ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আলফ্রেড বের্নহার্ড নোবেল এর মৃত্যুদিন আজ

ডেস্ক
December 10, 2022 8:29 am
Link Copied!

পৃথিবীর সবচেয়ে সম্মানজনক, ঈর্ষণীয় এবং মহার্ঘ পুরস্কার নোবেল পুরষ্কার। নোবেল পুরষ্কারের জনক সুইডিশ পদার্থবিদ, ইঞ্জিনিয়ার, আবিষ্কারক, ব্যবসায়ী, অস্ত্র নির্মাতা মানবহিতৈষী দানশীল ব্যক্তিত্ব আলফ্রেড বের্নহার্ড নোবেল এর মৃত্যুদিন আজ।

তিনি ব্যবসায়েও বিশেষ প্রসিদ্ধি অর্জন করেছিলেন। বিখ্যাত ইস্পাত নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোফোর্স এর মালিক ছিলেন অনেকদিন, প্রতিষ্ঠানটিকে এক সময় অন্যতম বৃহৎ অস্ত্র নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেন। তার নামে ৩৫০টি ভিন্ন ভিন্ন পেটেন্ট ছিল যার মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত হচ্ছে ডায়নামাইট। মৃত্যুর আগে উইল করে তিনি তার সুবিশাল অর্থ সম্পত্তি নোবেল ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার জন্য রেখে যান। উইলে আরও বলে যান, নোবেল ইনস্টিটিউটের কাজ হবে প্রতি বছর নোবেল পুরস্কার এর অর্থ প্রদান করা।

আলফ্রেদ বের্নহার্ড নোবেল ১৮৩৩ সালে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম ইমানুয়েল এবং মাতার নাম আন্দ্রিয়েতি। আলফ্রেদ বের্নহার্ড নোবেল জন্মের বছরই তার বাবা ইমানুয়েল নোবেল দেউলিয়া হন। ১৮৩৭ সালে ইমানুয়েল নোবেল স্টকহোমে তার পরিবার রেখে প্রথমে ফিনল্যান্ড এবং পরে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে যান ভাগ্যের সন্ধানে। সেন্ট পিটার্সবার্গে একটি মেকানিক্যাল ওয়ার্কশপ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৮৪২ সালে পরিবারের সবাইকে সেন্ট পিটার্সবার্গে নিয়ে আসেন ইমানুয়েল। ১৮৭২ সালে আলফ্রেদ নোবেলের বাবা ইমানুয়েল মৃত্যুবরণ করেন। ১৮৮৯ সালে নোবেলের মা আন্দ্রিয়েতি মৃত্যুবরণ করেন। তিনিl অবিবাহিত ছিলেন।

১৮৫০-১৮৫২ সাল পর্যন্ত আলফ্রেদ নোবেল ফ্রান্সের পারি গিয়ে টি. জুলস পিলৌজ গবেষণাগারে কাজ করেন কিছুদিন। জার্মানি, ইতালি এবং যুক্তরাষ্ট্রেও ভ্রমণ করেন। ১৮৫৩-১৮৫৬ সালে ক্রিমিয়ার যুদ্ধের সূচনা। যুদ্ধের প্রথম দিকে নোবেল কোম্পানি অনেক সমৃদ্ধি অর্জন করে, কিন্তু যুদ্ধ শেষে যখন রুশ সামরিক বাহিনী অর্ডার উঠিয়ে নেয়া তখন দেউলিয়া হয়ে যায়। আলফ্রেদ নোবেল মরিয়া হয়ে নতুন পণ্য উৎপাদনের চেষ্টা করতে থাকেন। তার রসায়ন শিক্ষক নিকোলাই এন. জিনিন তাকে নাইট্রোগ্লিসারিন এর কথা মনে করিয়ে দেন।

