বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০৯:০৩ পূর্বাহ্ন


বৃটিশ শাসনের আগে ভারতবর্ষে প্লেগ বা কোন ভাইরাস আক্রমণ না হওয়ার নেপথ্যে

ভারতের রহস্য

করোনা ভাইরাস নামক বিশ্ব বিধ্বংসী রোগ ও তার প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করতে গেলে প্রথমেই এই ধরনের মহা বিপর্যের ইতিহাস ও কারন জানা দরকার। বৈদিক যুগে এই পৃথিবীই ছিলো স্বর্গ। মানুষে মানুষে ছিলো সৌভ্রাতৃত্ববোধ, প্রাণী জগতের প্রতি মমত্ববোধ। মানুষের সাথে জড় ও প্রাণী জগতের চেতনার সম্পর্ক নিয়ে গড়ে উঠেছিলো আত্মীয়তার সম্পর্ক। বেদ, রামায়ন, মহাভারত পাঠে জানা যায় বিভিন্ন মুনি ঋষির আশ্রমে হরিণ সহ নানা প্রানী ও পাখি ভয়শুন্য অবাধে বিচরন করতো।

গাছের প্রাণ আছে, আঘাত করলে গাছও কষ্ট অনুভব করে, সেটা মনুসংহিতায় বর্ণনা আছে। তাই মনু সংহিতা, যাজ্ঞবল্ক সংহিতা, বিষ্ণু স্মৃতিতে দেখা যাচ্ছে, সবুজ বৃক্ষের ডাল কর্তন করলেও শাস্তি বিধান হচ্ছে। সেকারনে অপ্রয়োজনে বৃক্ষ সংহারের উপরও বিধি নিষেধ রয়েছে। যে কারনে বৈদিক যুগে পৃথিবীর কোথাও কোন মহামারীর সংবাদ নেই।

মহামারী ও মনুষ্য সভ্যতার বিপর্যয়ের সংবাদ পাওয়া যায় বাইবেলের ওল্ড টেষ্টামেন্টে। সেখানে বাইবেলের গড জোড় পুর্বক তার মতাদর্শ মানুষের উপর চাপিয়ে দিতে চান। মানুষ তার মতাদর্শ গ্রহণ করতে অস্বীকার করলে তিনি তার হিংস্র স্বভাবের পরিচয় দেন। মানুষের উপর নানা রোগ ছড়িয়ে দেন। মানুষের ফসল ধ্বংস করতে পঙ্গপাল লেলিয়ে দেন। হাম ও বসন্ত রোগের ভাইরাস ছেড়ে দিয়ে মানুষ ও প্রাণী ধ্বংস করেন। এ রকম দশ রকমের বিপর্যয় সৃষ্টি করেন।

সৃষ্টিকর্তা তার সৃষ্টির প্রতি পিতা মাতার মত স্নহশীল হবেন সেটাই স্বাভাবিক, কিন্তু বাইবেলের গড স্নেহশীল নন, তিনি হিংস্র, ভয়ানক, কথায় কথায় ক্রুদ্ধ হন। ধ্বংসের ভয় দেখান, শাস্তির ভয় দেখান। নির্বিচারে ধ্বংস যজ্ঞ চালান। কারণ কি? এ কেমন গড? কেন তিনি সৃষ্টি জগৎ বিপর্যয় করতে ভাইরাস সহ নানা রোগজীবানু আমদানী করলেন এ বিষয়েও জানা দরকার।

বাইবেল পাঠে জানা যায় এই গড মিশরের তুর নামক পর্বতে অবতরন করেন। বর্ণনায় বোঝা যায় তিনি অন্য কোন গ্রহ থেকে স্পেসসীপ নিয়ে অবতরন করেছেন। কারন হযরত মুছাকে তিনি যখন ডেকে নিয়ে গেছেন, তখন মুছা দেখেছেন একটি ছোপের আড়াল থেকে গড তাকে নানা হুকুম দিচ্ছেন। তাকে দেখা যাচ্ছে না। একই সংগে তার কাছে যেতেও নিষেধ করছেন। মুছা শুধু দেখলেন ঝোপের মধ্যে আগুন জ্বলছে আর নিভছে; কিন্তু ঝোপে আগুন লাগছে না।

