সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
রাণীশংকৈলে উপজেলা নির্বাচনে ১২ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল এমসি কলেজে ছাত্রলীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, সাংবাদিকদের উপর হামলা ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন ঝিনাইদহ জেলা শাখার নির্বাচিত কমিটির শপথ কালীগঞ্জ শহরে প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহারের অপরাধে ৭টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা কুদালীছড়ায় অপরিকল্পিত সুইচ গেইট ॥ দায় যেন কারো নেই! শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিক ইউনিয়নের ১৪তম সভা অনুষ্ঠিত কমলগঞ্জে কার্টনের ভেতর থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার পঞ্চগড়ে পিকনিক বাস উল্টে নিহত ১, আহত ৩০ ভারতে নিযুক্ত হাইকমিশনারকে ডেকে পাঠালো পাকিস্তান ভারতীয় বাহিনীর যে যে সক্ষমতার কোনও জবাব নেই পাকিস্তানের কাছে

ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলামের মোবাইল ফোন জব্দ

বিশেষ প্রতিবেদক :  সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামের মোবাইল ফোন ১৫ মিনিটের জন্য জব্দ করেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা অবৈধ ঘোষণা করে রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা আপিল শুনানির সময় মঙ্গলবার সকালে এমন ঘটনা ঘটে।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞার নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চে সকালে শুনানি শুরু হয়।

শুরুতে মোবাইল কোর্টের পক্ষে শুনানি করতে ডায়াসের সামনে আসেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম। শুনানির এক পর্যায়ে ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামের মোবাইল হঠাৎ বেজে ওঠে।

এ সময় ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামকে উদ্দেশ্য করে হেসে বলেন, আইন সবার জন্য সমান। আপনাকে যদি কনসিডার করি তাহলে অন্যরা ভাববে সিনিয়র দেখে কনসিডার করা হলো। আপনার মোবাইল ফোনটি দেন। এটা ১৫ মিনিটের জন্য ‘সিজ’ করা হলো, আদালতের হেফাজতে নেয়া হলো।

ব্যারিস্টার এম. আমীর উল ইসলামও হাসি মুখে মোবাইল ফোনটি বেঞ্চ অফিসারের হাতে তুলে দেন। এরপর আবার শুনানি শুরু হয়। সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহ্য অনুযায়ী, মামলা চলাকালীন সময়ে আদালত কক্ষে মোবাইল ফোন বেজে উঠলে তা জব্দ করার এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে আর্থিক জরিমানা করা হয়ে থাকে।

এ বিষয়ে হাইকোর্টের সাবেক বিচারপতি মো. দেলাওয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, আদালত কক্ষে মোবাইল ফোন বেজে উঠলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির মোবাইল জব্দ করা সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহ্য, অলিখিত নিয়ম।

নিজের বিচারিক জীবনের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, একবার আদালত চলাকলীন সময়ে আমার ফোন বেজে উঠেছিল। তখন বিচারক হওয়ার পরেও আমার নিজের (মুঠোফোন) ফোন বিচার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত জব্দ করে রাখার নির্দেশ দিয়েছিলাম।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit