শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ১২:১০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশের দিকে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান উপ-নির্বাচনে অনিয়ম প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে নির্বাচনী তদন্ত কমিটি গঠন রিজেন্টের সাহেদকে দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞায় বেনাপোল ইমিগ্রেশন ও সীমান্তে সতর্কতা জারি আজ এশিয়ার সবথেকে বড় সোলার প্লান্ট উদ্বোধন করবেন মোদী এড. সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে আইসিটি প্রতিমন্ত্রীর শোক সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এড. সাহারা খাতুনে’র মৃত্যুতে সংসদ উপনেতার শোক  সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, এমপি-এর মৃত্যুতে ভূমিমন্ত্রীর শোক দেশ ও জাতি একজন সৎ ও বিশ্বস্ত সহযোদ্ধাকে হারালো: প্রধানমন্ত্রী সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন নবীগঞ্জে সরকারের স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ব্যবসা প্রতিষ্টান ও পথচারীদের জরিমানা

অযোধ্যার রাম মন্দির/বাবরি মসজিদ ঘটনাপ্রবাহ

১৫২৬ সালে পানিপথের প্রথম যুদ্ধে ইবরাহিম লোদীকে পরাজিত করে মুঘল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা বাবর,দিল্লি দখল করে। এরপর মুসলমান শাসকদের যে চিরাচরিত প্রথা,ক্ষমতা দখল করেই ইসলামের ঝাণ্ডা উড়ানো এবং অমুসলিমদের উপাসনা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে মসজিদ বানানো বা তাকে মসজিদে রূপান্তরিত করা,বাবর সেদিকে নজর দেয়।এজন্য বাবরের নির্দেশে তার সেনাপতি মীর বাকি খাঁ ১৫২৭/২৮ সালে অযোধ্যা আক্রমন করে প্রথমে কিছু হিন্দুকে হত্যা করে এবং বাকিদের বন্দী করে।এরপর ভারতের প্রধান রাম মন্দির,যা রামের জন্মভূমি অযোধ্যাতেই অবস্থিত,সেটার উপরের অংশ ভেঙ্গে ফেলে এবং মন্দিরের মূল ভিত্তির উপরেই মসজিদ তৈরি করে,যেটা বাবরি মসজিদ নামে পরিচিত।

এই মসজিদ তৈরি করার সময়, যেসব হিন্দুদেরকে বন্দী করে রাখা হয়েছিলো, তাদের গলা কেটে প্রথমে একটি পাত্রে সেই রক্ত সংগ্রহ করা হয় এবং তারপর জলের পরিরর্তে চুন-সুড়কির সাথে সেই রক্ত মিশিয়ে মন্দিরের মূল ভিতের উপরই ইটের পর ইট গেঁথে মসজিদ নির্মান করা হয়। তাই ইসলামি প্রথাসম্মত মসজিদ এটা নয়,ইসলামের বিজয় অভিযানে হিন্দুদের মনোবল ভাঙতে যত্রতত্র অসংখ্য মন্দির ভেঙ্গে যেমন বিজয় স্মারক নির্মিত হয়েছিলো,বাবরি মসজিদও তেমনি বাবরের একটা বিজয় স্মারক।একইভাবে বাবর সম্ভল ও চান্দেরীর মন্দির ভেঙ্গে তাকে মসজিদে রূপান্তরিত করে এবং গোয়ালিয়রের নিকটবর্তী জৈন মন্দির ও বিগ্রহ ধ্বংস করে।

বাবরের আমলেই হিন্দুরা ২১ বার লড়াই করেছিলো মন্দির উদ্ধারের জন্য।এরপর হুমায়ূনের রাজত্বকালে ১০ বার এবং আকবরের রাজত্বকালে ২০ বার হিন্দুরা রামজন্মভূমিতে মন্দির উদ্ধারের জন্য লড়াই করে। শেষে আকবর একটি আপোষ নিষ্পত্তি করে মসজিদের পাশেই রাম মন্দির নির্মানের অনুমতি দেয় এবং ছোট একটি মন্দির নির্মিত হয়। এসব উল্লেখ আছে, আকবরের শাসন কালের ইতিহাস “দেওয়ান-ই-আকবরি” তে।

