২৩শে জুন, ২০১৮ ইং | ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:৪৬

‘এতিমের টাকা মেরে খাওয়ার লোভ যে সামলাতে পারে না, সে দেশকে কী দিতে পারে’

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা জনগণের টাকা মেরে খেতে আসিনি। জনগণকে দিতে এসেছি।আজ বৃহস্পতিবার রাজশাহীতে মাদ্রাসা ময়দানের জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, এতিমের টাকা মেরে খাওয়ার লোভ যে সামলাতে পারে না, সে দেশকে কী দিতে পারে? মানুষকে যারা পুড়িয়ে হত্যা করে, তারা দেশকে কী দিতে পারে?

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, খালেদা জিয়ার দুই ছেলের দুর্নীতি এখন প্রমাণিত। আজ বিএনপি কিসের জন্য আন্দোলন করছে? তারা চোরকে বাঁচাতে আন্দোলন করছে। বিএনপি-জামায়াতের সময় রাজশাহী সন্ত্রাসী ও জঙ্গিদের এলাকায় পরিণত হয়েছিল। তারা বাংলা ভাই সৃষ্টি করেছিল। বিএনপি-জামায়াতের সময় প্রতিনিয়ত হামলার শিকার হয়েছে রাজশাহীর মানুষ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ উন্নয়ন নিয়ে আসে আর বিএনপি-জামায়াত উপহার দেয় লাশ। আওয়ামী লীগ উন্নয়ন করে আর বিএনপি ধ্বংস করে। আমরা প্রথম মোবাইল ফোন দেশের মানুষের হাতে তুলে দিয়েছিলাম। বিএনপির আমলে মানুষ মোবাইল চোখেই দেখেনি।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার পুত্র সবাইকে খাম্বা দিয়েছে, বিদ্যুৎ দেয়নি। আমরা ২০২১ সালের মধ্যে সবাইকে বিদ্যুৎ দিবো প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি। ২০২১ এর মধ্যে প্রতিটি ঘরে আলো জ্বলবে। কোন ঘর অন্ধকার থাকবে না। রাজশাহীতে গ্যাস ছিল না। আমরা এখানে গ্যাস দিয়েছি। যাতে শিল্প-কারখানা গড়ে ওঠতে পারে। কৃষক এখন নিজেই মোবাইলের মাধ্যমে দেখতে পারে, কোন মাটি ভালো আর কোন মাটিতে চাষ হবে না। আসছে নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট চাই।

২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে বিএনপি রাজশাহীকে সন্ত্রাসের নগরে পরিণত করেছিল বলে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এসে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ অনেক আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী এবং সাংবাদিক ও ছাত্রনেতাকে হত্যা করে বলেও জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী আক্ষেপ করে বলেন, বিএনপি উন্নয়ন করতে না পেরে বোমাবাজি করেছে। ২০১৫ সালে প্রায় ৫০০ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে বিএনপি-জামায়াত জোট। রাজশাহীর রাস্তায় তারা পুলিশকে মেরেছে। বিএনপি মানুষের কল্যাণ করতে পারে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

লুট করা, চুরি করা বিএনপির ধর্ম উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিদেশ থেকে আসা এতিমের টাকা তারা লুট করেছে, এজন্য বিএনপি নেত্রীর সাজা হয়েছে। দেশের টাকা বিদেশে পাচার করেছে। বিএনপি আমলে দেশ পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। রাজাকারদের রাজনীতি করার সুযোগ দেয়াই ছিল জিয়াউর রহমানের বহুদলীয় গণতন্ত্র, বলেন প্রধানমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে জনগণের জন্য কাজ করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএনপি জনগণের সম্পদ লুটে খায়। ক্ষমতায় থাকতে বিএনপি দেশের বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ৯০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে তা শোধ করেনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাজশাহীতে বর্তমান মেয়রকে উন্নয়নের জন্য টাকা দেয়া হলেও, তিনি সিটি কর্পোরেশনের উন্নয়ন না করে দুর্নীতি করেছেন। অথচ, আওয়ামী লীগ নেতা খায়রুজ্জামান লিটন মেয়র নির্বাচিত হয়ে রাজশাহীর ব্যাপক উন্নয়ন করেছিলেন।

এর আগে, আওয়ামী লীগ আয়োজিত এই জনসভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা। এই সফরে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহীতে ২১টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৯টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে, তিনি আকাশপথে ঢাকা থেকে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার দয়ারামপুরের কাদিরাবাদ সেনানিবাসে পৌঁছান। সেখান থেকে রাজশাহী যান প্রধানমন্ত্রী। নাটোরে সেনাবাহিনীর কুচকাওয়াজে সালাম ও অভিবাদন গ্রহণ করেন তিনি।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.