বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ১২:২৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
আমফানের ক্ষতিপূরণের টাকা পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এক গৃহবধূকে তৃণমূল নেতার ধর্ষণ তৃণমূলের সংগঠন ভেঙে ১৫০০ কর্মী আর আট সভাপতি যোগ দিলেন বিজেপিতে সৌর শক্তির মাধ্যমে ট্রেন চালানোর প্রস্তুতি ভারতের করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জায়ের বলসোনারোও ভোলায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু কালাম আজাদের যোগদান দাকোপে ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত Environmentally destructive investment patterns and activities must be avoided শার্শায় পুলিশের অভিযানে ২কেজি গাঁজাসহ ২ নারী মাদক ব্যাবসায়ী আটক করোনায় কেড়ে নিলো আরেক সম্মুখযোদ্ধা এসআই মীর ফারুকের প্রাণ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে ফেনী জেলার সিভিল সার্জনের মৃত্যু

জাত-পাত-ভেদ বিরোধী রবীন্দ্রনাথঃ মোঃ ইসরাফিল আলম এমপি

জাত-পাত-ভেদ বিরোধী রবীন্দ্রনাথ

বাংলা সাহিত্যের শ্রেষ্ঠ শব্দশিল্পী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮৬১-১৯৪১)। রবীন্দ্রনাথের অনুরাগী ও বিরাগী- সকলেই এ কথা স্বীকার করে নিয়েছেন যে, রবি প্রতিভার চোখ ধাঁধানো দীপ্তির কাছে বাংলার অন্য কথাশিল্পীরা অনেকটাই স্বল্পালোক। বিশেষ করে কবি ও গীতিকার ও সুরস্রষ্টা হিসেবে তার তুলনা তিনি নিজেই।

রবীন্দ্রনাথের পূর্বপুরুষরা ব্রাহ্মণ হলেও রবীন্দ্রনাথের পিতা মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর ব্রাহ্ম ছিলেন। রাজা রামমোহন রায় প্রবর্তিত ‘ব্রাহ্মধর্ম’ উদার এবং মানবিকবোধ সম্পন্ন ছিল। সুতরাং ধর্মীয়ভাবে একেশ্বরবাদী রবীন্দ্রনাথ অনেকটাই ইসলাম ধর্মের কাছাকাছি ছিলেন। যার ফলে রবীন্দ্রচিন্তা ও সৃজনশীল কর্ম হিন্দু-ব্রাহ্ম-মুসলিমদের তো আকৃষ্ট করেছেই বৌদ্ধ ও খ্রিস্টানরাও তার সাহিত্য প্রসাদ অবলীলায় হাত বাড়িয়ে গ্রহণ করেন।

বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন গ্রন্থ ‘চর্যাপদ’- যেটি আবিষ্কার করেছিলেন মহামহোপাধ্যায় হরপ্রসাদ শাস্ত্রী। সেই গ্রন্থেও আমরা অসাম্প্রদায়িক সমাজের ছবি পাই। বাংলা ভাষার আদিরুপ চর্যাপদের রহস্যময় ভাষার পরতে পরতে ২৩ জন চর্যাকার অসাম্প্রদায়িক ও মানবিক চেতনার আলো ছড়িয়ে গেছেন ।

চর্যাপদের পরে যদি আমরা মধ্যযুগের মঙ্গলকাব্যে প্রবেশ করি, তাহলে দেখবো- মধ্যযুগের ছয়শত বছর শুধু হিন্দু দেবদেবীর মাহাত্ম্য কীর্তনই হয়নি- সেখানে বৈষ্ণব কবিকুল কী বিস্ময়কর ভাষায় অসাম্প্রদায়িক চেতনার পাশাপাশি মানুষের মহিমা ঘোষণা করেছেন।

