২০শে জুলাই, ২০১৮ ইং | ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:২৭
সর্বশেষ খবর
শীতবস্ত্র বিতরণ করছেন জেলা প্রসাশন

পঞ্চগড়ে গভীর রাতেও শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করছেন জেলা প্রসাশন

এন এ রবিউল হাসান লিটন, পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ  অব্যাহত শৈত্য প্রবাহ আর উত্তর থেকে ধেয়ে আসা হিমেল হাওয়ায় পঞ্চগড়ের জনজীবন বিপর্যন্ত হয়ে পড়েছে। নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষগুলো যুবুথুবু হয়ে পরেছে।
পঞ্চগড়ে নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া শীতার্ত মানুষগুলোর পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন। সরকারিভাবে পাওয়া শীতবস্ত্রগুলো দরিদ্র শীতার্তদের মাঝে বিতরণে এখন তারা ব্যস্ত সময় পার করছে। শুধু দিনের বেলাতেই নয়, গভীর রাতও তারা ছুটে যাচ্ছেন গ্রাম, পাড়া মহল্লার দরিদ্র শীতার্তদের কাছে।
জেলা প্রশাসনের লোকজন শীতবস্ত্র নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন শহরের বিভিন্ন স্থানে। শীত নিবারণে কারোর শরীরে বস্ত্র না থাকলে তার হাতে তুলে দিচ্ছেন শীতবস্ত্র। এমনকি এতিমখানা, আবাসন প্রকল্পের বাসিন্দা, ছিন্নমূল মানুষসহ রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো পাগলদেরও শীতবস্ত্র দিচ্ছেন তারা। জেলার পাঁচ উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারাও শীতবস্ত্র নিয়ে ছুটছেন দরিদ্র শীতার্তদের কাছে।
পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এহেতেশাম রেজা বলেন, আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে প্রকৃতভাবে যারা শীতবস্ত্র পাওয়ার যোগ্য, আমরা তাদেরকেই শীতবস্ত্র দিচ্ছি। সেইসাথে আমরা সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও সমাজের বিত্তবানদেরও শীতার্তদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।
পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আব্দুল আলীম খান ওয়ারেশী বলেন, আমরা এই শৈত্যপ্রবাহে দরিদ্র শীতার্তদের মাঝে সরকারিভাবে পাওয়া শীতবস্ত্র ও শুকনো খাবার বিতরণ করে যাচ্ছি। জেলা প্রশাসন এবং উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারিরা পাড়া মহল্লায় গিয়ে শীতবস্ত্র বিতরণ করছেন।
তিনি বলেন, আমরা পঞ্চগড়ের শীতার্ত মানুষের জন্য সরকারিভাবে কয়েক দফায় ৩৩ হাজার কম্বল ও ২৯ হাজার সোয়েটার ও ৪ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার পেয়েছি। তারমধ্যে অধিকাংশই বিতরণ করা হয়ে গেছে। এছাড়া, প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে জেলার সাড়ে ৫ হাজার শীতার্তকে একটি করে কম্বল ও ২০০ টাকা করে বিতরণ করা হয়েছে।
আব্দুল আলীম খান ওয়ারেশী বলেন, কিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও সেচ্ছাসেবী সংগঠন বিভিন্ন এলাকায় বিচ্ছিন্নভাবে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে। এখনও কিছু দরিদ্র মানুষ শীতবস্ত্র পাননি। আমরা মন্ত্রণালয়ে আরও শীতবস্ত্রের চাহিদা পাঠিয়েছি। আশা করি, তা অল্প কয়েক দিনের মধ্যে পেয়ে যাবো। পেলেই শীতার্তদের কাছে শীতবস্ত্র পৌছে দেয়া হবে।
শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.