১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:৪৮
সর্বশেষ খবর

বিএনপির মিছিলে ঢুকে অস্ত্র দেখিয়ে তান্ডব সৃষ্টিকারী কে এই ফরহাদ!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বিএনপির মিছিলে ঢুকে অস্ত্র দেখিয়ে তান্ডব সৃষ্টিকারী পুলিশ লীগের পরিচয় উন্মোচন!গত দু’দিন ধরে বিএনপির সমাবেশের ভেতরে ঢুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে নেতাদেরকে ধরে নিয়ে যাচ্ছে ডিবি পরিচয়দারীকারী কিছু সশস্ত্র বক্তি। বিএনপি ও অংগসংগঠনের নেতাদেকে গ্রেফতারকালে গোয়েন্দা পুলিশের নারকীয়ভাবে হামলে পড়ার দৃশ্য সামাজিক মাধ্যমগুলিতে ছড়িয়ে পড়ে। বিনা উস্কানিতে এভাবে সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা নিয়ে ছি ছি ওঠে। অনেকের সন্দেহ হয় এরা কি পুলিশ নাকি সরকারের কোনো গুপ্ত বাহিনী। প্রতিটি ঘটনায় কমন কিছু ব্যক্তির ছবি ঘুরে ফিরে আসে। এর মধ্যে এ যুবক হায়েনার মত খুব বেশি তৎপর? কেন সে হায়নার ভূমিকায়- এমন প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে আঁৎকে পড়ার মত তথ্য।

বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাদের দিকে অস্ত্র তাক করে গলা চেপে ধরে নিয়ে যাওয়া সেই পুলিশলীগ সদস্যের নামঃ ফরহাদ বাড়ি- গাজীপুরের কাপাসিয়া।

এই ফরহাদের ভাই হচ্ছে ছাত্রলীগের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট আজিজুল হক মামুন, যে ছিল সোহাগ-নাজমুল কমিটির সহ-সভাপতি। মামুন কুষ্টিয়া ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ পাওয়া সেই কুখ্যাত টিচার, যে ভার্সিটি বাগানে তার ছাত্র নামধারী ছাত্রলীগের ক্যাডারদেরর গোপনে অস্ত্র ট্রেনিং দিত, ২০১৪ সালে মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছিল। এই অস্ত্রবাজ ছাত্রলীগ ক্যাডার মামুনের ছোট ভাই হল ফরহাদ।

ফরহাদ অতি উৎসাহী পুলিশ লীগের সদস্য। সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০০৫-০৬ শিক্ষাবর্ষে ইংরেজি ডিপার্টমেন্ট এর ছাত্র। এস.এম হলের ছাত্রলীগের দায়িত্বে ছিল ফরহাদ। তারা ৩ ভাই ১ বোন, বড় ভাই মাসুদ রানা রুবেল ঢাবিতে পড়ার সময় রাইফেল সহ আটক হয়ে পরে ছাত্রত্ব চলে যায়, মেঝ ভাই মামুন যাকে সবাই চিনে পাশা নামে। মামুন আ’লীগ সরকারের দয়ায় তার স্ত্রীকে বানিয়েছেন বিসিএস পুলিশের কর্মকর্তা। ভাই ফরহাদেকেও ঢুকিয়েছেন পুলিশে, একমাত্র বোনকে করেছেন বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের ম্যাজিস্ট্রেট। গোটা পরিবার আওয়ামী ক্যাডার। এই ফরহাদ এখন পিস্তল হাতে নির্মমভাবে বিএনপি দমন ও ধরপাকড়ে নামছে।

গত মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিতরে অস্ত্রসহ ঢুকে পড়ে এই সব ব্যক্তিরা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবুকে আটক করে নিয়ে যায়। সশস্ত্র ব্যক্তিরা প্রায় সকলেই খোলা অস্ত্রে ট্রিগারে হাতে রেখে লোকজনকে ভয় দেখায়। গত ২৪ তারিখে বিএনপির কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচির সময় কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালসহ আরও ৫ নেতাকর্মীকে আটক করে। গতকাল বৃহস্পতিবার প্রেসক্লাব এলাকায় বিএনপির অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে ডিবি পুলিশ ঢুকে পড়ে, ছাত্রদল উত্তরের সভাপতি মিজানুর রহমান রাজকে আটকের চেষ্টা চালায়। এ সময় মিজানুর রহমান জড়িয়ে ধরেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে। কিন্তু মহসচিবের অনুরোধ স্বত্ত্বেও সাদাপোষাকের পুলিশ রাজকে টেনে হিচড়ে জামাকাপড় ছিঁড়ে ফেলে হাতকড়া পড়িয়ে ৮/১০ জনে চেপে ধরে আটক করে নিয়ে যায়। এসময় বেধড়ক লাঠিচার্জ করে পুলিশ। কিন্তু দলীয় নির্দেশনা মেনে বিএনপির কর্মীরা প্রত্যাঘাত করেনি।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.