সর্ব শেষ খবর
২০শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৭ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:২৬
সংখ্যালঘু কনভেনশন

সংখ্যালঘুর অধিকার আদায়ে ৭ দফা দাবি হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের

বিশেষ প্রতিবেদক : আপামর হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ও আদিবাসী জনগোষ্ঠির অস্তিত্বের সংকট থেকে উত্তরণ, সম অধিকার ও সম-মর্যাদা প্রতিষ্ঠার লক্ষে ১৯টি দলের ঐক্যমতে সাত দফা দাবিনামা উত্থাপিত করেছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদসহ ১৯টি দলের আয়োজনে জাতীয় ঐকমত্যের ৭ দফা দাবিনামা পাঠ করেন এডভোকেট তাপস কুমার পাল।

কনভেনশনে ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্তের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি ও তাকে হত্যার হুমকির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

কনভেনশনে সভাপতিত্ব করেন মি. হিউবার্ট গোমেজ। অধ্যাপক হিরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস এতে শোকপ্রস্তাব উত্থাপন করেন। ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।

আলোচনায় অংশ নেন ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, পংকজ ভট্টাচার্য, ড. দূর্গাদাস ভট্টাচার্য, ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক, পীযুষ বন্দোপাধ্যায়, সাবেক প্রতিমন্ত্রী গৌতম চক্রবর্তী, ঊষাতন তালুকদার এমপি, সাধন মজুমদার এমপি, ছবি বিশ্বাস এমপি, মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি, হেপী বড়াল এমপি, পংকজ দেবনাথ এমপি, সুনীল শুভ রায়, ক্যাপ্টেন শচীন কর্মকার, লে. কর্নেল নিরঞ্জন ভট্টাচার্য, সাবেক সচিব হীরা লাল বালা, সাবেক ডিআইজি সত্যরঞ্জন বাড়ৈ, ডা. অসীম রঞ্জন বড়য়া, ড. সুকোমল বড়য়া, মনোরঞ্জন ঘোষাল, রেমন্ড আরেং, বিজন কান্তি সরকার, সাংবাদিক মনোজ রায়, নির্মল রোজারিও, সোমনাথ দে, ড. প্রভাষ চন্দ্র রায়, জয়ন্ত কুমার কুন্ডু, মানবেন্দ্র দেব, বাপ্পাদিত্য বসু, এডভোকেট ডি এল চৌধুরী, প্রিয়া সাহা, অধ্যাপক রঞ্জিত কুমার নাথ, ইঞ্জিনিয়ার অরবিন্দ মিত্র প্রমুখ।

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে কনভেনশন শুরু হয়। প্রায় ৫ ঘণ্টা স্থায়ী এ কনভেনশনের প্রথম ও দ্বিতীয় পর্ব পরিচালনা করেন যথাক্রমে মনীন্দ্র কুমার নাথ ও সাংবাদিক শ্যামল দত্ত। এতে কনভেনশনের ঘোষণাপত্র পাঠ করেন সঞ্জীব দ্রং। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ভিক্ষু সুনন্দপ্রিয়।

কনভেনশনে বক্তারা বলেন, যে চেতনার ওপর ভিত্তি করে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ অর্জিত হয়েছিল তা থেকে বাংলাদেশ স্বাধীনতার সুদীর্ঘ ৪৭ বছর পরেও যোজন দূরে দাঁড়িয়ে আছে। সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, মৌলবাদিতা সমাজ, রাষ্ট্র ও রাজনীতির রন্ধ্রে রন্ধ্রে ছড়িয়ে পড়েছে। সাম্য, সমতা ও সামাজিক মর্যাদার যে নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছিল স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে তা এখনো সোনার পাথরবাটি।

আলোচকরা তাদের আলোচনায় বিদ্যমান রাজনৈতিক, সামাজিক পরিস্থিতে সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মান্ধতার ব্যাপক উত্থানে এ দেশের ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসী জনগোষ্ঠী অস্তিত্বের সংকটে ভুগছে বলে উল্লেখ করেন। তারা বলেন, একটানা সাম্প্রদায়িক হামলা, নির্যাতন, ভয়-ভীতি, হুমকি, জমি জবরদখল এমনকি ক্ষেত্র বিশেষে হত্যা তাদের দিশেহারা ও নিরাপত্তাহীন করে তুলছে। এতে সংখ্যালঘুদের মধ্যে দেশত্যাগের প্রবণতা আবার দেখা দিয়েছে, অনেকে ইতোমধ্যে দেশত্যাগে বাধ্য হয়েছে।