চন্ডীদাসের : ‘শুনহ মানুষ ভাই/সবার উপরে মানুষ সত্য/তাহার উপরে নাই’- এই অসামান্য পঙ্ক্তির ভেতরে মানবমহিমা পরিপূর্ণ রূপ নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথ তার অনন্যসাধারণ অসাম্প্রদায়িক চৈতন্যের জন্য প্রাচীন যুগ ও মধ্যযুগের কবিদের কাছে বিপুলভাবে ঋণী। রবীন্দ্রনাথের অসাম্প্রদায়িক চেতনার স্বরূপ বুঝতে গেলে এই বিষয় দুটি আমাদের মাথায় রাখতেই হবে।

রবীন্দ্রনাথ জন্মেছিলেন উনিশ শতকের ষাটের দশকের শুরুতে। উনিশ শতক বাংলা সাহিত্যের আধুনিক কালের সুতিকাগার। সেই হিসেবে রবীন্দ্রনাথ আধুনিককালের কবি বটে, তবে মানসিকভাবে তিনি ছিলেন অসম্ভব রোম্যান্টিক। তিনি রোম্যাটিক কবি হিসেবেই বাংলা সাহিত্যে স্বীকৃত। তার আগে মাইকেল মধুসূদন দত্ত (১৮২৪-১৮৭৩) যদিও আধুনিকতার রুপ ও রসবোধ নিয়ে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন, কিন্তু তিনি মাইকেলের দেখানো পথে এক কদমও হাঁটেননি। রবীন্দ্রনাথ মাইকেলের কঠিন সমালোচক ছিলেন এ কথা সত্য, কিন্তু মাইকেলের প্রতিভাকে তিনি চিরদিনই যথার্থ সম্মান প্রদর্শন করেছেন।

রবীন্দ্রনাথকে মধ্যবিন্দুতে রেখে যদি আমরা তার দুই পাশে মাইকেল ও কাজী নজরুল ইসলামকে (১৮৯৯-১৯৭৬) রাখি তাহলে রবীন্দ্রনাথের অসাম্প্রদায়িক চেতনার একটা তুলনামূলক চিত্র পাওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে আমাদের সিদ্ধান্ত হবে এরকম- মাইকেল মধুসূদন দত্ত যে অর্থে অসাম্প্রদায়িক ছিলেন রবীন্দ্রনাথ কিন্তু সেই অর্থে অসাম্প্রদায়িক নন- তার অসাম্প্রদায়িকতা একটু ভিন্নরকম, সেটাকে আমরা এক কথায় উপনিষদের অসাম্প্রদায়িকতা বলতে পারি। আবার রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে যদি আমরা রবীন্দ্র সমসাময়িক কবি কাজী নজরুল ইসলামের অসাম্প্রদায়িকতার তুলনাচিত্র আঁকি, তাহলে দেখবো- নজরুল অনেক বেশি উচ্চকণ্ঠ এবং স্পষ্টভাষী। নজরুলের অসাম্প্রদায়িক চেতনা কড়া, ঝাঁঝালো, তীব্রতম। রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে নজরুলের অসাম্প্রদায়িক চেতনার ফারাক আপাতদৃষ্টিতে আকাশ-পাতাল হলেও মূল জায়গায় দুজনেই এক ও অভিন্ন।

সর্বহারা নজরুল যেভাবে খোলাখুলি ভেদবুদ্ধির বিরুদ্ধে কলম ধরেছেন- রবীন্দ্রনাথ সে ক্ষেত্রে যথেষ্ট সংযমী ছিলেন। অবশ্য রবীন্দ্র সাহিত্যের সৌন্দর্যের যে জায়গা, সেটা মূলত উদার সহনীয় ও সহযোগী সংযমই। সংযমই সুন্দর। সংযমই স্থায়ী। সমগ্র রবীন্দ্র-সাহিত্য পাঠ করলে এ কথাটাই ঘুরে-ফিরে আমাদের সামনে হাজির হয়। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ‘আমি ব্রাত্য, আমি মন্ত্রহীন/সকল মন্দিরের বাহিরে/আমার পূজা আজ সমাপ্ত হলো/ দেবলোক থেকে/ মানবলোকে’- এই যে হরিজন বা প্রান্তিক মানুষের সঙ্গে নিজেকে এক করে মেলানোর প্রয়াস এটা কি সামান্য কথা? রবীন্দ্রনাথ ‘মানুষ’ বলতে মানুষই বুঝেছেন হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান বোঝেননি। এ কারণেই তার কবিতায় বারবার ‘মানুষ’ শব্দটি ঘুরে ঘুরে এসেছে।