আকবর মন্দির নির্মানে অনুমতি দেওয়ায় এবং মসজিদের পাশে একটি মন্দির নির্মিত হওয়ায় জাহাঙ্গীর এবং শাজাহানের আমলে এ নিয়ে কোনো লড়াই সংগ্রাম হয় নি। কিন্তু ঔরঙ্গজেবের সেটা সহ্য হলো না। সে একটি বাহিনী পাঠায় ঐ মন্দির ধ্বংস করার জন্য। ১০ হাজার লোক নিয়ে বৈষ্ণব দাস মহারাজ নামে এক সাধু, ঔরঙ্গজেবের এই বাহিনীকে প্রতিরোধ করে,ফলে সেবার মন্দির রক্ষা পায়। এরপর আরো কয়েক বার ঔরঙ্গজেব মন্দির ধ্বংসের জন্য তার বাহিনী পাঠায়, কিন্তু প্রতিবারই হিন্দু এবং শিখগুরু গোবিন্দ সিংহের নেতৃত্বে শিখ এবং হিন্দুরা মন্দিরকে রক্ষা করে বা দখলকৃত মন্দিরকে আবার উদ্ধার করে। কিন্তু ঔরঙ্গজেব দমবার পাত্র ছিলো না। মুঘল সৈন্যরা এক রমজান মাসের সপ্তম দিনে হঠাৎ আক্রমন করে আকবরের সময়ে মসজিদের পাশে নির্মিত হওয়া ঐ রাম মন্দিরকে ভেঙ্গে ফেলে এবং হিন্দুরা বাধা দিতে এলে প্রায় ১০ হাজার হিন্দুকে হত্যা করে।”আলমগীর নামা”য় এই ঘটনার উল্লেখ আছে।

১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহের সময় হনুমান গড়ির মোহন্ত উদ্ভব দাস,অস্ত্র হাতে নিয়ে রামজন্মভূমিকে উদ্ধারের চেষ্টা করেন। সেই সময় অযোধ্যার নবাব ফরমান আলীর মুসলিম সৈন্যদের সাথে হিন্দুদের যুদ্ধ হয়। শেষে নবাব একটি ফরমান জারি ক’রে একটি প্রাচীর ঘেরা জায়গায় মন্দির নির্মান ও পূজা উপাসনার অনুমতি দিয়ে যুদ্ধের অবসান ঘটায় এবং হিন্দু ও মুসলমান সৈন্যরা মিলিতভাবে ইংরেজদের বিরুদ্ধে সিপাহী বিদ্রোহে অংশ নেয়। মূলত নবাব এই আপোষ করতে বাধ্য হয়েছিলো সিপাহী বিদ্রোহে হিন্দু ও মুসলিম সৈন্যের একত্রিত করার স্বার্থে| কিন্তু সিপাহী বিদ্রোহ ব্যর্থ হলে এইসব কিছুই জলে যায়। ফলে রাম মন্দির তৈরি হওয়া হয়ে ওঠে না।

১৮৮৫ সালে মহন্ত রঘুবীর দাস ফৈজাবাদ জেলা আদালতে মামলা দায়ের করে মসজিদ লাগোয়া জমিতে একটি মন্দির নির্মাণের আবেদন জানান। কিন্তু ব্রিটিশ আদালত সেই আবেদন খারিজ করে দেয়।

১৯১২ সালে হিন্দুরা নির্মোহী আখড়ার সন্ন্যাসীদের নেতৃত্বে বহু প্রাণের বিনিময়ে জন্মভূমির একাংশ উদ্ধার করে এবং বাকি অংশ উদ্ধারের জন্য লড়াই হয় ১৯৩৪ সালে। এরপরই ইংরেজরা অযোধ্যার ঐ স্থানে হিন্দু মুসলমান সবার প্রবেশ নিষিদ্ধ করে দেয়।ফৈজাবাদ কালেক্টরির রেকর্ডে লিপিবদ্ধ আছে এসব ইতিহাস।

