১১ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১১:৪১
সর্বশেষ খবর

লাল পিপড়া, দেশটা তোমাদের নই!

রাজিব শর্মাঃ বেশ কিছুদিন আগে, একটি অচেনা নাম্বার থেকে কল আসলো। বললো ‘আর শর্মা’ আপনার লেখা আমাকে লাল পিঁপড়ার কথা মনে করিয়ে দেয়। বললাম পৃথিবীতে এত প্রাণী থাকতে হঠাৎ লাল পিঁপড়ার কথা কেন? সে বললো ভাল থাকতে ফিরে আসুন। বললাম কোথায় যাবো?
বললো সময়ে জানবেন। তবে মনে ররাখুন লাল পপিঁপড়ার দেশ এটা ননই। প্রশ্ন করলাম এটা কাদের দেশ? এত উপকারী প্রাণী থাকতে হঠাৎ লাল পিঁপড়া কেন, আরো তো প্রাণী আছে! সে বলল আপনারা হিন্দুরায় হলেন লাল পিঁপড়া প্রজাতির। এই হাস্যকর উক্তিতে প্রশ্ন জাগলো হিন্দুরা লাল পিঁপড়া হলে পৃথিবীর হাজার হাজার ধর্ম-উপধর্মের লোকেরা কোন প্রজাতির? সে রেগে বললো’শালা, সময় হলে বুঝবি।’ আমিও বললাম আপনার সেই ক্লাসটার অপেক্ষা করছি।ফোন রেখে দিলাম। আমার স্বপ্নের ‘নীল’ এর চেহারা বেশে উটলো। তার নিষেধ ছিল যেন লেখালেখি ছেড়ে দি। কিন্তু পারছি না। মাঝেমাঝে তার চেহারাও আমার লেখার বিরোধীতা করে ঐ নোংরা প্রথার ভিতরে ডুব মেরে আমাকে লাল পিঁপড়া-কাল পিঁপড়ার গল্প বলতে থাকে। আমি একমনে নিঃশব্দে শুনতে থাকি কারণ তার গল্প গুলো নষ্ট প্রথার এক দাস ছাড়া আর কেউ শুনবে না। যদিও পিঁপড়া একটি নিরীহ প্রাণী।যাদের নিয়ে শুরু হলো ধর্মের ভন্ড নেতাদের কল্পকাহিনী। লাল পিঁপড়া শব্দটি হিন্দুদের প্রতীক হিশেবে নির্দেশ করার কারণ হল লাল বিয়ের শাড়ী, সিঁধুর, লালসালু। তাই তার ভিতরে ডুকিয়ে দিল মোবাইল ফোনে হুমকি দাতা লাল পিঁপড়াকে। আমার কিছু যায় আসে না ঐ নষ্ট ভন্ডামি গুলোকে নিয়ে। কিন্তু বাংলাদেশের হিন্দু নির্যাতনের পাশে বাংলাদেশ মাইনোরোটি ওয়ার্চ, হিন্দু মহাজোট, জাগো হিন্দু পরিষদ কিছুটা প্রতিবাধী হয়ে উটলেও তাদের ধব্বংস করার জন্য উটেপড়ে লেগে থাকে সুবিধাপ্রাপ্তি নব্য হিন্দু গ্রুপ যারা কাতলা মাছের মত হা করে থাকেন কখন একজন বা একটি পরিবার আক্্রান্ত হবে! কিছুদিন হা হো করে চলে যাবে ভারত। তারা নিজেদের নেতা ধাবী করে কিন্তু হিন্দুদের পক্ষে তাদের কোন নেতৃত্ব নেই বরং যারা হিন্দু নির্যাতনের প্রতিবাদে এগিয়ে আসেন তাদের মনোবল ভেঙ্গে নিজেদের দাবি করেন নব্য নেতা। আর মানুষ পূজারি ভন্ড সাধুদের কি বলব! তাদের কাজ হচ্ছে লোকবল বাড়ানো, শিষ্যের পকেটে গুরুর চোখ, যে গুরুর শিষ্য যত ধনী তার ভক্ত ততই মহান। অন্য ধর্মালম্বীরা নিজেদের ধর্মকে টিকিয়ে রাখার জন্য যেভাবে চেষ্টা-প্রচেষ্টা করে যায়, কিন্তু হিন্দু ধর্মের বকসাধুদের তা লেশমাত্রই নেই। তারা হিন্দু রক্ষায় এগিয়ে যায় না। হিন্দু ধর্মালম্বীরা নির্যাতনে থাকলে তাদের কিছু আসে যায় না। দেখা যায় ঐসব ভন্ড সাধুদের ভারতে কয়েকটা বাড়িও আছে। বাংলাদেশে আশে শুধু শিষ্যের পকেট মারার জন্য মানে আয় রোজগারের জন্য। বাংলাদেশের এক ব্রম্মচারী বা নামে সন্নাসী, জনপ্রিয়তার মাফকাটি অনেক বেশি। কোন অনুষ্টানে তার পিএস কে ২০ হাজার না দিলে যায় না। তাকে প্রশ্ন করলাম দেশের এই হিন্দু নির্যাতনে আপনার মতামত কি? সে নিশ্চিন্তে বললো,শ্রী কৃষ্ণ যা করেন ভালোর জন্য করেন। তার উত্তর শুনে তার সামনে এক মিনিট বসে থাকাটাও নিরাপদ নই। আবার বেশি প্রশ্ন করলে তার দলবল আমার উপর ঝাপিয়ে পড়ে ধর্ম রক্ষার মিশন চালাবে। যে ধর্মের নির্যাতন নিয়ে একলাইন উত্তর দেই না বরং শ্রী কৃষ্ণেরর উপর পার করিয়ে দিয়ে নিজেকে মহান ভাবতে চাই তাকে কি বলা যায় আপনারা ভাবুন।

