২২শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ভোর ৫:৪৬
সর্বশেষ খবর

জাতীয় সম্পদের কত অংশ কারা ভোগ করছে?

বাংলাদেশের মুসা বিন শমসেরের বিরুদ্ধে বিদেশী মিডিয়াতে তথ্য প্রকাশিত হয়েছিল যে তিনি নাকি বাংলাদেশ থেকে ৫১ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন, যার পরিপ্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশন তাকে তলব দিয়ে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদ  থেকে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মুসা বলেন, ‘বাংলাদেশের কেউ এখন কেন আগামী ৫০ বছরেও এত টাকা উপার্জন করতে পারবে না।’ তবে তিনি স্বীকার করেন  এই টাকা তিনি বিদেশে অর্জন করেছেন এবং বিদেশেই এই টাকা আটকে আছে। তিনি বলেন, এ টাকা তিনি দেশে আনতে পারলে পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্প এবং গরিব বান্ধব একাধিক প্রকল্পে তহবিল জোগান দিতে পারবেন।

মুসা সাহেবের এ বক্তব্য  থেকে স্পষ্ট হয় বাংলাদেশের কোনো কোনো নাগরিক কী অকল্পপনীয় পরিমাণে অর্থ ও সম্পদের পাহাড় গড়ছেন। অনলাইন মিডিয়াতে প্রকাশ, বাংলাদেশের সবচেয়ে ধনী দশ নাগরিক ৪৩ হাজার কোটি টাকার অর্থসম্পদের মালিক হয়েছেন। তাদের মাথা পিছু অর্থসম্পদের পরিমাণ সর্ব নিম্ন ১৭৫০ কোটি টাকা  থেকে সর্বোচ্চ সাড়ে দশ হাজার কোটি টাকা। এই দশ জনের মধ্যে পাঁচজন জাতীয় রাজনীতির সাথে প্রত্যভাবে জড়িত; এদের দুইজন বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সরকারে দু’টি গুরুত্বপূর্ণ দফতরের মন্ত্রী ছিলেন। দশ জনের অবশিষ্ট পাঁচজন ব্যবসায়ী; তাদের মধ্যে একজন অগ্রণী রিয়েল এস্টেট ডেভেলপার এবং পাশাপাশি একটি বৃহৎ বেসরকারি মিডিয়ার মালিক।

এর পাশাপাশি দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রেকর্ডপর্যায়ে উঠেছে। অবশ্য এ রেকর্ড রিজার্ভ গড়ে তোলার কৃতিত্বের দাবিদার বাংলাদেশের লাখ লাখ প্রবাসী যারা বিদেশে প্রাণাতিপাত পরিশ্রম করে অর্থোপার্জন করে নিয়মিতভাবে দেশে পরিবারপরিজনদের কাছে বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ করছে। সরকারের কৃতিত্ব এত সামান্যই।

জাতীয় অর্থনীতিতে এসব রুপালি রেখা দেখা গেলেও বাংলাদেশে আর্থিকভাবে সর্বনিম্ন শ্রেণী বা দরিদ্রতম এবং বিত্তহীনদের অবস্থার দৃশ্যমান কোনো উন্নতি হচ্ছে না। দেশে দরিদ্র ও আশ্রয়হীনদের সংখ্যা যে কমছে এমন তো দেখা যাচ্ছে না। বরং দেশের ‘বিত্তশালী’ শ্রেণী এবং ‘হতদরিদ্র’ শ্রেণীর মধ্যে আর্থিক বৈষম্য বাড়ছে বলেই জনমনে ধারণা বদ্ধমূল হচ্ছে। এই ধারণা দেশের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীতে ব্যাপকভাবে বিস্তার লাভ করলে তার রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়া কোনো সরকারই এড়াতে পারবে না।

এ অবস্থায় জাতীয় সম্পদ জনসংখ্যার কোন শ্রেণী কি পরিমাণে ভোগ করছে এবং কোন শ্রেণী ন্যূনতম পরিমাণে পাচ্ছে তার একটি তথ্যভিত্তিক জরিপ হওয়া প্রয়োজন। এ রকম জরিপের ফলাফল জনসমে প্রকাশিত হলে জনসাধারণ জাতীয় সম্পদের আকার এবং বণ্টন সম্পর্কে ওয়াকেবহাল হবে। এর ফলে জাতীয় সম্পদের আরো সুসমন্বিত বণ্টন ও ব্যবহার করা যাবে। এতে জনগণের মনে তাদের আর্থিক উৎপাদন তৎপরতা আরো শক্তিয়ায়িত করার উৎসাহ আসবে।

বাংলাদেশে এ জরিপের জন্য কানাডায় জাতীয় সম্পদের বণ্টন এবং ভোগ ব্যাপারে সাম্প্রতিকতম যে জরিপ করা হয়েছে সেটাকে মডেল করা যেতে পারে। কানাডায় জাতীয় সম্পদের জরিপের কিছু তথ্য নিচে দিচ্ছি :

