সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১০:২৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
রাজারহাটে অসহায় মানুষগুলোর পাশে ইউএনও, বিত্তবানদের নিকট আবেদন কর্মহীন অসহায় পরিবারের মাঝে সাজেদা চৌধুরী ও লাবু চৌধুরীর পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ ধামইরহাটে কর্মহীন ১ হাজার পরিবারে চাল-ডাল-আলু ও সাবান বিতরণ যশোরে করোনা সন্দেহে শিশুর মৃত্যু, লাশ ফেলেই পালালেন স্বজনরা! দেশে নতুন করে একজন করোনা শনাক্ত, সুস্থ ১৯ করোনা মোকাবিলায় আমাদের চিকিৎসার কোনো অভাব নাই -স্বাস্থ্যমন্ত্রী মহামারি করোনায় বিশ্বকে কাপিয়ে ব্যবসায় ফুলে ভিলেন রূপে চীন লকডাউনের সুযোগে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও নেই তালিকা করোনা ‘আল্লাহর শাস্তি’ দাবি করে ফেসবুকে পোস্ট দেয়ায় সৌদিতে গ্রেপ্তার ৪ সরকারের দেয়া বরাদ্দ সেনাবাহিনীর মাধ্যমে সঠিক ভাবে বন্টনের আবেদন দরিদ্রদের

বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাস আতঙ্কে রোগীর মৃত্যু

করোনা আতঙ্কে মৃত্যু

দি নিউজ ডেস্কঃ শনিবার দুপুরে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল জটিলতায় কানাডা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের  চিকিত্সকদের অবহেলায় কানাডা থেকে ফিরে আসা এক তরুণ বাংলাদেশী মারা গেছেন।

তার পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন যে, রোগীর করোনভাইরাস ছিল সেই সন্দেহ থাকায় ডাক্তারদের অমনোযোগ ছড়িয়ে পড়ে। তাদের অভিযোগ যেহেতু ডিএমসিএইচ করোন ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের জন্য পরীক্ষা করার ব্যাপারে সজ্জিত নয় এবং চিকিত্সা কর্মীদের প্রতিরক্ষামূলক মামলা নেই, তাই তারা  রোগীর কাছে যেতে অস্বীকার করেছেন।

নাজমা আমিন (২৪) ছিলেন কানাডার সাসকা চোয়ানের রেজিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায়িক শাখায় অধ্যয়নরত একজন স্নাতক শিক্ষার্থী।

তিনি গত সোমবার ঢাকায় ফিরে পেটে ব্যথার অভিযোগ শুরু করেন। নাজমার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন তিনি একেবারে খেতে পারছিলেন না।  যতবার সে খাওয়ার চেষ্টা করেছিল,  হয় বমি বমি করছিল না হয় পেটে ভীষণ ব্যথা পাচ্ছিল। তাই শুক্রবার রাতে তার পরিবার তাকে মোহাম্মদপুরে বাড়ির কাছে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

“হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে তাকে একটি নিবিড় পরিচর্যা ইউনিট (আইসিইউ) এ রাখা দরকার এবং তত্ক্ষণাত্ই স্থানান্তরিত করতে হবে।

নাজমার বাবা আমিন উল্লাহ বলেছেন, গভীর রাত হয়ে যাওয়ায় ” তিনি অন্য কোথাও যোগাযোগ করে অন্য হাসপাতাল খুঁজে পাচ্ছেন না।

তারপরে তারা তাকে ঢাকা মেডিকেলে  নিয়ে যায়। সেখানে তাকে একটি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছিল এবং  স্যালাইন, অক্সিজেন সহায়তা ও ওষুধ দেওয়া হয়েছিল, আমিন উল্লাহ বলেছেন, “তার ব্যথাও কিছুটা কমেছে।”  কিন্তু  সকাল আটটায় নার্সদের শিফট পরিবর্তন হয় এবং নার্সদের একটি নতুন ব্যাচ আসে।

সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে এক নার্স আমিনকে জিজ্ঞাসা করলেন নাজমার কী হয়েছে। লক্ষণগুলি বর্ণনা করতে গিয়ে আমিন উল্লেখ করেছিলেন যে মেয়েটি সম্প্রতি কানাডা থেকে পালিয়ে এসেছে।

কানাডার কথা উল্লেখ করে নার্সরা চিৎকার করতে লাগল, “সে কানাডা থেকে এসেছে! তারও জ্বর হয়েছে!” আমিন উল্লাহ জানান, মেয়েটির করোনভাইরাস রয়েছে বলে তারা ডাক্তারদের কাছে ছুটে এসেছিল। শুনে পুরো ওয়ার্ডটি বিশৃঙ্খলার কবলে পড়ে এবং সমস্ত ডাক্তার এবং নার্সরা মেয়েটির কাছাকাছি আসতে অস্বীকার করে । অবহেলায় মেয়েটি মারা যায়।

একজন ওয়ার্ড ছেলে বললেন, কর্মীরা যখন শুনলেন যে কোনও করোনভাইরাস রোগী ওয়ার্ডে প্রবেশ করেছে, তখন সবাই আতঙ্কিত হয়েছিল। আমিও সেখানে ছিলাম। আমার মনে হয়েছিল আমার পৃথিবী শেষ হয়ে গেছে। মেয়েটি যদি আমাকে সংক্রামিত করে এবং আমি আমার পরিবারকে সংক্রামিত করি তবে কী হবে?

ওয়ার্ডের একজন নার্স বলেছিলেন, “দেখুন, প্রত্যেকে নিজের জীবন নিয়ে ভয় দেখায়। এমনকি নার্সরাও।”

সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডাঃ এ বি এম জামাল বলেছিলেন, “যখন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লো মেয়েটি কানাডা থেকে ফেরত আসা তখন ওয়ার্ডটিতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে যায়,” তবে তিনি আরও জানান, এর পরেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যায়।

ডিএমসিএইচের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন বলেছেন, “কর্মীদের প্রতিরক্ষামূলক গিয়ার নেই এবং তারা উদ্বিগ্ন ছিলেন যে তারা কয়েক ঘন্টা ধরে কোনও করোনভাইরাস রোগীর সংস্পর্শে আসবেন।” তাদের করোনা ভাইরাস পরীক্ষার কিট ছিল না এমনকি তার ভাইরাস রয়েছে কিনা তাও নিশ্চিত করতে পারেনি।

তিনি বলেন, “এপিডেমিওলজি ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউট থেকে আমাদের প্রতিনিধিদের ফোন করে জিজ্ঞাসা করতে হয়েছিল যে তার করোনভাইরাস আছে কি না,” তিনি বলেছিলেন। তিনি আরও যোগাযোগ করেন যে তারা পরিস্থিতিটি অত্যন্ত জরুরী ভাবে মোকাবিলা করেছে।

তিনি করোনভাইরাসটির জন্য নেতিবাচক পরীক্ষা করেছিলেন, তবে ততক্ষণে কোনও নজরদারি না করেই এক ঘন্টা পেরিয়ে গিয়েছিল এবং রোগীর অবস্থা আরও খারাপ হয়ে গিয়েছিল।

হাসপাতাল সূত্র জানা যায়, রাত সাড়ে বারোটার দিকে, একজন চিকিৎসক গ্লাভস, মুখোশ পরে রোগীর কাছে গিয়ে অ্যান্টিবায়োটিক ইঞ্জেকশন দেন। তখনও অনেক দেরি হয়ে গেল। অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়ার পরই নাজমা মারা যান।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit