রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
শেখ ফজিলাতুন্নেছার জন্মদিনে ঠাকুরগাঁওয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের গাছের চারা বিতরণ বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ-২০২০ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী চরফ্যাশনে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত পত্রিকা বিক্রেতা রাজীবকে নাজিম উদ্দিন আলমের পক্ষে অনুদান প্রদান ভোলায় যুবককে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন, গোবর খাইয়ে দেওয়ার অভিযোগে আটক ১ ঝিনাইদহে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গাছ পাগল জহির রায়হানের বৃক্ষরোপন শুরু ঝিনাইদহে করোনা প্রতিরোধে সেনাবাহিনীর টহল অব্যাহত ঝিনাইদহে অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছার জম্মবার্ষিকী উপলক্ষে আগৈলঝাড়ায় আলোচনা সভা ও দুঃস্থদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ আগৈলঝাড়ায় বাঁধা উপেক্ষা করে খাল দখল করে দোকান ঘন নির্মানের হিড়িক শিক্ষকদের যুগোপযোগী শিক্ষার সাথে নিজেকে তৈরির পরামর্শ এসপি বিপ্লব কুমারের

পশ্চিম বাংলার রূপকার ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়ের জন্মমৃত্যুর দিন ১ জুলাই ভারতে চিকিৎসক দিবস আজ

ভারতে চিকিৎসক দিবস

দেবাশীষ মুখার্জী, কূটনীতিক প্রতিবেদকঃ  আজ ১ জুলাই, ভারতের পশ্চিম বঙ্গের রূপকার ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়ের জন্ম ও মৃত্যুর দিনে সারা ভারত জুড়ে চিকিৎসক দিবস।

ডাঃ বিধানচন্দ্র রায় ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের দ্বিতীয় মুখ্যমন্ত্রী। চিকিৎসক হিসেবেও তাঁর কিংবদন্তীতুল‍্য খ্যাতি ছিল। ১৯১১ সালে ইংল্যান্ড থেকে এফ.আর.সি.এস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে কলকাতার ক্যাম্বেল মেডিক্যাল স্কুলে (বর্তমানে নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ) শিক্ষকতা ও চিকিৎসা ব্যবসা শুরু করেন। পরে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য, রয়্যাল সোসাইটি অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিন অ্যান্ড হাইজিন এবং আমেরিকান সোসাইটি অফ চেস্ট ফিজিশিয়ানের ফেলো নির্বাচিত হন।

১৯২৩ সালে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশের প্রভাবে রাজনীতিতে যোগ দিয়ে, বঙ্গীয় ব্যবস্থাপক সভার নির্বাচনে মহান জাতীয়তাবাদী ব‍্যক্তিত্ব ও সুবক্তা সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়কে পরাজিত করেন। পরে কলকাতা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ও কলকাতা পৌরসংস্থার মেয়র নির্বাচিত হন।  কলকাতার মেয়র থাকাকালে তিনি বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে শ্রদ্ধা জানাতে, বিরাট গণসংবর্ধনার আয়োজন করেছিলেন। দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশের অকাল প্রয়াণ ঘটলে, ডাঃ বিধানচন্দ্র রায় একটি কাগজ হাতে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাছে ছুটে গিয়ে বলেছিলেন, “গুরুদেব এখানে কিছু লিখে দিন।”
কবিগুরু ওই কাগজের উপর তাৎক্ষণিক ভাবে লিখে দিয়েছিলেন তার বিখ্যাত সেই কবিতা ―
“এনেছিলে সাথে করে মৃত্যুহীন প্রাণ
মরণে তাই তুমি করে গেলে দান।”

