শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১১:২৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
স্থায়ী হলেন হাইকোর্টের অস্থায়ী ১৮ বিচারপতি অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জায়গায় রামমন্দির নির্মাণ মেনে নেবে না পাকিস্তান যশোরে পূর্ব শত্রুতার জেরে যুবক খুন কমলাপুর রেলওয়ে জেনারেল হাসপাতালে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম হস্তান্তর যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের মেহেরপুরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছিয়ে দিচ্ছেন পৌর মেয়র রিটন ঝিনাইদহ হরিণাকুন্ডুতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ ১৫ জন আহত প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহায়তা ২৫’শ টাকার নামের তালিকা ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে টাঙ্গালেন চেয়ারম্যান রনি লস্কর উলিপুরে আরো ৩ জন নিয়ে মোট করোনা রোগী শনাক্ত ৮ ও সুস্থ ১ জন ঠাকুরগাঁওয়ের দুই শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার ঠাকুরগাঁওয়ে প্রথম করোনা উপসর্গ নিয়ে একজনের মৃত্যু

টেস্ট টিউব বেবির জনক বেদব্যাস, ৫২০০ বছর আগে কৌরবদের জন্ম

টেস্ট টিউব বেবির জনক বেদব্যাস

বেদব্যাস যা করে গেছে প্রায় ৫২০০ বছর আগে, আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান তা করার চেষ্টা করছে সবে।

যখন কোনো নারীর মাসিক বা ঋতুচক্র নিয়মিত হচ্ছে অর্থাৎ শরীরে ডিম্বানুর সৃষ্টি হচ্ছে, কিন্তু কোনো কারণে সেই ডিম্বানু পুরুষের শুক্রানু দ্বারা নিষিক্ত হয়ে মানব ভ্রুনের পরিণত হচ্ছে না, তার মানে গর্ভধারণ হচ্ছে না, এমন পরিস্থিতিতে সেই নারীর ডিম্বানুকে সংগ্রহ করে পুরুষের শুক্রানু দ্বারা নিষিক্ত করে ভ্রুণের সৃষ্টি করা হয় এবং সেই ভ্রুণকে আবার নারীর গর্ভে স্থাপন করা হয়, সেখানেই বেড়ে উঠেসেই ভ্রুণ এবং জন্ম হয় একটি মানব শিশুর। এই পদ্ধতিকেই বলা হয় টেস্ট টিউব পদ্ধতি। অনেকে মনে করে এই পদ্ধতিতে বোধহয় একটি মানব শিশুর জন্মই হয় টেস্টটিউব বা ল্যাবরেটরিতে। আসলে ব্যাপার তা নয়, এই পদ্ধতিতে শুধু মানব ভ্রুণের জন্ম দেওয়া হয় টেস্ট টিউবে, পরে আবার তাকে মাতৃগর্ভেই স্থাপন করে বেড়ে উঠার সুযোগ দেওয়া হয় এবং শেষ পর্যন্ত মায়ের গর্ভ থেকেই জন্ম হয় সেই সন্তানের ।

আরেকটা পদ্ধতি হচ্ছে ক্লোন। এই পদ্ধতিতে কোনো একটি প্রাণীর দেহের একটি কোষকে কালচার ক’রে, ভ্রুনের জন্ম দিয়ে, তাকে সমজাতীয় অন্য একটি প্রাণীর গর্ভে স্থাপন ক’রে সেই প্রাণীর জন্ম দেওয়া হয়, কিন্তু এই পদ্ধতিতে নতুন জন্ম নেওয়া প্রাণীটি, যে প্রাণীর দেহ থেকে কোষ সংগ্রহ করে তার জন্ম দেওয়া হয়েছে, তার হুবহু অনুরূপ হয় এবং তার মধ্য কোনো স্বাতন্ত্রতা থাকে না, এজন্যই এটাকে বলা হয় ক্লোন বা হুবহু নকল। কিন্তু এই উভয় ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের যে সীমাবদ্ধতা। তা হলো- দেহের বাইরে ভ্রুনের সৃষ্টি করা সম্ভব হলেও, সেই ভ্রুণের বেড়ে উঠার জন্য তাদেরকে কোনো মাতৃগর্ভের সাহায্য নিতেই হচ্ছে, এমন একটি ল্যাবরেটরি বা পরিবেশ তারা এখন পর্যন্ত তৈরি করতে পারে নি, যেখানে তারা সৃষ্টি করা ভ্রুণের বৃদ্ধি ঘটাতে সক্ষম।

