২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:৫৭
সর্বশেষ খবর

বাঙালির ঐতিহ্য বৈশাখী আনন্দ

জান্নাতুল ফেরদৌসীঃ বৈশাখ মাস বাঙালির জীবনে এক আনন্দের মাস। বৈশাখ মাসকে ঘিরেই সারাবছর চলতে থাকে নানা আয়োজন। নানান আয়োজনের কারণেই বৈশাখ মাস বাঙালি জীবনে বেশ গুরুত্বের দাবিদার। বিশেষ করে বছরের প্রথম মাস হিসেবে বাঙালির কৃষ্টি, কালচার, সংস্কৃতি, ইতিহাস-ঐতিহ্য, আবেগ, অনুভূতি, কর্ম-দর্শন, অন্বেষা, মান-অভিমান, রাগ-অনুরাগ, ভালোবাসা আশা আরো অনেক কিছুই বৈশাখের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়াজড়ি করে কালে কালে, কালের স্রোতে প্রবাহমান। বছরের প্রথম দিনই নববর্ষের উৎসব বাঙালি জাতিকে মাতিয়ে তোলে। তাথৈ তাথৈ নাচতে থাকে মনময়ুর। মনের জানালায় উকি মারে মায়াহরিণ। উৎসবে উৎসবে মুখরিত চারিদিক। দিকবিদিক ঘোরাঘুরি।

চৈত্রের শেষ দিন থেকেই শুরু হয়ে যায় আনন্দ আয়োজন। পুরো বাংলাদেশ সাজে নতুন সাজে। রঙে-রঙে ভরে যায় সবুজ শ্যামল সোনালি বাংলাদেশ। পথে-ঘাটে মাঠে মা মাটি আর মানুষের হৃদয়ের যে মাখামাখি সম্পর্ক দেখা যায় এদেশে। তা আর কোন দেশে আছে কিনা তা আমার জানা নেই। এমন মধুর আর মায়াবী বাধন পৃথিবীর আর কোন দেশে কিংবা দেশের মানুষের মাঝে হয় কিনা তা বিরল বৈকি। হৃদয়ে হৃদয়ে রেখে সুখে, সুন্দরে, শান্তির নীড়ে, যারা একাকার হয়ে যায় তারাই বাঙালি। আর বাঙালি হল বীরের জাতি।

এরা হারতে জানে না। হারাতে জানে শত্রু পক্ষকে। বাঙালিরা ভালোবাসতে জানে বিশ্বাস করতে জানে, ভালোবেসে বিশ্বাস করে জীবনও দিতে জানে। তাঁর প্রমাণ আমরা পেয়েছি ’৫২, ’৬৯, ’৭১, ’৭৫ এবং এখনও পাচ্ছি। বীর-বিক্রমদের জন্ম এই দেশের পললভূমিতে। এই দেশের মানুষ ভীষণ সাহসী, সংগ্রামী আর আনন্দময়ী। আবেগ আর উচ্ছ্বাসে ভরা বাঙালি হৃদয়। তাই তো প্রতিটি পার্বণে দেখা যায় এ দেশে আনন্দের শেষ নাই। টাকা-পয়সা ধন সম্পদ অত বেশি থাকুক না থাকুক আনন্দে ভরে থাকুক এ ধরা।

আমরা সকলেই জানি শিল্প সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যে বাংলাদেশ বিশ্বে প্রথম সারির একটি দেশ। কেননা এ দেশেই বার মাসে তের পার্বণ অনুষ্ঠিত হয়। এক বৈশাখ-ইতো মাতিয়ে তোলে পুরো বছরটাকে। বৈশাখে শুরু হয় নানান উৎসব যেমন হালখাতা উৎসব, গ্রাম্যমেলা, শহরে মেলা, পান্তা ইলিশে মুখরিত হয়ে ওঠে রমনার বটমূলসহ গ্রাম শহর নগর বন্দর এমনকি সাধ-সাধের মধ্যে প্রায় প্রতিটি ঘরে ঘরে। ঘোরার আনন্দ, পোশাকের বাহার, আর নাচে গানে ভরপুর শ্যামল সবুজ সুন্দর বাংলা। বৈশাখ বাঙালি জীবনকে গভীরভাবে আলোড়িত করে।

