২১শে জুলাই, ২০১৮ ইং | ৬ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:৩২
সর্বশেষ খবর
দক্ষিণ আফ্রিকার অনারারি কনসাল সোলায়মান আলম শেঠ

দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে জনশক্তি রপ্তানিসহ বাণিজ্যিক সম্পর্কের নতুন দিগন্ত উন্মোচিত

নিউজ ডেস্কঃ  দক্ষিণ আফ্রিকা হলো এমন একটি দেশ যে দেশের সঙ্গে রয়েছে আমাদের বাংলাদেশের আবহাওয়ার অনেক মিল। তাই জনশক্তি রপ্তানিসহ বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াতে সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হতে যাচ্ছে। বললেন বাংলাদেশে দক্ষিণ আফ্রিকার অনারারি কনসাল সোলায়মান আলম শেঠ।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আমদানি করা ছয়টি জেব্রা আনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তার খুলশীস্থ দক্ষিণ আফ্রিকার কনসুলেট কার্যালয়ে কথাগুলো বলেন।

তিনি আরও বলেন, এরইমধ্যে নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল দক্ষিণ আফ্রিকা সফর করেছেন। প্রতিনিধি দলটি দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দরের নতুন রুটসহ ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারে সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেছেন।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় প্রথমবারের মতো ৪৮ লাখ টাকা মূল্যে জেব্রাগুলো আমদানি করে জেলা প্রশাসন। চিড়িয়াখানার আগত দর্শনার্থীদের টিকিট বিক্রির আয় দিয়ে এই জেব্রাগুলো আনা হয় বলে জানানো হয় জেলা প্রশাসন থেকে।

জেব্রা প্রসঙ্গে সোলায়মান আলম শেঠ বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকার বিশাল অঞ্চল জুড়েই বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী ও বনজ সম্পদে ভরপুর। তাই ওখান থেকে সহজে ও সাশ্রয়মূল্যে বাংলাদেশ সব ধরনের প্রাণিসম্পদ আনতে পারে।

দেশের ব্যবসায়ী ও বাণিজ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানিখাত আরএমজি (তৈরি পোশাক শিল্প) এর জন্য নতুন রুট হতে পারে চট্টগ্রাম থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার বন্দর এবং সেখান থেকে আমেরিকা ও ইউরোপ।

বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের বড় বাজার হচ্ছে উত্তর আমেরিকা ও ইউরোপ। বর্তমান রুট হচ্ছে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে সিঙ্গাপুর বন্দর হয়ে প্রশান্ত মহাসাগর পাড়ি দিয়ে জাহাজে করে আমেরিকায়। এতে গড়ে সময় লাগে এক মাসেরও বেশি। পরিবহন ব্যয়ও বেশি। কিন্তু চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউন ও ডারবান বন্দরের নতুন রুট হলে দূরত্ব, সময় ও ব্যয়ও কমবে। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে কেপটাউন, ডারবান বন্দরের দূরত্ব যথাক্রমে ৬৭৬১ নটিক্যাল মাইল ও ৫৯২৮ নটিক্যাল মাইল। আরও সুবিধা হলো দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে তৈরি পোশাকগুলো আটলান্টিক মহাসাগর পাড়ি দিয়ে উত্তর আমেরিকার ও ইউরোপের পাশাপাশি দক্ষিণ আমেরিকার ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, বলিভিয়া,উরুগুয়ে,কলাম্বিয়া, চিলি, পেরুর বাজারে সহজে প্রবেশ করতে পারবে। তবে এজন্য বিজিএমইকে গ্লোবাল মার্কেটে আরও তৎপর হতে হবে। বাংলাদেশি পোশাকশিল্পের পাশাপাশি অন্যান্য রপ্তানি পণ্যেরও সম্ভাবনা রয়েছে।

চট্টগ্রাম বন্দর থেকে দক্ষিণ আফ্রিকায় সরাসরি নৌজাহাজ চলাচলের বিষয়ে অচিরেই একটি সমঝোতা স্বারক সই হবে বলে উল্লেখ করে সোলায়মান আলম শেঠ বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকা চট্টগ্রাম বন্দরকে কারিগরি সহায়তা, অবকাঠামো উন্নয়ন, মেরিন সার্ভিস, টাগ অপারেশন ও প্রশিক্ষণ প্রদানে সহায়তা বিষয়ে ঐক্যমত পোষণ করেছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.