১৮৬২ সালে নোবেল নাইট্রোগ্লিসারিন নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেন। ১৮৬৩ সালে নোবেল তার প্রথম নাইট্রোগ্লিসারিন-জাত পণ্যের পেটেন্ট করেন। একে ইংরেজিতে বলা হচ্ছিল “ব্লাস্টিং অয়েল”, এটি এক ধরনের বিস্ফোরক। এরপর “ব্লাস্টিং ক্যাপ” নামক একটি ব্যবস্থা উদ্ভাবন করেন যা নাইট্রোগ্লিসারিন বিস্ফোরণের ট্রিগার হিসেবে কাজ করে। এ সময়ই তিনি স্টকহোমে চলে আসেন এবং এখানেই গবেষণা চালিয়ে যান।

১৮৬৪ সালে স্টকহোমের হেলেনেবোর্গে নাইট্রোগ্লিসারিন প্রস্তুতির সময় বিস্ফোরণে আলফ্রেদ নোবেলের ভাই এমিল মারা যায়। নোবেল পরীক্ষা চালিয়ে যান এবং স্টকহোমে “নাইট্রোগ্লিসারিন এবি” নামক একটি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেন। ১৮৬৫ সালে নোবেল তার ব্লাস্টিং ক্যাপ নকশাটির আরও উন্নতি সাধন করেন। সুইডের থেকে জার্মানি চলে এসে হামবুর্গ শহরের নিকটে ক্রুমেল নামক স্থানে “আলফ্রেদ নোবেল অ্যান্ড কোম্পানি” কারখানাটি নির্মাণ করেন। ১৮৬৬ সালে নোবেল যুক্তরাষ্ট্রে “ইউনাইটডে স্টেটস ব্লাস্টিং অয়েল কোম্পানি” প্রতিষ্ঠা করেন। একটি ভয়াবহ বিস্ফোরণে ক্রুমেলের কারখানাটি ধ্বংস হয়ে যায়। এলবে নদীতে একটি ভেলা ভাসিয়ে তাতে নোবেল নাইট্রোগ্লিসারিন বিস্ফোরককে আরও নিরাপদ করার চেষ্টা চালিয়ে যান। এ সময়ই তিনি বুঝতে পারেন, নাইট্রোগ্লিসারিনের সাথে কাইসেলগুর (সিলিকনের মত অধঃক্ষেপ, ডায়াটোমেশাস মাটি হিসেবেও পরিচিত) মেশালে তা স্থিত হয়। এই নতুন মিশ্র বিস্ফোরকের নাম দেন ডায়নামাইট। ১৮৬৭ সালে ডায়নামাইটের জন্য পেটেন্ট অর্জন করেন। ১৮৭১ সালে নোবেল স্কটল্যান্ডের আর্ডিয়ারে “ব্রিটিশ ডায়নামাইট কোম্পানি” প্রতিষ্ঠা করেন। ১৮৭৭ সালে এই কোম্পানির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয়েছিল “নোবেল’স এক্সপ্লোসিভ কোম্পানি”। ১৮৭৩ সালে ৪০ বছর বয়সে নোবেল প্রভূত সম্পত্তির অধিকারী হন। পারি (প্যারিস) গিয়ে মালাকফ এভিনিউ এ থিতু হন। একই বছর আর্ডিয়ারের কারখানায় নাইট্রোগ্লিসারিন ও ডায়নামাইট উৎপাদন শুরু হয়। ১৮৭৫ সালে নোবেল “ব্লাস্টিং গিলাটিন” উদ্ভাবন করে পরের বছর পেটেন্ট করেন। ফ্রান্সের পারিতে “সোসাইটি জেনারেলে পৌর লা ফেব্রিকেশন দে লা ডাইনামাইট” প্রতিষ্ঠা করেন। ১৮৭৬ সালে জার্মানির হামবুর্গে আলফ্রেদ নোবেল অ্যান্ড কোম্পানির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ডাইনামাইটাকটাইঙ্গেসেলশাফট (ডিএজি)।