আলোচকরা এ মর্মে ঐকমত্য পোষণ করেন যে, দল ও মতের ভিন্নতা সত্ত্বেও সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের স্বার্থ ও অধিকারের প্রশ্নে একাট্টা হয়ে আজ ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলা সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে। তারা বলেন, নচেৎ ভবিষ্যৎ সবার জন্যই অন্ধকার। তারা সবার আগে সংখ্যালঘুদের জানমালের নিরাপত্তার দাবি জানান।

জাতীয় ঐক্যমত্যের ৭দফা দাবিনামা

১. ক্ষমতায়ন ও প্রতিনিধিত্বশীলতাঃ

(ক) জাতীয় সংসদে ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসি জনগোষ্ঠির যথাযথ অংশীদারিত্ব ও প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার লক্ষে যুক্ত নির্বাচনের(সার্বজনীন ভোটের) ভিত্তিতে ২০% হারে(৭০-র জনসংখ্যা অনুসারে) ৬০টি আসন সংরক্ষণ করতে হবে। জনপ্রতিনিধিত্বশীল সকল সংস্থায়ও অনুরূপ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

(খ) সাংবিধানিক পদসহ প্রশাসনিক কাঠামোর সর্বস্তরে, পররাষ্ট্র, পুলিশ ও প্রতিরক্ষা বাহিনীসহ সরকারি চাকরির সকল স্তরে ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের ২০% পদায়ন সুনিশ্চিত করতে হবে।

(গ) ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসী জনগোষ্ঠির রাজনৈতিক ক্ষমতায়ণ নিশ্চিত করতে হবে এবং এ লক্ষে দেশের সব রাজনৈতিক দলের তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত প্রতিটি সাংগঠনিক কমিটির নীতি নির্ধারনী পর্যায়ে অন্যুন ২০% হারে সংখ্যালঘু-আদিবাসীর অংশগ্রহণ সুনিশ্চিত করতে হবে।

২. সাংবিধানিক বৈষম্য বিলোপকরণ

(ক) রাষ্ট্রীয় অন্যতম মূলনীতি ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ সম্পর্কীয় সংবিধানের ১২ নম্বর অনুচ্ছেদের সাথে সাংঘর্ষিক ২ক অনুচ্ছেদের বিলোপ করে ১৯৭২সালের সংবিধানের মৌল আদলে রাশট্র ও রাজনীতিতে ধর্মনিরপেক্ষ নীতির যথাযথ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে অবে।

(খ) আদিবাসী জনগোষ্ঠীর ন্যায্য অধিকারের ও পরিচয়ের স্বীকৃতি দিতে হবে।

(গ) ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘু এবং আদিবাসি জনগোষ্ঠির সাংবিধানিক রক্ষাকবচ(Constitutional Safeguard) সম্বলিত অনুচ্ছেদ সংবিধানে সংযোজন করতে হবে।

৩. সম-অধিকার ও সমমর্যাদা

(ক) ধর্মী য়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও সমতলের আদিবাসীদের কল্যাণে ও উন্নয়নে সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় গঠন করতে হবে।

(খ) ধর্মীয়-জাতিওগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠির উন্নয়ন ও কল্যাণে জাতীয় রাজস্ব বাজেট থেকে বার্ষিক বরাদ্দ প্রদান করে বিদ্যমান কল্যাণ ট্রাস্ট সমূহকে ফাউণ্ডেশনে রূপান্তরিত করতে হবে এবং অনুরূপভাবে আদিবাসীদের জন্য পৃথক ফাউন্ডেশন গঠন করতে হবে।

(গ) ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের মানবাধিকার সুরক্ষায় জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন করতে হবে।

(ঘ) সংসদ অধিবেশন, মন্ত্রীপরিষদের শপথ গ্রহণসহ রাষ্ট্রীয় সকল কর্মসূচির শুরুতে পূর্বে সক্ল ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠের ব্যবস্থা করতে হবে।

(ঙ) ’৪৭ থেকে এ পর্যন্ত সময়কালের মধ্যে দেশের সংখালঘু-আদিবাসী জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ক্রমবর্ধমানহারে হ্রাসের কারণ নির্ণয়নে ও তা রোধে সুপারিশ প্রদানের নিমিত্তে সংসদীয় কমিশন গঠন করতে হবে।

(চ) আদিবাসী ককাসের অনুরূপ ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘুবিষয়ক সংসদীয় ককাস গঠনের উদ্যোগ নিতে হবে।

(ছ) সকল ধর্ম ও সম্প্রদায়ের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি রাষ্ট্রিয়ভাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