মহাভারতে গান্ধারী ১০১ সন্তানের জন্ম দিয়েছিল। কিন্তু এটা কিভাব সম্ভব ? কোনো নারীর পক্ষে এক জীবনে ১০১টি সন্তানের জন্ম দেওয়া ! যেখানে সন্তানের জন্ম নারীর ঋতুচক্রের সাথে সম্পর্কিত, যেই ঋতু শুরু হয় ১২/১৩ বছর বয়সে এবং চলতে থাকে ৪৫ বা খুব বেশি হলে ৫০ বছর বয়স পর্যন্ত ? তাহলে এই ৩০/৩৫ বছরের মধ্যে কিভাবে ১০১ সন্তানের জন্ম দেওয়া সম্ভব ? প্রতি বছর ১ টি করে হলেও তো সর্বোচ্চ ৩৫ টি হবে; কোনো কোনো নারীর এক সাথে ২, ৩ বা ৪ টি বা তারও বেশি সন্তান হয়, কিন্তু এটা তো রেগুলার ঘটনা নয় যে, প্রত্যেকবারই ৩/৪ টি সন্তান হয়ে ৩০/৩৫ বছরে ১০১ টি সন্তান হবে ? আর এভাবে প্রতিবছর কোনো নারীর পক্ষে সন্তান ধারণ এবং প্রসবও সম্ভব নয়, কারণ তাহলে তার স্বাস্থ্য ভেঙ্গে পড়বে এবং খুব দ্রুত তার মৃত্যু হবে।

পশ্চিম বঙ্গের এক মুসলিম মহিলা এ পর্যন্ত ২৩ টি সন্তানের জন্ম দিতে পেরেছে, তার সন্তান ধারণের বয়স এখন প্রায় শেষের দিকে, তাই সম্ভবত আর সন্তানের জন্ম দেওয়া তার পক্ষে সম্ভব হবে না। এটাই বাস্তব, সমগ্র জীবন ধরে কোনো ধরণের জন্ম নিয়ন্ত্রণ না করলে একজন মহিলার পক্ষে ২০/২৫ টি সন্তান জন্ম দেওয়া সম্ভব। কিন্তু তাহলে গান্ধারী ১০১ টি সন্তানের জন্ম দিলো কিভাবে ?

গর্ভ ধারণের প্রায় দুই বছর পর গান্ধারীর প্রসব হয়, কিন্তু সেটা কোনো মানব শিশু নয়, একতাল মাংস পিণ্ড। এরপর বিষয়টি প্রথম বুঝতে পারে রাজমাতা সত্যবতী। সে বুঝতে পারে যে, এই একতাল মাংসপিণ্ড আসলে ১০০ সন্তানের বীজ, যাকে আমরা আধুনিক বিজ্ঞানের ভাষায়, সদ্য সৃষ্টি হওয়া ভ্রুনও বলতে পারি। সে উপলব্ধি করে, গান্ধারীর কাছ থেকে তারা যেভাবে শত পুত্র কামনা করছিলো, সেটাই তো ছিলো একটা অযৌক্তিক ভাবনা। এভাবে কি কোনো মেয়ে ১০০ সন্তানের জন্ম দিতে পারে ? এরপর এই মানব শিশুর বীজগুলো কিভাবে মানব সন্তানে পরিণত হবে, সেই ব্যবস্থা করার জন্য সত্যবতী, সংবাদ দেয় মহাজ্ঞানী বেদব্যাসকে।

ব্যাস এসে বুঝতে পারে সেখানে ১০০ টি নয় ভ্রুন রয়েছে ১০১ টি, তাই সেই মাটির নিচে একটি ঘর প্রস্তুত করিয়ে, (যেভাবে হ্যাচারিতে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে মুরগীর ডিম ফুটিয়ে বাচ্চা উৎপাদন করা হয়) সেখানে নানা পদার্থের মিশ্রন ঘটিয়ে এক ধরণের আরক তৈরি করে এবং ১০১টি মাটির কলসের মধ্যে সেই আরকগুলো প্রয়োজন মতো রেখে তার মধ্যে একটি করে ভ্রুনকে রাখে, এভাবে সেই কলসের মধ্যে ভ্রুণগুলো বড় হতে থাকে এবং একটা সময় পূর্ণ মানব শিশুত পরিণত হয়ে কলস ভেঙ্গে বের হয়ে আসে, জন্ম হয় গান্ধারীর শত পুত্র এবং ১ টি কন্যার।

এখন আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান যেভাবে টেস্ট টিউব পদ্ধতিতে বাচ্চার জন্ম দিচ্ছে সেটা মহর্ষি বেদব্যাস ৫২০০ বছর আগেই করেছে। সনাতন ধর্মের প্রত্যেকটা বিষয় যেমন আজগুবি বা অবাস্তব মনে হয়, গবেষণা করলে তার সত্যতার প্রমান মেলে। যেমন রাইট ভ্রাতৃদ্বয় ১৯০৮ সালে প্রথম উড়োজাহাজ আবিস্কার করে। কিন্তু তার হাজার হাজার বছর আগে রামায়ন, মহাভারতে আমরা উল্লেখ পাই উড়ন্ত রথে করে যুদ্ধ হচ্ছে। সীতাকে রাবণ হরন করে উড়ন্ত রথে করে লঙ্কা নিয়ে যায়। বিজ্ঞানীরা এখনো গবেষণা করছে এত হাজার বছর আগে কিভাবে এগুলো আবিস্কার হয়েছিল।

(তথ্য শ্রীকান্ত সাহা)

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!