১৮ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:১৪

ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম এবার এক ছাতার নিচে আসছে ,অপব্যবহার বন্ধে নীতিমালা চূড়ান্ত

বিশেষ প্রতিবেদকঃ বাস্তবায়নের পথে প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা

এক ব্যক্তি একাধিক দফতর থেকে ঋণ নিতে পারবেন না, উপজেলা কমিটির মাধ্যমে বণ্টন হবে সমন্বিত পদ্ধতিতে * প্রধান উদ্দেশ্য : ২০৩০ সালের মধ্যে দেশের সব গ্রামকে দারিদ্র্য ও ক্ষুধামুক্ত করা

সরকারের সুদমুক্ত ‘ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম’ এবার এক ছাতার নিচে আসছে। এর অপব্যবহার বন্ধে সমন্বিত পদ্ধতির মাধ্যমে ঋণ বিতরণ করা হবে। এজন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নীতিমালার খসড়া এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে, যা বাস্তবায়নের ফোকাল পয়েন্টে থাকবে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। প্রধান উদ্দেশ্য, ২০৩০ সালের মধ্যে পর্যায়ক্রমে দেশের সব গ্রামকে দারিদ্র্য ও ক্ষুধামুক্ত গ্রামে পরিণত করা। নীতিমালাটির চূড়ান্ত রূপ দিতে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক করা হয়। বিষয়টি সার্বিকভাবে মনিটরিং করছেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব এবং বর্তমানে এসডিজির মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ। এ বিষয়ে শিগগিরই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে সংশ্লিষ্ট কমিটির বৈঠক বসবে এবং সেখানে খসড়া নীতিমালা চূড়ান্ত করা হবে। এরপর তা মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে নীতিগত অনুমোদনের জন্য।এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জিল্লার রহমান বুধবার যুগান্তরকে বলেন, ভারসাম্য এবং যোগ্যতার ভিত্তিতে উপযুক্ত মানুষকে ঋণ দিয়ে দারিদ্র্য বিমোচন করার জন্য এ নীতিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা রয়েছে। এখন একাধিক দফতর থেকে ঋণ দেয়া হয়। এতে করে এক ব্যক্তির বিভিন্ন দফতর থেকে ঋণ পাওয়ার সুযোগ রয়েছে। এর ফলে দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি কিছুটা হলেও ব্যাহত হয়। এজন্য সমন্বিতভাবে দেয়া হবে। যাতে ডুপ্লিকেশন না হয়। অপর এক প্রশ্নে তিনি বলেন, সার্ভিস চার্জ হিসেবে যেটা নেয়া হবে সেটি সুদ নয়। তাছাড়া সার্ভিস চার্জের অর্থ সরকার নেবে না। ওটা তাদেরই থাকবে।

২০১৫ সালের ১৮ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে অনুষ্ঠিত সভায় এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেন। যার বাস্তব রূপ দিতে ওই সময় ১১ সদস্যের আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি গঠন করা হয়। নীতিমালা তৈরির জন্য পাইলট প্রকল্পের অংশ হিসেবে কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের ছনছাড়া গ্রামকে বেছে নেয়া হয়। পরে এর ব্যাপ্তি বাড়ানো হয়।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, বর্তমান সরকারের ‘রূপকল্প-২০২১’ সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি অন্যান্য মন্ত্রণালয় দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এতে করে একই ব্যক্তি একাধিক মন্ত্রণালয়ের ঋণ সুবিধা গ্রহণ করছেন। আবার ঋণ পাওয়ার যোগ্য অনেকেই ঋণ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এর ফলে ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের মাধ্যমে কাক্সিক্ষত সাফল্য অর্জন সম্ভব হচ্ছে না। এজন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী, সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে একই ছাতার নিচে ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে এ নীতিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে।

বর্তমানে সরকারের ৮টি দফতর ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এগুলো হল- বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি), সমাজসেবা অধিদফতর, যুব উন্নয়ন অধিদফতর, প্রাণিসম্পদ অধিদফতর, মহিলা বিষয়ক অধিদফতর, সমবায় অধিদফতর, মৎস্য অধিদফতর ও বাংলাদেশ কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক)। নীতিমালা প্রণীত হওয়ার পর এসব দফতরের তহবিল থেকে সমন্বিত পদ্ধতি অনুসরণ করে ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। বিতরণ করা হবে উপজেলা কমিটির মাধ্যমে। অবশ্যই তা হবে সুদমুক্ত ঋণ। এ ঋণ কার্যক্রম দেশজুড়ে পরিচালিত হবে। এজন্য প্রতিটি উপজেলায় থাকবে সমন্বিত ক্ষুদ্রঋণ বাস্তবায়ন কমিটি। ৯ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটির প্রধান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোর উপজেলা কর্মকর্তা এর সদস্য হিসেবে থাকবেন। তবে কোনো জনপ্রতিনিধিকে এ কমিটিতে রাখা হয়নি। তারা শুধু উপদেশ বা পরামর্শ দিতে পারবেন। কেননা জনপ্রতিনিধিকে কমিটিতে সম্পৃক্ত করা হলে যথাযথভাবে নীতিমালা মেনে চলা কঠিন হবে। অতীত অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে এমনটিই মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, এ খাতে সরকারের সব বিভাগ থেকে পাওয়া অর্থের ওপর ভিত্তি করে গ্রামের অগ্রাধিকার তালিকা প্রণয়ন করা হবে। এজন্য গ্রামে গ্রামে উঠান বৈঠক করে সুবিধাভোগী পরিবারের তালিকা প্রস্তুত করা হবে। প্রতি পরিবার থেকে ১ জন করে সদস্য নিয়ে ২০-২৫ জনের কর্মদল গঠিত হবে। যারা দলভিত্তিক ঋণ নিয়ে বিভিন্ন স্কিম বা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে স্বাবলম্বী হবে। এছাড়া ব্যক্তি পর্যায়েও ঋণ দেয়া হবে। সেক্ষেত্রে তিনি যে বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত তাকে সে খাত থেকে ঋণ দেয়া হবে। যেমন- কেউ যদি গরু মোটাতাজাকরণ বিষয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকেন তাহলে তাকে গরু কেনার জন্য ঋণ দেয়া হবে। সংশ্লিষ্ট একজন পদস্থ কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, দরিদ্র পরিবারকে তার অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়নের জন্য পরপর তিন বার সরকারি সুদমুক্ত ক্ষুদ্রঋণ দেয়া হবে। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ/দুর্ঘটনা কিংবা অন্য কোনো বিশেষ পরিস্থিতি বিবেচনা করে প্রয়োজনবোধে কমিটি নতুন করে ঋণ প্রদান করতে পারবে। নামমাত্র সার্ভিস চার্জ ছাড়া সরকার ঋণের বিপরীতে কোনো সুদ নেবে না। আর যে সার্ভিস চার্জ নেয়া হবে সেটিও দলভিত্তিক কমিটির ফান্ডে গচ্ছিত থাকবে। তাদের সঞ্চয় করা তহবিলের সঙ্গে এটি যুক্ত হবে।