১৯৩১ সালে মহাত্মা গান্ধীর ডাকে আইন অমান্য আন্দোলনে যোগ দিয়ে কারাবরণ করেন। ১৯৪২ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মনোনীত হন। ১৯৪৭ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচন কেন্দ্র থেকে কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে আইনসভায় নির্বাচিত হন। ১৯৪৮ সালে গ্রহণ করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব। তিনি প্রতিষ্ঠা করেন পাঁচটি নতুন পরিকল্পিত শহর দূর্গাপুর, বিধাননগর, কল্যাণী, অশোকনগর-কল্যাণগড় ও হাবরা। তাঁর ১৪ বছরের মুখ্যমন্ত্রিত্বকালে উদ্বাস্তু-ভারাক্রান্ত পশ্চিম বঙ্গ রাজ্যের প্রভূত উন্নতি সাধিত হয়েছিল। এই কারণে তাঁকে পশ্চিমবঙ্গের রূপকার নামে অভিহিত করা হয়। ১৯৬১ সালে তিনি ভারতের সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান ‘ভারতরত্ন’ – এ ভূষিত হন। মৃত্যুর পর তাঁর সম্মানে কলকাতার উপনগরী সল্টলেকের নামকরণ করা হয় ‘বিধাননগর’। তাঁর জন্ম ও মৃত্যুদিন (১ জুলাই) সারা ভারতে “চিকিৎসক দিবস” রূপে পালিত হয়।

১৮৮২ সালের ১ জুলাই বর্তমানে বিহার রাজ্যের অন্তর্গত পাটনার বাঁকিপুরে বিধানচন্দ্র রায়ের জন্ম। তিনি ছিলেন পিতা প্রকাশচন্দ্র রায় এবং মাতা অঘোরকামিনী দেবীর ছয় সন্তানের মধ্যে সর্বকণিষ্ঠ। অঘোরচন্দ্রের আদি নিবাস ছিল চব্বিশ পরগনার শ্রীপুর গ্রামে। সরকারি চাকুরিজীবি প্রকাশচন্দ্র ব্রাহ্ম সমাজে অন্তর্ভুক্ত ছিলেন।

বিধানচন্দ্র রায়ের লেখাপড়ার সূচনা হয়েছিল এক গ্রাম্য পাঠশালায়। পরে পাটনার টি. কে. ঘোষ ইনস্টিটিউশন এবং তারপর পাটনা কলেজিয়েট স্কুলে পড়াশোনা করেন। ১৮৯৭ সালে মাতৃবিয়োগের এক বছর পর, প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে পাটনা কলেজে ভর্তি হন। সেখান থেকে ১৮৯৭ সালে এফ.এ. এবং ১৯০১ সালে গণিতে সাম্মানিক সহ বি.এ. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি। ১৯০১ সালে পাটনা কলেজ থেকে গণিতে অনার্স সহ বি.এ. পাশ করে তিনি কলকাতায় চলে আসেন। কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ থেকে ১৯০৬ সালে এল এম এস এবং দু বছর পর মাত্র ছাব্বিশ বছর বয়সে এম ডি ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর ইংল্যান্ড গিয়ে লন্ডনের বার্থেলেমিউ কেবল দু’বছর সময়কালে একসাথে এম আর সি পি (লন্ডন) এবং এফ আর সি এস (ইংল্যান্ড) পরীক্ষায় সসম্মান উত্তীর্ণ হয়ে,১৯১১ সালে বিধানচন্দ্র কলকাতায় ফিরে এসে ক্যাম্পবেল মেডিক্যাল স্কুলে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন এবং ১৯১৯ সালে সরকারী চাকরী থেকে ইস্তফা দিয়ে, কারমাইকেল মেডিক্যাল কলেজে মেডিসিনের অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন।

১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীন হবার পর উত্তরপ্রদেশের রাজ্যপাল হবার জন্য তদানীন্তন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর লোভনীয় প্রস্তাব সবিনয় ফিরিয়ে দেন। পশ্চিমবঙ্গের আইন সভার সদস্যগণ একবাক্যে তাঁকে দলনেতা নির্বাচন করলে, সমস্যা-কন্টকিত ভূমিখণ্ডকে নবরূপ রূপায়ণকল্পে দায়িত্বপূর্ণ মুখ্যমন্ত্রীর পদ অলংকৃত করেন। ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস দলের প্রতিনিধিত্বে ১৯৪৮ সালের ১৪ই জানুয়ারি থেকে মৃত্যুকাল অবধি ১৪ বছর তিনি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন।

