২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং | ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:১৯

পরিবারে ধর্মীয় অনুশাসন না থাকায় বাড়ছে পরকীয়া

পরকীয়ার কারণে অশান্তি নেমে আসছে সামাজিক জীবনে। ভেঙে যাচ্ছে সুখের পরিবার। যার কারণে নিরপরাধ শিশুরা বঞ্চিত হচ্ছে মা-বাবার আদর থেকে। দৈনন্দিন জীবনে ধর্মীয় অনুশাসনের প্রতি উদাসীনতা থাকলে এই ভয়ঙ্কর ব্যাধি আসার সম্ভাবনা থাকে। সাধারণত পরকীয়ার সূত্রপাত হয় ফোনালাপ কিংবা অনলাইন চ্যাটিং থেকে। এ ব্যাপারে সকলেরই সতর্ক হওয়া উচিত।

পরকীয়াকে কেন্দ্র করে খুন-জখম, মারামারি, হানাহানি ইত্যাদি ঘটে যাচ্ছে তা পুরো জাতিকে ভাবিয়ে তুলছে। প্রশাসনের বড় বড় পদাধিকারী, সচ্ছল ও প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী, নানা শ্রেণির লোক এই অপরাধের সাথে জড়িত। আমাদের রাষ্ট্রব্যবস্থা, আইন-কানুন, সামাজিক নীতিবোধ এবং পারিবারিক বন্ধনের শৈথিল্যের কারণে পরকীয়ার মতো নীতিহীন কর্মকাণ্ড রীতিমতো জনপ্রিয় সামাজিক রোগে পরিণত হতে চলছে।

এরকম অনৈতিক ও গর্হিত কাজকে ঘৃণা করা ও প্রতিহত করার লোক আমাদের সমাজে নেই বললেই চলে। আল্লাহ তায়ালা কুরআনে বলেন, মুমিনদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি অবনত রাখে এবং তাদের যৌনাঙ্গের হেফাজত করে। এতে তাদের জন্য আছে পবিত্রতা। নিশ্চয়ই তারা যা করে আল্লাহ তা অবহিত আছেন।

আল্লাহ তায়ালা এর পরের আয়াতেই বলেন, ঈমানদার নারীদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে নত রাখে এবং তাদের যৌনাঙ্গের হেফাজত করে। তারা যেন যা সাধারণত প্রকাশমান, তার সৌন্দর্য প্রদর্শন না করে এবং তারা যেন তাদের মাথার ওড়না বক্ষ দেশে ফেলে রাখে এবং তাদের স্বামী, পিতা, শ্বশুর, পুত্র, স্বামীর পুত্র, ভ্রাতা, ভ্রাতুষ্পুত্র, ভগ্নিপুত্র, স্ত্রীলোক অধিকারভুক্ত বাঁদী, যৌনকামনা মুক্ত পুরুষ ও বালক যারা নারীদের গোপন অঙ্গ সম্পর্কে অজ্ঞ, তাদের ব্যতীত কারো কাছে তাদের সৌন্দর্য প্রকাশ না করে। তারা যেন তাদের গোপন সাজ-সজ্জা প্রকাশ করার জন্য জোরে পদচারণা না করে।

মুমিনগণ, তোমরা সবাই আল্লাহর সামনে তওবা কর, যাতে তোমরা সফলকাম হও। (সুরা আন-নূর, আয়াত: ৩১-৩২)

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, চোখের জেনা হইল দেখা। (মেশকাত শরীফ)

উল্লেখিত কুরআনের আয়াত ও হাদিস দ্বারা স্পষ্টই বুঝা যায় যে, চরিত্র নষ্ট করতে পারে এমন কোনো কাজে লিপ্ত হওয়া যাবে না। যেমন, নারী-পুরুষের অবৈধ ফোনালাপ, ছেলে-মেয়েদের নির্লজ্জভাবে অনলাইনে চ্যাটিং, পুরুষরা নারীদের সাথে চলাফেরার ক্ষেত্রে এবং নারীরাও পুরুষের সাথে চলাফেরার ক্ষেত্রে সীমালঙ্ঘন হয় এমন কিছু করা যাবে না ইত্যাদি ইত্যাদি।

এই পরকীয়া নামক মারাত্মক ব্যাধি থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় হল, সব মহলের ঘৃণা, বয়কট ও রাষ্ট্রশক্তির কঠোরতাই কেবল এই সর্বনাশ থেকে ব্যক্তি, দেশ, জাতি ও সমাজ রক্ষা করতে পারে।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের দেশকে, প্রতিটি পরিবারকে এবং প্রতিটি মানুষকে পরকীয়া নামক অপরাধ থেকে রক্ষা করুক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*