১৬ই জুলাই, ২০১৮ ইং | ১লা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৪:২৭

চট্টগ্রামে অবৈধ মোটরসাইকেলের ছড়াছড়ি, অসহায় পুলিশ প্রশাসন

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রামঃ চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে অভাবনীয় মূল্যে ভারতীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নতুন মোটরসাইকেল। ভারত থেকে স্থলপথে অবৈধ মোটরসাইকেল প্রতিদিন অনায়াসে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। বিভিন্ন হাত বদল হয়ে এসব মোটরসাইকেল ছড়িয়ে পড়ছে চট্টগ্রাম শহরের পাশাপাশি প্রতিটি উপজেলায়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, বাজার মূল্যের চেয়ে এক-তৃতীয়াংশ অথবা অর্ধেক মূল্যে ভারতীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল যত্রতত্র বেচাকেনা হচ্ছে। এসব অবৈধ মোটরসাইকেল ব্যবসায় জড়িত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী এবং প্রভাবশালী বিভিন্ন পেশার লোকজনের সমন্বয়ে গড়ে উঠা সিন্ডিকেট।

একসময় উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন সীমান্ত পথে এসব মোটরসাইকেল বাংলাদেশে প্রবেশ করতো। বর্তমানে কুমিল্লা-ফেনীসহ চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন সীমান্তপথে প্রতিদিন ভারতীয় মোটরসাইকেল দেশে প্রবেশ করছে। বেশিরভাগ মোটরসাইকেলের যন্ত্রাংশ আলাদা করে কার্টনে প্যাকেট করে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। পরে এসব যন্ত্রাংশ ফিটিং করে অবিকল শোরুমের মতো হিরো, হোন্ডা, টিভিএস, বাজাজ, মাহিন্দ্র, হোন্ডাসহ প্রতিটি ব্র্যান্ডের বিভিন্ন মডেলের মোটরসাইকেল পঞ্চাশ থেকে এক লাখ টাকার মধ্যে বিক্রি হয়। কিছু কিছু মোটরসাইকেল ফিটিং অবস্থায় সরাসরি দেশে প্রবেশ করছে। বাংলাদেশে গড়ে উঠা এই সিন্ডিকেট এক সময় ভারতের সিন্ডিকেট থেকে নানা কৌশলে সীমান্ত অতিক্রম করে মোটরসাইকেল নিয়ে আসতো। বর্তমানে ভারতের সিন্ডিকেট নিজ দায়িত্বে সীমান্ত অতিক্রম করে খোলা যন্ত্রাংশ অথবা পরিপূর্ণ ফিটিং করা মোটরসাইকেল বাংলাদেশে পৌঁছে দিচ্ছে।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, বাংলাদেশে বিআরটিএ’র রেজিস্ট্রেশন ছাড়া ১০০ থেকে ১৭৫ সিসিসি মোটরসাইকেলের বাজার দর ১ লাখ ২০ হাজার থেকে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। অথচ চট্টগ্রামে এ ধরনের অবৈধ মোটরসাইকেল ৭০ থেকে ১ লাখ টাকার মধ্যে পাওয়া যায়। চট্টগ্রাম বিভাগে গড়ে উঠা সিন্ডিকেটগুলোর কাছে টাকা পৌঁছে দিলে নকল ক্রয়-বিক্রয় রশিদের ভিত্তিতে বিভিন্ন পরিবহন অথবা রেলযোগে পার্শ্বেলের মাধ্যমে মোটরসাইকেল নির্ধারিত ঠিকানায় পৌঁছে যায়। আবার নগদ লেনদেন হলে সিন্ডিকেটের লোকজন নিজে চালিয়ে এনেও ক্রেতার কাছে মোটরসাইকেল হস্তান্তর করে থাকে।

আমদানি-রপ্তানি এবং কাস্টমসসহ সংশ্লিষ্ট মহলের কোনো কাগজপত্র না থাকায় মোটরসাইকেলগুলোর বৈধ রেজিস্ট্রেশন নেই। কারো কারো ক্ষেত্রে কেবল বেনামি প্রতিষ্ঠানের ক্রয়-বিক্রয় রশিদ পাওয়া যায়। বিআরটিএসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিভাগে ডিজিটাল সিস্টেম চালু থাকায় অবৈধ মোটরসাইকেলগুলো রেজিস্ট্রেশনের কোনো সুযোগ থাকে না। সামনে পেছনে সাংবাদিক, পুলিশ অথবা বিভিন্ন প্রভাবশালী পেশার অথবা প্রতিষ্ঠানের স্টিকার লাগিয়ে এসব মোটরসাইকেল নির্বিঘ্নে ব্যবহার হচ্ছে। বিশেষ করে গ্রামে এ ধরনের মোটরসাইকেলের ছড়াছড়ি। কালেভদ্রে কোন সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মুখোমুখি হলে বিভিন্ন রাজনৈতিক পরিচয়, প্রভাবশালী কোনো মহলের রেফারেন্স অথবা বিভিন্ন অঙ্কের ঘুষের মাধ্যমে সহজেই মুক্ত হয়ে যায়। আবার কেউ টাকা খরচ করতে চাইলে মোটর সাইকেলের রেজিস্ট্রেশন নাম্বার ও সংশ্লিষ্ট কাগজপত্রও তৈরি করা সম্ভব। যেমন- কোন মোটরসাইকেলের ডকুমেন্ট আছে অথচ কোনো কারণে মোটরসাইকেলটির অস্থিত্ব নেই। সেই ডকুমেন্টের ভিত্তিতে অবৈধ মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন ও চেচিস নাম্বার টেম্পারিং করে কৌশলে সব কিছু জায়েজ করে নেয়া যায়। তবে মোটরসাইকেলের কন্ডিশন, মডেল আর রেজিস্ট্রেশনের সিরিয়াল নাম্বারের সাথে সব কিছু মিলিয়ে দেখলে নেপথ্যের সূক্ষ্ম কারুকাজের সকল ত্রুটি-বিচ্যুতি সহজেই নির্ধারণ করা যায়।

