শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট ২০২০, ০১:১৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে মারপিটে নিহত ৩ কিশোর, আহত ১৪ জন বিশ্বে নির্ভরযোগ্য দেশ হিসেবে ভারতের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে-শ্রিংলা বাংলাদেশ-ভারতে যাতায়াতে বেনাপোল ইমিগ্রেশনের শর্তবলী যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে সংঘর্ষে নিহত ৩, আহত ৬ কিশোর ইলিশের দাম তুলনামূলক কমায় কমেছে বাকি মাছ ও মুরগির দাম গভীর কোমায় ভেন্টিলেশনে রয়েছেন ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি আমেরিকনদের পাকিস্তানে না যাওয়ার পরামর্শ ট্রাম্পের কুয়োর মুখে ভুঁড়ি আটকে যাওয়ায় বেঁচে গেলো লিউ সকল বিভাগে ২০২২ সালের মধ্যেই ১৫ তলা বিশিষ্ট ক্যান্সার হাসপাতাল -স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে প্রয়োজন কমিশন গঠন -তথ্যমন্ত্রী

এই হতভাগা জাতির কাণ্ডজ্ঞান ফেরাতে আপোষহীন লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন তপন ঘোষ

কোনও অপপ্রচারেই উদ‍্যম হারাননি তিনি। অসম সাহসিকতায়  বিপন্ন হিন্দুদের পক্ষে আমৃত্যু আপোষহীন লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন ; চেষ্টা করেছিলেন এই হতভাগা জাতির কাণ্ডজ্ঞান ফিরিয়ে আনতে।

দেবাশীষ মুখার্জী, কূটনৈতিক প্রতিবেদকঃ না ফেরার দেশে চলে গেলেন মহান জাতীয়তাবাদী নেতা শ্রদ্ধেয় তপন ঘোষ। বাঙালি হিন্দুরা হারালো তাদের একজন অভিভাবককে। বিগত ২৮ জুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। ভর্তি হয়েছিলেন কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানেই গতকাল রোববার সন্ধ্যায় শেষনিশ্বাস ত‍্যাগ করেন তপন ঘোষ। বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

তপন ঘোষ আর এস এস-এ যোগ দেন ১৯৬০-এর দশকের শেষের দিকে। কলকাতার শ্রদ্ধানন্দ পার্ক (ওয়েলিংটন স্কোয়্যার) শাখার স্বয়ংসেবক থাকার পরে, সঙ্ঘের প্রচারক (হোলটাইমার) হয়ে যান। জরুরি অবস্থার সময়ে দীর্ঘ সময় কারাবাসও করেন তপন ঘোষ। আর এস এস প্রচারক হিসেবেই রাজ্যে অখিল ভারতী বিদ্যার্থী পরিষদের (এবিভিপি) – এর সম্পাদক নিযুক্ত হন। এই সময়ে তিনি রাজনীতিতে যোগ দিতে চান, কিন্তু তৎকালীন বিজেপি নেতৃত্ব তাতে সম্মতি দেয়নি। দীর্ঘ সময় বিদ্যার্থী পরিষদের দায়িত্ব পালনের পরে, ফের হাওড়া ও হুগলি জেলা নিয়ে গঠিত বিভাগের জন্য আর এস এস প্রচারক হন তপন ঘোষ।

সেই সময়ে মৌরিগ্রামে ‘আল্লানা কসাইখানা’ নিয়ে আন্দোলন শুরু করেন। পাশে ছিলেন তৎকালীন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের আন্তর্জাতিক প্রধান শ্রী অশোক সিংঘল। এই সময়ে পুনরায় স্থানীয় আর এস এস নেতৃত্বের সঙ্গে তাঁর মতভেদ সৃষ্টি হয়।

বিগত নব্বই দশকের শেষ দিকে বাসন্তীর কাছে উত্তর সোনাখালি গ্রামে গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তাল হয়। সেখানেও আরএসএস-এর নির্দেশ অমান্য করে, আক্রান্ত হিন্দুদের রক্ষা করার চেষ্টা করেন তপন ঘোষ। এজন্য তাঁর দায়িত্ব বদল করা হয়। তপন ঘোষকে দিল্লিতে পাঠিয়ে দেয় আর এস এস। বজরং দলের সর্বভারতীয় দায়িত্ব দেওয়ার পরে, কার্যত সঙ্ঘের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করেন তপন ঘোষ।

এর পরেই তিনি তৈরি করেন তাঁর নতুন সংগঠন ‘হিন্দু সংহতি’। মধ্য কলকাতার শ্রদ্ধানন্দ পার্কের কাছে ৫ নং ভুবন ধর লেনে নিজের পৈতৃক বাড়িতেই তৈরি হয় সংগঠনের কেন্দ্র। ওই বাড়ি থেকেই নিয়মিত প্রকাশিত হয় সংগঠনের পত্রিকা ; একই সঙ্গে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে সংগঠন বিস্তারের কাজ। শুধু পশ্চিমবঙ্গ বা ভারতই নয়, বিশ্বের বহু দেশেই হিন্দু সংগঠন গড়ার কাজ করেছেন তিনি।

তবে তিনি হিন্দু সংহতিতেও স্থায়ী হতে পারেন নি। একটা সময়ে অনুগামী দেবতনু ভট্টাচার্যের হাতে তুলে দিয়েছিলেন সভাপতির দায়িত্ব। পরবর্তীকালে আর এস এস এবং বিজেপির কড়া সমালোচক হয়ে উঠেছিলেন তপন ঘোষ। কয়েকজন নেতা হিন্দু সংহতিকে বিজেপি বানিয়ে ফেলছে – এমন অভিযোগ তুলে ২০১৮ সালে হিন্দু সংহতি থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। এর পরে দেবতনু ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে হিন্দু সংহতি ভিন্ন আঙ্গিকে কার্যক্রম চালাতে থাকে। আজন্ম সংগঠনিক দক্ষতাসম্পন্ন তপন ঘোষ তৈরি করেন,তাঁর জীবনের সর্বশেষ  সংগঠন ‘সিংহ বাহিনী’।

২০১৭ সালে কলকাতার  ধর্মতলায় বিশাল জনসভার আয়োজন করেন তপন ঘোষ। ক্ষমতাসীন সেক‍্যুলার গোষ্ঠী  ধর্মান্তরিতকরনের অভিযোগ তোলে তপন ঘোষের বিরুদ্ধে। অথচ ভিন্ন ধর্মাবলম্বীরা হিন্দুদের প্রকাশ‍্যে ধর্মান্তরিত করলে, ক্ষমতাসীন সেক‍্যুলার গোষ্ঠী দুধেল গাইদের বাহবা দেয়।

এরপরেই রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে তপন ঘোষের সভা নিষিদ্ধ করা হয়। ওই বছরেই সনাতন ধর্ম সম্বন্ধীয় বক্তব্য পেশ করতে বিদেশ যাত্রাও করেন তপন ঘোষ। বিদেশে তাঁর বক্তব্য ঘিরেও তৈরি হয় একাধিক বিতর্ক। কিন্তু কোনও অপপ্রচারেই উদ‍্যম হারাননি তিনি। অসম সাহসিকতায়  বিপন্ন হিন্দুদের পক্ষে আমৃত্যু আপোষহীন লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন ; চেষ্টা করেছিলেন এই হতভাগা জাতির কাণ্ডজ্ঞান ফিরিয়ে আনতে। লোকান্তরিত এই মহান নেতার প্রতি নিবেদন করছি শ্রদ্ধাবনত প্রণাম।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
15161718192021
22232425262728
293031    
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!