২২শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ভোর ৫:০২
সর্বশেষ খবর

শিতাংশু’র বিক্ষিপ্ত ভাবনা

অনেকদিন আগে পাকিস্তান আমলের একেবারে শেষদিকে প্রথমবারের মত চোরাপথে আগরতলা যাই। তখন তরুণ, ভারতীয় হিন্দি মুভ্যি, মানুষের স্বাধীন-স্বাচ্ছন্দ্য চলাফেরা, আমাদের দেশের তুলনায় রমনীদের অনেকটা খোলামেলা পোশাক, বিশেষত: ওড়না ব্যবহার না করা বা এমনতর অনেক ছোটখাট বিষয় বেশ ভালো লাগে। তবে দু’টি ঘটনায় বেশ তাজ্জব হই: এক, রিকশাওয়ালাকে সন্মান করে কথা বলা এবং দুই, মেয়েদের রাত-বিরাতে একা একা চলাফেরা করা। রিক্সাওয়ালার সন্মান থাকতে পারে, একথা পাকিস্তানী সমাজ আমাদের শেখায়নি? আর মেয়েরা রাতে অক্ষত বাড়ি ফিরবে এ ছিলো অকল্পনীয়, অবিশ্বাস্য ব্যাপার? এসব ভালো লেগেছিলো। তখন মনে হয়েছে, আমি হিন্দু, হিন্দুস্থানে গিয়েছি বলেই হয়তো এই ভালোলাগা! মনে হয় ওই যাত্রায় ৪/৫দিন আগরতলা ছিলাম। বাসে, রিক্সায়, বাজার-ঘাটে যথেচ্ছ ঘুরেছি, সাথে আমার দূর-সম্পর্কের কোন আত্মীয় ছিলো, আমারই বয়সী। কেউ আমাকে একবারও জিজ্ঞাসা করেনি কোথা থেকে এসেছি, বাড়ি কই বা আমি হিন্দু না মুসলমান?

 

এরপর মুক্তিযুদ্ধকালে প্রথম কলকাতা যাই। একই দৃশ্য। মনে হয় এরা যেন একটু বেশি স্বাধীন। একদিন শিয়ালদহ ষ্টেশনের মোড়ে দাঁড়িয়েছিলাম। সময় বিকাল ৫/৬টা। হাজার হাজার মানুষ ট্রেন স্টেশনে দেখে ভেবেছিলাম হয়তো সেটা হাটবার বা কোথাও মেলা আছে। পরে জেনেছি, অফিস ছুটির পর ওটা স্বাভাবিক দৃশ্য। তদানীন্তন পূর্ব-পাকিস্তানে আমাদের ছোট্ট মফঃস্বল চাঁদপুর শহরে এমন দৃশ্য অচিন্তনীয় ছিলো। এরপর বহুবার কলকাতা গেছি। বঙ্গবন্ধু’র আমলেও গেছি। তখন মনে হয়েছে কলকাতার বাবুদের মত আমরাও স্বাধীন হয়েছি, আমরাও মুক্ত হবো। ঢাকা ভার্সিটির ছাত্র থাকাবস্থায় গেছি। তবে বৈধভাবে। এরপর জিয়া-এরশাদের আমলে বোধগম্য কারণে যাতায়াত কমে যায়? বেশ কিছুদিন পর এরশাদ আমলে একবার কলকাতা যাই। তখন আমি সাংবাদিক। প্লেনে কলকাতা বিমান বন্দরে নামার পর মনে হয়েছিলো যেন বুক থেকে পাষান নেমে গেলো। বুকভরে মুক্তবায়ু নিঃশ্বাস নিলাম। সেদিনের কথা আমার এখনো মনে আছে। মনে হয়েছিলো বুক থেকে জগদ্দল পাথর নেমে গেছে। আবার যখন ঢাকা বিমানবন্দরে এসে নেমেছি, মনে হয়েছে  ওটা আবার ফিরে এলো?

