মঙ্গলবার, ০৪ অগাস্ট ২০২০, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
অযোধ্যায় দলিত সন্ন্যাসীদের আমন্ত্রণ না করায় মায়াবতীর ক্ষোভ নবীগঞ্জের বিদায়ী নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পালকে শুভেচ্ছা উপহার প্রদান ভারতে চিতা বাঘের মুখ নিজের সন্তানকে ছিনিয়ে আনলেন মা মধ্যবয়সী অচেনা ব্যক্তির অর্ধগলিত দেহ ভেসে এলো মেঘনায় বিয়ের পর শ্বশুরবাড়ি এসে জানা গেলো নববধূর করোনা পজিটিভ রাণীনগরে কিশোরীর আত্মহত্যা ॥ প্ররোচনা মামলায় তিনজন গ্রেফতার পঞ্চগড়ে অসহায় দুস্থদের মাঝে কোরবানির গোস্তা বিলি করলেন রেলপথ মন্ত্রী লাদাখ থেকে চিনা সেনার সম্পূর্ণ প্রত্যাহারের ব্যাপারে চাপ বাড়িয়েছে ভারত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সালমা চৌধুরী এমপি কোচিং সেন্টার আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ

জনি হত্যা মামলায় এসআই জাহিদের বিরুদ্ধে ২ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ

পুলিশ হেফাজতে হত্যা

বিশেষ প্রতিবেদক অসিত কুমার ঘোষ (বাবু): পুলিশি হেফাজতে জনি নামে এক যুবক হত্যা মামলায় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে আরও ২ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন এবং পরে আগামী ১৫ জানুয়ারি পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করেন।

সাক্ষীরা হলেন, মিরপুর আধুনিক হাসপাতালের তৎকালীন ওয়ার্ড বয় সেন্টু রহমান হিরা ও পল্লবী থানার কনস্টেবল মো: মুন্না। এ নিয়ে ১৯ জন আদালতে সাক্ষ্য দিলেন।

মামলার অপর আসামীরা হলেন, পল্লবী থানার এসআই রাশেদুল ইসলাম ও এসআই কামরুজ্জামান মিন্টু এবং পুলিশের সোর্স রাশেদ ও সুমন।

মামলাটিতে ২০১৬ সালের ১৭ এপ্রিল আসামীদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করেছে আদালত। পরে হাইকোর্টে আসামীদের আবেদনে দীর্ঘদিন মামলাটি বিচার বন্ধ ছিল।

পুলিশ হেফাজতে নির্যাতন করে মারার অভিযোগে ২০১৪ সালের ৭ আগস্ট নিহতের ভাই ইমতিয়াজ হোসেন রকি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

ওইদিনই আদালত মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন। ২০১৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ হোসেন বিচার বিভাগীয় তদন্ত শেষে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয় ২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে পল্ল¬বী থানার ইরানি ক্যাম্পে জনৈক বিল্লালের গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান ছিল। নিহত জনি, তার ভাই মামলার বাদী রকিসহ অন্যান্য সাক্ষীরা সে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

রাত ২টার দিকে পুলিশের সোর্স এ মামলার ৭ নম্বর আসামী সুমন মদ খেয়ে স্টেজে উঠে মেয়েদের উত্যক্ত করছিলেন। জনি তাকে প্রথমে স্টেজ থেকে নামিয়ে দেন। কিন্তু দ্বিতীয়বার সুমন একই কাজ করলে সুমনের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জনি সুমনকে থাপ্পর দিলে সে আধা ঘণ্টা পর এসআই জাহিদসহ ২৫/২৬ জন পুলিশ নিয়ে বিয়ে বাড়িতে এসে ভাংচুর করে নিহত জনি, রকিসহ বেশ কয়েকজনকে ধরে নিয়ে যায়। এরপর এসআই জাহিদসহ অপর আসামীরা তাদের পল্লবী থানা হাজতে হকিস্টিক ও ক্রিকেটের স্ট্যাম্প দিয়ে বেদম প্রহার করেন। জাহিদ জনির বুকের ওপর চড়ে লাফালাফি করেন।

জনি এ সময় একটু পানি খেতে চাইলে জাহিদ তার মুখে থুথু ছুরে মারে। নির্যাতনে মামলার বাদী রকি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তার বড় ভাই জনিকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরহ ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করে। পুলিশি নির্যাতনে মৃত্যুর ঘটনা ধামাচাপা দিতে ইরানি ক্যাম্প ও রহমত ক্যাম্পের মধ্যে মারামারির মিথ্যা কাহিনী দেখিয়ে জনি নিহত হয় বলে দেখানো হয়।

উল্লেখ্য, ঝুট ব্যবসায়ী সুজনকে পুলিশ হেফাজতে একইভাবে মৃত্যুর ঘটনার আরেক মামলায়ও আসামী এসআই জাহিদুর রহমান জাহিদ।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit