১৬ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৩রা মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:২৬
ভারতে প্রধান বিচারপতি

ভারতে প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে চার বিচারপতির অনাস্থা

বিশেষ প্রতিবেদকঃ ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের চারজন জ্যেষ্ঠ বিচারক প্রকাশ্য সংবাদ সম্মেলন করে প্রধান বিচারপতির কর্তৃত্বকে চ্যালেঞ্জ করেছেন। দেশটির ইতিহাসে অভূতপূর্ব এ ঘটনায় তারা অভিযোগ করেন প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র নিজের মর্জিমাফিক বিভিন্ন বেঞ্চে মামলা পাঠাচ্ছেন। এসময় তারা প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে কোর্টে নিয়ম লঙ্ঘনেরও অভিযোগ তোলেন।

বিচার বিভাগের দুর্নীতি এবং নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে অনেকদিন ধরেই একটা চাপা অসন্তোষ চলছিল। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার দিল্লিতে বিচারপতি জে চেলামেশ্বরের বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করেন তারা। ওই বৈঠকে চেলামেশ্বর ছাড়া উপস্থিত ছিলেন প্রবীণ বিচারপতি কুরিয়েন জোসেফ, বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ও বিচারপতি মদন লোকুর।

ওই বিচারকরা তাদের বিলি করা চিঠি ও সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, আদালতের নিয়ম মানা না হলে ভারতের গণতন্ত্র হুমকির মুখে পড়বে।

এই প্রথমবারের মতো ভারতের সুপ্রিম কোর্টের বিচারকরা মিডিয়ার সামনের কথা বলেছেন।

রীতি অনুযায়ী, সুপ্রিম কোর্টের বিচারকরা এর আগে কখনো মিডিয়ার সঙ্গে সরাসরি কথা বলেননি। আদালতে বিচার কাজ পরিচালনায় নিরপেক্ষতা অক্ষুণ্ণ রাখার স্বার্থের বিচারকরা সংবাদমাধ্যমের সামনে আসেন না।

ওই চার বিচারক তাদের চিঠিতে অভিযোগ করেন, শীর্ষ আদালতে মামলা বণ্টন ও বিচারপতিদের নিয়োগ থেকে শুরু করে আরো নানা বিষয়ে গরমিল রয়েছে। তাদের দাবি, মামলার প্রভাবের বিষয়ে ‘কোনো ধরনের যৌক্তিকতা’ বিবেচনায় না দিয়ে ‘দেশের ওপর সুদূরপ্রসারী প্রভাব বিস্তারকারী’ এসব মামলা পছন্দানুযায়ী বেঞ্চে পাঠান প্রধান বিচারপতি।

আদালতে ‘বেশকিছু বিচারিক আদেশ’ নিয়েও তারা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, ওই আদেশগুলো আদতে আদালতের কার্যক্রমে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

ওই বিচারকরা আরো অভিযোগ করে বলেন, এর আগে এ বিষয়ে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আলোচনা করে কোনো ফল পাননি তারা। তাই বাধ্য হয়েই ‘জাতির উদ্দেশে’ এই সংবাদ সম্মেলন করার দাবি করেছেন ওই বিচারপতিরা।

তবে কোন কোন মামলা প্রধান বিচারপতি তার পছন্দসই বেঞ্চে পাঠিয়েছেন সেটি উল্লেখ করেননি তারা। ভারতীয় গণমাধ্যমে ব্যাপক জল্পনা রয়েছে, একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির দুর্নীতির বিষয়টি এর একটি। গত বছরের আগস্টে এই ঘটনা নিয়ে তুমুল বিতর্ক ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের ভেতর চলতে থাকা এই টানাপোড়েন প্রকাশ্যে নিয়ে আসে।

এদিকে জ্যেষ্ঠ বিচারকদের ওই সংবাদ সম্মেলনের পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশটির আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*