 

সামান্য কিছুটা সময় বাদ দিলে পাকিস্তান বা বাংলাদেশে জুজুর ভয় কি আসলেই আমাদের মনে জগদ্দল পাথরের মত চেপে ছিলোনা? বা এখনো চেপে নাই? প্রথম দফা শেখ হাসিনার শাসনামলেও কিন্তু বাতাস মুক্ত ছিলো। আসলে, আগরতলা বা কলকাতায় ভালো লাগা বা জগদ্দল পাথর সরে যাওয়ার সাথে হিন্দুত্ব বা অন্যকোন যোগসূত্র ছিলোনা, যেটা ছিলো তা হলো স্বাধীনতা এবং মুক্তি ও গণতন্ত্র। ১৯৪৭-এ ওরা স্বাধীন হয়েছে, মুক্তি পেয়েছে। একই সময়ে পাকিস্তান বা পরে ১৯৭১ সালে আমরা স্বাধীন হলেও মুক্ত হইনি? ইসলামী শাসন, স্বৈরাচার জগদ্দল পাথরের মত আমাদের ওপর চেপে ছিলো বা এখনো আছে। আমরা মানচিত্র পেয়েছি, মুক্তির আনন্দ পাইনি। এরপর ১৯৯০-র মাঝামাঝি আমেরিকায় চলে আসা, একেবারে মুক্ত। ‘ষ্ট্যাচু অফ লিবার্টি’ এদেশে শুধু একটি আবক্ষ মুর্ক্তি নয়, এ দেশটি আসলেই মুক্ত। মুক্তির আনন্দে হয়তো এরা দেহের সব কাপড় খুলে ফেলতে পারে, কিন্তু এদের নির্ভেজাল মুক্তিতে কোন খাদ নেই? আমেরিকা বা ভারতের কথা নয়, আমি বলছি ‘মুক্তির’ কথা।

 

মুক্তি চাই। মুক্ত বায়ুতে নিঃশ্বাস নিতে চাই। সীমাবদ্ধতা চাইনা। আবদ্ধ হতে চাইনা। আবদ্ধ থাকতে চাইনা। দুৰ্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, আজকের বাংলাদেশ একটি আবদ্ধ ভুখন্ড। মানচিত্র আছে, মুক্তি নাই। আমি যে মুক্তির কথা বলছি, সেটা একদিনে আসেনা, সেটা গণতন্ত্রায়নের পথ বেয়ে আসে। কোন শর্টকার্ট নেই? বাংলাদেশে আমরা যে গণতন্ত্রের কথা বলি বা শুনি, ওটা গণতন্ত্র নয়, ওটা আইয়ুব খানের মৌলিক গণতন্ত্রের কাছাকাছি। আমি বাংলাদেশের ৪৭ বছরের কথা বলছি। এই সময়ে দেশের শাসকশ্রেণী গণতন্ত্র ও ইসলামের সমন্বয় করতে করতে দেশকে একটি মৌলবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করে ফেলেছেন। এতে গণতন্ত্রের বারোটা বেজেছে। মোল্লারা অবশ্য বলেন, ইসলাম কায়েম হলে সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। জেনেশুনেই তারা মিথ্যা বলেন। রাষ্ট্র পরিচলনায় কমিউনিজম ব্যর্থ, ইসলামও ব্যর্থ। পৃথিবীতে এখন অর্ধ-শতাধিকের বেশি মুসলিম রাষ্ট্র আছে, এর একটিও বসবাস যোগ্য নয়? মোল্লারা আবার সাথে সাথে বলবেন, ওগুলো আসল ইসলাম না? আমরা সৌদি ইসলাম, পাকিস্তানি ইসলাম, ইরানি ইসলাম, আইসিস-র ইসলাম, এরশাদ-খালেদার ইসলাম সবই তো দেখলাম? কোনটা আসল? বাস্তবতা হচ্ছে, গণতন্ত্র ও ইসলাম একসাথে চলতে পারেনা। তাই কোন মুসলিম দেশে গণতন্ত্র নাই। বাংলাদেশে গণতন্ত্র এবং ইসলামকে মিক্সার করা হচ্ছে, এতে চূড়ান্তভাবে গণতন্ত্র উধাও হয়ে যাবে। রাষ্ট্রব্যবস্থা থেকে ধর্মকে সরানো না গেলে বাংলাদেশের ভবিষ্যত অন্ধকার।

 

