13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

একুশে পুরস্কারপ্রাপ্ত কবি অসীম সাহা আর নেই

Link Copied!

কবি অসীম সাহা আর নেই। আজ মঙ্গলবার (১৮ জুন) দুপুর ২টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। অসীম সাহার স্ত্রী কবি অঞ্জনা সাহা এবং দুই পুত্র অভ্র সাহা ও অর্ঘ্য সাহা।

বছরের শুরুর দিকেই গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন কবি অসীম সাহা। চিকিৎসকরা তখন জানিয়েছিলেন কবি পারকিনসন (হাত কাঁপা রোগ), কোষ্ঠকাঠিন্য ও ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত। এছাড়াও বিষণ্ণতায় ভুগছিলেন কবি।

শেষ সময়ে অর্থাভাবে তার চিকিৎসা ব্যাহত হয়েছে। তার চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রী আর্থিক সহায়তা দিলেও, নানা জটিলতায় পরিবারের কাছে সেই টাকা পৌঁছায়নি। ফলে চিকিৎসা অব্যাহত রাখতে, বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ ওষুধপত্রের অর্থের জোগান দেওয়া পরিবারের পক্ষে বেশ কষ্টকর হয়ে পড়েছিল।

১৯৪৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি মামাবাড়ি নেত্রকোণা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন কবি অসীম সাহা। পিতৃপুরুষের ভিটে মানিকগঞ্জ জেলার শিবালয় থানার তেওতা গ্রামে। শৈশবের চার-পাঁচ বছর তিনি যমুনা নদী তীরের সেই ছোট্ট গ্রামে এক আনন্দোচ্ছল জীবন কাটান। দার্শনিক পিতা অধ্যাপক অখিল বন্ধু সাহার চাকরি-সূত্রে মাদারীপুর চলে গেলে ― সেখানেই স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন।

অসীম সাহা ১৯৬৫ সালে মাধ্যমিক পাস করেন এবং ১৯৬৭ সালে মাদারীপুর নাজিমুদ্দিন মহাবিদ্যালয় থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। ১৯৬৯ সালে স্নাতক পাস করে তিনি ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৬৯ সালে অসহযোগ আন্দোলন এবং পরে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতাযুদ্ধ শুরু হলে তার স্নাতকোত্তর পরীক্ষা পিছিয়ে যায় এবং তিনি ১৯৭৩ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

অসীম সাহার লেখালেখি-জীবনের শুরু ১৯৬৪ সালে। ১৯৬৫ সালে জাতীয় দৈনিকে লেখা ছাপার মধ্য দিয়ে টানা কবিতা, গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ, ছড়া, কিশোরের কবিতা লিখেছেন অসীম সাহা। লেখালেখির পাশাপশি তিনি দেশের মূলধারার পত্রিকাসমূহে সাংবাদিকতাও করেছেন। চলচ্চিত্রে গীতিকার, সুরকার, অভিনেতা ও টিভি চ্যানেলের উপস্থাপক হিসেবেও কাজ করেছেন।

কবি অসীম সাহা অংশগ্রহণ করেছেন ১৯৬২, ১৯৬৬, ১৯৬৯ এর গণআন্দোলনে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে একজন সফল সংগঠক হিসেবে ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

কবি অসীম সাহা ধর্মীয় সংখ্যালঘু নির্যাতনের মতো অসভ্যতার বিরুদ্ধে যেমন সোচ্চার হয়েছেন, একইভাবে মানবতার পক্ষে বলেছেন নিজের অঙ্গীকারের কথাও। নানা অসঙ্গতি অনাচারে রক্তাক্ত একজন সংবেদনশীল কবির সাহসী উচ্চারণ তাই কবিতার পাশাপাশি ইতিহাসেরও অংশ হয়ে রয়েছে। অন্ধকার সময়কে উপস্থাপন করেন তিনি বহুমাত্রিক ব্যঞ্জনায়।

কবি অসীম সাহা ‘উদ্বাস্তু’ লিখে দেশহীন মানুষের কথা উচ্চারণ করেছেন অত্যন্ত সাবলীলভাবে। ১৯৯২ সালের বাবরী মসজিদ ধ্বংসের পর এদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর আক্রমণ ও নির্যাতন হয়েছিলো তার প্রতিবাদে এদেশের বিবেকবান মানুষদের নিয়ে শুরু করেন ‘সম্প্রীতি ও মানবাধিকার আন্দোলন’। ২০০১ সালে সাধারণ নির্বাচনের পর ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর যে বর্বরোচিত নির্যাতন হয়েছিলো, তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন এবং সাহসী লেখনীর মাধ্যমে এদেশের মানুষের মাঝে তুলে ধরেছেন কবি।

কবি অসীম সাহার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ৩৫ টি। তার প্রকাশিত গ্রন্থগুলো হলো পূর্ব-পৃথিবীর অস্থির জ্যোৎস্নায় (১৯৮২), কালো পালকের নিচে (১৯৮৬), পুনরুদ্ধার (১৯৯২), উদ্বাস্তু (১৯৯৪), মধ্যরাতের প্রতিধ্বনি (২০০১), অন্ধকারে মৃত্যুর উৎসব (২০০৬), মুহূর্তের কবিতা (২০০৬), Refujee and the festival of death in darkness (২০১০), সৌর-রামায়ণ (২০১১), অক্টাভিও পাস ও ডেরেক ওয়ালকটের কবিতা (২০১১), কবর খুঁড়ছে ইমাম (২০১১), প্রেমপদাবলি (২০১১), পুরনো দিনের ঘাসফুল (২০১২), প্রগতিশীল সাহিত্যের ধারা (১৯৭৬), অগ্নিপুরুষ ডিরোজিও (১৯৯০), উপন্যাস উদাসীন দিন (১৯৯২), শ্মশানঘাটের মাটি গল্প (১৯৯৫), কিলের চোটে কাঁঠাল পাকে (২০০২), শেয়ালের ডিগবাজি (২০০৭), হেনরি ডিরোজিও (২০১০) উল্লেখযোগ্য।

শিল্পের সাধনায় নিবেদিতপ্রাণ এই কবি ও শিল্পী বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, আলাওল সাহিত্য পুরস্কার, কবিতালাপ পুরস্কার, শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন পুরস্কার, রূপসী বাংলা পুরস্কার (পশ্চিমবঙ্গ), কোলকাতা আন্তর্জাতিক লিটল ম্যাগাজিন পুরস্কার, কবিতালাপ পুরস্কার এবং আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্যপুরস্কার, বঙ্গবন্ধু স্মারক-পুরস্কারসহ বহু পুরস্কার ও সম্মাননা লাভ করেছেন।

২০১৯ সালে বাংলাদেশ সরকার কবি অসীম সাহাকে রাষ্ট্রের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত করে।

http://www.anandalokfoundation.com/