সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০, ০২:১০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
অনলাইন নিউজপোর্টাল নিবন্ধন চলতি মাসেই -তথ্যমন্ত্রী আয়ু বাড়াতে বিজ্ঞানীদের ঔষধ আবিস্কার ১৪ জুলাই থেকে পর্যটকদের জন্য খুলে যাচ্ছে জম্মু এবং কাশ্মীর ক্যাথলিক খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ ধর্মীয় গুরু আর্যবিশপ মজেস কস্তা মৃত্যুবরণ সাতক্ষীরা-২ আসনের সাংসদ মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক করোনা আক্রান্ত সাবরিনাকে ৩ দিনের রিমান্ডের আদেশ আদালতের ঠাকুরগাঁওয়ে এক রাতেই নির্মাণ হয়েছিলো জ্বিন মসজিদ করোনার মনগড়া রিপোর্ট দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার সাবরিনাকে আজ আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ড চাওয়া হবে শ্রমিক বাবা-মা সারাদিন বাড়িতে না থাকায় চাচার সমানে ধর্ষণে কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা বন্যায় তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ৫৩.১৫ সেমি ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে

নেপালকে গ্রাস করার গভীর ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার করছে চীন

নেপালকে গ্রাস করার ষড়যন্ত্র

দেবাশীষ মুখার্জীঃ চীন বেশ  কয়েক বছর ধরে নেপালকে গ্রাস করার গভীর ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার করেছে। প্রথম দিকে চীন, নেপালের মাওবাদী কম‍্যুনিস্ট জঙ্গিদের অর্থ, অস্ত্র ও আশ্রয় দিয়ে সহায়তা করেছে। তারপর উগ্র জঙ্গিনেতা (পুস্প কমল দহল) প্রচণ্ডের উত্থানে চীন আকাশের চাঁদ হাতে পেয়ে যায়। তখন থেকেই সরাসরি নেপালের শাসনভার দখল করে একটি পুতুল সরকার গঠনে তৎপর হয় চীন। মাওবাদী নেতা প্রচণ্ড প্রধানমন্ত্রী হওয়ায় চীনের ষড়যন্ত্র অতি সহজেই বাস্তবায়িত হয়। কিন্তু চীনের পুতুল প্রচণ্ডের অযোগ্যতায়,ওই সরকার বেশিদিন টেকেনি। তখন চীন তার পরিকল্পনায় কিছু বদল ঘটায়।

নব্য উপনিবেশবাদী আগ্রাসনের নীল নকশা অনুযায়ী, চীন সাহায্যের ঝুলি নিয়ে নেপালের ক্ষমতাসীনদের অন্দর মহলে প্রবেশ করে। নীতিনির্ধারকদের উৎকোচ দিয়ে ধীরে ধীরে ভারতকে সরিয়ে নিজের স্থান পাকা করে নেয়। চীনের এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গী ছিল পাকিস্তান। সেইসঙ্গে চীন টাকা ছড়িয়ে নেপালের রাজনৈতিক দলগুলির ওপর নিজের প্রভাব-প্রতিপত্তি বৃদ্ধি করে।

ইতোমধ্যে রাজতন্ত্রের বিলোপ, রাষ্ট্রের ‘হিন্দুত্ব’ ঘুচিয়ে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’-র নীতি গ্রহণ, সংবিধান সংশোধন, থারু-মদেশীয় আন্দোলন – প্রভৃতি ঘটনাকে কেন্দ্র করে নেপাল উত্তাল হয়ে ওঠে। রাজতন্ত্র উচ্ছেদের ব্যাপারে প্রায় সমস্ত দল একমত হলেও, ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র গঠনের ব্যাপারে মতভিন্নতা ছিল। সরকার গণভোট নিতে চায়। কিন্তু চীন ও পাকিস্তান মত বদলাতে বাধ্য করে। অথচ নেপালের ৯৪ শতাংশ মানুষ হিন্দু। মজার কথা হল, যে পাকিস্তান ও চীন কাশ্মীরে গণভোটের জন্য গলা ফাটাচ্ছে, তারাই নেপালে গণভোট করতে বাধা দেয়

নেপাল সরকার, বিরোধী দলগুলির সঙ্গে পরামর্শ করে  সংবিধান সংশোধন করে। কিন্তু নতুন সংবিধানে থারু ও মদেশীয়দের প্রতি ভীষণ বৈষম্য করা হয়। তারা প্রবল প্রতিবাদ আন্দোলন গড়ে তোলে।  মদেশীয়রা নেপাল-ভারত সীমান্তে পথ অবরোধ করে। নতুন সংবিধানে কয়েকটি ধারার বিরুদ্ধে নেপালের নারীসমাজ প্রবল বিরোধিতা করে। কারণ, নতুন সংবিধানে নারীসমাজের প্রতি মধ‍্যযুগীয় বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

মদেশীয়দের দীর্ঘ পথ অবরোধের ফলে নেপাল, ভারত থেকে একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। খাদ্য, শস্য, তেল, নির্মাণসামগ্রী ও পর্যটক আসা সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে নেপালে এক গভীর সঙ্কট সৃষ্টি হয়। চীন তার সুযোগ নেয়। ভারত নিরুপায়। নেপালের চাহিদামতো ভারত সবকিছু পাঠাতে প্রস্তুত ছিল, কিন্তু অবরোধের জন্য পারেনি। নেপালের কানে চীন কুমন্ত্রণা দেয় – ভারত পরিকল্পিত ভাবে এসব করছে নেপালকে বিপদে ফেলা এবং সার্বভৌমত্ব খর্ব করার জন্য। তখন চীন, তেল ও খাদ্যসহ বহু অত‍্যাবশ‍্যকীয় দ্রব্যাদি নেপালে পাঠা। ফলে, নেপালের ভারত-নির্ভরতা অনেক কমে যায়।

