সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
সাবেক সংসদ সদস্য অলহাজ্ব মকবুল হোসেনের মৃত্যুতে পরিবেশ মন্ত্রী সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাড়ির ভিতরে ঈদ উদযাপন করার অনুরোধ ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসকের রাজারহাটে উৎসবের আমেজঃ  রাত পোহালেই ঈদ মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করুন -প্রধানমন্ত্রী পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, আগামীকাল ঈদ জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাত হচ্ছে না, জেনে নেই ৫ জামাতের সময়সূচি মনিরামপুরে ঘুর্নিঝড় আম্পানে নিহত ৫ পরিবারের পাশে স্বেচ্ছাসেবক দল উলিপুরে নদী ভাঙ্গন রোধে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন  জগন্নাথদী মাদ্রাসার সভাপতি সামচুল হক ও সম্পাদক আছাদুজ্জামান ঠাকুরগাঁওয়ে ৪৫০ পিস ইয়াবা সহ দুই কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী আটক

আফগানিস্তানের মতো হিন্দুদের ধর্মজীবীরা পরিণত হবে অপ্রয়োজনীয় আবর্জনায়

হিন্দু-ধর্মজীবী-আবর্জনায়

মাত্র চারশত বছর আগেও পৃথিবীতে সনাতন  ধর্মালম্বীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল। এখন আর ভারতবর্ষের বাইরে সনাতন ধর্মালম্বীদের অস্তিত্ব নেই।

ব্রিটিশরা ভারতীয় হিন্দুদের বিভিন্ন জনবিরল দেশ নিয়ে গিয়েছিল। যেমন ফিজি, গায়ানা, ত্রিনিদাদ, মরিশাস প্রভৃতি। একে একে সেসব দেশ থেকেও সনাতন ধর্মালম্বীরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছে। শুধু ক্ষুদ্র দেশ মরিশাসে হিন্দুদের রাজনৈতিক ক্ষমতাটুকু অবশিষ্ট আছে।