বিমান বা কোন যান্ত্রিক গাড়ীর পিছনে যে লাইট থাকে সেরকম। অনুমিত হয় এই অদৃশ্য ব্যক্তিটি অন্য গ্রহ থেকে এসে পৃথিবী নিয়ন্ত্রন করতে তার মতাদর্শ চাপিয়ে দিতে চান এবং ভয় দিখিয়ে মিশর থেকে মুছার নেতৃত্বে একটি দলকে তার অনুগত করতে সক্ষম হন; যারা ইহুদী জাতি নামে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করে। মিশর থেকে জেরুজালেম পর্যন্ত নিয়ে যেতে যেতে তাদেরকে হত্যা লুঠপাট সহ নানা হিংস্রতার শিক্ষা দেন।

অন্য সম্প্রদায়ের ঘরবাড়ী লুঠতরাজ, ধর্ষন, দেশ থেকে বিতাড়ন, দেব দেবীর মুর্তি ভাংচুর, মন্দির ধ্বংস সহ নানা অপকর্ম শিক্ষা দেন। এই গডই পৃথিবীতে ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে ভাইরাস সহ নানা রোগের আমদানী করেন তা বাইবেলে বিস্তারিত বর্ণনা আছে।

বাইবেলের গড পৃথিবীতে অবতরনের আগে পৃথিবীতে ভাইরাস সহ রোগজীবানুর উপস্থিতির বিবরন পাওয়া যায় না। বাইবেলের গড ভাইরাস সহ নানা রোগ জীবানু পৃথিবীতে আনেন; যা নানা সময়ে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে।

খৃষ্টপূর্ব ৪৩০ অব্দে একটি ভাইরাস ছড়িয়ে মহামারী আকার ধারন করেছিল এথেন্সে। সেসময় এথেন্স ও আশেপাশের দুই তৃতীয়াংশ লোক মারা গিয়েছিলো ভাইরাস আক্রমনে।

৫৪১ খৃষ্টাব্দে জাষ্টিনায়ান প্লেগ নামে ভাইরাস আক্রমনে ৫ কোটি মানুষ মারা গিয়েছিলো।

একাদশ শতাব্দীর কুষ্ঠ রোগ ছড়িয়ে পড়েছিলো সমস্ত ইউরোপ জুড়ে। মহামারি আকার ধারন করেছিলো।

দ্য ব্লাক ডেথ ১৩৫০- এই মহামারীতে পৃথিবীর এক তৃতিয়াংশ মানুষ মারা যায়।

দ্য গ্রেট প্লেগ অব লন্ডন ১৬৬৫- এতে লন্ডনের জন সংখ্যার ২০ শতাংশ মারা যায়।
প্রথম কলেরা মহামারি ১৮১৭- ১০ লাখের বেশী মানুষ মারা যায়।
৩য় প্লেগ মহামারি ১৮৫৫- প্রায় দেড় কোটি মানুষ মারা যায়।
রাশিয়ান ফ্লু ১৮৮৯- ৩ লক্ষ ৬০ হাজার মানুষের মৃত্যু ঘটে।
স্প্যানিশ ফ্লু ১৯১৮- বিশ্বব্যপী আক্রান্তের সংখ্যা ছিলো ৫০ কোটি।
এশিয়ান ফ্লু ১৯৫৭- ১৪ হাজারের বেশী মানুষ মারা যায়।

বৃটিশ শাসনের আগে ভারতবর্ষে কোন প্লেগ বা ভাইরাস আক্রমনের সংবাদ নেই। কারণ কি? বিশ্বের ঘনবসতিপূর্ণ অঞ্চল হওয়া সত্বেও ভারতবর্ষে কেন মহামারী আকারে রোগের আক্রমণ হয়নি? সেটা জানতে হলে আমাদের জানতে হবে ভারতীয় জীবন বিধি।

ভারতবর্ষ ঘোষণা করেছে, ক্ষিতি অপ তেজ মরুৎ ও ব্যোম এই পঞ্চ ভূতে এই জগৎ সৃষ্টি। প্রকৃতির এই উপাদান বিকৃত বা কলুষিত হলে সৃষ্টি জগতের উপর তার বিরুপ প্রভাব পড়বে। সেকারনে মুনি ঋষিরা প্রকৃতির উপর দেবত্ব আরোপ করেছিলেন, যাতে মানুষ প্রকৃতি নষ্ট না করে।

তৈতরীয় উপনিষদ বলেছে ” প্রজাতন্তং মা ব্যবচ্ছেৎসী। বংশধারা ছিন্ন কোরো না।
“যো দেবোহগ্নৌ যোহপসু যো বিশ্ব ভূবনা বিবেশ, য ওষধিষু যো বনস্পতিষু তস্মৈ দেবায় নমো নমঃ।। ভারত ঘোষণা করেছে সৃষ্টি কর্তা এই জগৎ সৃষ্টি করে এই সৃষ্টির মধ্যেই অবস্থান করছেন। ঈশ্বর প্রানী জগৎ ও জড় জগতের অনু পরমানুর মধ্যে শক্তিরুপে বিরাজ করছেন। তাই যে দেবতা অগ্নিতে, যিনি জলে, যিনি বিশ্ব ভূবনে আবিষ্ট হয়ে আছেন, যিনি ওষধিতে, যিনি বনস্পতিতে অবস্থান করছেন সেই দেবতাকে বারংবার নমস্কার করি।

ভারত ঈশ্বরের নানা গুনের উপর দেবত্ব আরোপ করে সেই দেবতার পুজা অর্চনায় পশু ও বৃক্ষলতাকে যুক্ত করেছেন। নারায়নের তুলসী, শিবের বেল, আকন্দ, ধুতরা, মনসার সিজ, শীতলার নিম, লক্ষীর কলাগাছ, ধান, শ্রী হরির আমলকী, পলাশ ত্রিদেবের প্রতিক, অশোক দাড়িম্ব অনেক দেবদেবীর প্রিয়। দূর্গা পুজায় কলাবউ তৈরী হয় বট পাকুড়, মানকচু সহ বিভিন্ন গাছ দিয়ে। আবার প্রাণীর ক্ষেত্রে দূর্গার বাহন সিংহ, শিবের ষাড়, বিড়াল ষষ্টির বাহন। বিভিন্ন দেবতার বিভিন্ন বাহন। পাখির ক্ষেত্রেও তাই। লক্ষীর বাহন পেঁচা, কার্তিকের ময়ুর। অর্থাৎ পুজার মধ্য দিয়ে পশু পাখি ও উদ্ভিদ সংরক্ষনের শিক্ষা দেওয়া। পুশু পাখির প্রতি শ্রদ্ধাবান হওয়া। শুধু তাই নয় জড় জগতের প্রতিও যেন মানুষ শ্রদ্ধাবান হয়, সেজন্য ভূমি দেবতার পুজা, বায়ু দেবতার পুজা, জলের দেবতা গঙ্গার পুজা, আকাশ, সুর্য পুজাও প্রকৃতিকে বিশুদ্ধ রাখার প্রয়াসে।

অথর্ববেদের দ্বাদশ কান্ডের প্রথম অনুবাকের অর্ন্তগত পৃথিবী সুক্তে বৈদিক ঋষিরা মাতা ধরিত্রির সংগে মানুষের নাড়ীর বন্ধনের কথা বলেছেন। ” মাতা ভূমিপুত্রম্ পৃথিব্যাঃ। ধরিত্রি আমার মাতা, আমি তার সন্তান।”

বৃক্ষের সৃষ্টি বিষয়ে যজুর্বেদ বলেছে ” অবপতন্তীরবদন্দিব ওষধয়স্পরি। যৎ জীবমশ্নবামহৈ ন স বিষ্যতি পুরুষ।। দ্যুলোক থেকে ওষধি সকল ভূমিতে এসে বলেছিলো – মুমুর্ষু জীবে আমরা ব্যপ্ত হবো, যাতে মানুষ ধ্বংস না হয়।

তাই মনু সংহিতায় বলা হয়েছে ” বনস্পতিনাং সর্বেষাম উপভোগো যথা যথা। তথাস্থা দমাহ কার্য হিংসায়াম্ ইতি ধারনা। বৃক্ষের কোন ক্ষতি করলে বিভিন্ন ধরনের শাস্তি হবে।

পরিবেশ নিয়ে মুনি ঋষিরা কতটা সচেতন ছিলেন তা দেখা যায় মনুর নিম্নোক্ত বিধানে-
সম উৎসৃজেৎ রাজ মার্গে যস ত্ব অমেধ্যম অনাপদি। স দ্বৌ কার্যাপেনৌ দ দেয়ৎ অমেধ্যম চালু শোধয়েৎ।-চরম আপতকালীন অবস্থা ছাড়া রাজমার্গে আবর্জনা নিক্ষেপ করলে অপরাধীকে তা অপসারন ও পথকে পরিষ্কার করে দিতে হবে। তার সংগে দুই কার্ষাপন জরিমানাও দিতে হবে।

