১৬ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৩রা মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:০১

শিশুদের আইফোন আসক্তি কমাতে ব্যবস্থা নিন

 প্রযুক্তির বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমেও বিপ্লব চলে এসেছে। এর ভালো দিক যেমন আছে, তেমন এর খারাপ দিকেরও কোনো কমতি নেই। স্কুল কলেজে হাটে মাঠে ঘাটে যেখানেই চোখ রাখুন দেখতে পাবেন মানুষের চোখ আটকে আছে মুঠোফোনের ছোট পর্দায়। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের শিশু কিশোরদের মধ্যে আশঙ্কাজনক হারে আইফোন আসক্তি বেড়ে যাচ্ছে। ফিলাডেলফিয়ায় এক সমীক্ষায় দেখা গেছে চার বছর বয়সী কিংবা তার কম বয়সের শিশুদের শতকরা ৭৫ ভাগ শিশুই আইফোন বা কোনো না কোনো অ্যাপল পণ্য ব্যবহার করেন। এতে অনেক অভিভাবক পড়ে গেছেন মহা দুশ্চিন্তায়।

তাই আইফোন-আসক্তি থেকে শিশুদের ঠেকাতে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাপলকে আহ্বান জানানো হয়েছে। এমন দুটি বিনিয়োগ কোম্পানি এই আহ্বান জানিয়েছে যারা অ্যাপলের দুই বিলিয়ন ডলারের শেয়ারের মালিক। খবর বিবিসির।

জানা পার্টনার্স এবং ক্যালিফোর্নিয়া টিচার্স পেনশন ফান্ড নামে এ দুটি প্রতিষ্ঠানের সই করা চিঠিতে অ্যাপলকে এক ডিজিটাল লক চালু করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহার শিশু-কিশোরদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলছে। অনেক পরিবারেই শিশুদের তাদের বাবা-মায়ের স্মার্টফোন বা ট্যাবলেট ব্যবহার করতে দেখা যায়, যেখানে অভিভাবকদের চেয়ে শিশুরা বেশি পারদর্শিতাও অর্জন করে ফেলেছে। অনেক শিশুর ক্ষেত্রে যা আসক্তিতে পরিণত হয়েছে।

সেজন্য বড় বিনিয়োগকারীরা আইফোন-নির্মাতা অ্যাপলের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছেন- তারা যেন এমন সফটওয়্যার তৈরি করেন, যাতে বাচ্চারা কতক্ষণ স্মার্টফোন ব্যবহার করতে পারবে তা সীমিত করে দেবে।

সম্প্রতি রয়টার্সের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধেক টিনএজার মনে করে যে তাদের মোবাইল ফোনের প্রতি আসক্তি তৈরি হয়ে গেছে। তারা তাড়না বোধ করে যে তাদের কোন মেসেজ এলে সঙ্গে সঙ্গেই তার জবাব দিতে হবে।

অন্য একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রযুক্তির অতিরিক্ত ব্যবহারের কারণে শিশু-কিশোরদের স্বাস্থ্যঝুঁকির পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর ও ব্যাপক প্রভাব ফেলছে। এমনকি আত্মহত্যার প্রবণতা ও হতাশা বেড়ে যাচ্ছে।

এই দুই বিনিয়োগকারী উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, অ্যাপল যদি এই ক্রমবর্ধমান উদ্বেগের ব্যাপারে কিছু না করে তাহলে তাদের সুনাম এবং স্টক মার্কেটে তাদের মূল্য ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

অ্যাপল এবার কি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে সেটাই দেখার পালা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*