তিনি যখন বলেন- ‘মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভুবনে/মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই’- এখানেও গোত্রবর্ণহীন মানুষের কথাই তিনি বলেছেন। কোনো কোনো রবীন্দ্র-গবেষক অবশ্য বলেছেন, রবীন্দ্রনাথের ‘মানুষ তত্ত্ব’ বাউলের কাছ থেকে পাওয়া। এমনটা হতেই পারে। এতে রবীন্দ্রনাথের মর্যাদা কমে না বরং তিনি সম্মানিত হন। রবীন্দ্রনাথ বাংলার বাউলের কাছে ঋণী বটে, কিন্তু বাংলার বাউল ও বাউল দর্শনকে কি তিনি কম ঋণ দিয়েছেন? বিশ্বের মাঝে বাংলার বাউলকে পৌঁছে দেয়ার গুরু-দায়িত্ব নিজ কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন তিনি। সুতরাং ঐতিহ্যগত সূত্রে প্রাপ্ত কোনো দর্শনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সবার জন্য সম্ভব হয় না- রবীন্দ্রনাথ সেটা পেরেছিলেন। নজরুল সমর্পিত ছিলেন মার্কসবাদের পতাকাতলে।

ভারতের অনেক বিপ্লবী, কমরেড তার সুহৃদ ছিলেন। প্রগতিশীল রাজনৈতিক চেতনার একটি গুরুত্বপূর্ণ নীতি হলো- ‘অসাম্প্রদায়িকতা’। নজরুল রাজনৈতিকভাবে সমাজতন্ত্রের সমর্থক ছিলেন বলেই তার অসাম্প্রদায়িক চেতনা দুন্দুভির শব্দের মতোই বর্ণভেদী। রবীন্দ্রনাথ মার্কসবাদী ছিলেন না। সমাজতন্ত্রে বিশ্বাসী না হয়েও তিনি হৃদয়বৃত্তির তাগিদে অসাম্প্রদায়িক ছিলেন।

অনেকেই বলার চেষ্টা করেন- রবীন্দ্রনাথ মুসলমান বিরাগী ছিলেন। প্রমাণ হিসেবে তারা উত্থাপন করতে চান রবীন্দ্র-রচনায় মুসলমান সমাজের ও মুসলমান চরিত্রের অপ্রতুলতা। অনেকে এমনও বলতে চান- রবীন্দ্রনাথ অনেকটা ইচ্ছে করেই মুসলমানদের এড়িয়ে গেছেন। কিন্তু যদি আমরা একটু পিছন ফিরে তাকাই তাহলে দেখবো, রাজা রামমোহন রায় ভারতবর্ষের মুসলিমদের পক্ষে তেমন কোনো কাজই করেননি। যদিও রামমোহনের ‘রাজা’ উপাধি মুসলিম সম্রাট কর্তৃক প্রদত্ত।

