বুধবার, ২২ জানুয়ারী ২০২০, ০৮:২৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
গণধর্ষণের সাক্ষীকে পুলিশ দিয়ে ডেকে মেরে হাড় ভেঙে দিল চেয়ারম্যানের লোকেরা মসজিদে মাইক ব্যবহার অনুমতি দিলো না ভারতের আদালত আমরা ভারতবর্ষের আইন মানি না প্রকাশ্যে ঘোষণা তৃণমূল নেতার শিল্প কারখানার কর্ম পরিবেশ ও শ্রমিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে সরকার রোহিঙ্গাদের কারণে উখিয়া-টেকনাফের মানুষ আতঙ্কে আছে -কাদের নবীগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা গিরীন্দ্র চন্দ্র দাশের পরলোক গমন, রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য সম্পন্ন নির্বাচনের দিন ঢাকায় শিল্প-কারখানা বন্ধ রাখার নির্দেশ কয়েকদিনের ব্যবধানে চার সাংসদের মৃত্যু অত্যন্ত কষ্টের, বেদনার: প্রধানমন্ত্রী মহানবীর বিদায় হজ্জের ভাষনটি ছিল মানবতার এক সংবিধান বেনাপোল বন্দর প্রেসক্লাবের নতুন কমিটির সভাপতি শেখ কাজিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক

হিন্দু ধর্মে জাতিভেদ প্রথা

পুরোহিত দর্পণের বিধান অনুযায়ী জাতিভেদ প্রথা অনুসারে ব্রাহ্মণের দশ দিন, ক্ষত্রিয়ের বার দিন, বৈশ্যের পনের দিন আর শূদ্রের ত্রিশ দিন অশৌচ থাকে। পৌরাণিক হিন্দু সমাজের অভিশাপ এই জাতিভেদ প্রথার যৌক্তিকতা কী? গীতায় ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন,-

“চাতুর্ব্বর্ণং ময়া সৃষ্টং গুণকর্ম বিভাগশঃ।

                      তস্য কর্তারমপি মাং বিদ্ধ্যকর্তারমব্যয়ম্‌”।। (গীতা-৪/১৩)

অর্থাৎ গুণ ও কর্ম অনুসারে আমি চার বর্ণ সৃষ্টি করেছি, আমি এই চার বর্ণের সৃষ্টি কর্তা হলেও আমাকে অব্যয় ও অকর্তা বলেই জানবে।

এখানে শ্রীকৃষ্ণ গুণ ও কর্ম অনুসারে বর্ণ বিভাগের কথা বলেছেন, জন্ম বা বংশানুক্রম অনুসারে জাতিভেদের কথা বলেন নি। প্রাকৃতিক নিয়মে, মানসিকতার বিচারে গুণ ও কর্ম অনুসারে সমগ্র মানব জাতি এই চারটি বর্ণে বিভক্ত। এখানে শুধু পৌরাণিক হিন্দু নয়, মানুষ মাত্রেই এই চার বর্ণে বিভিক্ত। যেমন,-

বিপ্র- বুদ্ধিজীবি, অর্থাৎ যারা তাদের বৌদ্ধিক শক্তির দ্বারা জীবিকা নির্বাহ করে ও সবাইকে, সব কিছুকে নিয়ন্ত্রণ করতে চায় তাদের বলে বিপ্র।

ক্ষত্রিয়- যোদ্ধা, যারা তাদের দৈহিক শক্তি ও অস্ত্র শক্তির দ্বারা জীবিকা নির্বাহ তথা সবাইকে, সব কিছুকে নিয়ন্ত্রণ করতে চায় তাদের বলে ক্ষত্রিয়।

বৈশ্য-ব্যবসায়ী, যারা তাদের ব্যবসায়িক বুদ্ধির দ্বারা জীবিকা নির্বাহ করে ও অর্থের দ্বারা সবাইকে, সব কিছুকে বশীভূত করে রাখতে চায় তাদের বলে বৈশ্য।