সময়টা ১৯৪৮ সাল। সদ্যখণ্ডিত পূর্ব পাকিস্তানের অভূতপূর্ব সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের শিকার হয়ে, ছিন্নমূল  লক্ষ লক্ষ হিন্দু নরনারী, শিশু বৃদ্ধ নির্বিশেষে – নিঃসম্বল অবস্থায় শুধু প্রাণটুকু বাঁচাবার তাগিদে পশ্চিমবঙ্গে এসে আশ্রয় খু়ঁজছে, সাতপুরুষের পদধূলিরঞ্জিত বাস্তুভূমি ছেড়ে। এই অক্লিষ্টকর্মা কর্মবীর ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়, সেই অসহায় মানুষদের দিয়েছিলেন মাথাগোঁজার ঠাঁই, একমুঠো খাবারের প্রতিশ্রুতি। উদ্বাস্তুদের আগমনে রাজ্যে তখন খাদ্য ও বাসস্থানের সমস্যা ভয়াবহ আকার নিয়েছে। তাছাড়া পূর্ব পাকিস্তান থেকে কাঁচামাল পাটের যোগান বন্ধ । তিনি বহু পতিত জমি উদ্ধার করে এবং কিছু ধানের জমিতে পাটচাষের ব্যবস্থা করে লক্ষাধিক চটকলকর্মীর সম্ভাব্য বেকারি রুখলেন। শিল্পসমৃদ্ধ বাংলা গড়তে তাঁর ত্রুটিহীন পরকল্পনায় স্থাপিত হল দুর্গাপুর ইস্পাতনগরী , চিত্তরঞ্জন রেল ইঞ্জিন কারখানা । বাসস্থানের জন্য তৈরি হল কল্যাণী উপনগরী, লেক টাউন, লবণহ্রদ নগর । দুদ্ধ সরবরাহের জন্য গড়ে তুললেন হরিণঘাটা দুগ্ধপ্রকল্প। পর্যটনের জন্য ব‍্যবহার উপযোগী করে তুলেছেন ‘দীঘা সমুদ্র সৈকত’।  শিক্ষিত বেকারদের বিপুল পরিমাণে কর্মনিয়োগের জন্য সৃষ্টি করলেন ‘কলকাতা রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থা’। তাঁর উদ‍্যোগে নির্মিত ফারাক্কা বাঁধ, ময়ূরাক্ষী প্রকল্প ও দামোদর প্রকল্প ছিল পশ্চিমবঙ্গে বন্যা নিয়ন্ত্রণ,জলবিদ্যুৎ উৎপাদন ও সেচ ব‍্যবস্থায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

তিনি ১৯৪৩-৪৪ খ্রীঃ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাধ্যক্ষ ছিলেন। তাঁর ঐকান্তিক ইচ্ছায় গড়ে উঠল রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়, বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়, বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ, পুরুলিয়া , রহড়া, নরেন্দ্রপুরে প্রাচীন ভারতীয় আদর্শে আশ্রমিক পরিবেশে ‘রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যালয়’।
বিশ্ববরেণ্য চলচ্চিত্রকার সত্যজিত রায়ের পথের পাঁচালীর মতো আন্তর্জাতিক খ্যাতিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রের ব্যয়ভার তাঁর সরকার বহন করে। বিশ্ববরেণ্য নৃত্যশিল্পী উদয়শংকরকে তিনি সরকারী তহবিল থেকে অনুদান দেন। কবিগুরুর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মশতবার্ষিকীতে রবীন্দ্ররচনাবলী প্রকাশের উদ্যোগ নেন।

