ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রশাসনের দৃষ্টি নেই মহেশপুরে সরকারী দোবিলা বিল দখল করে পুকুর খনন

Link Copied!

ঝিনাইদহের মহেশপুরে সরকারী দোবিলা বিল এখন দখলদারদের কবলে। এলাকার চিহ্নিত কিছু ক্ষমতাশীন ব্যক্তিদের অবৈধ ক্ষমতার দাপটে বিলের জমি জবরদখলে নিয়ে শতটির বেশি পুকুর খনন করেছেন। চলতি বছরেও ২০-২৫টির বেশি পুকুর খনন করা হয়েছে।

বর্তমানে এই বিলে গেলে দেখা যাবে ভেকু দিয়ে নিবিগ্নে নতুন নতুন পুকুর খনন কাজ চলমান রয়েছে। ঐতিহ্যবাহী দোবিলা বিল একে একে দখল হওয়ায় এলাকারবাসীর কপালে ভাজ পড়লেও নুন্যতম ভ্রুক্ষেপ নেই কর্তৃপক্ষের। আর কর্তৃপক্ষে এমন বেখালিপণা জন্ম দেয় নানান প্রশ্নের !। তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, ১৪৭নং হুদা আজমপুর, ১৪০নং মালাধরপুর ও ১৩৯নং আজমপুর মৌজার ৩৭৬একর জমির নিয়ে উপজেলার আজমপুর ইউপির আজমপুর, মালাধরপুর ও আদমপুর এই তিন গ্রামের মধ্যে দিয়ে বয়ে গেছে সরকারী দোবিলা বিল।

সরকারী খাতায় তিন বছরের লিজ দেওয়া হয়েছে মহেশপুর পৌর মৎস্যজীবি সমিতির নামে। যদিও মহেশপুর পৌর মৎস্যজীবি সমিতি এই বিলের পশ্চিমে একাংশ সাব-লিজ দিয়েছেন একই এলাকার আব্দুল জলিলের নিকট। তবে সরকারী নীতিমালায় সাব-লিজ দেওয়ার কোন নিয়ম নেই। যেখানে সরকারী বিলের জমি জবর দখল করা হয়েছে সেখানে এটা সামান্য ব্যাপার মনে হওয়াটা স্বাভাবিক। আজমপুর ইউপির আব্দুল লতিফের ছেলে জহুরুল ইসলাম পুকুর খনন করেছেন সরকারী বিল দখল করে। এখানে দখলকারীদের নামের লিষ্টটা বেশ লম্বা।

একই ভাবে পুকুর খনন করেছেন হাসান মুন্সির ছেলে আব্দুর হক, ইসমাইল খলিফার ছেলে রহমান মুন্সি, সাইদ মুন্সির ছেলে হোসেন মুন্সি ও আব্দুল মান্নান হাজী। উপরোক্ত ব্যক্তিরা পুকুর খনন করলেও এসব পুকুর খননের নেতৃত্ব নিয়েছেন একই এলাকার ইব্রাহিম ও আনোয়ার হোসেন। ইব্রাহিম ও আনোয়ার হোসেন অবৈধ ক্ষমতার দাপটে এসব করেছেন বলে অভিযোগ করেন এলাকার সাধারণ মানুষ। এদিকে সরকারী জমিতে কিভাবে পুকুর খনন করলেন এমন প্রশ্নের জবাবে দখলকারীরা বলেন, সরকারী জমি ডাঙ্গা হয়ে যাওয়ায় পুকুর খনন করা হয়েছে।

সরকারী জমি ডাঙ্গা হলেও সেটা দেখার দায়িত্ব সরকারের আপনারা কেন পুকুর খনন করলেন এ প্রশ্নের উত্তরে “সরকার চাইলে দিয়ে দেব” এমন দায়সারা কথা বলে সাংবাদিকদের এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন তারা। খননকাজে নেতৃত্বদানকারী ইব্রাহিম বলেন, ঐ বিলে আমার একটা পুকুর আছে। যেটা পৈতিৃক ওয়ারেশ সূত্রে পেয়েছি। পুকুর খননকৃত ভেকু গাড়ির চালক আমার পরিচিত হওয়ায় আমার বাড়িতে খাওয়া দাওয়া করে। অন্যান্যরা কিভাবে পুকুর করেছে তা আমার জানা নেই।

আজমপুর ইউপির উপসহকারী ভূমি কর্মকর্তা জানান, বিলটি সরকারী তবে পুকুর খননের ব্যাপারে আমার কিছুই জানা নেই। বিষয়টা খোঁজ খবর নিয়ে দেখছি। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আনিসুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে বিষয়টি খোঁজ খবর নিয়ে দেখা হবে। এদিকে কর্তৃপক্ষে হস্তক্ষেপে দখল হওয়া দোবিলা বিল দখলদার মুক্ত হবে এমন আশা এলাকবাসীর।

http://www.anandalokfoundation.com/