আমাদের দেশের মানুষ যারা বহির্বিশ্বে থাকেন, অর্থাৎ ইউরোপ-আমেরিকায় থাকেন, তারা সবাই চান আমেরিকা আরো বেশি গণতান্ত্রিক হোক, সকল নাগরিকের সমান মর্যাদা দিক এবং একটু সমস্যা হলেই এরা ‘ইক্যুয়েল রাইট্স’ এর বড় বড় যুক্তি তুলে ধরেন। এই মানুষগুলোই আবার বাংলাদেশকে দেখতে চান একটি মুসলিম সমাজ হিসাবে, যেখানে তাদের ষোলআনা অধিকার থাকবে, কিন্তু অন্যদের জন্যে থাকবে ‘পোষা মুরগীর’ অধিকার? ‘আমানত’ শব্দটির সাথে আমরা বেশ পরিচিত? ইসলামী মোল্লারা বলে থাকেন, ‘হিন্দুরা হচ্ছে তাদের আমানত’? পোষা মুরগি বলার কারণ হচ্ছে, মুরগিকে সবাই ভালবাসে যতক্ষণ না বাড়িতে অতিথি আসে? যাহোক, আমাদের এই প্রবাসী বাংলাদেশী ভাইয়েরা বেজায় প্রগতিশীল, রোহিঙ্গা মুসলমানের সমস্যার সময় তারা ময়দানে, কিন্ত নাসিরনগরে হিন্দু নির্যাতনের বেলায় মুখে কুলুপ এঁটে থাকেন। ২৫ বছর পাকিস্তান আমলে ইসলামী শাসনে থেকেও এদের বোধোদয় হয়নি যে, ধর্ম একটি শোষণের যন্ত্র। ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্র একটি বৈষম্যমূলক ব্যর্থ রাষ্ট্র। তবু এরা বাংলাদেশকে মুসলিম রাষ্ট্র বানাবেন? তাদের বক্তব্য হচ্ছে, বাংলাদেশ ৯০% মুসলমানের দেশ? এরাই কিন্তু ৯৮% খৃস্টানের দেশ আমেরিকাকে খৃষ্টান রাষ্ট্র হিসাবে দেখতে চায়না।

 

একটি ঘটনা বলি, এটি আমি বহুবার লিখেছি: ১৯৮৮ সালে ৯ই জুন তল্পীবাহক সংসদে এরশাদ সাহেব যখন ৫মিনিটের মধ্যে ইসলামকে ‘রাষ্ট্রধর্ম’ হিসাবে বিল পাশ করিয়ে নেন, সেদিনই ঢাকায় সংখ্যালঘুরা একটি তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করে। আমি ছিলাম ঐ মিছিলের পুরোভাগে। মিছিল শেষে প্রেসক্লাবে ঢুকতে যাবো তখন এক ভদ্রলোক আমার সাথে কথা বলতে চাইলেন। তাকে চিনিনা। অমায়িক ভদ্রলোক তার পরিচয় দিলেন, জানালেন তিনি এনএসআই-র লোক। অভয় দিলেন, এমনিতে কথা বলবেন। প্রেসক্লাবের গেষ্টরুমে অনেকক্ষন কথা হলো। তিনি জানতে চাইলেন, রাষ্ট্রধর্ম হলে আপনাদের ক্ষতি কি? সংবিধানে তো যার যার ধর্ম পালনের অধিকার থাকছে। অনেক ব্যাখ্যা দেই এবং শেষমেষ বলি, আচ্ছা, ভারত যদি হিন্দু রাষ্ট্র হয়, তাহলে আপনার কেমন লাগবে? ভদ্রলোক অনেকটা আঁতকে উঠেন। বলেন, ভারত কেন হিন্দুরাষ্ট্র হবে? বললামঃ কিন্তু, আপনার এতে কি ক্ষতি? তিনি বললেন, তাহলে ভারতের মুসলমানদের অবস্থা খারাপ হবে! তাকে সেদিন বলেছিলাম, আপনি বাংলাদেশের মানুষ হয়ে ভারতের মুসলমানদের কথা চিন্তা করছেন, কিন্তু নিজ দেশের অ-মুসলমানদের কথা ভাবছেন না? ভারত হিন্দুরাষ্ট্র হলে মুসলমানদের  যে ক্ষতি হবে, বাংলাদেশ মুসলিম রাষ্ট্র হলে হিন্দুদের একই ক্ষতি হবে? এরপর আর কথা এগোয়নি। তবে ভদ্রলোক বলেছিলেন, এভাবে কখনো ভাবিনি। বিষয়টি আসলে তাই, ভিকটিমের জায়গায় নিজেকে দাঁড় করিয়ে দেখুন, তাহলে কিছুটা সমস্যা হয়তো বুঝতেও পারেন! আমেরিকায় ৯/১১-র পর মুসলমান বা শিখদের ওপর সামান্য টুকটাক ঘটনা ঘটেছে, কিন্তু এমন একটি ঘটনা হিন্দুরা যদি বাংলাদেশে ঘটাতো তাহলে দুই কোটি হিন্দুর একজনও কি জীবিত বা দেশে থাকতে পারতো? এদেশে রাজনৈতিক বা বুদ্ধিজীবীরা প্রায় সবাই মুসলমানের পক্ষে দাঁড়িয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী প্রতিনিয়ত মুসলমানের পক্ষে জোরালো কথাবার্তা বলেছেন, বাংলাদেশে আমরা কি তা দেখি?