বৈশাখে ফসল ফলানোর ধুম পরে যায় ঘরে ঘরে। সাথে আনন্দ উৎসবেরও ধুম পড়ে যায়। ঐতিহাসিক সূত্রে জানা যায় মহামতি সম্রাট আকবর বৈশাখ মাস থেকেই বাংলা সন গণনার সূচনা করেন। বৈশাখেই আনুষ্ঠানিকভাবে নতুন বছরকে বরণ করা হয়। শত শত বছর পেরিয়ে বৈশাখী ঐতিহ্য প্রবাহমান আছে এবং থাকবে। উত্তরোত্তর এর পরিধি, ব্যাপ্তি-বিস্তার আরো বেড়েছে এবং বাড়বে কালে কালে, কেননা মানুষ স্বভাবগতভাবেই প্রকৃতির সন্তান। প্রকৃতির মাঝেই স্বর্গীয় সুখ। প্রাকৃতিক কারণে বৈশাখ মাসেই কালবৈশাখীর তা-বলীলা শুরু হয় তাতে ধ্বংসের শেষ থাকে না, তবুও কখন বৈশাখ আসবে। অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতে থাকে সারাবছর ধরে। বাঙালি হৃদয় পরম মমতায় আশায় ভালোবাসার অপেক্ষা করতে থাকে বৈশাখ আগমনের জন্য।

ধ্বংস আর সৃষ্টি দুইয়ে মিলেই স্বস্তি। আঁধার না থাকলে যেমন আলো মূল্যহীন তেমনি ধ্বংসের মধ্যে সৃষ্টির অপার সুখ। বৈশাখ এলেই শুরু হয় বৈশাখী তা-বলীলা সেই সাথে আনন্দমেলা। তাইতো বৈশাখ মানেই সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, হাসি-কান্নার খেলা। এ প্রসঙ্গে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম লিখেছেন।

                                                                                                                    “ধ্বংসের বুকে হাসুক মা তোর
সৃষ্টির নব পূর্ণিমা”
এবং বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছেন,
“রাহুর মতন মৃত্যু
শুধু ফেলে ছায়া
পারে না করিতে গ্রাস
জীবনের স্বর্গীয় অমৃত”

পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহ তালা আজব লীলা খেলছেন তাঁর সৃষ্টিকূল নিয়ে। পৃথিবীতে যতই বিবর্তন পরিবর্তন আসুক না কেন প্রকৃতির অমূল্য রতন স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ দান মানব সন্তান বা মানব জাতি, আশরাফুল মাখলুকাত। যুগে যুগে, কালে কালে, কালে-কালান্তরে মানুষের উত্তর উত্তর উন্নতি হচ্ছে সেি সাথে উন্নত হচ্ছে সৃষ্টি কালচার ঐতিহ্য। যদিও ডিজিটালাইজড বাংলাদেশে বিনোদনের অনেক উন্নতি ঘটেছে তবুও প্রকৃতির থেকে দূরে যাওয়ার মতো কোন উপায় এখনো সৃষ্টি হয়নি। এখনো প্রকৃতির সাথে ওতপ্রোতভাবে তাল মিলিয়ে চলতে হয় মানুষের।

এর ব্যত্যয় ঘটলেই ঘটে নানান বিপত্তি। প্রতিকূলতায় ধ্বংস সাধিত হয় বটে, তবে সব ধ্বংসই ধ্বংস নয়। ধ্বংস থেকেও সৃষ্টি হয় অপার সম্ভাবনা। নতুন গাছ না লাগিয়ে গাছ কাটা, যান্ত্রিক অস্থিরতা ডিজিটালাইড, যন্ত্রপাতি, কালো ধোঁয়া, প্রকৃতিকে দূষিত করছে। আবার এরা এক হিসাবে মানবকল্যাণে প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেননা মানুষ যত প্রকৃতি থেকে দূরে সরে যাচ্ছে ততই প্রতিকূলতার সৃষ্টি হচ্ছে। মানুষ এগিয়ে যাচ্ছে আত্মবিধ্বংসীর পথে। নানামুখি সর্বনাশ আজ মানুকে অক্টোপাসের মতো ঘিরে ফেলছে চারিদিক থেকে গিলে ফেলতে চায় অবলীলায়। সভ্য সংস্কৃতি চর্চা না করে ডিজিটাল বাংলাদেশে উন্নত বিশ্বের অশালীন কিছু বিনোদন, কোন বাধা বিপত্তি ছাড়া উঠতি বয়সের কিশোর কিশোরীরা আয়ত্ত করতে যেয়ে বিপাকে পড়ছে বারবার।

