১৬ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৩রা মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:১৯

চট্টগ্রামে বিনামূল্যের বই ১০ টাকা, ভর্তিতে দ্বিগুন বৃদ্ধি নেওয়ার অভিযোগ

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রামঃ বিনামূল্যের পাঠ্যবইয়ের খরচ বা ফি বাবদ প্রতিটি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ১০ টাকা। দাবি করা হচ্ছে আরো বেশি। ভর্তিতে আদায় করা হচ্ছে দ্বিগুণেরও বেশি টাকা।

পঞ্চম থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ভর্তি ও পুন:ভর্তিতে ফি বাবদ নেয়া হচ্ছে প্রায় ৬ হাজার টাকা। খোদ প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির ফি নেয়া হচ্ছে ৪ হাজার ৮২০ টাকা।

সরকারি বিধি লংঘন করে বিনামূল্যের বইয়ের জন্য টাকা নেয়া, ভর্তির নীতিমালা অমান্য করে খুশিমতো ফি আদায়ের এমন অভিযোগ চট্টগ্রাম মহানগরের কয়েকটি স্কুলে। এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের বরাবরে কয়েকটি অভিযোগও দাখিল করেছেন অভিবাবকরা।

অভিবাকরা জানান, চট্টগ্রাম মহানগরীর কাজেম আলী স্কুল এন্ড কলেজ, এনএমসি উচ্চ বিদ্যালয়, সেন্ট প্লাসিড স্কুল এন্ড কলেজ, মনসুরাবাদ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড উচ্চ বিদ্যালয়সহ সরকারি-বেসরকারি একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ বিনামূল্যের পাঠ্যবইয়ে টাকা আদায় ও ভর্তি-পূন:ভর্তিতে লাগামহীন টাকা চলছে।

চট্টগ্রাম অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. হাবিবুর রহমান এ প্রসঙ্গে বলেন, ইতোমধ্যে আমরা এ ধরনের কয়েকটি অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকে ডেকে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণ সাপেক্ষে এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অভিযোগে জানা যায়, চট্টগ্রাম মহানগরীর মনসুরাবাদ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রতিটি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে বিনামূল্যের বইয়ের খরচ হিসেবে ১০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। কারো কারো কাছ থেকে সুযোগ বুঝে ২০-৫০ টাকা পর্যন্ত দাবি করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অভিভাবক বলেন, আমার সন্তান লটারির মাধ্যমে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েছে। ওর ভর্তি ফি বাবদ স্কুল কর্তৃপক্ষ ৪ হাজার ৮২০ টাকা দাবি করে। পরে কিস্তির মাধ্যমে ২ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে ভর্তি করিয়েছি।

এছাড়া আমার এবং অন্য অভিভাবকদের কাছ থেকেও বিনামূল্যের বইয়ের জন্য প্রায় বাধ্যতামূলকভাবেই ১০ টাকা করে নেয়া হয়েছে। আবার অনেকের কাছ থেকে এর বেশিও আদায় করে নিয়েছে। এই টাকা বইয়ের খরচ বলে জানানো হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অপর এক অভিভাবক বলেন, তার কাছ থেকে প্রথম শ্রেণির ভর্তি ফি বাবদ ৪ হাজার ৮৪৫ টাকা দাবি করা হয়েছে। দুই কিস্তিতে তিনি সেই ফি পরিশোধ করার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রথম কিস্তিতে ২ হাজার ৫২০ টাকা দিয়ে ভর্তি করিয়েছেন তার সন্তানকে।

একই বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে তৃতীয় শ্রেণিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে পুন:ভর্তি ফি বাবদ ৫ হাজার ২২০ টাকা টাকা দাবি করা হয়েছে। পঞ্চম শ্রেণি থেকে ষষ্ঠ শ্রেণি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে পুন:ভর্তি ফি বাবদ আদায় করা হচ্ছে ৫ হাজার ৮৪৫ টাকা করে।

