ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শিনজো আবে হত্যা-অকৃত্রিম বন্ধুকে হারাল বাংলাদেশ

Link Copied!

জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবেকে হত্যার ঘটনা পুরো বিশ্বকে স্তম্ভিত করে দিয়েছে। আর বাংলাদেশ হারিয়েছে এক অকৃত্রিম বন্ধুকে। শান্তিপ্রিয় দেশটিতে এমন নজিরবিহীন বর্বরতা অকল্পনীয়। জাপানে যুক্তরাষ্ট্রের মতো কেউ ইচ্ছা করলেই বন্দুকের মালিক হতে পারেন না। অন্যদিকে রাজনৈতিক সহিংসতা নেই বললেই চলে। তেমন একটি দেশে তার এই মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এক কলঙ্কময় ইতিহাস লেখা হয়ে গেলো।

হত্যাকারী জানিয়েছে, অ্যাবের ওপর সে অসন্তুষ্ট ছিল। তার ডাবলড-ব্যারেলের বন্দুকটি হাতে বানানো। শুক্রবার (৮ জুলাই) দক্ষিণাঞ্চলীয় নারা শহরের বাইরে একটি ট্রেন স্টেশনসংলগ্ন সড়কে নির্বাচনী প্রচারের সময় তাকে পেছন থেকে গুলি করা হয়েছে। এমন সময় অকল্পনীয় এই ঘটনাটি ঘটলো যখন জাপানের মানুষ  পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের নির্বাচনে রবিবার দিন ভোট দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলো। আর তিনিও ক্ষমতাসীন দল লেবারেল ডেমোক্র্যাটিকের (এলডিপি) একজন প্রার্থীর পক্ষে প্রচারে নেমেছিলেন।

জাপানি সংবাদমাধ্যম এনএইচকে জানিয়েছে, বেলা সাড়ে ১১টায় বক্তব্য দেওয়ার সময় হঠাৎ করে তাকে মাটিতে লুটিয়ে পড়তে দেখা যায়। তার শরীর থেকে অঝোরে রক্ত ঝরছিল। লাল রক্তে ভিজে যায় তার সাদা জামা। ঘটনাস্থলে উপস্থিত এনএইচকের সাংবাদিক দুটির গুলির শব্দ শুনতে পান। এই জনপ্রিয়, দৃঢ় ও দূরদর্শী নেতার মৃত্যুতে জাপানিদের মনে শোকের কালো মেঘ নেমে আসে।

এ অবিশ্বাস্য হত্যাকাণ্ডে বাংলাদেশের মানুষও শোকাহত। শনিবার (৯ জুলাই) রাষ্ট্রীয়ভাবে একদিনের শোক পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। তার মৃত্যুতে শোক ও দুঃখপ্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ও জাপানের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ব্যাপক ও নতুন অংশীদারিত্বে উন্নীত করায় তার অবদান অপরিসীম।

স্বাধীনতার পর জাপান-বাংলাদেশের সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় ওঠে আবে সরকারের সময়। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি বাংলাদেশ সফর করেন। তখন ৬০০ কোটি মার্কিন ডলার সহায়তার প্রস্তাব দেন। জাপানের ২০০ শীর্ষ বিনিয়োগকারীকে সফরসঙ্গী করে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন আবে। এর আগে বাংলাদেশকে এতো সহায়তা কোনো দেশ দেয়নি। এছাড়া তার এ সফরের ১৪ বছরের মধ্যে আর কোনো জাপানি প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে আসেননি।

এরআগে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কোন্নয়নে ২০১০ ও ২০১৩ সালে দুবার জাপান সফর করেন শেখ হাসিনা। ২০১২ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে দক্ষিণ এশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক জোরদারের ঘোষণা দেন আবে। সেদিন সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে একাধিক বার বাংলাদেশের প্রসঙ্গ তুলে আনেন তিনি। দুই মেয়াদে প্রায় ৯ বছর ক্ষমতায় ছিলেন আবে।