নোবেল একজন ব্যক্তিগত সচিব ও গৃহপরিচারিকা খুঁজতে শুরু করেন। এ সময় তার সাথে বার্থা কিনসে ভন চিনিক আন্ড টেত্তাউ-এর পরিচয় হয় এবং তাকেই ব্যক্তিগত সচিব হিসেবে পছন্দ করেন। কিন্তু কিছুদিন পরেই তিনি নোবেলের চাকরি ছেড়ে দিয়ে শান্তি আন্দোলন শুরু করেন। এই নারীকেই আমরা বের্থা ফন সুটনার নামে চিনি যিনি শান্তিতে নোবেল পুরস্কার লাভ করেছিলেন।

১৮৮০ সালে নোবেলের ইতালীয় এবং সুইজারল্যান্ডীয় কোম্পানি একত্রিত করে “ডায়নামাইট নোবেল” গঠন করা হয়। ১৮৮১ সালে পারি-র বাইরে সেভরানে নোবেল জমি ও একটি গবেষণাগার ক্রয় করেন। ১৮৮৫ সালে ডিএজি এবং জার্মানির আরও কিছু ডায়নামাইট কোম্পানি একত্রিত করে “জার্মান ইউনিয়ন” প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৮৮৬ সালে DAG এবং নোবেল’স এক্সপ্লোসিভ কোম্পানি একত্রিত করে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে “নোবেল-ডায়নামাইট ট্রাস্ট কোম্পানি” প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৮৮৭ – বিস্ফোরক পাউডার “ব্যালিসটিট” উদ্ভাবনের জন্য ফ্রান্সে পেটেন্ট লাভ করেন নোবেল।

১৮৯১ সালে ব্যালিস্টাইট নিয়ে ফরাসি সরকারের সাথে বিতর্কের পর আলফ্রেদ নোবেল পারি ত্যাগ করে ইতালির সান রেমো-তে বসবাস শুরু করেন। ১৮৯৩ সালে নোবেল র‍েগণার সোলম্যান-কে নিয়োগ করেন যাকে পরবর্তীতে তিনি তার উইল এবং টেস্টামেন্ট এর প্রয়োগকর্তা হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। ১৮৯৪ সালে আলফ্রেদ নোবেল সুইডেনের কার্লস্কোগাতে একটি ছোট মেশিন-ওয়ার্কস এবং একটি বাড়ি ক্রয় করেন। ১৮৯৫ – পারি-র সুয়েডীয়-নরওয়েজীয় ক্লাবে নোবেলের তৃতীয় এবং শেষ উইল স্বাক্ষরিত হয়।

১৮৯৬ সালের শেষার্ধে, ডাক্তাররা স্পষ্টভাবে আলফ্রেদকে বলেছিলেন যে তার স্বাস্থ্যভাল না। কিন্তু আলফ্রেদ তার প্রতি খুব একটা মনোযোগ দেননি। তিনি সান রিমোতে গিয়ে নতুন ঘোড়া কিনে আনলেন। নতুন বাড়ির জন্য দামি আসবাবও কিনেছেন। আলফ্রেদ নোবেল ১৮৯৬ সালের ২১ নভেম্বর সান রিমোতে আসেন। তাদের কাছে মনে হয়েছিল যে তারা এখন দুঃখ এবং উদ্বেগ থেকে মুক্ত। ৭ ডিসেম্বর তিনি সোলম্যানকে একটি চিঠি লিখেছিলেন এবং তখনই তিনি প্যারালাইসিসের মারাত্মক স্ট্রোকের শিকার হন। তার চাকররা তাকে সিঁড়ি দিয়ে উপরের তলায় শোবার ঘরে নিয়ে গেল। তার কথা বলার এবং মনে রাখার ক্ষমতা উপরোক্ত আঘাতের কারণে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত হয়েছিল। তিনি তার মাতৃভাষা সুইডিশে কিছু কথা বলার চেষ্টা করেছিলেন। তার ভৃত্য কেবল একটি শব্দ বুঝতে পারত – টেলিগ্রাম। তিনি আলফ্রেদের ভাগ্নে এবং সোলম্যানের কাছে টেলিগ্রাম পাঠিয়েছিলেন। তিন দিন পরে, ১০ ডিসেম্বর সকালে আলফ্রেদ মৃত্যুবরণ করেন।

http://www.anandalokfoundation.com/