রাজনৈতিক দলগুলোর শিকারের লক্ষ্যবস্তু বাংলাদেশের হিন্দুরাঃ
আপনাদের হয়তো মনে আছে- ২০০১ সালে নির্বাচনের পর বিএনপি-জামায়াত জোট জয়ী হওয়ার পরপরই দেশজুড়ে সংখ্যালঘু হিন্দুদের ওপর ধারাবাহিক অত্যাচার, নিপীড়ন, নির্যাতন হয়েছিল। নির্বাচনে তাদের প্রতিপক্ষ ছিল আওয়ামী লীগ এবং জাতীয় পার্টিসহ ছোট ছোট বাম এবং ইসলামপন্থী দলসমূহ, কিন্তু তার সঙ্গে সংখ্যালঘু নির্যাতনের সম্পর্ক কোথায়? এখানে চিরাচরিত হিসাবটা হলো- তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ এবং হিন্দুরা বংশপরম্পরায় আওয়ামী লীগকেই ভোট দেয়। সে কারণে আওয়ামী লীগ পরাজিত হলেই সংখ্যালঘুদের ওপর নেমে আসে নির্মম নির্যাতন। সে সময় পাবনার একটি ঘটনা মানুষের বিবেককে ভীষণভাবে নাড়া দিয়েছিল (যদিও বিবেকতাড়িত মানুষরা নির্যাতিতদের জন্য কিছুই করেনি, করে না।) পাবনার এক গ্রামে শেফালী নামের একটি নাবালিকা মেয়েকে বিএনপির ষণ্ডারা সারারাত পালাক্রমে ধর্ষণ করেছিল। এক পর্যায়ে সহ্য করতে না পেরে মেয়েটির মা বলেছিলেন- বাবারা, আমার মেয়েটা ছোট, তোমরা একজন একজন করে আসো না হলে মেয়েটা মরে যাবে…! কোন অবস্থায় পড়লে এক মা তার ধর্ষিতা মেয়েকে প্রাণে বাঁচানোর জন্য এমন আকুতি করেন! এই দেশ, এই রাষ্ট্র, এই সমাজ, এই সরকারসমূহ এবং কোটি কোটি বিবেকবান মানুষ সে ইতিহাস বিস্মৃত হয়েছে।
এর পরের ইতিহাস আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোটের বিজয়ের ইতিহাস। ২০০৮ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে মহাজোট বিজয়ী হয়েছিল। পাঁচ বছর পর ফের ২০১৪ সালের একতরফা নির্বাচনে আবারো নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠ হয়ে সরকার গঠন করেছিল। বিস্ময়কর ব্যাপার হলো আওয়ামী লীগের ‘দালাল’ বলে অপবাদ মাথায় নেওয়া সেই সংখ্যালঘু হিন্দুদের ওপর নির্যাতনের মাত্রা কিন্তু কমেনি! ভোটের হিসাবে ভাবা যায় আওয়ামী লীগকে ভোট দেওয়া হিন্দুরা অন্তত আওয়ামী লীগের শাসনামলে নিরাপদ থাকবেন! নিদেনপক্ষে তাদের ওপর নির্যাতনের খড়গ নেমে আসবে না। তাদের বউ-ঝিরা ধর্ষিতা হবেন না। তাদেরকে জন্মভূমি ছেড়ে ভিনদেশে পালিয়ে বাঁচতে হবে না। হিন্দুরাও তেমনটি ভেবেছিলেন, কিন্তু সেই ভাবনা বা নিশ্চয়তা যে মরীচিকা ছিল তা তারা ঘুণাক্ষরেও বুঝতে পারেননি। সেই আগের মতোই হিন্দুদের ওপর অত্যাচার হয়েছে। নির্যাতন হয়েছে। নিপীড়ন হয়েছে। হিন্দু নারী এবং কিশোরীরা ধর্ষিতা হয়েছে। হিন্দুদের বাড়ি-ঘর লুট করা হয়েছে এবং শেষ পর্যন্ত সর্বশান্ত হয়ে হাজার হাজার হিন্দু দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। সেই বিএনপি-জামায়াতের সময়কার অত্যাচারের থেকে এখনকার অত্যাচারের মোটা দাগে পার্থক্য হলো সে সময় বলা হতো ‘শালারা আম্লিগকে ভোট দাও না?’ আর এখন সেটা বলা হয় না, কারণ তারা বিএনপিকে ভোট দেয়নি। এখন বলা হয়- ‘শালা মালাউনের জাত, এখানে থাকো আর ভারতে টাকা পাচার করো, না?’ সে যেভাবেই হোক প্রবল ক্ষমতাশীল ওই দুটি জোটের কাছেই হিন্দুরা হলো ‘গনিমতের মাল’।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট। এক ভয়াবহ পরিসংখ্যান তুলে ধরে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন ও নিজস্ব প্রতিনিধিদের মাধ্যমে এ তথ্য পেয়েছে সংস্থাটি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- ‘২০১৬ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত সারা দেশে ৯৮ জন হিন্দুকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে ১৮ জনকে। ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ২৬টি। নিখোঁজ রয়েছেন ২২ জন। প্রতিমা ভাংচুর করা হয়েছে ২০৯টি। ৩৬৬টি মন্দিরে পূজা বন্ধ করা ও ৩৮ জনকে অপহরণ করা হয়েছে। সব মিলিয়ে চলতি বছর (২০১৬) ১৫ হাজার ৫৪টি নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। (ডিসেম্বর ৩০, ২০১৬, পূর্বপশ্চিম ২৪ ডট কম)।
সম্মেলনে লিখিতভাবে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের এ চিত্র তুলে ধরেন সংগঠনের মহাসচিব আনন্দ কুমার বিশ্বাস। তিনি বলেন, অনেকে এ বছরকে সংখ্যালঘু নির্যাতনের বছর হিসেবে অভিহিত করেছেন। এটা প্রায় সকলেই জানেন দেশে যত ঘটনা ঘটে তার সব কিছুই প্রচারমাধ্যমে স্থান পায় না। অনেক ঘটনা আছে প্রচারমাধ্যমে আসার আগেই ‘মৃত্যুবরণ’ করে। আবার অনেক ঘটনা প্রকাশ করতে দেয়া হয় না। অনেক লোমহর্ষক ঘটনাও ক্ষমতার দাপটে প্রচার করতে দেওয়া হয় না। আর এই কম্মগুলো অধিকাংশ সময়েই করেন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীরা। কখনো কখনো ক্ষমতার বাইরে থাকার প্রাক্তন ক্ষমতাসীনরাও কম যান না। এর পরও রয়েছে স্থানীয় প্রভাব। তারপরও প্রচার মাধ্যমে উঠে এসেছে অনেক কিছুই।
ওই সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়- গত বছর সারা দেশে ৩৫৭ জনকে জখম, ৯৯ জনকে চাঁদাবাজি-মারধর ও আটকে রেখে নির্যাতন, ১৬৫টি লুটপাটের ঘটনা ও বসতঘর-ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ১৩টি হামলা হয়েছে। সম্পত্তি দখলের ঘটনা ঘটেছে ৮৬টি। এর মধ্যে ভূমি দখল ৬১টি, ঘরবাড়ি দখল ৫টি এবং দখলের তৎপরতার ঘটনা ঘটেছে ২০টি। উচ্ছেদে ঘটনা ঘটেছে ২১০টি, উচ্ছেদের তৎপরতার ঘটনা ঘটেছে ৩২৬টি, উচ্ছেদের হুমকি তিন হাজার ৪৩১টি, দেশ ত্যাগের হুমকি ৭১১টি। মন্দিরে হামলা, ভাঙচুর, চুরি ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে ১৪১টি। বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর, চুরি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে দুই হাজার ৩২৮টি। প্রতিমা ভাংচুর ২০৯টি, প্রতিমা চুরি ২২টি, মন্দিরে পূজা বন্ধ করা হয়েছে ৩৬৬টি, অপহরণ ৩৮টি, অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে ৭টি। গণধর্ষণ হয়েছে ৪টি। জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত বা ধর্মান্তরকরণের চেষ্টা এক হাজার ২৫১টি। সংগঠনের মহাসচিব আনন্দ কুমার বিশ্বাস আরো বলেন, ২০১৬-এর শুরু থেকে ধারাবাহিকভাবে ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নির্যাতনের শিকার হয়েছে। যার কারণে বহু হিন্দু পরিবার দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। অনেকে এ বছরকে সংখ্যালঘু নির্যাতনের বছর হিসেবে অভিহিত করেছেন। চাকরির নামে ধর্ষণ, স্বামীর সামনে স্ত্রীকে ধর্ষণ, মা মেয়েকে নৌকায় তুলে একসঙ্গে ধর্ষণ, হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘর-বাড়ি, মাঠ-মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুর, মন্দিরের রথের জায়গা দখল করা হয়েছে।

এদের মতো আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)-ও ১ জানুয়ারি, ২০১৭ তারিখে একটি প্রতিবেদনে জানাচ্ছে- ‘পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে গৌড়ীয় মঠের অধ্যক্ষ যজ্ঞেশ্বর রায়কে হত্যার মধ্য দিয়ে মন্দিরের পুরোহিত ও সেবায়েত হত্যাকাণ্ডের শুরু। বছরজুড়ে হত্যা-জখম-নির্যাতনের এই ধারা অব্যাহত ছিল। ধর্মীয় গুরুদের পাশাপাশি সাতক্ষীরার আশাশুনিতে হিন্দুধর্মাবলম্বী সাধারণ মানুষ নির্যাতনের শিকার হন বছরের প্রথমার্ধে। বছর শেষ হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের মধ্য দিয়ে। আসক বছর শেষে মানবাধিকার পরিস্থিতির মূল্যায়ন করতে গিয়ে বলেছে, ধর্মীয় সংখ্যালঘু নির্যাতনের দিক থেকে ২০১৬ সাল ছিল উদ্বেগজনক। গত শনিবার (২৫ মার্চ) আসক বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি ২০১৬ প্রতিবেদন প্রকাশ করে। আটটি জাতীয় দৈনিক ও নিজেদের অনুসন্ধান থেকে প্রতিবেদনটি চ‚ড়ান্ত করে আসক। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত হিন্দুধর্মাবলম্বীদের ১৯২টি বাসস্থান, ২টি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, ১৯৭টি প্রতিমা, পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ, ৫টি জমি ও বসতবাড়ি দখলের ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় ৬৭ জন আহত ও ৭ জন নিহত হন। এর বাইরে পঞ্চগড়, গোপালগঞ্জ, টাঙ্গাইল, ঝিনাইদহ, পাবনা, যশোর ও বগুড়ায় মঠের অধ্যক্ষ ও সেবায়েতরা খুন হন।

এই যে এত এত নির্যাতন-নিপীড়নের, হত্যা-জখম এর ধর্ষণের ঘটনাগুলো ঘটে, তার কয়টির বিচার হয়? আমরা পত্রপত্রিকার মাধ্যমে জানতে পারি শতকরা ৫ ভাগেরও বিচার হয় না। প্রায় পঁচানব্বই ভাগ ক্ষেত্রে আরো অত্যাচারের ভয়ে ভিকটিমরা থানায় বা আদালতে যেতে চান না। আর যারা থানায় বা আদালতে যান তাদেরও অভিজ্ঞতা সুখকর নয়। এসব দেখে-শুনে এদেশ থেকে বিতাড়িত হিন্দুরা যদি অভিযোগ করে বসেন যে অত্যাচার-অনাচার-ব্যভিচার, নিপীড়ন-নির্যাতনে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন, ক্ষমতাবহির্ভূত দলসমূহ এবং নাগরিক সমাজেরও দায় রয়েছে? এটা বললে কি তাদের মুখ বন্ধ করা যাবে?