নগরীর সবচেয়ে পূরণো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কাজেম আলী স্কুল এন্ড কলেজেও ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৪ হাজার ৫০০ টাকা থেকে ৫ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করা হয়েছে। একই পরিবারের দু‘শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য ৮ হাজার ৫০০ টাকা পরিশোধ করেছেন বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক অভিবাবক।

তিনি বলেন, আমার এক সন্তান সপ্তম শ্রেণি থেকে উত্তীর্ণ হয়ে ৮ম শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছে। তার পূন:ভর্তি এবং আরেক সন্তান ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে নতুন ভর্তি হয়েছে। তাতে এ টাকা আদায় করা হয়েছে।

অথচ ভর্তি নীতিমালা ২০১৭ অনুযায়ী, ভর্তির আবেদন ফরমের জন্য এমপিওভুক্ত, আংশিক এমপিওভুক্ত এবং এমপিও–বর্হিভূত সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সর্বোচ্চ ২০০ টাকা পর্যন্ত গ্রহণ করা যাবে। সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি সর্বসাকুল্যে মফস্বল এলাকায় ৫০০, পৌর ও উপজেলা এলাকায় এক হাজার, পৌর ও জেলা সদর এলাকায় ২ হাজার এবং মেট্রোপলিটন এলাকায় সর্বোচ্চ ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়া যাবে।

একই প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এক ক্লাস থেকে পরবর্তী ক্লাসে ভর্তির ক্ষেত্রে সেশন চার্জ নেয়া যাবে। কিন্তু পুন:ভর্তির ফি নেয়া যাবে না। দরিদ্র, মেধাবি ও প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী ভর্তিতে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ নির্ধারিত ফি যতদূর সম্ভব মওকুফের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নসহ অন্যান্য ফি গ্রহণ করা যাবে না।

এছাড়া বছরের প্রথম দিনেই বই উৎসবের মাধ্যমে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে সরকারের বিনামূল্যের পাঠ্যবই তুলে দিতে হবে। কোনো কারণে কোনো শিক্ষার্থী উপস্থিত হতে না পারলে পরে তাকে সেই বই বুঝিয়ে দিতে হবে স¤পূর্ণ বিনামূল্যে। একইভাবে শিক্ষার্থী ভর্তির পরেও তাকে নির্দিষ্ট শ্রেণির বই বিনামূল্যেই দিতে হবে। এজন্য কোনো ধরনের টাকা পয়সা নেয়ার কোনো বিধান নেই।

বিনামূল্যে বিতরণের বই কথাটি প্রতিটি বইয়ের ভেতরেও লেখা রয়েছে। অপরদিকে, ভর্তির নীতিমালা অনুযায়ী মেট্রোপলিটন এলাকায় ভর্তি ফি সর্বোচ্চ ৩ হাজার টাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এক শ্রেণি থেকে অপর শ্রেণিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে কোনো পুন:ভর্তি ফি নেয়া যাবে না। শুধুমাত্র সেশন ফি নিতে হবে এবং তা কোনো ক্রমেই ৩ হাজার টাকার বেশি হতে পারবে না।

ভর্তি কার্যক্রম শুরুর আগেই চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন আয়োজিত ২০১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি তদারকি ও পরিবীক্ষণ কমিটির মতবিনিময় সভায় এসব নির্দেশনা ¯পষ্টভাবে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিনিধিদের সামনে তুলে ধরা হয়। এতে বলা হয়, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির নীতিমাল-২০১৭ মেনে চলতে হবে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে। অন্যায়ভাবে অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে বাণিজ্য করার কোনো সুযোগ নেই এখানে। ভর্তির নীতিমালা অমান্য করা হলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একাডেমিক স্বীকৃতি বাতিল করা হতে পারে।

অভিভাবকদের অভিযোগ প্রসঙ্গে ক্যাব চট্টগ্রামের সভাপতি এস.এম নাজের হোসাইন বলেন, এ ধরনের বাড়তি ফির ব্যাপারে অভিভাবকদের সচেতন হবে। আমাদের কাছে প্রয়োজনীয় প্রমাণসহ অভিযোগ জানালে আমরা এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার ব্যাপারে সহযোগিতা করবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*