ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১২ বছর পর বিশ্বকাপে সুইডেনের প্রথম জয়

admin
June 19, 2018 10:17 am
Link Copied!

স্পোর্টস ডেস্কঃ দক্ষিণ কোরিয়ার কড়া রক্ষণ ও ভাগ্য সহায় না হওয়ায় বারবার হতাশায় ছেয়ে যাচ্ছিল সুইডিশ ক্যাম্প। অবশেষে ভাগ্য চোখ মেলে তাকায় সুইডিশদের দিকে। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) প্রযুক্তিতে পাওয়া পেনাল্টি গোলে প্রায় ১২ বছর পর জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করলো সুইডেন। এশিয়ান পরাশক্তিকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে মাঠ ছাড়ে হলুদ-নীলরা।

ইতালিকে হারিয়ে ২০০৬ সালের পর বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে সুইডিশরা। আর এতে করে ৬০ বছর পর বিশ্বকাপের মূলপর্ব থেকে ছিটকে পড়ে ইতালি। সবশেষ ২০০৬ সালে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পেয়েছিল দলটি। ২০১০ ও ২০১৪ সালে পর পর দুইবার বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরের মূল পর্ব  নিশ্চিত করতে পারেনি দলটি।

সোমবার গ্রুপ ‘এফ’ এর ম্যাচে নিঝনি নভগোরদ স্টেডিয়ামে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়। সুইডিশ অধিনায়ক আন্দ্রেস গ্রানকভিস্ট স্পট কিক থেকে গোলটি করেন।

আগামী ২৩ জুন সুইডেনের পরবর্তী ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। এরপর ২৭ জুন মেক্সিকোর মুখোমুখি হবে দলটি। অন্যদিকে, ২৩ জুন মেক্সিকোর মুখোমুখি হবে দক্ষিণ কোরিয়া। এরপর ২৭ জুন জার্মানির মুখোমুখি হবে তারা।

ফিফা র‌্যাংকিংয়ে দুই বলের ব্যবধান অনেক। সুইডেনের অবস্থান ২৩ নম্বরে। আর দক্ষিণ কোরিয়ার অবস্থান ৬১ নম্বরে। কিন্তু খেলার মাঠে সুইডেনের সঙ্গে সমানে সমানে লড়াই করেছে দক্ষিণ কোরিয়া।

ম্যাচের শুরু থেকেই সুইডেনের আক্রমণভাগ দারুণ চাপ সৃষ্টি করে দক্ষিণ কোরিয়ার রক্ষণে। তবে খেলার ২০ মিনিটে প্রথম কোনো ভালো সুযোগ তৈরি করেছিল সুইডেন। কোরিয়ান ডিফেন্ডাররা তাদের লাইন থেকে সঠিকভাবে বলটি ক্লিয়ার করতে পারেনি। যে কারণে বলটি পেয়ে যান মার্কাস বার্গ।একেবারে গোলের দারুণ সুযোগ। সামনে শুধু গোলরক্ষক। আলতো টোকায় দক্ষিণ কোরিয়ার জালে বলটি জড়িয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু বার্গ মেরে দিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার গোলরক্ষক জো হিউন উ’র পায়ে। নিশ্চিত গোল থেকে বেঁচে যায় দক্ষিণ কোরিয়া। বঞ্চিত হয় সুইডেন।

এক মিনিট পর আবারও গোলের সুযোগ। এবার সুযোগটা মিস করেন পন্টাস জ্যানসন। দারুণ এক হেড নিয়েছিলেন তিনি। লুডউইগ অগাস্টিনসনের পাস থেকে বল পেয়ে হেড নিলেও বলটি চলে যায় ডান পাশ দিয়ে বাইরে। ২৯ মিনিটে আরও একটি দারুণ সুযোগ তৈরি করে সুইডেন। এবারও মার্কাস বার্গ। বক্সের মধ্যে বল পেলেও তিনি গোল করতে ব্যর্থ হলেন। ফলে আবারও হতাশায় পুড়তে হলো সুইডিশ দর্শকদের।

৪৩ মিনিটে আবারও সেই মার্কাস বার্গ। বাম পাশ গোলপোস্টের ৬ গজ সামনে থেকে শট নেন বার্গ। কিন্তু এবারও তার শট হলো লক্ষ্যভ্রস্ট। তার আগে ৩৭ মিনিটের সময় দক্ষিণ কোরিয়ার লি জায়ে সুং দারুণ একটি সুযোগ তৈরি করেছিলেন। কিন্তু বক্সের মধ্যেই সুইডিশ ডিফেন্ডারদের বাধার সম্মুখীন হন তিনি।

দ্বিতীয়ার্ধে নেমে গোলের জন্য আরো মরিয়া হয়ে ওঠে সুইডেন। মুহুর্মুহু আক্রমণে কাঁপিয়ে তোলে কোরিয়ান ডিফেন্স। এসময় নিজেদের ডি-বক্সে মারাত্মক এক ভুল করে কোরিয়া। ম্যাচের ৫৭ মিনিটে ডি-বক্সের ভেতর ভিক্টর ক্লায়েসনকে ট্যাকেল করেন দক্ষিণ কোরিয়ান ডিফেন্ডার কিম মিন উ। পরে ‘ভিএআর’ প্রযুক্তিতে ট্যাকেলটিকে অবৈধ ঘোষণা করে পেনাল্টি কিকের বাঁশি বাজান রেফারি। আর স্পটকিক থেকে গোল করে দলকে কাঙ্খিত গোলটি এনে দেন গ্রানকভিস্ট।

গোল খেয়ে পাল্টা আক্রমণে প্রতিপক্ষের ডিফেন্স ব্যস্ত রাখে কোরিয়াও। বেশ কয়েকটি আক্রমণেও যায় তারা। কিন্তু শেষটায় গিয়ে আর সফল হতে পারে না। ফলে সুইডিশদের ১-০ জয় নিয়েই শেষ হয় ম্যাচ।

http://www.anandalokfoundation.com/