13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নিম্নমানের কাজ হওয়ায় খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়ক লোড সইতে পারেনা

ডেস্ক
June 21, 2024 8:01 am
Link Copied!

বিভিন্ন স্থানে পিচ দেবে বেহাল অবস্থা খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের। পুনর্নির্মাণ ও প্রশস্ত করার ৪ বছরের মধ্যেই অনেক স্থানে পিচ উঠে গেছে, কোথাও উঁচুনিচু, কোথাও আবার গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এ সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন। এতে প্রায়ই ঘটছে ছোট বড় দুর্ঘটনা। সড়ক বিভাগ বলছে, যানবাহনের চাপ বেড়ে যাওয়া, নিম্নমানের কাজ হওয়ায় এবং ওভারলোডিংয়ের কারণে সড়কের এ দশা। আঞ্চলিক এ সড়কটি ৬ লেনের মহাসড়কের উন্নীত করার পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে।

পদ্মা সেতু চালুর পর খুলনা-সাতক্ষীরা আঞ্চলিক মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। বিশেষ করে এ সড়ক দিয়ে বেনাপোল ও ভোমরা বন্দরগামী পণ্য নিয়ে ভারী যানবাহনের চাপ বেড়েছে। সড়কটির সর্বোচ্চ ওজন নেয়ার সক্ষমতা সাড়ে ২২ মেট্রিক টন হলেও এ দুই বন্দর থেকে ৫০ মেট্রিক টনের যান চলছে নিয়মিত। চাপ নিতে না পারায় দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যস্ততম সড়কটি।

সড়কটির নিঝুম পল্লীর সামনে থেকে ডুমুরিয়ার দিকে প্রায় এক কিলোমিটার এখন উঁচু-নিচু হয়ে গেছে। একইভাবে গুটুদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের মোড় থেকে উপজেলা পরিষদের সামনে পর্যন্ত আধা কিলোমিটারেরও একই অবস্থা। শুধু এ দুটি স্থানই নয়, আরও বেশ কয়েকটি স্থানে পিচ দেবে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে প্রায় তিন থেকে চার কিলোমিটার সড়কের এমন বেহাল অবস্থা। এতে ৬০ কিলোমিটারের পুরো সড়কটিই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে।

অভিযোগ উঠেছে, নিম্নমানের কাজ হওয়ায় এমন অবস্থা তৈরি হয়েছে। উঁচু-নিচু এ সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন। প্রায়ই ঘটছে ছোট বড় দুর্ঘটনা।

প্রাইভেটকার নিয়ে ঈদযাত্রা শেষে সাতক্ষীরা থেকে খুলনায় ফেরার পথে কথা হয় শোভন তালুকদারের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এ সড়কটি মাত্র কিছুদিন হলো তৈরি হয়েছে। এর মধ্যেই কেন এ অবস্থা তৈরি হবে। এ সড়ক দিয়ে গাড়ি নিয়ে চলতে গেলেই নানা রকম শঙ্কা থাকে। এই বুঝি কিছু হয়ে গেল। আমার মনে হয়ে কাজের মান ঠিক ছিল না। এ কারণেই বিভিন্ন স্থানে পিচ উঠে গেছে।’ন

ভোমরা স্থলবন্দর থেকে পাথর নিয়ে এ সড়ক দিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিলেন চালক মহিবুল। তিনি বলেন, ‘সড়কটিতে যান বাহনের চাপ বেড়েছে এটা ঠিক। আগে আমরা অন্য সড়ক ব্যবহার করলেও পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় এ সড়ক দিয়ে পণ্য নিয়ে রাজধানীসহ দেশের অন্যান্য স্থানে যেতে সুবিধা হয়। তবে সড়কটি আগের অবস্থাতেই রয়েছে। বিভিন্ন স্থানে গর্ত হওয়ায় ট্রাক উল্টে যাওয়ার শঙ্কা থাকে।’

খুলনা থেকে ৪০ জন যাত্রী নিয়ে সাতক্ষীরায় যাওয়ার পথে পরিবহনের চালক মোস্তফা আলী বলেন, ‘কিছুদিন পরপরই এ সড়কের বিভিন্ন স্থানে দুর্ঘটনা ঘটে। গাড়ি উল্টে যায়। মূলত সড়কটির এ অবস্থার কারণেই দুর্ঘটনা বেশি হচ্ছে। সড়কে আগের থেকে অনেক বেশি জায়গায় ক্ষতিগ্রস্ত অবস্থায় আছে। মাঝেমধ্যে পাথর বসিয়ে ঠিক করা হয়। কিছুদিন যেতে না যেতেই আবারও একই অবস্থার সৃষ্টি হয়।’

বেনাপোল থেকে নিয়মিত এই সড়ক দিয়ে পণ্য নিয়ে রাজধানী যাওয়া ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘পদ্মা সেতু চালুর পর দুই বন্দর থেকে আমাদের পণ্য নেয়া অনেক সহজ হয়েছে। এই সড়কে যানবাহন অনেক বেড়েছে। এত যানবাহনের চাপ এই সড়ক আর সামলাতে পারছে না। সড়কটি আরও প্রশস্ত করা এখন খুবই প্রয়োজন।’

সড়ক বিভাগ বলছে, আঞ্চলিক মহাসড়কটি যানবাহন চাপ বাড়ার কারণে এখন ৬ লেনের মহাসড়কে উন্নীত করার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। নষ্ট হওয়া স্থানগুলো দ্রুত সংস্কার করা হবে বলেও জানায় সংস্থাটি।

সড়ক বিভাগ খুলনার নির্বাহী প্রকৌশলী আনিসুজ্জামান মাসুদ বলেন, ‘দুই বছর আগেও যেখানে এ সড়কে সর্বোচ্চ ১০ হাজার যানবাহন চলতো, এখন সেটা ২০ হাজারে দাঁড়িয়েছে। এ সড়কে সর্বোচ্চ সাড়ে ২২ মেট্রিক টন পণ্য নিয়ে যানবাহন চলার অনুমতি থাকলেও নিয়মিত ৫০ মেট্রিকটনের ট্রাক চলছে। ওভার লোডিং ও গাড়ির চাপ বাড়ার কারণে সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই সড়কটি এখন আঞ্চলিক মহাসড়ক থেকে জাতীয় মহাসড়কে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী সড়কটি ৬ লেনে উন্নীত করা হবে। সম্ভাব্যতা যাচাই শেষে প্রকল্পটি এখন একনেকে ওঠার অপেক্ষা। এছাড়া সড়কটি যেসব জায়গায় পিচ ডেবে যাচ্ছে বা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তাৎক্ষণিকভাবে জরুরি ভিত্তিতে তা মেরামত করা হচ্ছে।’

খুলনা-সাতক্ষীরা আঞ্চলিক মহাসড়কের মোট দৈর্ঘ্য ৬৪ কিলোমিটার। সড়কটি পুনর্নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছিল ২০১৮ সালে এবং শেষ হয় ২০২০ সালের জুনে। খুলনা অংশের এ ৩৩ কিলোমিটার সড়ক পুনর্নির্মাণ ও প্রশস্ত করার জন্য ব্যয় হয় ১৬০ কোটি টাকা।

http://www.anandalokfoundation.com/