রাজা রামমোহনের পরেই শ্রদ্ধার সঙ্গে উচ্চারণ করতে হয় ‘দয়ার সাগর’ ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের নাম। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরও কিন্তু মুসলিম সমাজের পক্ষে কখনো কলম ধরেননি, তার লেখায় মুসলিমরা উপস্থিত না থাকলেও মহাজাতি ভারতবাসীর জন্য তিনি ছিলেন অসাম্প্রদায়িক মন্ত্র উচ্চারণের সংগ্রামী ঋত্বিক। সুতরাং এ কথা আমরা বলতেই পারি- চরিত্র হাজির না করেও যে চরিত্রের প্রতি ভালোবাসা, সহমর্মিতা পোষণ করা যায়, রামমোহন, বিদ্যাসাগর ও রবীন্দ্রনাথ তার ঝলমলে উদাহরণ।

রবীন্দ্রনাথের অসাম্প্রদায়িক চেতনার পেছনে আরেকটি মতবাদ কাজ করেছে যার নাম ‘সর্বপ্রাণবাদ’। সবখানেই প্রাণ আছে, সব প্রাণেই সুখ-দুঃখের অনুভূতি আছে। পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা লাখো কোটি প্রাণের সঙ্গে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার প্রাণের যোগ অনুভব করতেন।

কিন্তু ধর্মের মোহ এসে সাধারণ মানুষকে এই সত্যটুকু উপলব্ধি করতে দেয় না, তাই তিনি কড়া ভাষায় ধর্ম ও ধার্মিকের বিরুদ্ধে বলেন- ‘ধর্মের বেশে মোহ যারে এসে ধরে। অন্ধ সে জন মারে আর শুধু মরে।/নাস্তিক সেও পায় বিধাতার বর,/ধার্মিকতার করে না আড়ম্বর।/শ্রদ্ধা করিয়া জ্বালে বুদ্ধির আলো/শাস্ত্রে মানে না, মানে মানুষের ভালো।’ রবীন্দ্রনাথ দেখেছেন ‘বিধর্ম’ বলে এক ধর্মের লোক যখন আরেক ধর্মের মানুষকে হত্যা করে সে তখন আপন ধর্মেরই অপমান করে। পূজাগৃহে যারা রক্তমাখানো ধ্বজা তুলে ধরে- তারা মূলত দেবতার নামে শয়তানেরই পূজা করে।

১৩৭৭ বঙ্গাব্দের চৈত্র মাসের একটি লেখায় রবীন্দ্রনাথ বলেছেন- ‘আমি হিন্দু’ ‘আমি মুসলমান’ এ কথা শুনতে শুনতে কান ঝালা-পালা হয়ে গেল। কিন্তু ‘আমি মানুষ’ এ কথা কাহাকেও বলতে শুনি না। যারা মানুষ নয়, তারা হিন্দু হোক আর মুসলমান হোক, তাদের দিয়ে জগতের কোনো লাভ নেই।’ মানুষ যতক্ষণ না জাত-গোত্র বিসর্জন দিয়ে মানুষ পরিচয়ে পরিচিত হবে ততক্ষণ পৃথিবীর মঙ্গলসাধন মানুষের পক্ষে সম্ভব নয়। রবীন্দ্রনাথের অসাম্প্রদায়িকতার মূলদর্শন এটাই। সংকীর্ণতার ঊর্ধ্বে উঠে ভ্রাতৃত্ববোধে বিশ্বকে আলিঙ্গন করার আহ্বানের ভেতরেই রবীন্দ্রনাথের অসাম্প্রদায়িক চেতনার বীজ প্রোথিত।

রবীন্দ্রনাথ উদার বিশ্বমানবিকতার কবি। বিশ্বমানব ও বিশ্বপ্রকৃতির প্রতি তাঁর অনুরাগ ছিল সংস্কারমুক্ত ও ভেদাভেদশূন্য। প্রথমদিকে সমাজ ও ধর্মের সংস্কার ও বিশ্বাসের বেড়াজাল সৃষ্টি হলেও সেই উচ্ছ্বাস ও আবেগ থেকে তিনি মুক্ত হয়ে মানবিক সত্যের মর্যাদায় অভিষিক্ত হয়েছেন। তিনি যেমন ব্রাহ্মণের মিথ্যা গরিমাকে ধূলায় মিশিয়ে দিয়েছেন তেমনি হিন্দুদের দ্বারা কথিত ম্লেচ্ছ মুসলমানকে সম্মান করেছেন।