শূদ্র-শ্রমজীবি, যাদের মধ্যে এই তিন বর্ণের কোন গুণ নেই, যারা শুধু তাদের কায়িক শ্রমের দ্বারা জীবিকা নির্বাহ করে, খেয়ে পরে কোন প্রকারে বেঁচে থাকাই যাদের জীবনের একমাত্র লক্ষ্য, তারা হ’ল মানসিকতার বিচারে শূদ্র।

এই গুণ-কর্ম ভিত্তিক বর্ণ বিভাগ  অতীতে ছিল, বর্তমানে আছে আর অদূর ভবিষ্যতেও থাকবে। পৌরাণিক হিন্দু সমাজের জাতিভেদ ব্যবস্থার সঙ্গে এর কোন সম্পর্ক নেই। গীতায় ভগবান শ্রীকৃষ্ণ যে বর্ণ বিভাগের কথা বলেছেন সেই বর্ণ বিভাগ ও পৌরাণিক হিন্দু ধর্মের জাতিভেদ প্রথা এক নয়। মানসিকতার বিচারে বর্ণভেদ সংস্কারগত, কর্মের দ্বারা গুণ অর্জনের  মাধ্যমে পরিবর্তনশীল। আর জাতিভেদ প্রথা সুবিধাবাদী, স্বার্থপর  মানুষের সৃষ্টি জন্মগত ও অপরিবর্তনীয়। জাতিভেদ প্রথার নিয়ম অনুসারে শূদ্রের ঘরে জন্মগ্রহণ করলেই তিনি শূদ্র, আর ব্রাহ্মণের ঘরে জন্মগ্রহণ করলেই তিনি ব্রাহ্মণ বলে গণ্য হন। কিন্তু বর্ণ বিভাগের নিয়ম অনুসারে শূদ্রের সন্তান যদি লেখা পড়া শেখে, বুদ্ধিজীবি হয় তবে তিনি বিপ্র। আবার বিপ্রের সন্তান যদি লেখাপড়া না শেখে, মুর্খ হয়, কায়িক শ্রমের দ্বারা জীবিকা নির্বাহ করে তবে সে শূদ্র।

ব্রাহ্মণঃ এখন প্রশ্ন জাগে ব্রাহ্মণ কে? শাস্ত্রে আছে,-

                  “জন্মনা জায়তে শূদ্রঃ সংস্কারাৎ দ্বিজ উচ্যতে।

                  বেদ পাঠে ভবেৎ বিপ্রঃব্রহ্ম জানাতি ব্রাহ্মণঃ”।।

জন্ম মাত্রে সবাই শূদ্র, কেননা তখন তার মধ্যে জ্ঞানের উন্মেষ ঘটেনি। এর পরে যখন সে গুরুর নিকট থেকে সাধনা বিজ্ঞান শিখল, সাধনা করতে শুরু করলো, তখন সে দ্বিজ  অর্থাৎ তার দ্বিতীয় বার জন্ম হয়েছে, অধ্যাত্ম জগতে সে প্রবেশ করেছে। বিদ্‌ ধাতু থেকে উৎপন্ন বেদ শব্দের প্রকৃত অর্থ হ’ল জ্ঞান। তাই যখন সে লেখা পড়া করে, শাস্ত্রাদি চর্চা করে জ্ঞান লাভ করলো তখন সে বিপ্র বা বুদ্ধিজীবি। আর যখন অন্তর্মুখী মানস আধ্যাত্মিক সাধনার দ্বারা ব্রহ্মজ্ঞান লাভ করলো, ব্রহ্ম উপলব্ধি করতে পারলো তখন সে ব্রাহ্মণ। তাই ব্রাহ্মণত্ব  জন্মগত নয়, সাধনার দ্বারা ব্রাহ্মণত্ব অর্জন করতে হয়।  কিন্তু বর্তমান পৌরাণিক হিন্দু সমাজে যারা নিজেদের ব্রাহ্মণ বলে পরিচয় দেয়, তারা জন্মসূত্রে, বংশ ধারায় জাতিগত ভাবে ব্রাহ্মণ উপাধির দাবী করে, তাদের না আছে সাধন-ভজন, না আছে ব্রহ্ম উপলব্ধি।