থারু ও মদেশীয়রা নেপালের একটি বৃহৎ সম্প্রদায়,জনসংখ্যার ৪০%। অথচ নতুন সংবিধানে থারু ও মদেশীয়দের জন্য মাত্র ৫৬টি আসন রেখে, ‘পাহাড়ি’ কাঠমান্ডুর জন্য ১০০টি আসন রাখা হয়। তাছাড়া, এমনভাবে মদেশীয় অঞ্চলে নির্বাচনী কেন্দ্র বিন্যাস করা হয়, যাতে মদেশীয়রা কিছুতেই সংখ্যা গরিষ্ঠতা লাভ করতে না-পারে। তাদের উন্নয়নের নানা দাবীকে সরকার নস্যাৎ করে দিয়েছে। শেষ পর্যন্ত ভারতের হস্তক্ষেপে নেপাল সরকার সংবিধানের কিছু অংশ সংশোধন করতে এবং মদেশীয়দের অল্প কিছু দাবী মেনে নিতে রাজি হয়। ১৩৫ দিনের অবরোধ প্রত‍্যাহার করে নেওয়া হয়। কিন্তু তত দিনে ভারত ও নেপাল উভয় দেশের সম্পর্কে ক্ষতি যা হওয়ার হয়ে গিয়েছে।

নেপালে এখন ভারত-বিরোধী প্রচার তুঙ্গে। পরিকল্পিত ভাবে চীনের ছড়িয়ে দেওয়া করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে, প্রচুর ওষুধ, কিট ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম পাঠানোর পর, নেপাল সরকারের একজন মুখপাত্রের ভাষ‍্য, ‘আমাদের সাহায্যের নামে করোনা ভাইরাস পাঠাচ্ছে ভারত।’

সম্প্রতি লাদাখ সীমান্তে চীন আগ্রাসন চালাতে এলে, ভারত সমুচিত জবাব দেয়। সংঘর্ষে ভারতের একজন কর্নেল সহ মোট ২৫ জন সৈন্য নিহত হয়েছেন। পক্ষান্তরে চীন, একজন উচ্চপদস্থ কমান্ডিং অফিসারসহ  সৈন্য নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করলেও, কতজন সৈন্য নিহত হয়েছে তা প্রকাশ করেনি। তবে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাকে উদ্বৃত করে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত  সংবাদ অনুযায়ী,চীনের কমপক্ষে ৩৪ জন সৈন্য নিহত হয়েছে।

পৃথিবীর দুই বৃহত্তম রাষ্ট্রের সামরিক সংঘাতের  ডামাডোলের মধ্যে সুযোগসন্ধানী নেপাল, হঠাৎ নতুন মানচিত্র তৈরি করে ভারতের লিম্পিয়াধুরা, কালাপানি ও লিপুলেখকে নিজেদের সীমান্তভুক্ত করে নেপালের অংশ বলে ঘোষণা করে। নেপাল পার্লামেন্ট নতুন মানচিত্রের অনুমোদন দেয়। সর্বসম্মতিক্রমে সংবিধান সংশোধন বিলটি পাস করে। যদিও এই মানচিত্র বদলের খসড়া প্রস্তাব পেশ করার সময় সরিতা গিরি নামক একজন পার্লামেন্টের সদস্য, একটি সংশোধনী প্রস্তাবে উত্থাপন করে,এই ব্যাপারে ভারতের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দেন। কিন্তু স্পিকার অগ্নিপ্রসাদ সাপকোটা, নিজ ক্ষমতাবলে প্রস্তাবটি বাতিল করে দেন। শুধু তা-ই নয়, চীনের প্ররোচনায় ও পরামর্শে, নেপালি পুলিশ ভারত সীমান্তে গুলি চালিয়ে একজন নিরীহ ভারতীয় নাগরিককে হত্যা করে। কার্যসিদ্ধির পর চীন, নেপালের জায়গা দখল করে নিয়ে রাস্তা নির্মাণ করছে। ১১ টি জায়গায় ৩৩ হেক্টর(৮২.৫৪ একর) ভূমি নেপালের কাছ থেকে দখল করে নিয়েছে চীন।

ভারতের কাছ থেকে নেপাল যত অনুদান পায়, পৃথিবীর আর কোন রাষ্ট্র – অন্য রাষ্ট্রের কাছ থেকে অত সাহায্য-সহযোগিতা পায় না। নেপালিরা ভারতে এসে অবাধে বসবাস করতে পারে, চাকরি-বাকরি ব্যবসা-বাণিজ্য করতে পারে ;  এমনকি সেনাবাহিনীর মতো স্পর্শকাতর জায়গায় ৪০ হাজার নেপালি চাকরি করছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর চাকরি থেকে অবসর নেওয়া নেপালি নাগরিকরা  যে পেনশন পায় – সেটা নেপালের জাতীয় আয়ের ১৫% শতাংশ। এত সুযোগ-সুবিধা দেওয়া সত্ত্বেও নেপাল, ভারতের দুর্দিনে বিশ্বাসঘাতকতা করে ভারতের শত্রু রাষ্ট্র চীনের সাথে হাত মিলিয়েছে –  সেই নেপালকে দেওয়া দান-খয়রাত সম্পূর্ণ ভাবে বন্ধ করে দেওয়া উচিত।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!