জনসংখ্যাকে ২০ শতাংশ করে সমান সংখ্যায় পাঁচটি গ্রুপে ভাগ করা হয়েছে : ১। সর্বনিম্নের ২০ শতাংশ যাকে বলা হয়েছে ‘বটম’ বা আর্থিক ‘নিম্নতম’ শ্রেণী। ২। এর ওপরের ২০ শতাংশ ‘নিয়ার বটম’ যাকে বাংলাদেশে ‘নিম্নবিত্ত’ বলা যেতে পারে। ৩। এর ওপরের ২০ শতাংশ ‘মিডল’ যাকে বাংলাদেশে ‘মধ্যবিত্ত’ বলা যেতে পারে। ৪। এর ওপরের ২০ শতাংশ ‘নিয়ার টপ’ যাকে বাংলাদেশে ‘উচ্চ মধ্যবিত্ত’ বলা যেতে পারে। এর ওপরে অর্থাৎ সবার ওপরের ২০ শতাংশ ‘টপ’ যাকে বাংলাদেশে ‘ধনিক’ শ্রেণী বলা যেতে পারে। জরিপের এই অধ্যায়কে বলা হয়েছে ‘স্টাডি গ্রুপ’।

এরপরের অধ্যায়কে বলা হয়েছে ‘অ্যাকচুয়াল ওয়েলথ ডিস্ট্রিবিউশান’ বা ‘সম্পদের প্রকৃত বণ্টন’। এই অধ্যায়ে উপরোক্ত পাঁচটি গ্রুপের নাগরিকেরা কী কী অনুপাতে জাতীয় সম্পদের বণ্টন ভোগ করছে তা দেখান হয়েছে। কানাডার জরিপে দেখা যায়, কানাডার জনসংখ্যার ‘বটম’এর ২০ শতাংশ জাতীয় সম্পদের মাত্র শূন্য দশমিক ১ শতাংশ ভোগ করছে, যা নগণ্যই বলা যায়। বাংলাদেশের জনসংখ্যার ‘নিম্নতম শ্রেণী’র ২০ শতাংশ জনগণ মোট জাতীয় সম্পদের কতটুকু বণ্টন ভোগ করছে?

কানাডার দ্বিতীয় ধাপ জনসংখ্যার ‘নিয়ার বটম’-এর ২০ শতাংশ মোট জাতীয় সম্পদের ২ দশমিক ২ শতাংশ ভোগ করছে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার ‘নিম্ন বিত্তের’ ২০ শতাংশ মোট জাতীয় সম্পদের কতটুকু বণ্টন লাভ করেছে?

কানাডার তৃতীয় ধাপ ‘মিডল’-এর ২০ শতাংশ জনসংখ্যা মোট জাতীয় সম্পদের ৯ শতাংশ ভোগ করছে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার ২০ শতাংশ তৃতীয় ধাপ ‘মধ্যবিত্ত’ শ্রেণীর জনসংখ্যা মোট জাতীয় সম্পদের কতটুকু বণ্টন লাভ করেছে?

 কানাডার চতুর্থ ধাপ জনসংখ্যার ‘নিয়ার টপ’-এর ২০ শতাংশ মোট জাতীয় সম্পদের ২১ দশমিক ৫ শতাংশ ভোগ করছে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার চতুর্থ ধাপ ‘উচ্চ মধ্যবিত্ত’রা জাতীয় সম্পদের কত শতাংশ ভোগ করছে?

  কানাডার চতুর্থ ধাপ জনসংখ্যার ‘টপ’-এর ২০ শতাংশ মোট জাতীয় সম্পদের ৬৭ দশমিক ৪ শতাংশ ভোগ করছে!! বাংলাদেশের এই ‘টপ’ অর্থাৎ ‘ধনিক শ্রেণী’ মোট জাতীয় সম্পদের কত শতাংশ তাদের কুগিত করে নিয়েছে? ইতঃপূর্বে উল্লেখ করেছি এই ‘ধনিক শ্রেণী’র শুধু দশজন নাগরিকই তেতালিশ হাজার কোটি টাকার সম্পদের মালিক হয়েছে বলে প্রকাশ।

 কানাডার সরকারি পরিসংখ্যান দফতর ‘স্ট্যাটেস্টিক্স্ কানাডা’র পরিসংখ্যান হতে দেখা যায় কানাডার সর্বোচ্চ ধাপ ‘টপ’ বা ‘ধনিক’ শ্রেণী’র মোট সম্পদের পরিমাণ ৭ বছরে (২০০৫-২০১২) ৪২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশের ‘ধনিক’ শ্রেণীর মোট সম্পদ ৭ বছরে (২০০৭ হতে ২০১৪) কী পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে? বাংলাদেশের জনগণের এসব জানার অধিকার কেউ খারিজ করতে পারবে না।
লেখক : মঈনুল আলম
প্রবীণ সাংবাদিক, প্রবাসী
moyeenulalam@hotmail.com

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.