কাহিনী কাব্যের ‘সতী’ কবিতায় আছে :

‘বৃথা আচার বিচার। সমাজের চেয়ে
হৃদয়ের নিত্য ধর্ম সত্য চিরদিন।’
সংস্কারমুক্ত কবি সাম্প্রদায়িক ভেদবুদ্ধিকে পরিহার করেছেন। জাতপাতের বিরুদ্ধে তাঁর কণ্ঠস্বর তীব্র হয়েছে পত্রপুট কাব্যের ১৫ সংখ্যক কবিতায়। যেখানে অন্ত্যজ মন্ত্রবর্জিতের পক্ষে কবির চেতনা। তিনি সহজ ভক্তির আলোকে দেবতাকে পেতে চেয়েছেন। আচার সংস্কার মন্ত্র ও মন্দিরের ভেতরে নয়। এ জন্য গীতাঞ্জলির ১১৯ সংখ্যক কবিতায় দেখা যায় দেবতা বদ্ধ ঘরে নেই তিনি আছেন রৌদ্র ধূলায় চাষা আর শ্রমিকের মাঝে।

অবজ্ঞাত, হীন, পতিত অন্ত্যজের মধ্যে কবি দেবতা খুঁজেছেন। এ যেন মাদার তেরেসার কুষ্ঠ রোগী ও আর্তমানবতার পরিচর্যার মধ্যে যিশু খ্রিস্টের অন্বেষণ। গীতাঞ্জলির ১০৭ সংখ্যক কবিতায় কবি সব হারাদের মাঝে দেবতাকে পেয়েছেন আমরা দেখতে পাই। ‘যেথায় থাকে সবার অধম দীনের হতে দীন/ সেইখানে যে চরণ তোমার বাজে/ সবার পিছে, সবার নিচে/ সব হারাদের মাঝে।’

রবীন্দ্রনাথের জন্ম ধনী এবং সম্ভ্রান্ত জমিদার পরিবারে। পিতামহ প্রিন্স নামে খ্যাত, পিতা মহর্ষী নামে, নিজে এশিয়ার মধ্যে সাহিত্যে প্রথম নোবেল পুরস্কার বিজয়ী, স্বল্পকালের জন্য হলেও ইংরেজ সরকারের দেয়া বেসামরিক সর্বোচ্চ খেতাব নাইট উপাধিধারী। লোকচক্ষে অভিজাতকুল তিলক। কিন্তু তাঁর প্রকৃত পরিচয়টা যে তাঁর নিজের হাতে গড়া সে কথা কম লোকই অনুধাবন করতে পেরেছেন। রবীন্দ্রনাথ জোড়াসাঁকোর ঠাকুর বাড়ির সুরম্য অট্টালিকায় বসে জানালার ফাঁক দিয়ে কলকাতার বস্তিবাসীর সংগ্রামী জীবনকে প্রত্যক্ষ করেছেন। তাঁদের সুখ-দুঃখ, ব্যথা- বেদনা অন্তর দিয়ে উপলব্ধি করেছেন। তাই পরবর্তী জীবনে তিনি জোড়াসাঁকোর প্রাসাদ ছেড়ে গ্রাম বাংলার পথে-প্রান্তরে, খাল-বিল-নদীপথে অবিরাম ঘুরেছেন এবং শান্তি নিকেতনে মাটি ও খড়ের ঘরে বাস করেছেন। রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষের আছে হৃদয়ের গভীর সম্পর্ক।