প্রাচীন বৈদিক যুগে জাতিভেদ প্রথাঃ

প্রাচীন বৈদিক যুগে এই বর্ণভেদ  বা জাতিভেদ প্রথা ছিল না। পরবর্তী বৈদিক যুগে লোক সংখ্যা বৃদ্ধি পাবার ফলে কর্ম ভেদের প্রয়োজন দেখা দেয়  ও বর্ণভেদ সৃষ্টি হয়। প্রথমতঃ এই বর্ণভেদ বংশগত ছিল না, কর্মগত ছিল। একই পরিবারে কেউ ব্রাহ্মণ, কেউ ক্ষত্রিয় বা কেউ বৈশ্যের কাজ করত। পরে ব্রাহ্মণ্যবাদের যুগে এটা বংশগত হয়ে যায়।

গীতাশাস্ত্রী জগদীশ চন্দ্র ঘোষ-‘চতুর্বর্ণের উৎপত্তি’ সম্পর্কে লিখেছেন,-

“প্রাচীন বৈদিক যুগের সামাজিক রীতি-নীতি, লোকের বৃত্তি-ব্যবসায়, ধর্মকর্ম ইত্যাদি পর্যালোচনা করিয়া কোথাও জাতিভেদের অস্তিত্বের কোন নিদর্শন পাওয়া যায় না। নিম্নে ঋগ্বেদের একটি সূক্তের অনুবাদ সংক্ষেপে উদ্ধৃত করা হইল।

“হে সোম, সকল ব্যক্তির কার্য এক প্রকার নহে ; আমাদের কার্যও নানাবিধ; দেখ,- তক্ষ (সূত্রধর) কাঠ তক্ষণ করে, বৈদ্য-রোগের প্রার্থনা করে, স্তোতা যজ্ঞকর্তাকে চাহে। দেখ,  আমি স্তোত্রকার, পুত্র চিকিৎসক, কন্যা যর্বভর্জনকারিনী”। (ভাজা-পোড়া তৈরী করা যাহার বৃত্তি, বর্ত্তমান শূদ্র বা বৈশ্য। মন্বাদি শাস্ত্রানুসারে ব্রাহ্মণপুত্র চিকিৎসক হইলে জাতি যাইত) (ঋক্‌, ৯ম, ১১২ )। অপিচ, ঐতরেয় ১/১৬, ২/১৭, ২/১৯; ছান্দোগ্য ৫/৪, শতপথ ব্রাহ্মণ ৩২/১ ইত্যাদি দ্রঃ)”। (শ্রীমদ্ভাগবদ্গীতা, পৃ-১৪৬)

মহাভারতের যুগে জাতিভেদ প্রথাঃ

মহাভারতীয় যুগেও দেখা যায় জাতিভেদ প্রথা ছিল  গুণ ও কর্মগত, তখনও জন্ম গত ভাবে এই জাতিভেদ প্রথা  গড়ে ওঠে নি।যেমন, শ্রীকৃষ্ণের লৌকিক পিতা বসুদেব ছিলেন ক্ষত্রিয়, তাঁর জেষ্ঠতাত গর্গমুনি ছিলেন বিপ্র তথা ব্রাহ্মণ, আবার তাঁর অন্য জ্ঞাতি কাকা নন্দ, উপনন্দ ছিলেন কর্ম সূত্রে গোয়ালা অর্থাৎ বৈশ্য। শ্রীকৃষ্ণও গীতায় স্পষ্ট করে  সে কথা বলেছেন,-

                     “চাতুর্ব্বর্ণং ময়া সৃষ্টং গুণকর্ম বিভাগশঃ।

                      তস্য কর্তারমপি মাং বিদ্ধ্যকর্তারমব্যয়ম্‌”।। (গীতা-৪/১৩)