এভাবে এই প্রেক্ষিত ধরে পেছনের ইতিহাস টানলে দেখা যাবে পাকিস্তান হওয়ার পর যেমন হাজার হাজার হিন্দু তাদের নিজ মাতৃভ‚মিতে অচ্ছুত হয়ে গিয়েছিলেন, আজ সেই ব্রিটিশের কাছ থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার সত্তর বছর পরও পরিস্থিতি বদলায়নি। এখনো হিন্দুদের নিজ জন্মভ‚মিতে অনাহুত, অচ্ছুত এবং অবাঞ্ছিত ভেবে নির্বিচারে অত্যাচার নিপীড়ন চালানো হয়।
এর পর যদি এখান থেকে বিতাড়িত হিন্দুরা যে রাষ্ট্রে আশ্রয় নিয়েছেন সেই ভারতের নীতি নির্ধারণী পদে তাদের কেউ কেউ অধিষ্ঠিত থাকেন তাহলে এই দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক কেমন হতে পারে? এটা বোঝার জন্য সমাজবিজ্ঞানী হতে হয় না। সাদা চোখেই দেখা যায় তারা আমাদের ঘৃণার চোখেই দেখবেন। মানুষ তার যাপিতজীবনে সবকিছুর সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারে। উষ্ণমণ্ডলীয় অঞ্চলের মানুষ উত্তরমেরুতেও মানিয়ে নিতে পারে, মরু অঞ্চলের মানুষ সাইবেরিয়ার বরফ রাজ্যেও মানিয়ে নিতে পারে, কিন্তু জন্মভ‚মি থেকে শেকড় উপড়ে দেওয়া মানুষ কোনোদিনও সেই কষ্ট ভুলতে পারে না। ভোলা যায় না। জন্মভূমির টান পৃথিবীর সব চেয়ে শক্তিশালী এবং অমোঘ এক টান। ১৯৪৭ সালে যেখানে এদেশে হিন্দু জনসংখ্যা ছিল মোট জনসংখ্যার ৪২ শতাংশ। মাত্র ষাট-পঁয়ষট্টি বছরে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৭ থেকে ৮ শতাংশ! গত এক দশকে হিন্দুদের ওপর আক্রমণের জন্য আর পুরনো ‘লীগকে ভোট দেয় কেন’ ব্যবহার করতে হচ্ছে না। এই এক দশকে একটি কমন প্রাকটিস শুরু হয়েছে। আর তা হলো এটি ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশ। এই অহমটাই এখন নিয়ামক হয়ে দেশটাকে শতভাগ মুসলমানের দেশে রূপান্তরিত করার জন্য দলমত নির্বিশেষে স্টিমরোলার চলছে সংখ্যালঘুদের ওপর, বিশেষ করে হিন্দুদের ওপর। এত কিছুর পরও যে ৭ বা ৮ শতাংশ এদেশে টিকে রয়েছে তারা তা পেরেছেন অনেকটাই আত্মমর্যাদা খুইয়ে, রাগ-অভিমান জলাঞ্জলি দিয়ে। আর কেউ কেউ টিকে রয়েছেন ভারতে তথা পশ্চিমবঙ্গে জীবিকা নির্বাহের অনিশ্চয়তার কারণে। যারা টিকে রয়েছেন তারা এবং যারা সেই সাতচল্লিশের পর চলে গিয়েছিলেন তারা আজ এত বছর পরও এক অবিনাশী কলজে মোচড়ানো অনুভূতি বহন করে চলেছেন- ইনহাস্ত ওয়াতানম! এই তো আমার জন্মভূমি! কিন্তু এত কিছু বাংলাদেশের হিন্দু নির্যাতনের চিত্র হিন্দু মহাজোট, মাইনোরোটি ওয়ার্চ বাংলাদেশ চোখে আঙ্গুল দিয়ে বুঝিয়ে দিলেও বক-ধার্মিক লালসালু ব্যবসায়ী অধিকাংশ সাধু, মহাপুরুষদের টনক নড়ে না। তাদের উক্তি গোবিন্দ যা করে ভালোর জন্য করে। তাহলে বাংলাদেশের প্রতিনিয়ত নিত্যনৈমিত্তিক যে হিন্দু অত্যাচারিত হচ্ছেন,তাহলে তা কি গোবিন্দ বা কৃষ্ণ, রাম করছেন? প্রশ্ন রইল মহাপুরুষ জী? উত্তর দিতে ভুলবেন না।

লেখাটি এই প্রত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক বা লেখকের অনুমতিব্যতীত অন্য কোথাও প্রকাশ করবেন না।

Writer : Mr. Rajib Sharma (CRIME INVESTIGATOR OF BANGLADESH)

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.