জমিদারি দেখাশোনা করার জন্য তিনি দীর্ঘ সময় কুষ্টিয়ার শিলাইদহ, শাহজাদপুর ও নওগাঁর পতিসরে কৃষকদের সঙ্গে তাদেরই একজন হয়ে থেকেছেন। রবীন্দ্রনাথ ছিলেন একজন প্রজাহিতৈষী জমিদার। তাঁর সঙ্গে প্রজাদের অবাধ যাতায়াতের সুযোগ ছিল। খাজনা আদায়ের ক্ষেত্রে রাজ কর্মচারীরদের গরিব প্রজাদের ওপর জোর-জবরদস্তিকে তিনি বিন্দুমাত্র প্রশ্রয় দেননি। ফসলহানির কারণে বাংলা ১৩১২ সনে এক বছরে তিনি কৃষকদের উদারভাবে আটান্ন হাজার টাকা খাজনা মাফ করেন।

গ্রামের মানুষের সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে গ্রামের রাস্তাঘাট সংস্কার করেছেন, স্বাস্থ্যকেন্দ্র স্থাপন করেছেন। বিভিন্ন গ্রামে যে স্কুল স্থাপন করেন তার জন্য জমিদারের কোষাগার থেকে বছরে সাড়ে বারোশ টাকা বরাদ্দ করেন। কৃষকদের দাদন ব্যবসায়ীদের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য পতিসরে ‘কৃষি সমবায় ব্যাংক’ স্থাপন করেন। তিনি নোবেল পুরস্কারের অর্থের বড় একটা অংশ ব্যাংকে দান করেন। কলকাতা থেকে কলের লাঙল এনে কৃষকদের আধুনিক চাষাবাদে উদ্বুদ্ধ করেন। কৃষির উন্নতির জন্য রবীন্দ্রনাথ তাঁর ছেলে রথীন্দ্রনাথ এবং তাঁর বন্ধুর ছেলে সন্তোষ মজুমদার ও জামাতা গগন গাঙ্গুলীকে কৃষির ওপর পড়াশোনার জন্য আমেরিকায় পাঠান। বাংলাদেশে আজকের কৃষি ব্যাংক রবীন্দ্রনাথেরই চিন্তার ফসল।

আপাদমস্তক রবীন্দ্রনাথ ছিলেন একজন অসাম্প্রদায়িক মানুষ। একবার পহেলা বৈশাখে শিলাইদহের ‘কুঠিবাড়িতে’ পুণ্যাহ অনুষ্ঠান চলছিল। রবীন্দ্রনাথ নিজের ঘর থেকে বেরিয়ে এসে দেখেন, অনুষ্ঠানে দু’রকমের চাঁদোয়া টানানো হয়েছে। একট চাঁদোয়া উন্নতমানের অপরটি নিম্নমানের। রবীন্দ্রনাথ রাজকর্মচারীকে পার্থক্যের কারণ জিজ্ঞাসা করলেন। কর্মচারী বললেন, ‘হিন্দু প্রজারা বসবেন ভালো চাঁদোয়ার নিচে আর মুসলিম প্রজারা বসবেন অপেক্ষাকৃত নিম্নমানের চাঁদোয়ার নিচে।’ রবীন্দ্রনাথ বললেন, ‘জমিদার রবীন্দ্রনাথের কাছে হিন্দু আর মুসলিম প্রজা বলতে কোনো ভিন্নতা নেই। সবাইকে এক চাঁদোয়ার নিচে নিয়ে এসো।’ রবীন্দ্রনাথ সব সময় হিন্দু-মুসলমানের মিলন চেয়েছেন। তিনি সর্বদাই হিন্দু-মুসলিম সুসম্পর্ক কামনা করেছেন। প্রজারা জমিদার রবীন্দ্রনাথকে কতটা শ্রদ্ধা করতেন তার প্রমাণ মেলে সর্বশেষ যখন রবীন্দ্রনাথ পতিসর থেকে কলকাতায় চলে যান, এসব দরিদ্র প্রজারা রবীন্দ্রাথকে আত্রাই স্টেশন পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছেন।

