১৬ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৩রা মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:১৬

ভোটের ‘টোপ’ দিচ্ছে সরকার: আসিফ নজরুল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সংসদ নির্বাচনে ‘কারচুপি’ করার উদ্দেশ্য থেকে আওয়ামী লীগ সরকার তার আগের সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলোতে কোনো প্রভাব খাটাচ্ছে না বলে সন্দেহ করছেন অধ্যাপক আসিফ নজরুল।দশম সংসদ নির্বাচনের আগের সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলোর দিকে ইঙ্গিত করে বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে সুজন আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনায় নিজের এই সন্দেহের কথা প্রকাশ করেন তিনি।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে এই বৈঠকটি আয়োজন করা হয়। বছর শেষে একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে আরও কয়েকটি সিটি করপোরেশনে ভোট হবে।

আসিফ নজরুল বলেন, “রকিব কমিশনের সময় পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি বিজয়ী হয়ে অতি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠে। পরে সরকার অতিমাত্রায় আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে। ফলশ্রুতিতে আমরা ৫ জানুয়ারির মতো পৃথিবীর ইতিহাসে একটি বিরল নির্বাচন পেয়েছি।

“আমার কাছে মনে হয়, মেয়র নির্বাচনটা বর্তমান সরকারের একটা টোপের মতো। মেয়র নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করে তারা বিরোধী দল, গণমাধ্যম ও আমাদের সাধারণ নাগরিকদের বোঝানোর চেষ্টা করে যে, বর্তমান সরকার বহাল থাকা অবস্থাতেই এই নির্বাচন কমিশনের পক্ষে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব।

“এ ধরনের একটা ইমপ্রেশন দেওয়ার চেষ্টা থাকে। অন্তত অতীতে আমরা দেখেছি। কিন্তু আসল নির্বাচনে সময় তারা সেই নিরপেক্ষতা ও গ্রহযোগ্যতা বজায় রাখতে পারে না।”

রংপুর সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হেরেছে। এর আগে কুমিল্লা সিটি নির্বাচনেও হারে তাদের প্রার্থী। তা দেখিয়ে আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, নির্বাচন কমিশনের কোনো কাজে সরকার হস্তক্ষেপ করছে না।

আওয়ামী লীগের চোখে বিএনপিঘেঁষা আসিফ নজরুল বলেন, জাতীয় নির্বাচন ‘অবাধ ও সুষ্ঠু’ হবে, রংপুরের মেয়র নির্বাচন থেকে এমন সিদ্ধান্তে যাওয়া ঠিক হবে না।

বিএনপি অংশগ্রহণ করলে সেই নির্বাচন ২০১৪ সালের চেয়ে ‘ভালো নির্বাচন’ হবে। সেজন্য দলটিকে ভোটে আনতে ক্ষমতাসীনদের প্রতি আহ্বান জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক।

“সরকারের কাছে আমাদের প্রথম প্রত্যাশা থাকবে, আপনারা মুখে বলবেন বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিক, তবে এমন কিছু করবেন না, যাতে তারা আবার নির্বাচন বর্জন করতে পারে, এই সুযোগটা দিয়েন না।”

সংসদ নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের পক্ষেও বলেন তিনি।

গোলটেবিলে সুজনের নির্বাহী সদস্য ও সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার বলেন, রংপুরের নির্বাচনে সাফল্য ছোট করে দেখা যাবে না।

“সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর যতটুকু সোচ্চার হওয়ার উচিত, প্রতিবাদী হওয়া উচিত, তারা ততটা হয় না।”

সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, আগামী নির্বাচনগুলোকে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশনের অনেক কিছু করার রয়েছে। নির্বাচনী অঙ্গনকে পরিচ্ছন্ন করতে হলে পরিচ্ছন্ন ব্যক্তিদেরকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জিতে আসার সুযোগ করে দিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*