মাত্র তিন শতাব্দী আগেও ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ব্রুনাই, সিঙ্গাপুর প্রভৃতি দেশ – হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল। ওইসব দেশ থেকে হিন্দুরা এখন মুছে যাওয়ার উপক্রম। একসময়ের শতভাগ হিন্দু অধ্যুষিত আফগানিস্তান, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, মালদ্বীপ প্রভৃতি দেশে হিন্দুরা আজ ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই নিয়েছে।
বাকি আছে শুধু ভারত ও নেপাল। এত ঝড় ঝাপটা সত্ত্বেও – এই দুই দেশে হিন্দুরা এখনও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠ। মুসলমানদের দখল থেকে ভারতভূমি উদ্ধার করে – ব্রিটিশরা ১৯৪৭ সালে হিন্দুদের জন্য যে  রাষ্ট্রটি রেখে যায়, সেই ভারত রাষ্ট্রটিতে প্রতি দশকে  ১% করে হিন্দু জনসংখ্যা হার কমছে। স্বাধীনতা প্রাপ্তির সময় ভারতে হিন্দু জনসংখ্যা হার ছিল ৮৫% ; এখন সেটা নেমে এসেছে ৭৮% – এ।
দেখতে দেখতে ভারতের সীমান্তবর্তী ন’টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে হিন্দুরা সংখ্যালঘুতে পরিণত হয়েছে। ওইসব এলাকায় বিচ্ছিন্নতাবাদের আওয়াজ উঠেছে। ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলবর্তী কেরল রাজ্যটির  হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠতা – মারাত্মক হুমকির মুখে। সীমান্তবর্তী আসাম ও পশ্চিমবঙ্গে-ও  হিন্দু জনসংখ্যা হার দ্রুত কমছে।  অচিরেই ভারতে আরেকটি পাকিস্তান সৃষ্টির দাবি উঠতে পারে।
ভারতে হিন্দু জনসংখ্যা হার যত কমবে, ততই রাষ্ট্রীয় ঐক্য ও সংহতি বিপন্ন হতে বাধ্য। অন‍্যান‍্য দেশের অভিজ্ঞতা থেকে এ কথা নিশ্চিত ভাবে বলা যায় – ভারত রাষ্ট্রটি যদি হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায়, পৃথিবীতে হিন্দু জাতির অস্তিত্ব থাকবে না।
অর্ধশতাধিক রাষ্ট্রের ইতিহাস পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায়, ওই সব দেশের বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠ সনাতন ধর্মালম্বীরা – ধর্মশাস্ত্র, দেবতা, ধর্মগুরু ও অবতারগনের প্রতি অবিচল আস্থাশীল ছিল; তারা দিনরাত আধ্যাত্মিক সাধনায় নিমগ্ন থাকতো এইজন্য যে, তারা দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করতো – যেকোনো সংকট থেকে ধর্মশাস্ত্র, দেবতা, ধর্মগুরু ও অবতারগণ তাদের রক্ষা করবেন। কিন্তু দেখা গেছে, ধর্মশাস্ত্র, দেবতা, ধর্মগুরু ও অবতারগণ – ওইসব রাষ্ট্র থেকে অসহায় ভাবে মুছে গেছেন – ওই সমস্ত দেশের সনাতন ধর্মালম্বীদের রক্ষা করা তো বহু দূরের কল্পনা। ভারত ভূমিতেও যদি হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারালে কোন সনাতন ধর্মশাস্ত্র টিকে থাকবে না, কোন ধর্মগুরু, দেবতা ও অবতারগণের চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যাবে না।
হিন্দুরা  তাদের ধর্মগুরু ও আধ্যাত্বিক ব্যক্তিত্বগণ-কে ভগবান ঘোষণা করে তৃপ্তি পায়।  ভগবানদের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে এমন অবস্থায় পৌঁছে গেছে, তাদের গুনে শেষ করা যায় না। হিন্দু জনসংখ্যা হার যেভাবে কমছে, তাতে এক সময় এই ভগবানদের সংখ্যা, সর্বমোট হিন্দু জনসংখ্যাকে অতিক্রম করে যেতে পারে। হিন্দুই যদি অবশিষ্ট না থাকে, তাহলে ওইসব ধর্মশাস্ত্র, ভগবান, অবতার, দেবতা, ধর্মগুরু ও আধ‍্যাত্মিকব‍্যক্তিত্বদের কী আদৌ কোন কাজে লাগবে?
আফগানিস্তানের মতো আজকের পূজনীয় প্রাণী, পুস্তক, প্রতিমা ও ধর্মজীবীরা পরিণত হবে অপ্রয়োজনীয় আবর্জনায়।  আফগানিস্তানে বুদ্ধমূর্তি-কে যেভাবে ডিনামাইট চার্জ করে ছাতু করে দেওয়া হয়েছে ; ভারত যদি হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায় তাহলে ভারতের সমস্ত পূজনীয় উপকরণসমূহ বুদ্ধমূর্তির ভাগ্য বরণ করে নেবে।
আমি প্রতিটি হিন্দুর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, আপনারা অন্ধআবেগ – অন্ধবিশ্বাস – আধ‍্যাত্মিকতা দিয়ে নয়, আপনারা বাস্তবজ্ঞান, কাণ্ডজ্ঞান ও বুদ্ধি দিয়ে চিন্তা করুন –  যে কিভাবে হিন্দু জাতির অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা যায়। সমস্ত চিন্তা কেন্দ্রীভূত করুন যে, কীভাবে হিন্দু জাতির সংখ্যাহ্রাস ঠেকানো যায়।
অতীতে হিন্দুরা ঘোড়ার গাড়ি, গরুর গাড়ি, নৌকা ব্যবহার করত;  ইউরোপীয়রা বানিয়েছে মোটরগাড়ি রেলগাড়ি, জাহাজ ও বিমান। আধ্যাত্বিক ঐতিহ্য ধরে রাখতে গিয়ে, হিন্দুরা যদি এখনও ঘোড়ায় টানা রথের স্বপ্নে মশগুল থাকে এবং রেলগাড়ি ও উড়োজাহাজ ব্যবহার না করে – তাহলে তারা আধুনিক সভ্যতার সাথে তাল মিলিয়ে টিকে থাকতে পারবে না।
হিন্দুরা যখন তাদের নিয়মরীতি, প্রথাপদ্ধতি ও আধ্যাত্মিক দর্শন সমূহ প্রবর্তন করেছিল, তখন পৃথিবীতে সনাতন ধর্মের একচ্ছত্র আধিপত্য ছিল। হিন্দুদের আধ‍্যাত্মিক দর্শনকে চ্যালেঞ্জ করার মতো কোন মতবাদের অস্তিত্ব ওই সময় পৃথিবীতে ছিল না।  সনাতন ধর্মাবলম্বীরা সর্বপ্রথম কার্যকরী চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়েছিল ইসলাম ধর্ম কর্তৃক।  ত্রয়োদশ শতকে তুরস্ক থেকে আগত ইসলাম ধর্মালম্বীরা হিন্দু জাতির মেরুদণ্ড এমনভাবে ভেঙে দিয়েছিল ব্রিটিশ না এলে হিন্দুরা আর কোনোদিন সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারত না। চলবে—
লেখকঃ দেবাশীষ মুখার্জী (কূটনৈতিক প্রতিবেদক)

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
23242526272829
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!