১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:১৯
সর্বশেষ খবর

মালদ্বীপের প্রধান বিচারপতি গ্রেফতার

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সময় বাড়ার সাথে সাথে মালদ্বীপে রাজনৈতিক সংকট আরো ঘনীভূত হচ্ছে। সোমবার দেশটির সরকার সেখানে ১৫ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করে সংসদ স্থগিত করে দেন। এরপরই শুরু হয় ধরপাকড়।

তারই ধারাবাহিকতায় এবার গ্রেফতার হলেন দেশটির প্রধান বিচারপতি আব্দুল্লাহ সাঈদ। মঙ্গলবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) পুলিশ তাকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় আলী হামিদ নামে অপর একজন বিচারককেও গ্রেফতার করে পুলিশ।

মালদ্বীপের পুলিশ এক টুইট বার্তায় বলেছে, তারা ‘চলমান তদন্তের জন্য’ সাঈদ ও সুপ্রিম কোর্টের বিচারক আলী হামিদকে গ্রেফতার করেছে। তবে এ দু’জন বিচারকের বিরুদ্ধে অভিযোগ সম্পর্কে কোনো বিস্তারিত বিবরণ দেয়া হয়নি।

এর আগে গতকাল (সোমবার) রাতে দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট মামুন আব্দুল গাইয়ূমকে তার নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

সেনাবাহিনী পার্লামেন্ট বন্ধ করে দেয়ার এক দিনের মাথায় মালদ্বীপে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন। ১৫ দিন জরুরি অবস্থা বলবৎ থাকবে বলে সোমবার রাতে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে ঘোষণা দেন আবদুল্লাহ।

আরও পড়ুন:

দুনিয়া কাঁপানো মালদ্বীপের সেই ঐতিহাসিক ঘটনা

জরুরি অবস্থা ঘোষণা করায় যে কোনো সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করার অতিরিক্ত ক্ষমতা পায় দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী।

রবিবার দেশটির পার্লামেন্টের অধিবেশন বাতিল করার পর প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিনকে অভিশংসন করতে সুপ্রিম কোর্ট কোনো নির্দেশ দিলে তা প্রতিহত করার জন্য সরকার সেনাবাহিনীকে নির্দেশনা দেয়।

বৃহস্পতিবার মালদ্বীপের সুপ্রিম কোর্ট সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদসহ ৯ রাজনৈতিক বন্দীকে অবিলম্বে মুক্তির নির্দেশ দেয়। এসব রাজনৈতিক বন্দীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে রায়ে জানায় আদালত। এ ছাড়া বহিষ্কার করা ১২ জন এমপিকে স্বপদে ফিরিয়ে আনার আদেশ দেয় আদালত। এই ১২ জন এমপির ওপর থেকে বহিষ্কারাদেশ ফিরিয়ে নেওয়া হলে ৮৫ সদস্যের পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে মালদ্বীপের বিরোধী দল। এর ফলে দুর্নীতি ও অপশাসনের অভিযোগে প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিনের বিরুদ্ধে অভিশংসনের প্রস্তাব আনা বিরোধী দলের পক্ষে সহজ হয়ে যাবে।

সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশের পরও ইয়ামিন সরকার রাজবন্দীদের মুক্তি দেয়নি। তাই সুপ্রিম কোর্ট প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিনকে অভিশংসনের মুখে দাঁড় করাতে পারে বলে রবিবার দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল আশংকা প্রকাশ করেছিলেন। প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্ট কোনো রুল জারি করলে সেনাবাহিনী ও আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলো যেন তা মান্য না করে সে নির্দেশনাও দিয়েছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.