২০১৬ সালে ঢাকার হোলি আর্টিজানে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। তখন অন্য দেশগুলো বাংলাদেশের কাছ থেকে সরে যাচ্ছিল। কিন্তু তিনি বাংলাদেশের সঙ্গে আস্থার সম্পর্ক অটুট রাখার ঘোষণা দেন। যদিও এ হামলায় সাত জাপানি নাগরিক নিহত হন।

একই বছরে সাতটি অগ্রসর দেশের জোট জি-সেভেন সম্মেলনের আয়োজক ছিল জাপান। ২০১৬ সালের ২৭ মে আবের আমন্ত্রণে মিই জেলার কিশিকো দ্বীপে জি সেভেনের আউটরিচ সম্মেলনে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময়ে দুই নেতার মধ্যে বৈঠক হয়। এ ঘটনাকে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার আরেকটি মাইলফলক হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। বলা হয়, জাপান যদি বাংলাদেশের পরীক্ষিত বন্ধু হয়, সেখানে শিনজো আবে তার অনুঘটক।

২০১৯ সালে ফের জাপান সফর করেন শেখ হাসিনা। তখন বিভিন্ন প্রকল্পে বাংলাদেশের সঙ্গে ২৫০ কোটি ডলারের উন্নয়ন সহায়তার চুক্তিতে সই করে আবে সরকার। এসবের মধ্যে মাতারবাড়ি সমুদ্রবন্দর উন্নয়ন, ঢাকা ম্যাস র‌্যাপিড ট্র্যানজিট লাইন-২ এবং জ্বালানি দক্ষতা ও সংরক্ষণ বৃদ্ধি কার্যক্রমে অর্থায়ন প্রকল্পও রয়েছে। এসব চুক্তি সইয়ে আবের ভূমিকা চালিকা শক্তি হিসেবে কাজ করেছে।

প্রধানমন্ত্রিত্ব ছাড়লেও রাজনীতিতে সক্রিয়

২০০৬ সালে প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন আবে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে তিনিই ছিলেন জাপানের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু এক বছরের বেশি তার সেই মেয়াদ স্থায়ী হয়নি। রাজনৈতিক অস্থিরতা, পেনশন রেকর্ড নিয়ে ভোটারদের ক্ষোভ, নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের পরাজয়ের মধ্যে স্বাস্থ্যগত কারণে তিনি ক্ষমতা ছাড়েন।

পরে বুঙ্গেই শুনজু সাময়িকীতে তিনি লেখেন, ‘ওই পদত্যাগের কারণ আমাকে বেশি হতাশ করেছে। আবে প্রশাসন যে রক্ষণশীল চিন্তাধারার প্রচার করেছিল, তা আস্তে আস্তে মিইয়ে যাচ্ছে। জাপানে যাতে সত্যিকার রক্ষণশীলবাদ শিকড় গাড়তে পারে, তা নিশ্চিত করতে একজন আইনপ্রণেতা হিসেবে নিজেকে উৎসর্গ করতে চাই।

তার পদত্যাগের পর এরইমধ্যে পাঁচ বছর চলে যায়। বিস্ময়করভাবে নতুন রূপে তিনি রাজনীতিতে প্রত্যাবর্তন করেন। ২০১২ সালে আবে তার রক্ষণশীল দলকে আবার ক্ষমতায় নিয়ে আসেন।

তার দ্বিতীয় মেয়াদের শুরুতে জাপানে মন্দা চলছিল। কিন্তু তার নেওয়া নীতির কারণে নড়বড়ে অর্থনীতিও প্রবৃদ্ধিতে ফিরে আসে। জাপানে সবচেয়ে দীর্ঘ সময়ের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ৬৭ বছর বয়সী আবে। ২০১১ সালে তোহোকুতে বড় ধরনের ভূমিকম্প ও সুনামিতে ২০ হাজারের মতো মানুষ মারা যান। এছাড়া ফুকুশিমা পরমাণু চুল্লিতেও দুর্ঘটনা ঘটেছে। তার নেতৃত্বে এই বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠে জাপান।

২০২০ সালে স্বেচ্ছায় প্রধানমন্ত্রিত্ব ছাড়লেও রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন শিনজো আবে। ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টিতে (এলডিপি) তার প্রভাবশালী উপস্থিতি ছিল। দলটির একটি বড় অংশের নিয়ন্ত্রণ করতেন তিনি। তার আর্শীবাদপুষ্ট হয়ে ইয়োশিহিদে সুগা প্রধানমন্ত্রিত্ব করেন। পরে দলের নেতৃত্ব তুলে দেন ফুমিও কিসিদার কাঁধে। যেখানে অনুঘটক হিসেবে পর্দার আড়ালে ছিলেন আবে।

সেনাবাহিনীকে শক্তিশালী করতে চেয়েছিলেন আবে

এরপর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর শান্তিবাদী নীতি থেকে জাপানকে বের করে আনার চেষ্টা করেন তিনি। জাপানে আইন করে সেনাদের ভিন্ন দেশের যুদ্ধে অংশগ্রহণের সুযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। এতে মিত্রদেশগুলোর ডাকে কিংবা জাতিসংঘের শান্তি রক্ষায় জাপানি সেনারা অংশ নিতে পারত না। উত্তর কোরিয়ার রকেট উৎক্ষেপণ ও চীনের আধিপত্যের মুখে নিজেদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে ওই আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেয় আবে সরকার।

২০১৫ সালে ১৯ সেপ্টেম্বর ওই আইন পাশের আগে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে। পার্লামেন্টে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। তবে প্রতিরক্ষার ওই বিলটি পাস করা থেকে পিছু হটেননি আবে। নিজের সিদ্ধান্তে তিনি অনড় ছিলেন। আর এর মধ্যে দিয়ে জাপানি সেনারা প্রয়োজনে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে শত্রু মোকাবেলার সুযোগ পায়।

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর প্রতিরক্ষা খরচ বাড়িয়েছেন আবে। বিশ্বের বুকে জাপানকে আরও শক্তিশালী ও প্রভাবশালী হিসেবে দেখতে চেয়েছিলেন তিনি। ক্রমবর্ধমান চীনা প্রভাব মোকাবিলায় অন্য এশীয় দেশগুলোর চেয়েও জোরালো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় তাকে। সম্মিলিত আত্মরক্ষা কিংবা হামলার শিকার মিত্র দেশকে সামরিক সহায়তার নীতি গ্রহণ করেন তিনি।

শান্তিবাদী সংবিধানের সংশোধনে তিনি অগ্রাধিকার দিয়ে আসছিলেন। যদিও এ নিয়ে জাপানে বিতর্ক আছে। কারণ দেশটির নাগরিকেরা মনে করেন, শান্তিবাদী নীতির কারণে যুদ্ধ-পরবর্তী জাপানে স্থিতিশীলতা এসেছে। কিন্তু রক্ষণশীলদের ধারণা, এতে জাতীয় গৌরব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে জাপান।

যুদ্ধপরবর্তী মার্কিন দখলদারিত্বের উত্তরাধিকার থেকে মুক্ত হতে চেয়েছিলেন আবে। সামাজিক রীতিনীতিতে জাতীয় ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে শিক্ষা ব্যবস্থায় সংস্কার করতে চেয়েছিলেন তিনি।

অনিশ্চিত প্রতিবেশী উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিয়ে তিনি দেশজুড়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন। পাশাপাশি দক্ষিণ কোরিয়া ও চীনের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের চেষ্টা করেন। যদিও যুদ্ধের সময় প্রতিবেশী দুই দেশের সঙ্গে জাপানের তিক্তস্মৃতি রয়েছে।

২০১৩ সালে টোকিওর ইয়াসুকুনি সমাধি পরিদর্শন করে দুই দেশকেই রাগিয়ে তোলেন তিনি। জাপানের অতীত যুদ্ধপ্রীতির প্রতীক বিবেচনা করা হয় ওই সমাধিকে। তবে এরপরে তাকে আর ইয়াসুকুনি সমাধিতে দেখা যায়নি। আনুষ্ঠানিকভাবে সেখানে শ্রদ্ধা পাঠাতেন।