ভারত স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৫৯ সালে কার্যত অলৌকিকভাবে রামমূর্তি দর্শন পাওয়া গেলে আবার বিতর্ক শুরু হয়। ফৈজবাদ আদালতে বিতর্কিত জমিতে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য মামলা দায়ের করেন গোপাল সিমলা বিশারদ ও পরমহংস রামচন্দ্র দাস।

১৯৬২ সালে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড বিতর্কিত জমির মালিকানা দাবি করে পাল্টা মামলা করে রাম মূর্তিকে সৌধ থেকে সরিয়ে দেওয়ার দাবি করে।

১৯৮৬ তে ফৈজাবাদ সেশন কোর্ট রাম মন্দির নির্মাণের অনুমতি দেয়। সেশন কোর্টের রায়ে আপত্তি জানায় মুসলিমরা। তৈরি হয় বাবরি মসজিদ অ্যাকশন কমিটি।

১৯৮৯ তে মালিকানা নিয়ে মামলা তথা টাইটেল স্যুট নিম্ন আদালত থেকে উঠে আসে এলাহাবাদ হাইকোর্টে।সেখানে বিতর্কিত জমির কাছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদকে শিলান্যাসের অনুমতি দেয় রাজীব গান্ধী সরকার।

১৫২৭ সাল থেকে হিন্দুরা রাম মন্দির উদ্ধারের জন্য লড়াই করেছে ছোট বড় সব মিলিয়ে মোটামুটি ৭৬ বার। ৭৭ তম বারের প্রচেষ্টায় ১৯৯২ সালে বিজেপির নেতৃত্বে হিন্দুরা দখল,রূপান্তর ও অসহিষ্ণুতার প্রতীক বাবরি মসজিদকে ধুলায় মিশিয়ে দেয়। বিজেপির সমর্থনে হিন্দুরা প্রথম ১৯৯০ সালে জনসংকল্প দিবস পালন করে। এরপর বহু জেল জরিমানা হুমকি ধামকিকে অগ্রাহ্য করে কিছু প্রাণের বিনিময়ে ৬ ডিসেম্বর,১৯৯২ সালে ভেঙে ফেলে বাবরি মসজিদ। তাই এই ৬ ডিসেম্বর হিন্দুদের কাছে “শৌর্য দিবস” হিসেবে বিবেচিত ও পরিচিত ।

১৯৯৩ তে নরসিংহ রাও সরকার বিতর্কিত মসজিদ সংলগ্ন সমগ্র জমি অধিগ্রহণ করে নেয়। ফলে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সদস্যরা রাম জন্মভূমি ন্যাস (আরজেএন) নামে একটি স্বাধীন অছি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। এই সংগঠন প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য ছিল রাম জন্মভূমি দখল করা এবং প্রস্তাবিত রাম মন্দির নির্মাণের কাজ দেখাশোনা করা। রাম জন্মভূমি ন্যাস অযোধ্যার বাইরে ‘করসেবকপুরম’ নামক এক জায়গায় ‘করসেবক’ নামে পরিচিত স্বেচ্ছাসেবকদের কর্মশালা পরিচালনা করে। এই কর্মশালা মন্দির নির্মাণের প্রস্তুতির কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিল।

১৯৯৪ তে অযোধ্যা আইনে সরকারের মাধ্যমে ওই জমির অধিগ্রহণকে স্বীকৃতি দেয় সুপ্রিম কোর্ট।

২০০২ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টে বিতর্কিত জমির মালিকানা নিয়ে শুনানি শুরু হয়।

২০০৩ তে একটি মামলার রায়ে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয় সরকার অধিগৃহীত জমিতে কোনও ধর্মীয় কাজ করা যাবে না।

২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহের কাছে অযোধ্যা নিয়ে রিপোর্ট পেশ করে লিবারহান কমিশন।

২০১০ তে বিতর্কিত জমির মালিকানা নিয়ে মামলার রায় দেয় এলাহাবাদ হাইকোর্ট।বিতর্কিত রাম জন্মভূমি চত্বরকে তিন ভাগে বিভক্ত করে এক-তৃতীয়াংশ মুসলিম সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে ও অবশিষ্ঠাংশ নির্মোহী আখাড়া হিন্দু সংগঠনকে দিয়ে দেয়। কিন্তু এই রায় কে কোনো পক্ষই মেনে নেয়নি।