ব্রাহ্মণ্যবাদের যুগে জাতিভেদ প্রথাঃ

মহাভারতীয় যুগের পরে ভারতীয় সমাজে ধীরে ধীরে ক্ষত্রিয় প্রাধান্য শেষ হয়ে যায় ও বিপ্র প্রাধান্য প্রতিষ্ঠিত হয়। এই বিপ্র প্রাধান্যের যুগে একদল সুবিধাবাদী স্বার্থপর বিপ্র নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমান করতে ও  অজ্ঞ  সাধারণ ধর্মভীরু মানুষদের যুগ যুগ ধরে বংশপরাম্পরায় মানস-অর্থনৈতিক  শোষণ  করার জন্যে এই জাতিভেদ প্রথাকে জন্মগত বলে ঘোষণা করে। তারা শূদ্র ও নারীদের সমস্ত প্রকার ধর্মীয়, সামাজিক, অর্থনৈতিক এমনকি মানবিক অধিকার পর্যন্ত হরণ করে বিভিন্ন ধরণের বিধি-নিষেধ আরোপ করে।তারা ঘোষণা করে বেদ, ব্রহ্ম ও ব্রাহ্মণের শ্রেষ্ঠত্ব সকলকে মানতে হবে। যারা মানবে তারা আস্তিক আর যারা মানবে না তারা নাস্তিক। এই সময়ে তারা বেদ লিপিবদ্ধ করে ও  তাদের এই সব বিধি-নিষেধ  স্বয়ম্ভূব মনু রচিত বলে ‘মনুসংহিতা’র নামে সংকলিত করে। তারা তাদের এই ব্রাহ্মণ্যবাদকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে রচনা করতে থাকে বিভিন্ন ধরণের শাস্ত্র, পুরাণ, আচরণ সংহিতা। ঋকবেদের নামে একটা শ্লোক দেখিয়ে জাতিভেদ প্রথাকে সমাজের বুকে  জগদ্দল পাথরের মত চাপিয়ে দেয়। তারা বলে,-

                “ব্রাহ্মণস্য মুখমাসীৎ বাহুরাজন্যকৃতঃ।

                উরু তদস্য যদবৈশ্য পদ্ভ্যাং শূদ্রো অজায়ত”।।

অর্থাৎ ব্রাহ্মণ সেই পুরুষের (সৃষ্টিকর্তার) মুখ হলেন; ক্ষত্রিয় বাহু (কৃত) হলেন; বৈশ্য ইহার উরু; পদ হতে শূদ্রের জন্ম হ’ল।

এ সম্পর্কে গীতা শাস্ত্রী জগদীশ চন্দ্র ঘোষ লিখেছেন,-

“আবার বেদের অন্যান্য স্থলে, যেমন শতপথ ব্রাহ্মণে ( ২/১০/১১ ) ও তৈত্তিরীয় ব্রাহ্মণে  ( ৩/১২/৯/২ ) বর্ণ সমূহের উৎপত্তি অন্যরূপে বর্ণিত হইয়াছে এবং তথায় শূদ্রের উল্লেখও নাই, কেবল তিন বর্ণেরই উল্লেখ আছে। ইহাতে অনুমান করা যায় যে, শূদ্রগণ সমাজে পরে গৃহীত হইয়াছেন। ঐতিহাসিকগণ বলেন যে, আর্যগণ বিজিত অনার্যদিগকে হিন্দু সমাজে গ্রহণ করিয়া পরিচর্যাত্মক কর্মে নিযুক্ত করিয়াছেন। ঋগ্বেদ প্রাচীনতম গ্রন্থ হইলেও ইহার সকল ঋক্‌ প্রাচীন নহে। বিভিন্ন সময়ে রচিত ঋক্‌ সমূহ পবর্তী কালে সংহিতাকারে সঙ্কলিত হইয়াছে। উক্ত সুক্তটিও জাতিভেদ প্রবর্তিত হইবার পরে রচিত হইয়াছে বলিয়াই অনেকে অনুমান করেন”। (শ্রীমদ্ভাগবদ্গীতা, পৃ-১৪৭)

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit