সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ০৪:২২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
সাবেক সংসদ সদস্য অলহাজ্ব মকবুল হোসেনের মৃত্যুতে পরিবেশ মন্ত্রী সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাড়ির ভিতরে ঈদ উদযাপন করার অনুরোধ ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসকের রাজারহাটে উৎসবের আমেজঃ  রাত পোহালেই ঈদ মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করুন -প্রধানমন্ত্রী পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, আগামীকাল ঈদ জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাত হচ্ছে না, জেনে নেই ৫ জামাতের সময়সূচি মনিরামপুরে ঘুর্নিঝড় আম্পানে নিহত ৫ পরিবারের পাশে স্বেচ্ছাসেবক দল উলিপুরে নদী ভাঙ্গন রোধে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন  জগন্নাথদী মাদ্রাসার সভাপতি সামচুল হক ও সম্পাদক আছাদুজ্জামান ঠাকুরগাঁওয়ে ৪৫০ পিস ইয়াবা সহ দুই কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী আটক

করোনা আতংক আর লক ডাউনে থমকে গেছে দাকোপের জনজীবন

চালনার জনজীবন

নিরুপম মণ্ডল, চালনা(খুলনা):  বিশ্বব্যাপী চলমান মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রমণের আতংক আর তার মোকাবেলায় দেশজুড়ে চলমান লক ডাউনে দাকোপের জনজীবন কার্যত থমকে গেছে। চীনের উহান প্রদেশ থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের মারণ থাবা থেকে বাংলাদেশও রেহাই পায়নি।
বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও দিন দিন আক্রান্তের সংখ্যা আর মৃতের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। চলমান এই মহাসংকট মোকাবেলায় কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে সরকার। ঘাতক ভাইরাস করোনার সংক্রমণ রোধে ইতিমধ্যে দেশজুড়ে সাধারণ ছুটি, লক ডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। সীমিত আকারে চলছে জরুরি পরিষেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম।
ওষুধ, সবজি আর মুদি দোকান ছাড়া বন্ধ রয়েছে সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সবধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর গণপরিবহন। আর এসব কাজ বাস্তবায়নে পুলিশ এবং মাঠপর্যায়ের প্রশাসনকে সহযোগিতা করছে সেনাবাহিনী। তারই ধারাবাহিকতায় খুলনার দাকোপ উপজেলা জুড়ে লক ডাউন সফল করতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, দাকোপ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি), সহকারী কমিশনার(ভূমি) স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান সিপিপি এবং সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে চলছে ব্যাপক অভিযান।
কর্মকর্তাগণ উপজেলার সর্বস্তরের জনগণকে সচেতন করার পাশাপাশি, বাজার মনিটরিং, বিদেশ এবং ঢাকা ফেরত ব্যক্তিদের বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা এবং অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে না আসা নিশ্চিত করার জন্য দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন।
এমতাবস্থায় সবথেকে অসুবিধায় পড়েছেন ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীরা, দিন মজুর, ভ্যান চালক, ইজিবাইক চালকসহ স্বল্প আয়ের বিভিন্ন শ্রমজীবী মানুষ। দিন এনে দিন খাওয়া এসব মানুষের আয়ের পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে চরম উৎকন্ঠা আর উদ্বেগের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন তারা। দোকানপাট বন্ধ থাকায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উপার্জন একেবারেই বন্ধ।
কথা হচ্ছিল উপজেলা সদর চালনা বাজারের চায়ের দোকানদার জয়-এর সাথে। দীর্ঘ নিঃশ্বাস ছেড়ে সে বলল, আমি অন্য এলাকার মানুষ, বাসা ভাড়া নিয়ে চালনা বাজারে থাকি। মাত্র ২০দিন আগে আমার একটি কন্যা সন্তান হয়েছে। পরিবারে খরচ অনেক বেড়ে গেছে। অথচ আজ এক সপ্তাহ হল দোকান খুলতে পারি না। উপার্জন একেবারেই বন্ধ। এখন কিভাবে বাসা ভাড়া দিব? কিভাবে বৃদ্ধ আর অসুস্থ মায়ের ওষুধ কিনব? কিভাবে মেয়ের জন্য দুধ কিনব আর কিভাবে সংসার চালাবো?
চালনা বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন মোবাইল সার্ভিসিং দোকান মালিক পুলক বৈরাগী বললেন, এক সপ্তাহ কোন কাজ নেই। কিভাবে সংসার খরচ জোগাড় করব বুঝতে পারছি না।
বউমার গাছতলার সাইকেল গ্যারেজ মিস্ত্রি রবীন রায় বললেন, বাড়ি থেকে কোন মানুষ রাস্তায় বের হচ্ছে না। গ্যারেজ খুলতে বা কাজ করতে পারছি না। ৫সদস্যের পরিবার নিয়ে চোখে অন্ধকার দেখছি।
ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল চালক শহীদুল বলছিলেন, আমি সাধারণত চালনা থেকে খুলনা শহরে বিভিন্ন লোক নিয়ে যাই আসি। যা উপার্জন হয় তা দিয়ে ৫সদস্যের পরিবার মোটামুটি চলে যায়। কিন্তু গত ৬/৭ দিন যাবত সংক্রমণের ভয়ে এবং প্রশাসনের কড়াকড়ির জন্য বাইক নিয়ে রাস্তায় বের হতে পারিনি। বাড়িতে শুয়ে বসে অলস সময় কাটছে। যতই দিন যাচ্ছে করোনা সংক্রমণের চেয়ে সংসার খরচ জোগাড় করার দুশ্চিন্তা বেশি ভাবিয়ে তুলছে।
কথা হল সংগীত শিক্ষক শংকর মণ্ডলের সাথে। তিনি বলছিলেন, আমি মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ছেলেমেয়েদের গান শেখাই। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের আশংকায় অভিভাবকরা অনির্দিষ্টকালের জন্য তাদের বাড়িতে যাওয়া স্থগিত করে দিয়েছেন। এই অবস্থায় আমার উপার্জন একপ্রকার বন্ধ হয়ে গেছে। এখন পরিবারের সবাইকে নিয়ে সারা মাস কিভাবে চলব বুঝতে পারছি না।
চালনা বাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী অহনা মন্ডল জানায়,  করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশের সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় আমাদের পড়ালেখা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। যদিও আজ বিকল্প পাঠদান কার্যক্রম সংসদ টেলিভিশনে আমাদের ষষ্ঠ শ্রেণীর ইংরেজির পাঠদান দিয়ে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
খাটাইল গ্রামের ভ্যান চালক মহসিন শেখ বললেন, পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর ভয় উপেক্ষা করে পেটের জ্বালায় মাঝে মাঝে ভ্যান নিয়ে রাস্তায় বের হলেও দেখা মিলছে না যাত্রীর। দুই একজন মানুষ জরুরি প্রয়োজনে বাইরে আসলেও ভাইরাস সংক্রমণের ভয়ে একসাথে ভ্যানে একজনের বেশি উঠছেন না। যা আয় হচ্ছে তাতে ৬ সদস্যের পরিবারের শুধু চাল কেনার পয়সাও হচ্ছে না। এখন না খেয়ে মরা ছাড়া উপায় নেই।
এব্যাপারে চালনা পৌর মেয়র সনত কুমার বিশ্বাসের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ছিন্নমূল ও প্রান্তিক আয়ের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য ইতিমধ্যে প্রশাসনের সহযোগিতায় তাদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী ও নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিতরণ শুরু হয়েছে। যতদিন জরুরি অবস্থা চলবে ততদিন নিম্ন আয়ের মানুষকে এভাবেই সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
23242526272829
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!