২০১১ সালে তারা সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে। হাইকোর্টের রায়ের উপর স্থগিতাদেশ জারি করে সুপ্রিম কোর্ট।

২০১৭ সুপ্রিম কোর্টে বিতর্কিত জমির শুনানি শুরু হয়।

২০১৯, ৮ জানুয়ারি মামলাটির নতুন করে শুনানি শুরু করেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বে পাঁচ জন বিচারপতির বেঞ্চ।

২০১৯, ৮ মার্চ কোর্টের নজরদারিতে মধ্যস্ততা কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়। পরে ওই কমিটি রিপোর্ট পেশ করে।সেখানে মন্দিরের পক্ষে ভূতাত্ত্বিক প্রমান দেওয়া হয়।

তার কয়েকটি প্রমাণ এখানে দেওয়া হল।

১.পিলার, বেস এবং কলস

এএসআই-এর প্রাক্তন অধিকর্তা কে.কে.মহম্মদ জানিয়েছেন, যখন তারা ভিতরে গিয়েছিলেন, তিনি মসজিদের ১২ টি পিলার দেখেছিলেন। যেগুলি মন্দিরের ভগ্নাবশেষের ওপর থেকে তোলা হয়েছিল। ১২ এবং ১৩ শতকের মন্দির মতো তারাও পূর্ণ কলসের হদিশ পেয়েছিলেন সেখানে।

২.পোড়ামাটির ভাস্কর্য

প্রথম খনন কার্য চালানোর সময় পোড়ামাটির ভাস্কর্যের হদিশ পেয়েছিলেন তাঁরা। এটা যদি মসজিদ হত, তাহলে তা পাওয়া যেত না। যার অর্থ সেটি একটি মন্দির ছিল।

৩.দ্বিতীয় খনন কার্য

দ্বিতীয় খনন কার্যে ৫০ টির বেশি পিলারের বেস পাওয়া গিয়েছিল। যা ছিল ১৭ টি সারিতে। যার থেকে বলা যায়, কাঠামোটি বড় ছিল। প্রমাণ থেকে বাবরি মসজিদের তলার কাঠামোটি ১২ শতকের বলেই মনে করা হয়।

৪.কলস,অমলকা গ্রিবা এবং শিকারা

মন্দিরের ওপরে কলসের নিচে নতুন ধরনের কাঠামো পাওয়া গিয়েছে। যা অমলকা নামেই পরিচিত। অমলকার নিচে রয়েছে গ্রিবা এবং শিকারা। যা উত্তর ভারতের মন্দিরে দেখতে পাওয়া যায়।

৫.পোড়ামাটির জিনিস

খনন কার্য চালিয়ে সেখান থেকে ২৬৩ টি পোড়ামাটির জিনিস পাওয়া গিয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন দেব দেবী ও মানুষের মূর্তির ভগ্নাংশ।

৬.বিষ্ণু হরি শিলা ফলকের শিলালিপি

সেখান থেকে বিষ্ণু হরি শিলা ফলকের শিলালিপিও পাওয়া গিয়েছে দুটি ভাগে। সেটি খনন কার্যস্থলে পাওয়া না গেলেও, যেখানে বাবরি মসজিদের ধ্বংসাবশেষ রয়েছে, সেখানেই পাওয়া গিয়েছে এটি।

২০১৯, ৬ অগস্ট এই রিপোর্ট এর ভিত্তিতে অযোধ্যা মামলা নিয়ে শুনানি শুরু হয় সুপ্রিম কোর্টে।

২০১৯, ১৬ অক্টোবর রায় ঘোষণা স্থগিত রাখে সুপ্রিম কোর্ট।

২০১৯, ৯ নভেম্বর চূড়ান্ত ঐতিহাসিক রায় ঘোষণা করলো সুপ্রিম কোর্ট।যাতে বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমি রাম মন্দির নির্মাণের জন্য দেওয়া হয়েছে এবং তার বিকল্প হিসাবে অন্য জায়গায় ৫ একর জমি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!