13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সিলেটে ৪০০ বস্তা চিনি লুটের ঘটনায় মামলা, উদ্ধার ৮০ বস্তা

Link Copied!

সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলায় ট্রাকচালককে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এক ট্রাক থেকে ৪০০ বস্তা চিনি লুটের ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা দায়েরের পরপরই উদ্ধার করা হয়েছে ৮০ বস্তা চিনি। এসময় আটক করা হয় ২ জনকে।
বুধবার দুপুরে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের গণমাধ্যম শাখা।
পুলিশ জানায়, শনিবার (০৮ জুন) সিলেটের বিয়ানীবাজার থানাধীন লালপুর নামক স্থান থেকে ট্রাক চালককে জিম্মি করে ৪০০ বস্তা চিনি দুষ্কৃতকারী লুঠ করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় চিনির মালিক ব্যবসায়ী বদরুল ইসলাম বাদি হয়ে মঙ্গলবার (১১ জুন) এজহার নামীয় ১১জন ও অজ্ঞাতনামা ৭-৮ জন করে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পরপরই পুলিশের টিম বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। অভিযান পরিচালনা করে এদিন দুপুরে বিয়ানীবাজার পৌরসভার সুপাতলার আব্দুর রহমানের বসতবাড়ির পেছনে চারা বাগান থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৮০ বস্তা চিনি উদ্ধার করে পুলিশ। আর চিনি বহনকারী একটি পিকআপভ্যান নিদনপুর এলাকার তাজউদ্দিন মিস্ত্রির বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। এসময় এজহার নামীয় ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, কিশোরগঞ্জের হোসাইনপুর গ্রামের মো. খলিল মিয়ার ছেলে মো. লিটন মিয়া (২৬), মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামের মোস্তাফা উদ্দিনের ছেলে হাসান (২১)। উভয়ে বর্তমানে বিয়ানীবাজার পৌরসভাধীন এলাকায় বসবাস করেন।
বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেবদুলাল ধর বলেন, চিনির মালিক বদরুল ইসলাম মামলা দায়ের করেছেন সেটা আমরা সেট রেকর্ড করে কাজ করছি। মামলায় ১১ জনকে এজহারনামীয় ও ৭-৮ জনকে অজ্ঞাতনামা করে মামলা দায়ের করেছেন। তদন্তকালে যদি রাজনীতি সংশ্লিষ্ট কারো নাম বা অন্য কারো নাম বেড়িয়ে আসে তাহলে আমরা তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণ করব। এজহারে যে নামগুলো দিয়েছেন সেখান থেকে কেউ রাজনীতি কোন দলের সাথে সম্পৃক্ত আছে কিনা আমরা সেটা দেখছি। তাছাড়া বাকি ৩২০ বস্তা চিনি উদ্ধারে পুলিশ কাজ করছে।
এর আগে ৮ জুন সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলায় সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়কের চারখাই এলাকা থেকে ট্রাক চালককে জিম্মি করে প্রায় ২৪ লাখ টাকার দেড় টন চিনি লুট হয়। ওই চিনির মালিক বদরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, চারখাই বাজারে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। গত কয়েকদিনে তিনি সরকারের বেধে দেওয়া নিয়ম অনুযায়ী বিভিন্ন স্থান থেকে ১ হাজার ৪৭৭ বস্তা চিনি নিলামের মাধ্যমে ক্রয় করেন। ওই চিনি থেকে ৪০০ বস্তা চিনি তিনি শাহগলী বাজারের জনৈক ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করেন। একটি ট্রাকে বোঝাই করে বিক্রীত চিনি অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার সময় ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ে। তিনি জানান, কারা লুট করেছে, ছিনতাই চক্র কোন গাড়ি ব্যবহার করেছিল, কার বাসায় মালামালসহ গাড়ি নেওয়া হয়েছিল সব তথ্যই বেরিয়ে এসেছে। এমনকি সিসিটিভির ফুটেজও রয়েছে। ছিনতাইকারী চক্রও চিহ্নিত। নেতৃত্ব দিয়েছেন স্থানীয় ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।
http://www.anandalokfoundation.com/