” দুরাৎ অবস্থান মুত্রম দুরাৎ প্দাবসেচনম্। উচ্চৈস্থান্ন নিষেকম চ দুরাদ্ এব সমাচরেৎ। – নগর বা আবাসিক এলাকা থেকে অনেক দূরে মল মুত্রাদি, দেহ প্রক্ষালনের জল, খাদ্যের অবশিষ্টাংশ, স্নানাগারের বর্জ জল অপসারিত করতে হবে।
নপসু মুত্রম পুরীষম বা স্থিবনম বা সম উৎসৃজেৎ। অমেধ্যা লিপ্তম অনাৎ বা লোহিতম্ বা বিষানি বা। জলে কেউ মলমমুত্র ত্যাগ করবে না। থু থু বা অন্য কোন অপবিত্র অশুদ্ধ বস্তু দিয়ে জলকে দুষিত করবে না। রক্ত বা অন্য কোন দূষিত বা বিষাক্ত দ্রব্য যাতে জলে যাতে না মেশে সে সম্পর্কে দৃষ্টি রাখতে হবে। ” ন চাপ্স শ্লেষ্মা চ সমীপে- জলে বা জলাশয়ের তীরে শ্লেষ্মা ত্যাগ করবে না।

চরক সংহিতা বলেছে- ” নোচ্ছৈর্হসেৎ। ন অসংবৃতং মুখে জৃম্ভাং ক্ষবথুং হাস্যং বা প্রবর্ত্তবেৎ।। জন সভামাঝে উচ্চস্বরে হাসবে না। হাঁচি কাশি দেবার সময়, হাই তোলার সময়, বিশেষ ক্ষেত্রে হাসবার সময় মুখ ঢেকে নেবে।

এরপরও গ্রহ নক্ষত্রের গতিবিধির কারনে নানা রোগজীবানু ছড়ায়। তা নিয়ন্ত্রনের জন্য বিভিন্ন নিয়ম চালু করেছিলেন। বিজ্ঞান বলছে নানা ভাইরাস, রোগজীবানু রোদ্রে টিকতে পারে না। তাই দিনের বেলায় এসব রোগ জীবানু ছায়াযুক্ত স্থানে অবস্থান করে। সুর্য ডোবার সাথে সাথে হৈ হৈ করে বেড়িয়ে পড়ে, সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে, গৃহে প্রবেশ করে। সেজন্য মুনি ঋষিরা সন্ধায় ধুপের ধোঁয়া, শঙ্খ ধ্বনি,কাঁসর ধ্বনি ও ঘন্টা ধ্বনি করার নির্দেশ দিয়েছে। বাস্তু শাস্ত্র মতে ধুপের ধোয়ায় জীবানু ধ্বংস হয়। শঙ্খ, কাঁসর ও ঘন্টা ধ্বনির যে সুক্ষ শব্দ তরঙ্গ সৃষ্টি হয়, তাতে জীবানু ধ্বংস হয়। ফলে রোগ বিস্তার করতে পারে না। তারপরও যদি কোন মানুষ বা পশু রোগাক্রান্ত হয় মারা যায়, সেই মৃত দেহ সংগে সংগে পুড়িয়ে ফেলার বিধান দিয়েছেন। যাতে সেই রোগজীবানু মাটিতে, বাতাসে বা জলে সংরক্ষিত হতে না পারে। উপরন্তু প্রত্যেক বাড়ীতে নিমগাছ ও তুলসী বৃক্ষ রাখার বিধান আছে। এই দুটি বৃক্ষেরর পাতা থেকে বায়ু শুদ্ধ হয়। রোগ জীবানু ভাইরাস ধ্বংস হয়। যেকারনে পৃথিবীর অন্যান্য দেশে ভাইরাস মহামারী আকার ধারন করলেও ভারতবর্ষ চিরকালই নিরাপদ ছিলো। কিন্তু ভারত পশ্চিমা আদর্শ গ্রহণ করার ফলে বৈদিক শৃঙ্খলা নষ্ট হয়েছে। ভারত এখন ঝুকি মুক্ত নয়।

বাইবেলে অনুপ্রানিত পশ্চিমা সভ্যতা প্রকৃতিকে মানেনি। তার ফলাফল শুধু তারা ভোগ করেনি। সমগ্র বিশ্ববাসীকে তার খেসারত দিতে হয়েছে, এখনো হচ্ছে। ষোড়শ শতাব্দীতে ফ্রান্সিস বেকন তত্ব প্রচার করেন যে ” আদম ও ইভের ইডেন উদ্যানে পতনের পর প্রকৃতির উপর মানুষ তার নিয়ন্ত্রন হারিয়েছিলো, তার পুনরুদ্ধারই বিজ্ঞানের প্রয়াস। প্রকৃতির উপর প্রভূত্ব করার যে অধিকার ঈশ্বর মানুষকে দিয়োছেন সেটা ফিরিয়ে পেতেই হবে।” টমাস অ্যাকুইনাস ঘোষনা করেন ” জীব জন্তু ও প্রকৃতির উপর মানুষের প্রভুত্ব বিস্তারের বিধান দৈব পরিকল্পনা অনুযায়ী।