চীনের প্রভাব ঠেকাতে পদক্ষেপ

২০১৭ সালে মেনিলায় আসিয়ান সম্মেলনের ফাঁকে ‘কোয়াড’ জোট ফের সচল করার পদক্ষেপ নেন যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের কর্মকর্তারা। এক দশক আগে চীনের ক্রমবর্ধমান প্রভাবের পাল্টা ভারসাম্য আনতে এই কূটনৈতিক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল।

পরে এই জোট বেইজিংয়ের অস্থিরতার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। কোয়াডরিল্যাটারাল সিকিউরিটি ডায়ালগকে সংক্ষেপে বলে কোয়াড। ২০০৭ সালে এটি গঠন করা হলেও চীনের আপত্তিতে পরে ভেঙে দেওয়া হয়। কারণ একটি আনুষ্ঠানিক জোট গঠনে তখন ভারত ও অস্ট্রেলিয়াকে অতি সতর্ক থাকতে হয়েছে। তারা চীনকে খেপিয়ে তুলতে চায়নি। ভেবেছিল, কোয়াড না থাকলে চীন আগ্রাসী পদক্ষেপ নেওয়া থেকে বিরত থাকবে।

পরের বছর কোয়াড ভেঙে দেওয়া ছিল জাপানের জন্য বড় আঘাত। কারণ চার গণতান্ত্রিক দেশের মধ্যে বড় ধরনের সহযোগিতার সম্পর্ক চেয়েছিল টোকিও। এরপর ব্যক্তিগত পর্যায়ের কূটনীতির মাধ্যমে ভারত-অস্ট্রেলিয়ার নেতাদের টার্গেট করেন শিনজো আবে। ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ক্ষেত্রে তিনি সফল হন। তারা পরস্পরের দেশে সফরও করেন।

পররাষ্ট্রনীতি বিশেষজ্ঞরা বলেন, নয়াদিল্লি ও ক্যানবেরার নেতাদের চিন্তাভাবনায় পরিবর্তন এসেছে। কারণ তারা দেখেছে, কোয়াড ভেঙে দিয়ে চীনকে শান্ত রাখা সম্ভব হয়নি। ২০১২ সাল থেকেই দক্ষিণ চীন সাগরের প্রবালপ্রাচীরকে কার্যত সামরিক ঘাঁটিতে রূপান্তিত করেছে চীন।

শিনজো আবের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে তাকে বন্ধু হিসেবে উল্লেখ করেছেন নরেন্দ্র মোদি। তাইওয়ানের প্রতিও জোরালো সমর্থন ছিল আবের। গেল বছর সেপ্টেম্বর তিনি বলেন, চীন যদি তাইওয়ানে হামলা চালায়, তবে তা জাপানের সামরিক শক্তি ব্যবহারের শর্ত তৈরি করবে।

আবেনোমিকস নীতি

ক্রমাগত ও দীর্ঘস্থায়ী মুদ্রাস্ফীতি থেকে দেশের অর্থনীতিকে বের করে আনতে মরিয়া ছিলেন তিনি। যে কারণে অনেকটা সাহসের সঙ্গে ‘আবেনোমিকস’ নীতি প্রণয়ন করেন। মুদ্রাস্ফীতির রোগ সারাতে তার মাথা থেকে এই ত্রিমুখী নীতি আসে। অতিসহজ মুদ্রানীতি ও রাজস্ব ব্যয়ের মাধ্যমে তিনি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে ফিরিয়ে আনেন। দ্রুত-বার্ধক্য ও সংকুচিত জনসংখ্যার লাগাম ধরতে কাঠামোগত সংস্কারে হাত দেন আবে।