 

সমস্যাটা সেখানেই?  ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থা বা স্বৈরাচারী রাষ্ট্রব্যবস্থা মানুষকে ভাবতে শেখায় না! বাংলাদেশের মানুষ ভাবতে ভুলে গেছে। নইলে এই সময়ে বিশ্বে মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর দৈন্যতা দেখেও আমরা কেন মরীচিকার পেছনে ছুটছি? মোল্লারা কেন আমাদের ধোঁকা দিতে পারছে? মোল্লাদের মতানুযায়ী সৌদি আরব হলো পুণ্যভূমি আর আমেরিকা-ইউরোপ হলো ইহুদি-নাসারাদের দেশ? অথচ এদের যদি এই দুইটি দেশের একটিতে বসবাসের সুযোগ দেয়া হয়, তাহলে সবাই আমেরিকা চলে আসবেন। মোল্লারা কিন্তু এই ফতোয়া দেয়না যে, বিধর্মীদের সবুজ ডলার দিয়ে মাদ্রাসা বানালে সেটা হালাল হবেনা? ছেলেটাকে পারলে এরা লন্ডন-আমেরিকা বা অন্য মালাউনের দেশে পাঠায়, কিন্তু কোন মুসলিম দেশে পাঠায় না? সুযোগ পেলে নিজে যায় নাসারার দেশে বিনা-পয়সায় হালাল চিকিৎসা করতে? কিন্তু নিজের দেশটাকে আমেরিকা বা সিঙ্গাপুরের মত উন্নত গড়ে তুলতে চায়না, বড়জোর মালয়েশিয়া, কারণ ইসলাম চাই? এরা একবারও ভাবে না, উন্নত দেশগুলো কেন উন্নত?

উন্নত দেশগুলো রাতারাতি উন্নত হয়নি। এদের হাতে আলাদিনের চেরাগ নাই। এরা ভাবতে জানে, ভাবতে শেখায়। এরা সেই কবে রাষ্ট্র থেকে ধর্মকে আলাদা করে দিয়েছে। আমরা দেখেও শিখিনি? ওরা আমাদের করুণা করে? আমরা নিজেদের উন্নত করছিনা, বরং ওদের ঠেকাতে উড়ে এসে ওয়াল্ড ট্রেড সেন্টার ধ্বংস করছি। তালেবান বানাচ্ছি। সন্ত্রাসী সৃষ্টি করছি। কেউ কি বলতে পারেন, বাংলাদেশের কত শতাংশ মানুষ ৯/১১-র নিন্দা করেছেন? মনে মনে কি অনেকেই খুশি হননি? মনে আছে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীর বিন লাদেন-কে বিয়ে করার ইচ্ছা ব্যক্ত করে প্রেস-কনফারেন্সের কথা? এটাই সত্যি, বেশির ভাগ মুসলমান বিন লাদেনকে ভালোবাসে? এই আমেরিকাতে আমরা অনেকের মুখে শুনি, ৯/১১ নাকি ইহুদীদের সৃষ্টি? যারা এই কথা বলে, তারা কি পরোক্ষভাবে সন্ত্রাসকে সমর্থন দিচ্ছেনা? বাংলাদেশে যেখানে ৯/১১-র পর ধর্ম-ভিত্তিক রাজনীতির মুখ থুবড়ে পড়ার কথা ছিলো, তা কি হয়েছে? ‘ইসলাম গেল’ ধুঁয়া তুলে তখন খালেদা জিয়া কি তখন ক্ষমতায় আসেননি? এই ধুঁয়া তুলে আর কতকাল চলবে? ইসলাম কোথায় যাবে? যদি যায়ই তা মুসলমানদের জন্যেই যাবে, অমুসলমানদের জন্যে নয়?