১৯৫৩ সালে ট্রাম্পের দ্বিতীয় শ্রেণীর ভাড়া মাত্র এক পয়সা বৃদ্ধি করায়, বামপন্থীরা সারা পশ্চিমবঙ্গব‍্যাপী  ব্যাপক জ্বালাও-পোড়াও ধ্বংসাত্মক আন্দোলন শুরু করলে, ডাঃ বিধান চন্দ্র রায়, বিদেশে চোখের চিকিৎসা অসমাপ্ত রেখে দেশে ফিরে এসে, পরিস্থিতি সামাল দিয়েছিলেন।
পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যকে বিহারের সঙ্গে সংযুক্তির প্রস্তাব  দিয়ে, ডাঃ বিধানচন্দ্র রায় জীবনের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক ভুল সিদ্ধান্তটি নিয়েছিলেন। যদিও জনমতের কথা চিন্তা করে,শেষপর্যন্ত তিনি ওই প্রস্তাব থেকে সরে এসেছিলেন।

হাজারো প্রতিকূলতা সত্ত্বেও ডাঃ বিধানচন্দ্র রায় পশ্চিমবঙ্গকে ভারতের শ্রেষ্ঠ রাজ্যে পরিণত করেছিলেন। তখন ক্ষমতাসীন কংগ্রেসের মধ্যেই আওয়াজ উঠেছিল – ব্যর্থ ও অপদার্থ জহরলাল নেহেরুকে সরিয়ে, পশ্চিম বঙ্গের রূপকার ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়কে প্রধানমন্ত্রী পদে বসানো হোক। ওই সময় যদি ডঃ বিধানচন্দ্র রায়কে প্রধানমন্ত্রী করা হতো, তাহলে হয়তো ভারতের হতদরিদ্র চেহারা অনেকটাই বদলে যেত। পরিতাপের বিষয় হচ্ছে,ডাঃ বিধানচন্দ্র রায় পশ্চিমবঙ্গের যে বিশাল শিল্প-কারখানা গড়ে রেখে গিয়েছিলেন, পরবর্তী সময়ে জ্যোতি বসুর নেতৃত্বে চীনের দালালরা – শ্রমিক আন্দোলনের নামে সমস্ত কিছু ধ্বংস করে দেয়।
পরবর্তী সময়ে পশ্চিম বঙ্গের লক্ষ লক্ষ বেকারদের কথা চিন্তা করে, বিখ্যাত টাটা কোম্পানি পশ্চিমবঙ্গে শিল্প কারখানা নির্মাণ করলে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় – তার ভাষায় ‘দুধেল গাই’ নামক বিশাল লুঙ্গি বাহিনী নিয়ে, টাটা কোম্পানির ওই কারখানা গুড়িয়ে তো দিয়েছেনই, সেই সাথে ফ‍্যাক্টরির কর্মীদেরও খুন করেছেন। এরপর আর পশ্চিমবঙ্গে কোন বিখ্যাত কোম্পানি এসে শিল্প-কারখানা স্থাপন করতে সাহস পাচ্ছে না। পশ্চিমবঙ্গের বিশাল কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী পরিযায়ী শ্রমিক হিসেবে অন্য রাজ্যে গিয়ে, মানবেতর জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছে  এবং আজকের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাদের ‘করোনা এক্সপ্রেস’ – করে নির্মম বিদ্রুপ ও উপহাস করছেন।

পশ্চিমবঙ্গবাসীর দুর্ভাগ্য, ডাঃ  বিধানচন্দ্র রায়ের পরে তারা আর কোনো যোগ্য নেতৃত্ব পায়নি। বরং তা়ঁর পরে যারা এসেছেন, তারা ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়ের শ্রমে-ঘামে-অক্লান্ত পরিশ্রমে গড়ে রেখে যাওয়া বিশাল অবকাঠামো-শিল্প কারখানা আহাম্মকের মতো ধ্বংস করে ফেলেছেন।

১৯৬২ সালের ১লা জুলাই মহান দেশসেবক ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়-এর  কর্মময় জীবনের পরিনির্বান ঘটে। তাঁর জন্ম ও মৃত্যু একই দিন – ১ লা জুলাই। অকৃতদার ডাঃ বিধানচন্দ্র রায় ছিলেন, মধ্যযুগে বাংলার সর্বশ্রেষ্ঠ মহারাজা  প্রতাপাদিত্য-এর বংশধর। জন্ম ও মৃত্যু দিনে এই মহান কর্মবীর পূণ‍্যাত্মার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit