২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং | ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৮:১১

ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলামের মোবাইল ফোন জব্দ

বিশেষ প্রতিবেদক :  সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামের মোবাইল ফোন ১৫ মিনিটের জন্য জব্দ করেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা অবৈধ ঘোষণা করে রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা আপিল শুনানির সময় মঙ্গলবার সকালে এমন ঘটনা ঘটে।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞার নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চে সকালে শুনানি শুরু হয়।

শুরুতে মোবাইল কোর্টের পক্ষে শুনানি করতে ডায়াসের সামনে আসেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম। শুনানির এক পর্যায়ে ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামের মোবাইল হঠাৎ বেজে ওঠে।

এ সময় ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামকে উদ্দেশ্য করে হেসে বলেন, আইন সবার জন্য সমান। আপনাকে যদি কনসিডার করি তাহলে অন্যরা ভাববে সিনিয়র দেখে কনসিডার করা হলো। আপনার মোবাইল ফোনটি দেন। এটা ১৫ মিনিটের জন্য ‘সিজ’ করা হলো, আদালতের হেফাজতে নেয়া হলো।

ব্যারিস্টার এম. আমীর উল ইসলামও হাসি মুখে মোবাইল ফোনটি বেঞ্চ অফিসারের হাতে তুলে দেন। এরপর আবার শুনানি শুরু হয়। সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহ্য অনুযায়ী, মামলা চলাকালীন সময়ে আদালত কক্ষে মোবাইল ফোন বেজে উঠলে তা জব্দ করার এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে আর্থিক জরিমানা করা হয়ে থাকে।

এ বিষয়ে হাইকোর্টের সাবেক বিচারপতি মো. দেলাওয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, আদালত কক্ষে মোবাইল ফোন বেজে উঠলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির মোবাইল জব্দ করা সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহ্য, অলিখিত নিয়ম।

নিজের বিচারিক জীবনের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, একবার আদালত চলাকলীন সময়ে আমার ফোন বেজে উঠেছিল। তখন বিচারক হওয়ার পরেও আমার নিজের (মুঠোফোন) ফোন বিচার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত জব্দ করে রাখার নির্দেশ দিয়েছিলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*