বাইবেল বলছে ” প্রকৃতি দাস, মানুষ প্রভু“। এই তত্ব দিয়েই মানুষ উন্নয়নের লক্ষে প্রকৃতিকে দুমড়িয়ে মুচড়িয়ে পরিবর্তিত করেছে, প্রকৃতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করেছে। শুধু পশ্চিমা দুনিয়ায় সস্তায় মাাংসের যোগান দেওয়ার জন্য ব্রাজিল ১ লক্ষ বর্গ কিলোমিটির ক্রান্তীয় বন হারিয়েছে। ফলে বিশ্ব উষ্ণ হচ্ছে। মেরু বরফ গলে শীতল স্রোতের আকারে সমুদ্রে যাচ্ছে।

উষ্ণ সামুদ্রিক স্রোত স্পেন- পর্তুগালের উপকুল থেকে বিষ্কে উপসাগর ও ইংলিশ চ্যানেল দিয়ে প্রবাহিত হবে। ফলে ইংল্যান্ড, ফ্রান্স ও ইউরোপের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে চরম শৈত প্রবাহ দেখা দিবে। সমুদ্রের জল স্তর বাড়বে। পৃথিবীর বহু নিন্মাঞ্চল ডুবে যাবে। মেরু বরফে ঢেকে থাকা মৃত প্রাণীর দেহে থাকা ভাইরাস ব্যকটিরিয়া সহ নানা রোগজীবানু বিশ্বব্যপী ছড়িয়ে আরো বড় আকারের মহামারী পৃথিবীবাসীকে হাতছানি দিয়ে ডাকছে।

এখনই সময় বৈদিক ফিলোসফি গ্রহণ করার। তা না হলে ধ্বংস হওয়ার আর সময় বাঁকী নাই।
পৃথিবীবাসীকে বাঁচাতে-
* মাংসাহার ত্যাগ করুন,
* অতিরিক্ত ভোগাকাঙ্খা ত্যাগ করুন
* বনাঞ্চল ধ্বংস বন্ধ করুন
* বাড়ীতে তুলসী ও নিমগাছ রোপন করুন
* সন্ধায় ধুপ দ্বীপ জ্বালান
* শঙ্খধ্বনি, উলুধ্বনি, কাঁসর ও ঘন্টাধ্বনি বাজান
* সকাল সন্ধায় উচ্চস্বরে বৈদিক মন্ত্র উচ্চারন করুন
* মাটি, জল,আকাশ বাতাস শুদ্ধ রাখুন।
* পশু পাখি জীব জন্তুকে আত্মীয়তার বন্ধনে আবদ্ধ করুন। পৃথিবীর সকল প্রাণীর মঙ্গল কামনায় প্রার্থনা করুন-
সর্বেস্যাং মঙ্গলাং ভূয়াৎ, সর্বে শান্তি নিরাময়া। সর্বে ভদ্রানি পশ্যন্তু। মা কশ্চিদ্ দুঃখ ভাগ ভবেৎ।।

সব শেষে যারা এই দুর্যোগে নিজেদের জীবন বিপন্ন করে মানুষের সেবা করছেন বেদের মন্ত্র দিয়ে তাদের স্বাগত জানাই-
” যে গ্রামা যদরণ্যং যা সভা অধি ভূম্যাম যে সংগ্রামাঃ সমিতয়স্তেষু চারু বদেম তে।। অথর্ববেদ।

দেশ ও দেশবাসী অরণ্যবাসীর উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির জন্য যে সকল বিদ্বজ্জন সমিতি কাজ করেন ও যেসব বিদ্বজ্জন সমিতি আপতকালীন অবস্থায় জনসাধারনেরর প্রতিরক্ষায় কাজ করেন, সেই সব বিদ্বজ্জন মন্ডলীকে আমরা প্রশংসা করবো। চারু বদেস তে।

লেখকঃ গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক, আইনজীবী, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
11121314151617
18192021222324
252627282930 
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!