জাতীয় মূল্যবোধকে পুনরুজ্জীবিত করার প্রতিশ্রুতিও ছিল তার। টোকিওতে ২০২০ সালের অলিম্পিক আয়োজনের মূল ভূমিকা ছিল তার। এমনকি ২০১৬ সালের রিও ডি জেনেরিওতে যখন অলিম্পিক হস্তান্তর করা হয়, তখন নিনটেন্দো কোম্পানির ভিডিও গেম চরিত্রেও দেখা গেছে তাকে।

কিন্তু ২০২০ সালের গ্রীষ্মে করোনা মোকাবিলায় পদক্ষেপের কারণে তার জনপ্রিয়তা কমে যায়। এছাড়া সাবেক বিচারমন্ত্রীকে গ্রেফতারসহ বিভিন্ন কেলেঙ্কারির খবর আসে তখন। অলিম্পিকে সভাপতিত্বের দীর্ঘ ইচ্ছা পূরণ ছাড়াই তাকে ক্ষমতা ছাড়তে হয়।

জাপানে মুদ্রাস্ফীতির নিয়ন্ত্রণ ছিল দুঃসাধ্য। বিক্রয় কর বৃদ্ধি ও চীন-মার্কিন বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে ২০১৯ সালে তার প্রবৃদ্ধি কৌশল অসফল থেকে যায়। এরপর করোনা মহামারি জাপানের অর্থনীতিকে ধসিয়ে দেয়।

রক্তেই যার রাজনীতি

জাপানের এক ধনাঢ্য ও রাজনৈতিক পরিবার থেকে এসেছেন শিনজো আবে। জন্ম ১৯৫৪ সালের ২১ সেপ্টেম্বর, রাজধানী টোকিওতে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাপানের রাজনীতিতে তার মতো প্রভাবশালী নেতা আর আসেনি।

সেইকেই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক করেন আবে। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ায় জননীতি নিয়ে লেখাপড়া করতে যান। রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার আগে কোবেতে একটি স্টিল কারখানায় চাকরি করেন। আশির দশকে চাকরি ছেড়ে লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সাধারণ সম্পাদকের একান্ত সচিব হন তিনি। সেখান থেকে রাজনীতিতে পথচলা শুরু তার।

বাবার মৃত্যুর পর ১৯৯৩ সালে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আবে। পরে দলের নেতৃত্বের বলয়ে তিনি মন্ত্রী পরিষদের মূখ্য সচিব হন ২০০৫ সালে। তারা বাবা শিয়ান্তারো আবে ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। আর নানা নোবোসুকি কিসি ছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় মন্ত্রিপরিষদ সদস্য ছিলেন কিসি। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কোনো যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আনা হয়নি।

জাপানে রাজনৈতিক সহিংসতা

বিবিসির খবর বলছে, আবেকে হত্যার ঘটনা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগের জাপানের সহিংস দিনগুলোর কথা মনে করে দিয়েছে। কিন্তু ১৯৩৬ সালের পর দেশটির সাবেক কিংবা বর্তমান কোনো প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডের শিকার হননি।

এরইমধ্যে অবশ্য দুটি হামলার ঘটনা আলোচনার জন্ম দিয়েছিল। ১৯৯০ সালে নাগাসাকির তখনকার মেয়র মোতোশিমা হিতোশিকে গুলি করে হত্যা করে এক ডানপন্থী বন্দুকধারী। আর ১৯৬০ সালে বক্তৃতা দেওয়ার সময় সামুরাই ছোট তরবারি দিয়ে সমাজতান্ত্রিক দলের প্রধান ইনেজিরো আসানুমারকে হত্যা করা হয়। এ হত্যাকাণ্ডের খবর সারা বিশ্বে ফলাও করে প্রচারিত হয়েছে।

এছাড়াও যুদ্ধপরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে রাজনীতিবিদরা হামলার শিকার হলেও গুরুতর আহত হননি। যেমন, ১৯৯৪ সালে টোকিওর একটি হোটেলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী হোসোকাওয়া মোরিহিরোকে গুলি করা হয়। কিন্তু ভাগ্যক্রমে তিনি অক্ষত থেকে যান।

http://www.anandalokfoundation.com/