উপজেলা সমন্বিত ক্ষুদ্রঋণ বাস্তবায়ন কমিটির সব কার্যক্রম জেলা প্রশাসকের (ডিসি) সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কর্তৃক গঠিত কমিটি তদারক করবে। এছাড়া ডিসি অফিস থেকে এ বিষয়ে মাসিক প্রতিবেদন সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠাতে হবে। একটি উপজেলার সবক’টি গ্রাম প্রথমেই একসঙ্গে এ কর্মসূচির আওতায় আসবে না। তুলনামূলকভাবে অনুন্নত ও আর্থ-সামাজিকভাবে পিছিয়ে পড়া এলাকাকে গ্রাম নির্বাচনের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিতে হবে। যা অবশ্যই উপজেলা কমিটির মাধ্যমে অনুমোদিত হতে হবে। অন্য কেউ চাপিয়ে দিতে পারবে না। আবার নির্বাচিত গ্রামের সব দরিদ্র লোক একসঙ্গে এ ঋণ সুবিধা পাবেন না। এজন্য বার্ষিক গড় আয়ের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট পরিবারগুলোকে তিন শ্রেণীতে ভাগ করা হবে। যাদের বার্ষিক আয় ৬০ হাজার টাকা তারা ক’ শ্রেণীতে, ৬০ হাজার ১ টাকা থেকে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত খ’ শ্রেণী এবং এর ঊর্ধ্বে যাদের বার্ষিক আয় তারা গ’ শ্রেণীভুক্ত হবেন। এ শ্রেণীবিন্যাস করতে নির্ধারিত একটি ফরমে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির যাবতীয় তথ্য লিপিবদ্ধ করার পর তা পর্যালোচনা করা হবে। এরপর যারা তুলনামূলক বেশি দরিদ্র বা অসচ্ছল তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আগে ঋণ দেয়া হবে।

নীতিমালা অনুযায়ী যারা ঋণ পাবেন তাদের ২৫ ধরনের সামাজিক ও পারিবারিক দায়িত্বও পালন করতে হবে। উল্লেখযোগ্য বিষয়ের মধ্যে রয়েছে- স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা ও বিশুদ্ধ পানি ব্যবহার, স্কুলগমন উপযোগী ছেলেমেয়েদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠানো, পারিবারিক বন্ধন সুদৃঢ় করতে ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা প্রদান, বাল্যবিবাহ না দেয়া এবং যৌতুক দেয়া কিংবা নেয়া থেকে বিরত থাকা, জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণের মাধ্যমে পরিকল্পিত পরিবার গড়ে তোলা, মাদকমুক্ত পরিবার ও সমাজ গড়ে তুলতে সক্রিয় ভূমিকা রাখা, নিয়মিত সঞ্চয় করা, শিশুর জন্মনিবদ্ধন করা প্রভৃতি।

এছাড়া ২০-২৫ জনের কর্মদল বা ক্ষুদ্র ঋণের সমিতি গড়ে তোলার ক্ষেত্রে কিছু বিধিনিষেধ রয়েছে। যেমন- সরকারি বা বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত কেউ কর্মদলের সদস্য হতে পারবেন না। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে ‘ক ও খ’ শ্রেণীভুক্ত পরিবার হতে প্রতিনিধি নিয়ে পেশা ও লিঙ্গভিত্তিক কর্মদল গঠন করতে হবে। এর মধ্যে মহিলা সদস্য অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত হতে হবে। এছাড়া মহিলা কর্মদল গঠন ও নেতৃত্ব সৃষ্টির মাধ্যমে নারীদের উৎসাহ প্রদান করতে হবে। কর্মদল গঠনের উদ্দেশ্য হল- টার্গেটকৃত দরিদ্র পরিবারগুলোকে দ্রুত স্বনির্ভর হিসেবে গড়ে তোলা। সেক্ষেত্রে তারা যেন পরিবার ও সমাজের প্রতি আরও দায়িত্বশীল হয় এবং নিজের মর্যাদা ও অধিকার সম্পর্কে আরও সচেতন হতে পারে সে বিষয়টিকে প্রাধান্য দেয়া হবে। এজন্য তাদের সচেতন নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় জ্ঞানদান করার উদ্যোগ নেয়া হবে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.