৈরি, উদ্ভাবন, গবেষণা এবং তার উন্নয়ন। এসব খাতে যে দেশ বা জাতি এগিয়ে যাবে তারাই চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে নেতৃত্ব দিবে।

দক্ষ মানুষ ছাড়া ডিজিটাল বিপ্লব সম্ভব না। বাংলাদেশের মানুষই বড় সম্পদ। এই মানুষদের ডিজিটাল শিক্ষা ও ডিজিটাল দক্ষতার ওপর ভবিষ্যত নির্ভর করে। আমাদের দেশের প্রতিটি ছেলে মেয়ে মেধাবী। এই সব সোনার টুকরো ছেলে-মেয়েদের মেধা উপযুক্ত শিক্ষা ও দক্ষতা দিয়ে কাজে লাগাতে পারলে বিশ্বে আমাদের চেয়ে শক্তিশালী কেউ হবে না। শিক্ষক, শিক্ষার্থী, শিক্ষাবিদ ও ইন্ডাস্ট্রিসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে এই ব্যাপারে আরও সচেষ্ট হওয়ার প্রয়োজনীয়তার ওপর মন্ত্রী বিশেষ গুরুত্বারোপ করে বলেন, শিক্ষার ক্ষেত্রে আমাদের ডিজিটাল রূপান্তর শুরু হয়ে গেছে।

মন্ত্রী গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়(ডিআইইউ) আয়োজিত ডিজিটাল বাংলাদেশে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের প্রভাব ও চ্যালেঞ্জ নিয়ে আয়োজিত ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তিতে ৩২৪ বছর পিছিযে থেকেও চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য আমরা প্রস্তুত।আমরা ২০১৮ সালে ৫জি পরীক্ষা সম্পন্ন করেছি। ২০২৬ সালের মধ্যে দেশের প্রতিটি ঘরে ফাইভজি পৌঁছে দেওয়ার পথনকশা ইতোমধ্যেই আমরা সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়েছি।

মন্ত্রী দেশে শিক্ষা বিস্তারে গত এগারো বছরে প্রধাননমন্ত্রী শেখ হাসিনা গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে দেশে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ অভাবনীয় কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হয়েছে।তবে চকডাস্টারে পাঠদান পদ্ধতি থেকে ডিজিটাল পাঠদান পদ্ধতিতে উত্তরণের কাজ আমরা শুরু করেছি মাত্র। এজন্য হয়ত কিছুটা সময় লাগবে। তিনি জোর দিয়ে বলেন, ৫ বছরের মধ্যে প্রাথমিক স্তর থেকে বিশ্ববিদ্যালয় স্তর পর্যন্ত শিক্ষা ব্যবস্থাকে ডিজিটাল রূপান্তর সম্ভব হবে। তিনি বলেন, বিশ্বজুড়ে চলছে টেকনোলজি কোল্ড ওয়্যার। কম্পিউটারে বাংলাভাষার উদ্ভাবক জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেন, এই যুদ্ধে মানব সম্পদই বড় সম্পদ। কেননা মানুষ ছাড়া ডিজিটালাইজেশন সম্ভব হবে না। তাই দেশের তরুণদের উদ্ভাবন ও গবেষণা দিয়ে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে এগিয়ে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

তিনি অতীতে প্রযুক্তিতে অনেকটা পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ উল্লেখ করে বলেন, বঙ্গবন্ধু কর্তৃক আইটিইউ ও ইউপিইউ এর সদস্য পদ অর্জন, টিএন্ডটি বোর্ড গঠন এবং বেতবুনিয়ায় উপগ্রহ ভূ-কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকাশের বীজ বপন করা হয়।পঁচাত্তরের পর দীর্ঘ ২১ বছর প্রযুক্তি বিকাশের যাত্রা বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর অতীতের জঞ্জাল অপসারণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে কম্পিউটার ও মোবাইল ফোন জনগণের দোর গোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার যুগান্তকারী কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ফলে দেশে ডিজিটাল প্রযুক্তির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত হয়। ২০০৯ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে সূচিত হয় ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম। এই সংগ্রামের নেপথ্য কারিগর হলেন সজীব আহমেদ ওয়াজেদ। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন-বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটির সভাপতি, অধ্যাপক ড: হাফিজ মোঃ হাসান বাবু।

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম এ মান্নান। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মোঃ আনোয়ার হোসেন এবং ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এর ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী। মূল বক্তব্যের ওপর আলোচনা করেন আমাজান ওয়েব সার্ভিসের লিডার এবং ক্লাউডক্যাম্প বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা – মোহম্মদ মাহদী-উজ জামান এবং কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়’র স্কুল অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এর ভিজিটিং সহকারী অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর আলম। অনুষ্ঠানে বক্তারা টেলিকম বিভাগকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের মূল মেরুদণ্ড আখ্যায়িত করে বলেন, মানুষকে বাদ দিয়ে কোন প্রযুক্তি বাংলাদেশের জন্য সঠিক হবে না। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবকে মানবিক করার মাধ্যমে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ওপর তারা গুরুত্বারোপ করে বলেন সবার আগে মানুষ ও দেশ।

SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
     12
24252627282930
31      
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit