২১শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৬ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৫:৪৪

অনলাইনে যে ৮টি “বোকামি” আপনার জন্য ডেকে আনছে বিপদ!

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ আজকাল বন্ধুত্ব মানেই যেন অনলাইন বন্ধুত্ব। ফেসবুক, টুইটার থেকে শুরু করে ইয়াহু চ্যাট রুম- কোথায় নেই বন্ধু! অনলাইন একটি চমৎকার জায়গা বন্ধুত্ব করার জন্য অবশ্যই। এমনকি ডেটিং আর প্রেমে পড়ার জন্যও। কিন্তু একটা কথা ভুলে গেলে মোটেও চলবে না যে এই অনলাইনে বন্ধুত্ব একটি ভয়ানক বিপদজনক বিষয়।

অনলাইনে বন্ধুত্বের মাধ্যমেই নানান ধরণের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে আপনার। হতে পারেন নানান রকম প্রতারণা ও হ্যারাসমেন্টের শিকার। এবং হ্যাঁ, এগুলোর জন্য দায়ী আপনি নিজেই। অবাক হচ্ছেন? ভাবছেন আপনি কি করে দায়ী? তাহলে জেনে রাখুন, বুঝে-না বুঝে প্রতিদিন অনলাইনে আপনি এমন অনেক বোকামি করে চলেছেন যা আপনাকে ঠেলে দিচ্ছে রীতিমত ঝুঁকির দিকে। অনলাইন বোকামির একটি তালিকা দেয়া হলো আজ। দেখুন তো মিলিয়ে, এসবের মাঝে কোন বোকামিটি আপনি নিজেও করছেন!
প্রথম পরিচয়ে ফোন নাম্বার দেয়া

অনলাইনে পরিচয়ের শুরুতেই নিজের ফোন নম্বর দিয়ে দেয়াটা অনেক বড় বোকামি। ফেসবুক, টুইটার কিংবা ইয়াহু চ্যাট রুম- যে মাধ্যমেই কারো সাথে পরিচিত হোন না কেন, অপর পাশের সত্যিকার মানুষটাকে কিন্তু আপনি জানেন না বা চেনেন না। হয়তো আপনারই দেয়া এই ফোন নাম্বারটি চলে যাবে কোন বাসের সিটের পেছনে, কিংবা টাকার ওপর। অথবা এই ফোন নাম্বারে অনবরত বিরক্ত করা হতে পারে আপনাকে। আসতে পারে অশ্লীল মেসেজ ও কল।
নিজের ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে দেয়া

অল্প কদিনেই নিজের জীবনের সকল ব্যক্তিগত কথা বলে দেয়া আরেকটি বোকামির পর্যায়ে পড়ে। নিজের ব্যক্তিগত কথা বলে দিলে পরবর্তীতে বিপদে পড়ার ঝুঁকি বেড়ে যায় অনেক। আপনি কী করেন, কী করতে পছন্দ করেন, কোথায় থাকেন, পরিবার পরিজন সম্পর্কিত কথা বার্তা, আত্মীয় সজন ও বন্ধু বান্ধবের নাম ঠিকানা এ সবই ব্যক্তিগত তথ্য। কারন এতে করে অপর মানুষটি খুব সহজেই আপনাকে খুঁজে বের করতে পারেন। মানুষটি ভালো না হলে এতে আপনার বিপদের সম্ভাবনা বাড়বে। সুতরাং সতর্ক থাকুন।
সকলের জন্য ছবি উন্মুক্ত রাখা কিংবা ছবি দেয়া

এই ভুলটি অনেকে না জেনেই করে থাকেন। আবার সতর্কভাবে অনলাইন ব্যবহার না করলেও এই বোকামিটি অনেকেই করেন। অনলাইনে ছবি দেয়ার ব্যপারে অনেক সতর্ক হতে হবে। আপনি সামান্য পরিচয়ে যাকে আপনার ছবি দিচ্ছেন সে তা ব্যবহার করতে পারে অশ্লীল কোন ছবিতে। নিজের ছবি ফেসবুকে বা অন্য কোথাও দেয়ার পর তা অবশ্যই সকলে দেখাবার জন্য উন্মুক্ত রাখাও নিরাপদ নয়। কারন যে কেউ এই ছবি ব্যবহার করতে পারে খারাপ কোনো কাজে। কেবল কিছু লাইক কমেন্ট পাওয়ার আশায় নিজের ছবি প্রাইভেসি সেটিং না দিয়ে রাখাটা বোকামির চূড়ান্ত। বিশেষ করে মেয়েদের ক্ষেত্রে। আপনার কলিগ, বন্ধু,যেইবা হোক আজকের বিশ্বাসী আগামীর পরম শত্রু মনে রাখুন। আপনার কলিগ আপনার ছবি নিয়ে বিভিন্ন সাইটে দিতে পারে। আপনি মনে করবেন ও আপনার ভাল বন্ধু। কিন্তু ভেতরে ভেতরে আপনার লাইফ শেষ করে দিচ্ছে যা আপনি নিজেও বুঝতে পারবেন না। এমনকি আপনার সবচেয়ে দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে আপনার জীবনের মারাত্মক ক্ষতি ডেকে আনতে পারেন, তার জন্য কিন্তু আপনিই দায়ী। নিজেকে মডার্ণ ভাবতে গিয়ে জীবনের মারাত্মক বিপদ ডেকে আনতে পারেন। বর্তমান ইন্টারনেটের যুগে আপনার সতর্ক আপনাকেই হতে হবে। বিশ্বাস করবেন কিন্তু আবেগে নই। মনে রাখুন আপনার জীবনের ভুল কেউ বহন করবে না। আপনাকেই করতে হবে। এই ধরনের ঝুকিতে বিশ্বের ১৮টি দেশের মধ্যে মেয়েরাই দায়ী। সুত্র ডন