৪. স্বার্থবান্ধব আইন বাস্তবায়ন ও প্রণয়ন

(ক) পার্বত্য শান্তিচুক্তির দ্রুত বাস্তবায়নসহ এ চুক্তির আলোকে পার্বত্য ভূমি কমিশন আইনের প্রয়োজনীয় সংশোধনী এনে অনতিবিলম্বে তা কার্যকর করতে হবে।

(খ) সমতলের আদিবাসী জনগোষ্ঠীর ভূমি সমস্যার নিশ্চিত সমাধানের নিমিত্তে পৃথক ভূমি কমিশন গঠন করে তাদের ভূমির অধিকার সুনিশ্চিত করতে হবে।

(গ) ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু স্বার্থবান্ধব অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন, দানের ঘোষণা সম্বলিত নিবন্ধন আইন ও হিন্দু বিবাহ নিবন্ধন আইনের দ্রুপ বাসতবায়ন করতে হবে।

(ঘ) দেবোত্তর সম্পত্তি আইন প্রণয়ন ও তা বাসতবায়োন করতে হবে;

(ঙ) অধিকতর অনগ্রসর জনগোষ্ঠী হরিজন, দলিত, ঋষি সম্প্রদায় এবং অবহেলিত চা-শ্রমিকদের পেশা ও ভূমির অধিকারসহ তথা সামগ্রিক কল্যাণে সকল প্রকারের সামাজিক বৈষম্য নিরসনে বিশেষ আইন প্রণয়নসহ নানাবিধ কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে ও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এর বাসতবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। একই সাথে শিক্ষিত হরিজন, দলিত, ঋষি জনগোষ্ঠির শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী চাকরি কোঠার মাধ্যমে নিয়োগের নিমিত্তে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জারিকৃত প্রজ্ঞাপন অনতিবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে।

৫. শিক্ষা ব্যবস্থার বৈষম্য নিরসন

(ক) জাতীয় স্কুল টেক্সট বুক বোর্ড প্রণীত ও অনুমোদিত পাঠ্যপুস্তকে দেশের সকল ধর্ম ও জাতিসত্বার সম-মর্যাদার প্রতিফলন ঘটাতে হবে।

(খ) দেশের সকল বিদ্যালয়ে ইসলাম ধর্ম শিক্ষার পাশাপাশি হিন্দু, বৌদ্ধ খ্রিস্টানসহ অপরাপর ধর্মীয় সম্প্রদায়ের ধর্মজ্ঞ শিক্ষক নিয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। সকল পর্যায়ের ধর্মশিক্ষকের ক্ষেত্রে বেতন বৈষম্যের অবসান করতে হবে। রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে, অনুদানে ও পরিচালনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সকল ধর্মের ধর্মীয় শিক্ষায়তন চালু করতে হবে। সংখ্যালঘুর সম্প্রদায়ের ধর্মশিক্ষার বিদ্যমান শিক্ষায়তনগুলোকে আধুনিক ও যুগোপযোগী করতে হবে।

৬. দায়মুক্তির সংস্কৃতি থেকে উত্তরণ

(ক) ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের ওপর হামলার ক্ষেত্রে দায়মুক্তির সংস্কৃতির অবসান ঘটাতে হবে এবং তাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিতকরণের লক্ষে সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করতে হবে।

(খ) সংখ্যালঘু সুরক্ষাজনিত আইন প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত দ্রুত বিচার আইন ও সন্ত্রাস দমন আইনে শাস্তির বিধান বাড়িয়ে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসীদের দ্রুততম সময়ে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজনে বিশেষ ক্ষমতা আইন প্রয়োগ সুনিশ্চিত করতে হবে।

(গ) ২০০১ সালের নির্বাচনের পূর্বাপর সময়ে সংঘটিত সাম্প্রদায়িক সহিংস ঘটনাবলীর বিষয়ে গঠিত সাহাবুদ্ধিন কমিশন রিপোর্টের সুপারিশমালার যথাযথ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

(ঘ) সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসরোধে এলাকার জনপ্রতিনিধিদের, প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।

৭. মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, সন্ত্রাসমুক্ত বাংলাদেশ

যেকোন ধরনের সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধন্তা, বর্ণবৈষম্য ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপ রোধে রাষ্ট্রকেই দায়িত্ব নিতে হবে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টিকে সুনিশ্চিত করতে হবে।

যথাযথ ক্ষমতায়ণ ও অংশীদারিত্ব নিশ্চিতকরণসহ উল্লেখিত দাবিসমূহ বাস্তবায়ন করা না হলে ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসী জনগোষ্ঠী ভবিষ্যতে ভিন্ন চিন্তা করতে বাধ্য হবে, যা কারও কাছে কাম্য নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*