13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভ্যাপসা গরমে মেঘনা পাড়ে মানুষের ভিড়

Link Copied!

ছোট একটা চাকরি করি এবং স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে গ্রামের বাড়িতে থাকি। মাঝে মাঝে পরিবার নিয়ে ঘুরতে ইচ্ছে করে। কিন্তু পারছি না। কারণ লক্ষ্মীপুরের রায়পুর প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হলেও গত ২৫ বছর কোনো বিনোদন কেন্দ্র গড়ে ওঠেনি। দূরে কোথাও বেড়াতে যাওয়া ব্যয়বহুল। তাই পরিবার নিয়ে মেঘনা নদীর পাড়ে ঘুরতে আসা। সবাই মিলে খুব আনন্দ উপভোগ করা। আমার মতো হাজারও পরিবার ঘুরতে এসে আনন্দ উপভোগ করছে।
আর গত ৫ বছর এই মেঘনার পাড়ে মানুষ তেমন আসতো না। সকালে ও সন্ধ্যায় মাছ কিনতে আসতেন কিছু মানুষ। এখন মানুষকে জায়গা দেয়া যায় না। আজকের পরিবেশটা চমৎকার! গত কয়েকদিনে তীব্র গরম থাকার পরেও এমন পরিবেশে নদী তীরে কেউ না এসে থাকতে পারে, বলুন!
লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে উত্তর চরবংশী ইউপির মেঘনা তীরে আলতাফ মাস্টার ঘাটে বেড়াতে আসা আহাম্মদ হোসেন বলছিলেন এসব কথা।
সোমবার রায়পুরের উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের মেঘনা তীরে আলতাফ মাস্টার ঘাট স্পটে গিয়ে দেখা গেল আহাম্মদ হোসেনের মতো অসংখ্য হাজারো মানুষ আনন্দে ঘুরছেন। চারদিকে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়।। দর্শনার্থীদের কেউ কেউ ট্রলারে-স্পিডবোটে উঠে চক্কর দিয়ে ঘুরে আসছেন মাঝনদী থেকেত।
আলতাফ মাস্টারের ঘাট এলাকা যেন মিনি কক্সবাজারের মতো রায়পুরের জিনের মসজিদ ও দালালবাজার খোয়াসাগর দিঘিরপাড় ও জমিদার বাড়িতে মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।।
রায়পুরের বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী কামরুল আল মামুন বলেন, বিকাল কাটানোর চমৎকার স্থান দালাল বাজার খোয়া সাগর দিঘিরপাড়, রায়পুরের মেঘনার পাড়ে মিয়ারহাটের রাহুলঘাট, আলতাফ মাস্টারের ঘাট, হায়দরগঞ্জের সাইজুদ্দিন মোল্লার ঘাট, ও রায়পুরের জিনের মসজিদ। এখানে দূরদূরান্ত থেকে লোক আসে, ঈদ উপলক্ষে যার সংখ্যা বেড়ে গেছে। মাস্টারের ঘাট থেকে পশ্চিমে চাঁদপুরের চরভৈরবি ও হাইমচর বোয়ার্ডার পর্যন্ত মেঘনা তীরে ব্লকবাঁধ।
রায়পুরের হোমিও ডাক্তার জাফর হোসেন পরিবারসহ ৫-১০ জনের একটি দল নিয়ে রায়পুর শহর থেকে ঘুরতে এসেছেন মাস্টারের ঘাট তথা মেঘনা তীরে। তিনি সাংবাদিক আবীর আকাশকে বলেন, পৌরশহরের তপাদার বাজার এলাকায় তাদের গ্রামের বাড়ি। ঈদে গ্রামে স্বজনদের সঙ্গে নিয়ে নদীর নির্মল হাওয়া সেবনের জন্য এসেছেন। তাই একটু প্রশান্তির খোঁজে মেঘনার পাড়ে।
মেঘনার তীরে ঘুরতে আসা দর্শনার্থী মাহমুদ হোসেন বলেন, প্রতি বছর রায়পুরের মাস্টারের মাছ ঘাটে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় থাকে। তবে প্রচণ্ড গরমের মধ্যে এবারও মানুষ বেশি। মেঘনার পাড়ে ১০টি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট গড়ে উঠে। মালিকরা তেমনিও অতিরিক্ত দাম নিচ্ছে মানুষের কাছ থেকে।
মেঘনার পাড়ে মাস্টার ঘাটের প্রতিষ্ঠাতা-পরিচালক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন হাওলাদার আবীর আকাশকে বলেন, এই মেঘনার পাড় এক সময় অবহেলিত ছিল। জেলেরা ছাড়া অন্য মানুষ তেমন আসতো না। এখন এ ঘাটকে কেন্দ্র করে পরিবেশ সুন্দর হয়ে উঠেছে। মানুষও আসতে শুরু করেছে। রায়পুর একটি প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হলেও শহরে বিনোদনকেন্দ্র না থাকায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরা কয়েকটি চাইনিজ রেস্টুরেন্ট দিয়েছেন। বলা যায় ঈদসহ বিশেষ দিনকে কেন্দ্র করে পর্যটন স্পট সাজানো হয়েছে। মেঘনার পাড়ে বিনোদনপ্রেমী মানুষগুলো ঘুরতে এসে খুব আনন্দ উপভোগ করে থাকেন।
রায়পুর থানার ওসি ইয়াছিন ফারুক মজুমদার বলেন, রায়পুরে কোনো বিনোদনকেন্দ্র না থাকায় মানুষ ১৫-২০ কিলোমিটার পার হয়ে মেঘনার তীরে আনন্দ উপভোগ করছেন। শোনা গেছে কিছু উচ্ছৃঙ্খল যুবক পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করে। তাই দুটি স্পটে পুলিশ ফাঁড়ি দেওয়া হয়েছে।
রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইমরান খান বলেন, রায়পুরে ৫ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় মানুষ খুবই বিনোদনপ্রেমী। আমি আমার পরিবার নিয়ে মেঘনার তীরে না গেলে বুঝতেই পারতাম না। আমার পরিবারের কাছে খুব আনন্দ লাগছে।
http://www.anandalokfoundation.com/