চ্যটিংএ কারো সম্পর্কে খারাপ কিছু বলা

অনেকেই আছেন যারা বন্ধু বান্ধব কিংবা পরিচিত মানুষের সাথে চ্যটিং এর সময় অন্য কারো সম্পর্কে খারাপ কথা বলে থাকেন। এটাও একটি বড় ধরণের বোকামি। এতে করে আপনি অনেক বড় ঝামেলায় জড়িয়ে যেতে পারেন। কারন এই চ্যটিং যদি অন্য কারো সামনে চলে আসে কিংবা আপনি যাকে বিশ্বাস করে বলেছেন সেই মানুষটাই যদি অন্য কারো কাছে এসবের স্ক্রিন শট দেয়, তবে আপনি বিপদে পড়ে যাবেন। যত ভালো বন্ধুই হোক কিংবা যত ভালো পরিচিতিই থাকুক না কেন কারো সম্পর্কে অনলাইনে খারাপ কিছু বলবেন না।

অনলাইনে অশালীন কথা বার্তা বলা

অনলাইনে আবেগের বশে এমন কোনো ধরণের কথা বলা একদমই উচিৎ নয় যাতে আপনি পরবর্তীতে বিপদে পড়তে পারেন। কারণ যে কোনো কিছুর স্ক্রিন শট রেখে পরবর্তীতে ব্ল্যাকমেইল করতে পারেন অপর পাশের ব্যক্তিটি। কারো সাথে কথা বলার সময় যদি মনে হয় সে তার কথা বার্তা অশালীন তাহলে তখনই সাবধান হয়ে যান। সবচেয়ে ভালো হয় এধরণের আপত্তিকর আচরণ দেখলে ব্লক করে দেয়া যাতে সে পরবর্তীতে কোনো যোগাযোগ করতে না পারে।
নতুন পরিচিত বন্ধুর সাথে সারাদিন চ্যাটিং

এই ভুলটি অনেকেই করেন। ১/২ দিনের পরিচিত নতুন বন্ধুর সাথে সারাদিনই চ্যাটিং-এর মাধ্যমে কথা চালিয়ে যান অনেকেই। এটা অনেক বড় একটি বোকামি, কারণ এতে করে আপনার দৈনন্দিন রুটিনের সাথে পরিচিত হচ্ছে আপনার নতুন বন্ধুটি। আর এত দ্রুত কাউকে নিজের জীবনে স্থান দেয়ার ফলাফল হতে পারে ভয়ানক।
ভিডিও চ্যাটিং করা

অনেকেই আছেন যারা স্কাইপে কিংবা ইয়াহু অথবা ফেইসবুকে অপরিচিত কিংবা সামান্য পরিচিত মানুষের সাথে ভিডিও চ্যাট করে থাকেন। কয়েকদিনের পরিচিত মানুষ হলেও এই কাজটি করা বোকামির পর্যায়ে পড়ে। কারণ এতে করে আপনার অনেক ছবি তুলে রাখা যায় এবং ওয়েব ক্যামেরার মাধ্যমে আপনার ঘরের অনেক কিছু অপরপাশের ব্যক্তির কাছে স্পষ্ট হয়ে যায়। এর মাধ্যমে আপনি নিজেই তাকে ব্ল্যাকমেইল করার নানান উপকরণ দিয়ে দিচ্ছেন। খুব ঘনিষ্ঠ মানুষ ছাড়া ভিডিও চ্যাট করা অনুচিত।
অল্প দিনের পরিচয়ে দেখা করা কিংবা ডেটিংএ যাওয়া

অনলাইনে ২/৩ দিনের পরিচিত কোন মানুষের সাথে দেখা করতে যাওয়া অনেক বড় বোকামি। কারন যে মানুষটির সাথে দেখা করতে যাচ্ছেন তাকে আপনি ভালো মত জানেনই না। খারাপ মানুষ হলে ছিনতাই, রেপ এমনকি খুনের মত বিপদের সাথে নিজেকে জড়িয়ে ফেলতে পারেন। ইদানিং এই ধরণের ঘটনার সংখ্যা বেড়ে চলেছে। সুতরাং সতর্ক থাকুন।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.