২১শে মে, ২০১৮ ইং | ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৫:০০
সর্বশেষ খবর

এস আলম গ্রুপের তেলসহ ২৮৬টি পণ্যের নমুনার মধ্যে ৩৬টি পণ্য অকৃতকার্যঃ বিএসটিআই

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে বাজারে অবাধে ভোগ্যপণ্য বিক্রি হয়। এরই মধ্যে বিক্রয় উপযোগী ভোগ্যপণ্য বাজারে তুলেছে বিভিন্ন কোম্পানি। এসব কোম্পানির বেশ কিছু পণ্য নমুনা সংগ্রহ করে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)।

সংগ্রহকৃত ২৮৬টি পণ্যের নমুনার মধ্যে ৩৬টি পণ্য অকৃতকার্য ঘোষণা করেছে বিএসটিআই। এসব পণ্যের যথাযথ মান সংরক্ষণ করে তৈরি করা হয়নি বলে জানান বিএসটিআইর পরিচালক প্রকৌশলী এস এম ইসহাক আলী।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে শিল্প মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে রমজানে ভোগ্যপণ্য মান নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা জানান।

প্রেস ব্রিফিংয়ে প্রকৌশলী এস এম ইসহাক আলী বলেন, দেশের অন্যতম তেল বিশেষ করে সয়াবিন তেল আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এস আলম গ্রুপের পামঅয়েল সয়াবিনসহ তেল উৎপাদনকারী চারটি প্রতিষ্ঠান আমাদের পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছে। আমরা তাদেরকে নোটিশ দিয়েছি। এ পর্যন্ত নোটিশের জবাব পাইনি।

অকৃতকার্য প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে, নারায়ণগঞ্জের শবনম ভেজিটেবল ওয়েল লিমিটেড, চট্টগ্রামের এস আলম সুপার এডিবল অয়েল লিমিটেড, এস আলম ভেজিটেবল অয়েল লিমিটেড, ভিওটিটি অয়েল রিফাইনারিজ লিমিটেড, বেফিশিং কর্পোরেশন লিমিটেড, মারবিন ভেজিটেবলস অয়েল লিমিটেড, নারায়ণগঞ্জের তানভীর অয়েলস লিমিটেড, দীপা ফুড প্রডাক্টস লিমিটেড, বাংলাদেশ এডিবল অয়েলস লিমিটেড, সুপার অয়েল রিফাইনারি লিমিটেড, চট্টগ্রামের এম এম ভেজিটেবল অয়েল প্রোডাক্টস লিমিটেড, বাগেরহাটের শুন্সিং এডিবল অয়েল লিমিটেড।

খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে নারায়ণগঞ্জের ড্যানিশ ফুড লিমিটেডের লাচ্ছা সেমাই, ঢাকায় অবস্থিত বগুড়া স্পেশাল কোং-এর ঘি, গাজীপুরের ভাই ভাই ফুড প্রোডাক্ট এন্ড কোং-এর অরজিনাল বাঘাবাড়ি ঘি, আফতাব মিল্ক অ্যান্ড মিল্ক প্রোডাক্ট লিমিটেডের আফতাব মিল্ক, ঢাকায় অবস্থিত আরএফএসের এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিঃ, ঢাকা প্রাইম পাস্তরিত দুধ এবং আকিজ ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেডের ফার্ম ফ্রেশ মিল্ক।খবর-পরিবর্তন ডটকম।

এসময় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় যাতে অসাধু ব্যবসায়ীরা ভেজাল এবং নিম্নমানের খাদ্যপণ্য ও পানীয় প্রস্তুত এবং বিপণন করতে না পারে সেজন্য বিএসটিআই ও ঢাকা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ঢাকা মহানগরীতে প্রতিদিন অতিরিক্ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে।

আকস্মিকভাবে পরিচালিত অভিযানগুলোতে রোজাদাররা সচরাচর যেসব খাদ্য খান, বিশেষ করে পানীয়, মরি কলা, খেজুর, আম, সফট ড্রিংকস পাউডার ইত্যাদির ওপর বিশেষভাবে নজর রাখা হবে।

মন্ত্রী বলেন, পবিত্র রমজানে অতীতের মতো জেলা প্রশাসন, র‍্যাব, ডিএমপি ও এপিবিএনের যৌথ উদ্যোগে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। এসব মোবাইল কোর্টে নিয়মিতভাবে বিএসটিআইর অফিসারদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হবে। এর ফলে এই অভিযানে স্বচ্ছতা সম্পর্কে কোনো ধরনের প্রশ্নের অবকাশ থাকবে না।

মন্ত্রী দাবি করেন, চলতি বছর বাজার থেকে বিভিন্ন ধরনের ৪৩০টি ফলমূল ক্রয় করে ফরমালিনের পরীক্ষা করা হয়েছে। এর কোনোটিতেই ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।

আমির হোসেন আমু জানান, গেল ১১ মাসে ভেজাল বিরোধী অভিযানে মোবাইল কোর্ট সার্ভিল্যান্স টিমের মাধ্যমে নিম্নমানের ভেজাল পণ্য উৎপাদনকারী বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে বিএসটিআই যেসব আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে ৩৮২ বার। মামলা দায়ের করা হয়েছে ৫২২টি। জরিমানা করা হয়েছে ১ কোটি ৫২ লাখ টাকা, বিভিন্ন মেয়াদে ৫৮ জনকে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে এবং কারখানা সিলগালা করা হয়েছে ২৮টি।

মন্ত্রী রমজানসহ সারা বছর অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে এই ধরনের ভেজাল পণ্য বাজারে বিক্রি করতে না পারে এজন্য ভোক্তাসহ সাধারণ মানুষকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান। এ ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

শেয়ার করুন
  • 2
    Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*