 

ওয়েব মুক্তমনায় ৮ই সেপ্টেম্বর ২০০৬-এ কানাডা প্রবাসী হাসান মাহমুদ আত্মঘাতী মুসলমান’ শিরোনামে এক প্রবন্ধে লিখেছেন: “সাম্প্রতিক এক জরিপে দেখা যায়, গবেষণার ক্ষেত্রে প্রতি দশলক্ষ মানুষের মধ্যে আমেরিকায় বিজ্ঞানী আছেন ৪০০০; জাপানে ৫০০০ আর মুসলিম বিশ্বে ২৩০। আমেরিকায় বিশ্ববিদ্যালয় আছে ৫৭৫৮, ভারতে ৮৪০৭, মুসলিম বিশ্বের ৫৭টি দেশ মিলে মাত্র ৫০০। বিশ্বের ৫০০ উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে মুসলিম বিশ্বের একটিও নেই? বৃটেনে প্রতি ১০লক্ষ মানুষের জন্যে বই বেরোয় ২০০০, আর মিশরে মাত্র ২০। সকল মুসলিম বিশ্ব মিলে যত ডক্টরেট আছেন, এক ভারতেই আছেন তার চেয়ে বেশি”। জনাব মাহমুদ আসলে ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ির কথা বলেছেন। ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার কথা ইসলামে আছে, কিন্তু ৯/১১ যদি ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নাহয়, তাহলে বাড়াবাড়ি’র সংজ্ঞা নুতন করে ভাবতে হবে?


ঢাকার দৈনিক ভোরের কাগজে ১৪ই সেপ্টেম্বর ২০০৬-এ জনৈক প্রবাল মজুমদার এক চিঠিতে লিখেছেন, “বিনিয়োগ বোর্ডের চেয়ারম্যান ও জ্বালানী উপদেষ্টা মাহমুদুর রহমান সম্প্রতি দেশের পাঁচ বুদ্ধিজীবীর বিরুদ্ধে মামলা করলেও সাম্প্রদায়িক ভাষায় আক্রমণ করেছেন দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য্যের ওপর। তাকে আর এক মুহূর্ত দেশে না থাকার হুমকি দিয়েছেন। প্রবল মজুমদার লিখেছেন, আমার মনে হয় জ্বালানী উপদেষ্টা ছেলেবেলা থেকে সংখ্যালঘুর এটাওটা দখল করতে করতেই বড় হয়েছেন? আর চার দলীয় জোট সরকারও রত্ন ঠিকই চিনেছে। দেবপ্রিয় বাবুরা এদেশ থেকে চলে গেলে তাদের অনেকেরই সুবিধা হয়? জায়গা-জমি-ধন-সম্পত্তি মাহমুদুর রহমান-রা ভোগদখল করতে পারবেন। আর শুধু মাহমুদুর রহমান কেন, এদেশে অনেকেই এ ধরণের মানসিকতা পোষণ করে থাকেন”। প্রবালবাবু ঠিকই বলেছেন। এ মানষিকতা শুধু বাংলাদেশ নয়, পুরো মুসলিম বিশ্বজুড়ে? এ কারণে সম্পদ থাকা সত্বেও এরা উন্নত নয়! তাহলে কি ভাল মুসলমান নেই বা মুসলমানরা এগিয়ে যাচ্ছেনা? ভাল মুসলমান আছে, কিন্তু কোনঠাসা। আর মুসলমান যারা ভালো করছেন, তারা অ-মুসলিম দেশে বসবাস করেন। শাহরুখ খান-রা পাকিস্তানে বা বাংলাদেশে জন্মায় না, গণতান্ত্রিক ভারতে জন্মায়। আবার সেই একই কথা, ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্রে সৃজনশীল কিছু জন্মায় না?

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.