সুশিক্ষা এবং অর্থনৈতিক মুক্তিতেই মানুষের মনুষ্যত্বের প্রকাশ পাবে এমন বিশ্বাস তিনি লালন করতেন। রবীন্দ্রনাথ বারবার আত্মার পরিশুদ্ধতার বিকাশ লাভের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। পুঁথিগত বিদ্যার পাশাপাশি বিনয় ও মানবতার শিক্ষায় নিজেদের গড়ে তোলার জন্য শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি কোনো বিশেষ দল বা মতের অনুসারী ছিলেন না। কিন্তু জাতির প্রয়োজনে যথার্থ ভূমিকা পালন করেছেন।

রবীন্দ্রনাথ বঙ্গবিচ্ছেদের বিরোধিতা করেন। এই সময়ই তিনি রচনা করেন, ‘আমার সোনার বাংলার আমি তোমায় ভালোবাসি’। বাংলার মাটি বাংলার জল/বাংলার বায়ু বাংলার ফল/পুণ্য হোকৃ আমার সোনার বাংলা গানটি বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত। ১৯১৩ সালে রবীন্দ্রনাথ গীতাঞ্জলী কাব্যগ্রন্থের জন্য সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। নোবেল পাওয়ার দু’বছর পর ১৯১৫ সালে রাজা পঞ্চম জর্জ নিজের জন্মদিনে রবীন্দ্রনাথকে নাইটহুড উপাধিতে ভূষিতে করেন।

ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম, দেশের অভ্যন্তরে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা- হানাহানি এবং বিদেশের রাজনীতির ঘটনাসমূহ দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ, মানুষের সর্বপ্রকার অপমান, দঃখ ও বেদনা রবীন্দ্রনাথের স্পর্শচেতন চিত্তকে তীব্রভাবে নাড়া দেয়। ১৯১৯ খ্রিস্টাব্দের ১৩ এপ্রিল কয়েক হাজার হিন্দু, মুসলিম ও শিখ জালিয়ানওয়ালাবাগে ভারতের স্বাধীনতার দাবিতে জনসভায় বিনা উসকানিতে ব্রিটিশ জেনারেল ডায়ারের নেতৃত্বে প্রায় দশ মিনিট ধরে গুলি চালায় ব্রিটিশ সৈন্যরা। মোট ১৬৫০ রাউন্ড গুলি বর্ষিত হয়। এতে নিহত হয় নিরস্ত্র নিরীহ কয়েকশ স্বাধীনতাকামী মানুষ। তিনি এ নৃশংস হত্যাকণ্ডের প্রতিবাদে ইংরেজ সরকার কর্তৃক দেয়া ‘নাইটহুড’ উপাধি প্রত্যাখ্যান করেন।

শিশু বয়সে ‘জল পড়ে পাতা নড়ে’ কবিতা লেখার মধ্যদিয়ে রবীন্দ্রনাথের কাব্য সাধনার সূচনা ঘটে। এরপর তিনি লিখে গেছেন অবিরাম। কবিতা, গান, নাটক, উপন্যাস, চিত্রশিল্প থেকে শুরু করে বাংলাসাহিত্যের এমন কোনো স্থান নেই যেখানে রবীন্দ্রনাথের হাতের স্পর্শ পড়েনি। কেবল মৃত্যুই তাঁর লেখনি থামিয়ে দিয়েছিল। মৃত্যুর মাত্র কিছুক্ষণ আগে (১৯৪১-এর ৭ আগস্ট) রবীন্দ্রনাথ সৃষ্টিকর্তার উদ্দেশ্যে কবিতা উচ্চারণ করেন, ‘তোমার সৃষ্টির পথ রেখেছ আকীর্ণ করে, বিচিত্র ছলনা জালে/ হে ছলনাময়ী, মিথ্যা বিশ্বাসের ফাঁদ পেতেছ নিপুণ হাতে সরল জীবনেৃ.।’

রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে রয়েছে বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ের নিবিড় সম্পর্ক। তিনি যেমনি ভালোবেসেছিলেন বাংলাদেশের নদ-নদী, খাল-বিল, মাটি ও মানুষকে, ঠিক তেমনি বাংলাদেশের মানুষও তাঁকে অন্তর দিয়ে ভালোবেসেছিলেন। কালের পরিক্রমায় তিনি অনন্তলোকে চলে গেছেন। কিন্তু তিনি তাঁর অমর সৃষ্টির মাঝে বেঁচে আছেন। বাঙালি জাতির অস্তিত্বের সঙ্গে তিনি অবিচ্ছেদ্যভাবে মিশে আছেন। পৃথিবীর কোনো অপশক্তি রবীন্দ্রনাথকে বাঙালির হৃদয় থেকে মুছে ফেলতে পারবে না। তাদের চেষ্টা বারবার পরাজিত হবে।

১৯৬১ সালে আইয়ুব খানের তথ্যমন্ত্রী বাঙালির কুসন্তান মুসলিম লীগের অখ্যাত নেতা শাহাবুদ্দিন নির্দেশ জারি করলেন, ‘পাকিন্তানে রবীন্দ্রনাথের গান-আবৃত্তি প্রভৃতি নিষিদ্ধ’। বাংলাদেশের প্রগতিশীল মানুষ ঘৃণাভরে নির্দেশ প্রত্যাখ্যান করলেন। ওই বছরই সব ভয়ভীতিকে উপেক্ষা করে বাঙালি জাতি ঘটা করে রবীন্দ্র জন্মশতবার্ষিকী পালন করে। রবীন্দ্রনাথ আমাদের আত্মার আত্মীয়। দুর্দিনের বন্ধু, পথচলার সাথী, মুক্তিযুদ্ধের সময় রবীন্দ্রনাথের গান রণাঙ্গনে মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত করেছে।

রবীন্দ্রনাথ আজীবন মানবতার কথা বলেছেন। তিনি তাঁর রচনায় সাধারণ মানুষের জীবনচিত্র নিখুঁতভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। আধ্যাত্মিকতা তাঁর রচনাকে আরো সমৃদ্ধ করেছে। তিনি মানুষের চিত্তের বিকাশ সাধনের মাধ্যমে মানবতার মুক্তির দীক্ষা দিয়েছেন।

ইসরফিল আলম, সাংসদ, নওগাঁ-৬ ও সম্পাদক রবীন্দ্র জার্নাল

প্রতিষ্ঠাতা, আন্তর্জাতিক রবীন্দ্র গবেষণা ইনস্টিটিউট, পতিসর, নওগাঁ।

 

গ্রন্থপঞ্জি :
১. উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য (১৩৭২)। রবীন্দ্র কাব্য-পরিক্রমা। ওরিয়েন্ট বুক কোম্পানী। চতুর্থ সংস্করণ। কলকাতা
২. চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় (১৩৭৮)। রবি-রশ্মি। ২য় খন্ড। এ মুখার্জী অ্যান্ড কোং প্রাইভেট লিমিটেড। কলিকাতা
৩. শুদ্ধস্বত্ত্ব বসু (১৩৭৯)। রবীন্দ্রকাব্যের গোধূলী পর্যায়। প্রথম খন্ড। মন্ডল বুক হাউজ। কলিকাতা
৪. হারুন-অর-রশীদ (১৯৯৮)। ভদ্রপাড়ায় থাকেন না ঈশ্বর : রবীন্দ্রকাব্যে সাধারণ মানুষ। ইমপিরিয়্যাল
বুকস্। দ্বিতীয় সংস্করণ। রাজশাহী
৫. রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৩৬৫)। ছেলেবেলা, রবীন্দ্র-রচনাবলী। ষড়বিংশ খন্ড। বিশ্বভারতী। কলিকাতা

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!