13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভারতকেশরী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণ দিবস আজ

ডেস্ক
June 23, 2024 7:49 am
Link Copied!

আজ ৬ জুলাই  ভারতীয় শিক্ষাবিদ, লেখক, জাতীয়তাবাদী রাজনীতিবিদ, ভারতকেশরী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণ দিবস আজ।  ১৯৫৩ সালের আজকের দিনে কাশ্মীর শ্রীনগর জেলে বন্দি থাকা অবস্থায় মাত্র ৫২ বছর বয়সে মারা যান শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়,যদিও তার মৃত্যুর কারণ নিয়ে কিছুটা রহস্য কিছুটা বিতর্ক আজ‌ও রয়ে গেছে। মহান নেতা ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও প্রণাম ।

১৯০১ সালের ৬ জুলাই কলকাতার একটি অভিজাত ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী। শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের আদি বাড়ি ছিলো পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার জিরাট-বলাগড় গ্রামে। তার বাবার নাম ছিলো স্যার আশুতোষ মুখোপাধ্যায় ও মায়ের নাম ছিলো শ্রীমতী যোগমায়া দেবী। পিতা-মাতার পাণ্ডিত্য ও জাতীয়তাবাদী চেতনায় তার মধ্যে সঞ্চারিত হয়েছিলো। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী প্রথম হিন্দু জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনসংঘ গঠন করেন, তিনি হিন্দু মহাসভার সভাপতিও ছিলেন। এছাড়া তিনি জহরলাল নেহেরুর ক্যাবিনেটের মন্ত্রী ছিলেন তবে পরবর্তীকালে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী নেহেরু-লিয়াকত চুক্তির বিরোধিতা করে মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করেন।

১৯২১ সালে প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ইংরেজিতে স্নাতক পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণীতে পাশ করার পর, তিনি ভারতীয় ভাষায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর ১৯২৪ সালে বি.এল পরীক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয়ে সর্বোচ্চ স্থান লাভ করেন তিনি।ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে এই মানুষটির যথেষ্ট ভূমিকা ছিলো, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে ভারতছাড়ো আন্দোলনের সাথে যুক্ত ছিলেন তিনি। কাজী নজরুল ইসলাম আর্থিক অনটনে পড়ে ডঃ মুখার্জির শরণাপন্ন হলে ডঃ মুখার্জি কাজী নজরুল ইসলামের স্বাস্থ্য উদ্ধারের জন্য নিজের পৈতৃক বাড়িতে সস্ত্রীক কবিকে থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন।

১৯৪৭ এর ১৫ আগষ্ট ভারত স্বাধীন হওয়ার পর নেহেরুর মন্ত্রিসভায় শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী শিল্প-মন্ত্রীরূপে শপথ গ্রহণ করেছিলেন। ভারতের শিল্পমন্ত্রী থাকাকালীন তিনি শিল্প উন্নয়ন নিগম, প্রথম শিল্পনীতি প্রণয়ন, চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ স্থাপন, সিন্ধ্রি সার কারখানা সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এর পাশাপাশি খড়গপুরে ভারতের প্রথম ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি স্থাপনা, কলকাতার প্রথম ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সোশাল ওয়েলফেয়ার অ্যান্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্টের মত গুরুত্বপূর্ণ ভাবনাগুলো ও ছিল তার মস্তিষ্কপ্রসূত।

১৯৫০ সালে পূর্ববঙ্গে হিন্দুদের উপর অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে গিয়েছিলো, নারীদের উপর অত্যাচার,হত্যা প্রতিদিন লেগেই থাকত। এই সময় ১৪ এপ্রিল ১৯৫০ এ নেহেরুর লিয়াকত চুক্তির প্রতিবাদ করে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন ডঃ মুখার্জি। এরপর সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের মৃত্যু হ‌ওয়ার পর কংগ্রেসের মধ্যে জাতীয়তাবাদী শক্তির ভরকেন্দ্রে শূন্যতা সৃষ্টি হলে ১৯৫১র অক্টোবরে নানা চিন্তা ভাবনা করে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের দ্বিতীয় সংঘচালক গুরুজি গোলওয়ালকারের সাথে পরামর্শ করে তিনি নতুন রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনসংঘ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৫২ সালের মে মাসে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী দক্ষিণ কলকাতার লোকসভা কেন্দ্র থেকে অসংখ্য পরিমাণ ভোটে নির্বাচিত হন এবং সেই প্রথমবার ভারতীয় জনসংঘ প্রথম সাধারণ নির্বাচনে তিনটি আসন লাভ করেন। এরপর লোকসভার বিরোধী দলনেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন তিনি। জনসংঘ সেইসময় বিধানসভা ভোটে বাংলা প্রদেশ ৮টিও রাজস্থানে ৮ টি আসন লাভ করে।

কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা চালু রাখলে ভবিষ্যতে যে সমস্যা বাড়তে পারে সেই কথাও তিনি বারংবার বলেছিলেন। ভারতের অখন্ডতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সংবিধানের বিশেষ অনুচ্ছেদ ৩৭০ধারা বিলোপ ও পারমিটরাজ বাতিলের দাবিতে ডঃ মুখার্জি কাশ্মীর অভিযান করেন। ১৯৫৩ র ১১ ই মে পাঞ্জাবের উধমপুরে শেষ সভা করে কাশ্মীর প্রবেশের পথে তিনি গ্রেপ্তার হন এরপর কাশ্মীরে বন্দি থাকা অবস্থায় ২৩ জুন মাত্র ৫১ বছর বয়সে মারা যান শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়,যদিও তার মৃত্যুর কারণ নিয়ে কিছুটা রহস্য কিছুটা বিতর্ক আজ‌ও রয়ে গেছে।

অটল বিহারী বাজপেয়ীও প্রশ্ন তুলেছিলেন, তার মৃত্যুর রহস্য ময়তা নিয়ে। এমনকি এতে কংগ্রেসের ভূমিকা আছে বলেও অভিযোগ ছিল অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। এই নিয়ে গত মাসেই একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে।

৭১ বছর আগে ২৩ জুন পশ্চিমবঙ্গের প্রতিষ্ঠাতা ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়-কে কাশ্মীরে পয়জন ইঞ্জেক্ট করে খুন করা হয়েছিল – জহরলাল নেহেরু ও শেখ আবদুল্লাহ-র মিলিত ষড়যন্ত্রে। শ্যামাপ্রসাদের আত্মবলিদানের জন্যই আজ জম্মু-কাশ্মীর ভারতের অঙ্গরাজ্য।্যামাপ্রসাদের আত্মবলিদানের জন্যই আজ জম্মু-কাশ্মীর ভারতের অঙ্গরাজ্য।
স্যার আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের সহধর্মিণী এবং ভারত কেশরী শ্যামাপ্রসাদের মাতা যোগমায়া দেবী – নেহেরুর কাছে বার বার অনুরোধ করেছিলেন, তদন্ত কমিশন গঠন করে তাঁর ছেলের মৃত্যুরহস্যের সুরাহা করার জন্য। নেহেরু কর্ণপাত করেন নি,পাছে নিজের কুকীর্তি ফাঁস হয়ে যায়।
শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় সিংহ বিক্রমে ঝাঁপিয়ে না পড়লে, পশ্চিম বঙ্গ পাকিস্তান হয়ে যেত। ইদানিং দেখা যাচ্ছে, ‘জয় বাংলা‘- স্লোগান দিয়ে পশ্চিম বঙ্গকে ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন করে, পাকিস্তানে বিলীন করার ষড়যন্ত্র চলেছে।
শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের যদি জন্ম না হতো, হিন্দু বাঙালির কোনো হোমল্যান্ড থাকতো না। পার্টিশনের সময় মুসলমানদের হাতে বেধড়ক মার খেয়ে দেশ ছাড়া হওয়া বাঙালি হিন্দুরা কোথায় আশ্রয় পেত! অথচ নেমকহারামেরা আশ্রয়দাতাকে সাম্প্রদায়িক বলে ; আর দেশদ্রোহী জ্যোতি বসুর দলের চামচেগিরি করে গেছে একটানা ৩৪ বছর! এখন আবার তাদের আণ্ডা-বাচ্চারা জার্সি বদল করে, পাকিস্তানের এজেন্টদের হয়ে গুণ্ডামি করে বেড়াচ্ছে – ধর্মনিরপেক্ষতার মুখোশ পরে হিন্দুদের পিঠে ছুড়ি মারছে। নবপ্রজন্মের ওই সমস্ত বেইমানরা কী জানে না যে, সেক্যুলার ও কম্যুনিস্টরা ব্রিটিশ এবং মুসলিম লীগের সঙ্গে হাত মিলিয়ে পাকিস্তান আন্দোলন সমর্থন করেছিল এবং বঙ্গভঙ্গের বিরোধিতা করেছিল! তারা ওই সময় বলে বেড়াত ―
                                               “পাকিস্তান দিতে হবে
                                              পরে ভারত স্বাধীন হবে”
‘যত মত তত পথ’ কিংবা ‘দুধেল গাই’ – প্রভৃতি মুখরোচক শব্দজালের আড়ালে, বাঙালি হিন্দুদের সর্বনাশ সাধনের গভীর ষড়যন্ত্র চলছে। ‘মিনি পাকিস্তান’ – তত্ত্বের প্রবক্তাকে কলকাতা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র বানানো হয়েছে। সুতরাং বাঙালি হিন্দুর অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থে, শ্যামাপ্রসাদের রাজনৈতিক আদর্শে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিকল্প নেই।
http://www.anandalokfoundation.com/