ইন্টারনেট, ফেসবুক, বা আরো নানামুখী বিনোদন ব্যবস্থা এবং টেলিভিশনে প্রচারিত কিছু কিছু সিরিয়াল মানুষের সময় মেধা মননশীলতাকে মেরে ফেলছে যার সাথে সৃষ্টি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের বিপদ, হত্যা, গুম, ধর্ষণ, মারামারি, খুন-খারাপি, কুটনামি, কূটনীতি, মোটকথা নৈতিকতার চরম অবক্ষয়। মানবতার মূল মন্ত্র থেকে মানুষ দূরে সরে যাচ্ছে ধাপে ধাপে। অবমূল্যায়ণ হচ্ছে মেধার, মানবতার, মননশীলতার, অবক্ষয় হচ্ছে মনুষত্যের, অবক্ষয় হচ্ছে বিবেকের এমতাবস্থায় প্রকৃতির নিবিড় প্রেম, ভালবাসা মানুষের জন্য একান্ত কাম্য হয়ে পড়েছে। প্রকৃতি থেকে মানুষের অনেক কিছু শেখার আছে যেমন একটা গাছে আমরা অনেক সময় স্বর্ণলতা কিংবা নানান লতাগুল্ম বেয়ে উঠতে দেখি তাতে বড় গাছটির সামান্য ক্ষতি হলেও সে নিরব।

তাকে বেয়ে তার খাবার খেয়ে লতাগুল্ম বেড়ে উঠছে তাতে তার কোন হিংসা নেই, বিদ্বেষ নেই, নেই কোন অভিযোগ। তাহলে একটা মানুষ কেন একটা মানুষকে নিঃস্বার্থভাবে উপকার করবে না। বেড়ে উঠা পরগাছার মতো না হোক, মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য এটা চিন্তা করেও যদি আমরা প্রত্যেকে প্রত্যেকের জন্য সহানুভূতি, মায়া-মমতা, প্রেম, ভালোবাসা, ভালো লাগার বিষয়গুলোকে আপন করে নিয়ে, ভাগাভাগি করে পথ চলি তবে অসম্ভবকে সম্ভাবনার দুয়ারে নিয়ে যাওয়া খুব কঠিন কাজ নয়। আমার অতি সহজে অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারবো তার জন্য প্রয়োজন সমন্বয় সাধন করা আর সুশীল সমাজে সুস্থ বিনোদন এবং সংস্কৃতি চর্চা করা।

বৈশাখ প্রতি বছর আমাদের জরাজীর্ণ ভূল, ভ্রান্তি, দুঃখ, কষ্ট, বেদনা, অনাকাক্সিক্ষত অশুভ সব বিষয়গুলো ধুলো ঝারার মতো ঝেড়ে ফেলে নতুন উদ্যমে নতুন প্রভাতে, নবীন সূর্য্যরে আলোয় রঙিন প্রজাপতির মতো ডানা মেলে উড়ে বেড়ানোর প্রত্যয় জাগায়। আমরা উড়ে উড়ে ঘুরে ঘুরে যা কিছু কল্যাণ যা কিছু সুন্দর, যা কিছু মঙ্গলময় তাই গ্রহণ করি। আর প্রত্যেকে প্রত্যেকের পরমাত্মা হই। ভুলে যাই আত্ম অহংকার, ভুলে যাই হানাহানি, হিংসা-বিদ্বেষ, অনাচার, অত্যাচার, মারামারি। ভুলে যাই নেশা, ত্যাগ করি সমস্ত নেশার দ্রব্য। না বলি সমস্ত অন্যায়কে। প্রকৃতির সাথে মিলেমিশে প্রকৃতির মতো সহজ, সরল, সুন্দর হয়ে যাই।

বৈশাখ আমাদের জীবনে মঙ্গল বার্তা বয়ে আনে। বৈশাখ উপলক্ষে শুরু হয় পুঁথি পাঠের আসর, দেশাত্মবোধক নাচ গানের আসর, পালা, জারি, সারি ও বাউল গানের আসর। বৈশাখী মেলায় দেশীয় খেলা, দেশীয় পণ্য, দেশীয় খাবারের আয়োজন করে বৈশাখী উৎসবকে আরো প্রাণবন্ত করে তোলে। বাঙালি হৃদয়কাশে উঠে বৈশাখী ঝড়ো উল্লাস। মন মেতে উঠে মাতাল হাওয়ায়।

বাঙালি জাতি হিসেবে আমরা পাই শিকড়ের সন্ধান বৈশাখী আয়োজনে। তাই অধীর আগ্রহের শেষে এসে বলি, এসো আবার, এসো বার বার বাংলার ঐতিহ্য বাঙালির আশা ভালোবাসা। এসো, এসো, এসো হে বৈশাখ। এসো নব সম্ভাবনার দুয়ার খুলে, এসো সকল দুঃখ ভুলে, এসো বাংলা আর বাঙালির অস্তিত্বের মূলে, এসো সব অশুভ ভূলে, এসো এসো, এসো হে বৈশাখ এসো বাংলার প্রতি ঘরে বছর ঘুরে ঘুরে পরম আদর আর ভালোবাসায় বাঙালি হৃদয়ে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.