এছাড়া অবৈধভাবে আসা নতুন মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন ও চেচিস নাম্বার ঠিক রেখে হালনাগাদ সিরিয়ালের বিআরটিএ’র ভ্যাট ও রেজিস্ট্রেশনের কাগজও পাওয়া সম্ভব। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজন ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা। বিআরটিএ’র রেকর্ডে ভ্যাট ও রেজিস্ট্রেশনের এসব কাগজপত্রের কোনো অস্থিত্ব থাকে না। পুলিশ মোটরসাইকেল টো করার পর ট্রাফিক অফিস থেকে টাকার বিনিময়ে সহজেই গাড়ি ছাড়িয়ে আনা যায় বলে বিআরটিএ’র এসব নকল কাগজ নিয়ে জটিলতার আশঙ্কা থাকে না। ট্রাফিক অফিস থেকে কোনো কারণে কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করার জন্য বিআরটিএতে পাঠালেও শঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। কারণ টাকার উপর নির্ভর করে যাচাই-বাছাইয়ের প্রতিবেদন কেমন হবে। টাকার বিনিময়ে বিআরটিএতেও যেমন প্রতিবেদন দরকার তেমন আদায় করা যায়।

জানা যায়, চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন সীমান্ত পথ দিয়ে ভারতীয় মোটরসাইকেল প্রবেশ করে চট্টগ্রামের বাজার সয়লাব হওয়ারও নানা কারণ রয়েছে। বৈদেশিক টাকা এবং ব্যবসায়ীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় চট্টগ্রামে মোটরসাইকেল সবচেয়ে বেশি বেচা-কেনা হয়। সে কারণেই বর্তমানে চোরাই মোটরসাইকেলের প্রধান বাজার চট্টগ্রাম। নগরীর পাশাপাশি গ্রামের যত্রতত্র অবৈধ মোটরসাইকেলের সংখ্যা অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে। এ কাজের সাথে বেশি জড়িত পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের লোকজন, বিভিন্ন পরিবহন সেক্টরের শ্রমিক নেতা এবং মোটরসাইকেলের মেকানিকরা।

নগরীর কদমতলী, কোতোয়ালী, বাকলিয়া, পাহাড়তলীসহ বিভিন্ন মোটরসাইকেলের গ্যারেজেও নীরবে এ ব্যবসা পরিচালিত হচ্ছে। উপজেলা পর্যায়েও এই ব্যবসার সিন্ডিকেটের একাধিক প্রতিনিধি রয়েছে। ভারত থেকে আসা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোটর সাইকেলের সাথে বিভিন্ন সময় চুরি হওয়া অনেক মোটরসাইকেলও কম দামে বিক্রি হচ্ছে। কারো নতুন-পুরাতন মোটরসাইকেল কোথাও চুরি হলে পুলিশ উদ্ধার করার পর মালিক ফেরত পাচ্ছেন না। উদ্ধার হওয়া অনেক মোটরসাইকেল চোরাই সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কম মূল্যে বিক্রি করে দিচ্ছে অবৈধ অর্থ উপার্জনের লোভে।


এ ব্যাপারে সিএমপি’র ডিসি ট্রাফিক (উত্তর) মো. সুজায়েত ইসলাম বলেন, চট্টগ্রামে এ ধরনের মোটরসাইকেল প্রতিদিন আটক হচ্ছে। কাউকে এ ব্যাপারে ছাড় না দেওয়ার কঠোর নির্দেশ রয়েছে।

নগর গোয়েন্দা বিভাগের কর্মকর্তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, নানা তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী এ ধরনের চক্রের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। তবে এখনো তাদের মূল উৎপাটন করা যায়নি।

এ ব্যাপারে বিআরটিএ চট্টগ্রামের রেজিস্ট্রেশন বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন, দেশের সব যানবাহনের রেকর্ডপত্র এখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করা হয়। যে কোন যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন অথবা চেসিস ও ইঞ্জিন নাম্বার দিয়ে রেকর্ড যাচাইয়ের সুযোগ রয়েছে। কোন যানবাহন আটক হওয়ার পর জেলা অথবা নগর ট্রাফিক অফিসের মাধ্যমে তা নিষ্পত্তি করা হয়। একান্ত প্রয়োজনে অনেক সময় কাগজপত্র যাচাই-বাছাইয়ের জন্য বিআরটিএতে পাঠানো হয়। চোরাই মোটরসাইকেল বাণিজ্য রোধে মূল ভূমিকার দায়িত্বে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। নকল যেমন ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়া যায়, তেমন নকল ভ্যাট ও রেজিস্ট্রেশনের কাগজও অনেকে বানাতে পারে। যা একটু খতিয়ে দেখলে সহজেই নির্ণয় করা সম্ভব। তবে অবৈধ কোন যানবাহন বিআরটিএ’র রেকর্ডভুক্ত করার তেমন সুযোগ নেই।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.